Latest Post


লায়েবুর খাঁন : 'আমরা আছি সারা বিশ্ব জুড়ে' শিরোনামে মাদারীপুরে প্রবাসী ভিআইপি ক্লাব স্পেন এর পূর্নাঙ্গ কমিটি ঘোষনা করা হয়েছে । গত ১২হি ডিসেম্বর স্হানীয় মধুর ক্যান্টিন রেষ্টুরেন্টে তানভীর হাসান কচির সভাপতিত্বে ও তৌফিকুজ্জামান সহজের পরিচালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্হিত ছিলেন ভি আইপি ক্লাবের প্রধান সমন্নয়ক শফিক খাঁন   
সভায় সর্বসম্মতিক্রমে মোঃ আতাউর রহমান সভাপতি,মোঃ তৌফিকুজ্জামান সহজ সাধারণ সম্পাদক,মোঃ ফারুক মিয়া বয়াতী সাংগঠনিক সম্পাদক,শিবলু হাওলাদার অর্থ সম্পাদক ও জিন্নাত শফিক সাংস্কৃতিক সম্পাদক করে ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষনা করেন শফিক খাঁন   
সামাজিক কল্যাণ, শিক্ষায় অগ্রগতি ও সাহিত্যে অগ্রগতি সাধন এবং ক্রীড়া চর্চা ও ক্রীড়ার মান উন্নয়ন, সাংস্কৃতিক চর্চা ও সংস্কৃতির মান উন্নয়ন সহ প্রবাসীদের অধিকার প্রতিষ্টা করা এই ক্লাবের মূল লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য  বলে জানান ভিআইপি ক্লাবের প্রধান সমন্নয়ক শফিক খাঁন তিনি আরো উল্লেখ করেন স্পেনের পর ইউরোপের প্রতিটি দেশে  মাদারীপুর ভিআইপি ক্লাব গঠন  করা   হবে ।

ভিআইপি ক্লাব স্পেন এর নবগঠিত কমিটি নিম্নে প্রদান করা হলো :
সভাপতি মোঃ আতাউর রহমান,সহ সভাপতি মোঃ আবু জাফর মাসুদ,সহ সভাপতি মোঃ ফয়ছল আহমেদ মোল্লা, সহসভাপতি মোঃ সোহাগ মুন্সি, সহসভাপতি মোঃ এমদাদ হাওলাদার (মাদ্রিদ) সাধারন সম্পাদক মোঃ তৌফিকুজ্জামান সহজ, সহ সাধারন সম্পাদক মোঃ সৈয়দ বাপ্পি, সহ সাধারন সম্পাদক  মোঃ শিপন শাহ (মাদ্রিদ),সহ সাধারন সম্পাদক মোঃ আতিকুর রহমান টারজান, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ফারুক মিয়া বয়াতী, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ রানা খাঁন, সহ সাধারন সম্পাদক মোঃ শামিম খাঁন, প্রচার সম্পাদক মোঃ জুয়েল জোমদ্দার, সহ প্রচার সম্পাদক মোঃ হান্নান ফকির,দপ্তর সম্পাদক মোঃ রফিকুল ইসলাম,অর্থ সম্পাদক শিবলু হাওলাদার,আন্তর্জাতিক সম্পাদক পৃথিম রাজ, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মোঃ জাহিদ বেপারী,মহিলা সম্পাদিকা স্বপ্ন শামিম,সহ মহিলা সম্পাদিকা ফারজান সহজ,সহ মহিলা সম্পাদিকা তাহমিন রহমান কেয়া, সমাজ কল্যান সম্পাদক মোঃ সুমন মোল্লা,সহ সমাজ কল্যান সম্পাদক মনির হোসেন,সাংস্কৃতিক সম্পাদক জিন্নাত শফিক,ক্রীড়া সম্পাদক মোঃ মোক্তার হোসেন ।
উপদেষ্ঠা পরিষদের সদস্যরা হলেন: নুরুল ইসলাম,তানবীর হাছান, শফিক খাঁন (প্রধান সমন্নয়কারী), এনায়েত ঢালী,সেলিম চৌকদার,জাহাঙ্গীর মৃধা,ছালাম চৌকদার,আবুল কালাম বাদল, সোহেল ফরাজী,শামিম হাওলাদার ।  



লায়েবুর খাঁন : পর্যটন নগরী খ্যাত বার্সেলোনায় মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে এসোসিয়েশন কোলতোরাল দে বাংলাদেশ এন কাতালোনিয়ার উদ্যোগে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 
গতকল্য  বার্সেলোনার স্হানীয় এক হল রুমে  সংগঠনের প্রবীন মুরব্বী আব্দু জব্বার এর সভাপতিত্বে ও শিপলু আহমেদ নিয়াজীর পরিচালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের প্রাক্তন কার্যকরী পরিষদের সদস্য ছোবহান মিয়া,লুৎফুর রহমান সুমন, সুনাম গঞ্জ এসোসিয়েশনের সভাপতি মনোয়ার পাশা,স্পেন বাংলা প্রেস ক্লাবের সাধারন সম্পাদক  আফাজ ,
কমিউনিটি
 ব্যক্তিত্ব মির্জা সালাম, বিশ্বনাথ এসোসিয়েশনের সভাপতি এইচ রায়হান, শাহজালাল জামে মসজিদের অর্থসম্পাদক ইকবাল জুনায়েদ, ভয়েস অব বার্সেলোনার সাধারন সম্পাদক এ আর লিটু,বিয়ানীবাজার জনকল্যান এসসিয়েশনের সহ সভাপতি আব্দুল করিম,গোলাপগঞ্জ এসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়াজিজুর রহমান মুজিব,
ব্যবসায়ী সুলেমান বাছিত,
ভয়েচ অব বার্সেলোনা সিনিওর সহ সভাপতি জুয়েল হোসেন,সুনামগঞ্জ এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক নজরুল ইসলাম আবির,আনহার মিয়া,এলাইস মিয়া,সুরত খাঁন,আব্দুল হাই,জামাল আহমেদ,ফয়ছল আহমদ,জিয়াউর  রহমান,আজমান আলি,মোঃ সাঈদ আহমদ সামু,আব্দুল হালিম প্রমুখ ।
সভায় মহান বিজয় দিবসকে সফল করতে বিজয় ফুল বিতরণ সহ বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। এ উপলক্ষে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট  কমিটি গঠন করা হয়েছে। সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন জুবায়ের আহমেদ ।


আফাজ জনিঃ মাদারীপুরের প্রায় দেড় লক্ষ প্রবাসীদের একই পরিবারভুক্ত করে মাদারীপুরের বিভিন্নভাবে সমাজ উন্নয়নে ভূমিকা রাখার প্রত্যয়ে প্রবাসী ভি.আই.পি ক্লাব মাদারীপুরের জন্ম। বিশ্বের প্রায় বিশটি দেশে বসবাসরত পঞ্চাশাধিক সদস্য বর্তমানে এ সঙ্গঠনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে কাজ করে চলেছেন। সাঙ্গঠনিক যাত্রাকে আরো মসৃণ করতে স্পেনের বার্সেলোনায় বসবাসরত সদস্যরা আয়োজন করে আলোচনা সভার। বৃহঃবার (২২.১১.২০১৮) আয়োজিত এ সভার সভাপতিত্ব করেন মোঃ নুরুল ইসলাম এবং পরিচালনা করেন তৌফিকুজ্জামান সহজ।


সভায় প্রবাসী ভি.আই.পি ক্লাব মাদারীপুরের প্রধান সমন্নয়কারী শফিক খানের বর্ণনায় উঠে আসে তাঁদের বিগত দিনের কর্মকান্ড এবং ভবিষৎ কর্মপরিকল্পনার কথা।
এ সময় উপস্থিতির মধ্যে বক্তব্য রাখেন তানবির হাসান (কচি), আতাউর রহমান শাহিন, মোঃ হান্নান (ফকির), মোঃ শফিকুল ইসলাম, মোঃ নাজমুল ইসলাম (সোভন), মোঃমাসুদ রানা, মোঃ বাদল হাওলাদার, মোঃ ফারুক বয়াতী, সোহাগ মুন্সি, শামীম খান, ফরাজী সোহেল, ফয়সাল আহমেদ, মোঃ রুমি, শিপলু হাওলাদার, বাবুল সরদার প্রমূখ।
অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্পেন বাংলা প্রেস ক্লাবের প্রথম সদস্য মিরন নাজমুল, প্রচার সম্পাদক লায়েবুর রহমান, সদস্য মোঃ ছালাহ উদ্দিন, সদস্য জাফার হোসাইন, কমিউনিটি নেতা আবু তালেব আল মামুন।
অনুষ্ঠিত সভায় সদস্যরা সর্বসম্মতিতে আগামী ৩রা ডিসেম্বর প্রতিবন্ধী দিবস উপলক্ষ্যে মাদারীপুরের প্রতিবন্ধী স্কুলে হুইল চেয়ার বিতরণ, পুরো ইউরোপ জুড়ে প্রতিটি দেশে কার্যকরী কমিটি গঠন এবং অতি শীগ্রই স্পেনে কার্যকরী কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন।


লায়েব খানঃ স্পেনের বার্সেলোনায় সমাজ উন্নয়নের প্রত্যয়ে আত্মপ্রকাশ করেছে জকিগঞ্জ সমাজ কল্যান পরিষদ। মোট ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয় উপস্থিত জকিগঞ্জ প্রবাসীদের মতামতের ভিত্তিতে।

২২শে নভেম্বর, বৃহঃবার বার্সেলোনার স্থানীয় একটি হলে সম্পন্ন হয় কমিটি গঠন প্রক্রিয়া। নবগঠিত কার্যকরি কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ ছাদ উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক  মোহাম্মদ বদরুল হকের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয় সভা।
নবগঠিত কার্যকরি পরিষদঃ
সভাপতি ছাদ উদ্দিন খান, সিনিয়র সভাপতি সিহাব  উদ্দিন, সহ সভাপতি কবির আহমদ, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ বদরুল হক, সহ সাধারণ সম্পাদক হারুন আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মুজাহিদ আহমেদ (সামু), সহ সাংগঠনিক সম্পাদক সাহিন আহমদ, অর্থ সম্পাদক মেহরাব হোসেন (মাসুম), সহ-অর্থ সম্পাদক  সাহেদ আহমেদ, প্রচার সম্পাদক  আল মাহমুদ, সহ প্রচার সম্পাদক  আল আমিন, দপ্তর সম্পাদক সাহিদুল  আলম, ক্রীড়া সম্পাদক রাসেল আহমেদ, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক জয়নাল আহমেদ, ধর্ম সম্পাদক ফয়সল জলিল খান। সদস্যঃ রফিক আহমদ, মুনসাদ খাঁন, হুসাইন মুনশি, বেলাল আহমদ, ইকবাল আহমদ, রুহুল আমিন, রুম্মান আমিন, মুস্তাক আহমদ, ফেরদেউস আহমদ, আসাদুর রহমান, জহিরুল ইসলাম, ফাহিম আহমদ, বাবর আহমদ, আজিজ উদ্দিন
উপদেষ্ঠাঃ আব্দুল মুকিত খাঁন, হেলাল আহমদ চৌধুরী,  নিজাম উদ্দিন।
কমিটি গঠন শেষে কার্যকরী কমিটির সদস্যরা উপস্থিত সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনায় সহযোগীতা কামনা করেন।


জনপ্রিয় অনলাইন :  যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ব্রেক্সিট চুক্তির বিরুদ্ধে ভোট দিতে পারেন বলে হুমকি দিয়েছেন স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ। জিব্রাল্টার উপত্যকার মর্যাদা নিয়ে ভবিষ্যত আলোচনা বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনা না থাকলে চুক্তি মানবেন না বলে জানিয়েছেন তিনি। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ খবর জানিয়েছে।

১৭১৩ সালের ইউট্রেট চুক্তি অনুযায়ী ভূখণ্ডটি যুক্তরাজ্যের কাছে হস্তান্তর করে স্পেন। তারপরও তারা এখনও ভূখণ্ডটির মালিকানা দাবি করে থাকে। যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ইউরোপীয় ইউনিয়ন-ইইউর আলোচনায় মধ্যে জিব্রাল্টার থাকবে না- এমন নিশ্চয়তা চায় স্পেন। স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ বলেন, আজ বিষয়টি এমন দাঁড়িয়েছে যে, যদি জিব্রাল্টার বিষয়ে কোনও পরিবর্তন করা না হয়, তাহলে স্পেন ব্রেক্সিট চুক্তিতে না ভোট দেবে
ব্রেক্সিট আলোচনার সময় স্পেন, আয়ারল্যান্ড ও সাইপ্রাস নিজেদের সীমান্ত বিষয়ে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে আলাদা করে আলোচনা করেছে। সোমবার স্পেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জোসেপ বোরেল বলেছেন, ব্রেক্সিটের খসড়া চুক্তিতে জিব্রাল্টার বিষয়ে আলাদা আলোচনার বিষয়টি পরিষ্কার করা হয়নি। এটা ইইউ ও যুক্তরাজ্যের মধ্যকার ভবিষ্যত আলোচনার বিষয় নয়।

প্রধানমন্ত্রী সানচেজ মঙ্গলবার মাদ্রিদে এক সভায় নিজের বক্তব্যে এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে তুলে ধরেছেন। তিনি জিব্রাল্টার বিষয়ে ভবিষ্যতে কোনও আলোচনা দ্বিপাক্ষিক হতে হবে বলে দাবি করেছেন।  তিনি বলেন, একটি দেশ হিসেবে আমরা এটা মেনে নিতে পারি না যে, জিব্রাল্টার বিষয়ে ভবিষ্যতে সব আলোচনা যুক্তরাজ্য ও ইইউর মধ্যে হবে। এটা স্পেন ও যুক্তরাজ্যের মধ্যে হতে হবে।
ব্রেক্সিটের খসড়া চুক্তির ১৮৪ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের ২৯ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে ব্রেক্সিট কার্যকর হওয়ার দিন থেকে ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত ট্রানজিট সময় চলাকালীন ইইউ এবং যুক্তরাজ্য তাদের ভবিষ্যত সম্পর্ক বিষয়ে চুক্তি নিয়ে ধারাবাহিকভাবে আলোচনা করে যাবে।
কিন্তু স্পেন মনে করে, এই ধারায় প্রশ্নটি অস্পষ্ট থেকে গেছে। এটা ভবিষ্যতে জিব্রাল্টারের ক্ষেত্রে প্রয়োগ হবে না- এমন নিশ্চয়তা চায় দেশটি। তারা উপত্যকাটির মর্যাদা বিষয়ে ভবিষ্যতে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা করার অধিকার চায়। আর খসড়া চুক্তিতে এটা করার এখতিয়ারের কথা থাকতে হবে।

জিব্রাল্টারের মুখ্যমন্ত্রী ফাবিয়ান পিকার্দো স্পেনের বিরুদ্ধে শেষ মুহূর্তে বিষয়টি উত্থাপন করার খুবই পরিচিত কৌশল অবলম্বন করার অভিযোগ তুলেছেন। তিনি বলেন, পারস্পারিক ভরসা ও বিশ্বাসকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে স্পেনের এই অবস্থান তেমন কোনও কাজে আসবে না
ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মের একজন মুখপাত্র বলেছেন, জিব্রাল্টারসহ অন্যান্য বিদেশি রাজ্য ও ব্রিটিশ রাজের অধীনস্ত এলাকায় এই খসড়া চুক্তির আওতায় রয়েছে। তিনি বলেন, আমরা এমন একটি চুক্তি করছি যা পুরো যুক্তরাজ্য পরিবারের জন্য কাজ করবে
জিব্রাল্টার উপত্যকাটি ১৭১৩ সালের চুক্তির আওতায় যুক্তরাজ্যকে দিয়ে দিলেও স্পেন বেশ কয়েকবার এর নিয়ন্ত্রণ ফিরে পাওয়ার চেষ্টা করেছে। ১৯৬৭ সালের এক গণভোটে জিব্রাল্টারের ৯৯.৬ শতাংশ মানুষ যুক্তরাজ্যে থেকে যাওয়ার পক্ষে ভোট দিয়েছিল। এছাড়া ২০০২ সালের ভোটে জিব্রাল্টারে যৌথ সার্বভৌমত্ব বিষয়ক একটি প্রস্তাবও সেখানকার বাসিন্দারা ব্যাপক হারে প্রত্যাখ্যান করেছে। ১৯৬৭ সালের গণভোটের পর স্পেন তার জিব্রাল্টার সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছিল। ১৯৮৫ সালে ইউরোপীয় অর্থনৈতিক কমিউনিটিতে যোগ দেওয়ার পর তারা ওই সীমান্ত খুলে দেয়।


জনপ্রিয় অনলাইন : ইউরোপে যাওয়ার দাবিতে অনড় ৯০ জনেরও বেশি শরণার্থী ও অভিবাসীকে জাহাজ থেকে নামাতে রাবার বুলেট ও টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করেছে লিবিয়া। একটি রাবারের নৌকায় ইতালির উদ্দেশ্যে রওনা দেওয়ার পর ভূমধ্যসাগর থেকে তাদের উদ্ধার করে পানামার পতাকাবাহী একটি পণ্যবাহী জাহাজ। জাহাজে থাকা অভিবাসীদের দাবি ইতালি নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাদের লিবিয়ার মিসরাতা বন্দরে নিয়ে আসে জাহাজটি। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা জানিয়েছে, অভিবাসীদের মধ্যে ১৪ জন স্বেচ্ছায় বন্দরে নেমে গেলেও বাকিরা অস্বীকৃতি জানায়। তাদের আটক কেন্দ্রে নিতে মঙ্গলবার অভিযান চালায় বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে নিশ্চিত করেছেন দেশটির এক কর্মকর্তা।

কয়েক বছর ধরেই যুদ্ধ ও দারিদ্র থেকে পালিয়ে ইউরোপে নতুন জীবন প্রত্যাশীদের মূল রওনা কেন্দ্র হয়ে উঠেছিল লিবিয়ার পশ্চিমাঞ্চলীয় উপকূল। নৌকাডুবিতে শত শত অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু ও ইতালির চাপের মুখে গত বছর   উপকূলীয় পাচারচক্র বিরোধী তৎপরতা জোরালো করে লিবিয়া। ওই সময়ে নতুন আগতদের চাপে হিমশিম খেতে থাকা ইতালির চাপে বন্ধ হয়ে যায় সমুদ্রে দাতব্য উদ্ধার তৎপরতা।
আল জাজিরা জানিয়েছে, ইতালির উদ্দেশে রওনা দেওয়ার চার দিনের মাথায় এই অভিবাসী গ্রুপটিকে উদ্ধার করে জাহাজটি। গত ১০ নভেম্বর তাদের মিসরাতা বন্দরে নিয়ে আসা হয়। পরে তাদের উত্তর আফ্রিকার দেশটির একটি আটক কেন্দ্রে নেওয়ার কথা বলা হলে অস্বীকৃতি জানায় তারা। আটক কেন্দ্রে যাওয়ার চেয়ে মরতে প্রস্তুত বলে জানায় এসব অভিবাসীরা।
মঙ্গলবার লিবিয়ার মধ্যাঞ্চলীয় কোস্টগার্ড কমান্ডার তওফিক ইসকেয়ার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, একটি যৌথ দল পণ্যবাহী জাহাজটিতে অভিযান চালায়। তাদের নামাতে রাবার বুলেট ও টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। ওই কর্মকর্তা জানান, জোর করে নামানোর সময় বেশ কয়েকজন আহত হলেও হাসপাতালে চিকিৎসার পর ভালো অবস্থায় আছে তারা। পরে এসব শরণার্থী ও অভিবাসীদের ওই শহরের একটি আটক কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেন তিনি।
তবে আটক কেন্দ্রে ফিরে যাওয়া খুবই বিপদজনক বলে মনে করে জাহাজটিতে থাকা অভিবাসীরা। এদের মধ্যে কাই (১৮) ও দানিয়েল (১৬)নামে দক্ষিণ সুদানের দুইজন আল জাজিরাকে এই সপ্তাহের শুরুতে বলেছিলেন, সেখানে নিপীড়ন ও পাচারকারীদের কাছে বিক্রি করে দেওয়ার ঝুঁকি আছে। বিপরীতে ছাড়া পাওয়ার সুযোগ খুব কম বলে দাবি তাদের। দানিয়েল জানান, জাহাজটি উদ্ধারের আগে তাদের নৌকাটি প্রায় ২০০ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে ফেলেছিল। দানিয়েল ও কাই দুজনেই বলেন, জাহাজের কর্মীরা তাদের ইতালি নিয়ে যাওয়ার আশ্বাস দিলেও তার পরিবর্তে মিসরাতায় নিয়ে আসে।
জাহাজে থাকা অনেকেই লিবিয়ায় মানব পাচারকারীদের নির্যাতন থেকে বেঁচে যাওয়ার দাবি করেছে। আবার অনেকেই কর্তৃপক্ষের পরিচালিত আট ককেন্দ্রে মারাত্মক নিপীড়নের শিকার হওয়ার অভিজ্ঞতার থাকার দাবি করেছে। এর আগে লিবিয়ার অবৈধ অভিবাসী প্রতিরোধ বিভাগ পরিচালিত আটক কেন্দ্রে মৃত্যুর খবর জেনেছিল আল জাজিরা। ওই খবরের বিষয়ে জানতে সংশ্লিষ্ট বিভাগে বহুবার যোগাযোগ করা হলেও সাড়া পায়নি তারা।


জনপ্রিয় অনলাইন : দুর্নীতির মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য জ্যেষ্ঠ আইনজীবী রফিকুল ইসলাম মিয়াকে আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ঢাকা মহানগর পুলিশের গণমাধ্যম ও জনসংযোগ বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মাসুদুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে আজ দুপুরে ঢাকার বিশেষ জজ-৬ আদালত সম্পদের হিসাব জমা না দেওয়ার মামলায় রফিকুল ইসলাম মিয়াকে তিন বছর কারাদণ্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও তিন মাসের জেল দেন। রায় ঘোষণার সময় আদালতে হাজির না থাকায় তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।
রফিকুলের আইনজীবী ইকবাল হোসেন বলেন, রফিকুল ইসলাম মিয়া সারা দিন গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে ছিলেন। বিএনপির প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার নেওয়ার কার্যক্রমে ছিলেন। সেখান থেকে বের হওয়ার পর রফিকুল ইসলাম মিয়াকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়।
আইনজীবী ইকবাল বলেন, প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার নেওয়ার কার্যক্রমে উপস্থিত থাকায় রফিকুল ইসলাম মিয়ার পক্ষে তিনি আদালতে সময় চেয়ে আবেদন করেন। কিন্তু আদালত তাঁর আবেদন নাকচ করে রায় ঘোষণা করেন। রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করবেন রফিকুল ইসলাম।
রায়ে বলা হয়, দুর্নীতি দমন ব্যুরোর (বর্তমানে দুর্নীতি দমন কমিশন) অনুসন্ধানে জানা যায়, রফিকুল ইসলাম মিয়ার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ আছে। পরে ১৯৫৭ সালের দুর্নীতি দমন কমিশন আইনের ৪ (১) ধারায় রফিকুল ইসলাম মিয়াকে সম্পদের হিসাব জমা দেওয়ার জন্য ২০০১ সালের ৭ এপ্রিল নোটিশ দেওয়া হয়। নির্ধারিত ৪৫ দিনের মধ্যেও সম্পদের হিসাব দেননি রফিকুল ইসলাম মিয়া। দুর্নীতি দমন কমিশন আইনের ৪ (২) ধারার অপরাধ করায় রফিকুল ইসলাম মিয়াকে ৩ বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ডসহ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৩ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হলো।
মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণী থেকে জানা গেছে, ২০০১ সালের ১০ জুন রফিকুল ইসলাম মিয়া সম্পদের হিসাব জমা দেওয়ার জন্য দুর্নীতি দমন ব্যুরোর দেওয়া নোটিশ গ্রহণ করেন। কিন্তু তিনি সম্পদের বিবরণ জমা দেননি। এই অভিযোগে ২০০৪ সালের ১৫ জানুয়ারি তাঁর বিরুদ্ধে উত্তরা থানায় মামলা হয়। তদন্ত শেষে ওই বছরের ৩০ নভেম্বর আদালতে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। আদালত ওই অভিযোগপত্র আমলে নিয়ে গত বছরের ১৪ নভেম্বর রফিকুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরু করেন। রাষ্ট্রপক্ষ থেকে ছয়জন সাক্ষীকে আদালতে উপস্থাপন করা হয়।
দুদকের পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন দুদকের কৌঁসুলি মোশাররফ হোসেন কাজল।
সুত্র : প্রথম আলো ।


আফাজ জনিঃ স্পেনের বার্সেলোনায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠিত হয়েছে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল। গত ১৮ই নভেম্বর রোজ রবিবার ২০১৮ বার্সেলোনার শাহ জালাল জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হওয়া এ মাহফিল পরিচালনা করেন মসজিদের ইমাম মাওলানা হাফেজ ইসমাঈল হোসেন এবং সভাপতিত্ব করেন মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি সুরুজ্জামান জামান।

মিলাদুন্নবী পালন উপলক্ষ্যে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে নবী করিম হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) জীবনী নিয়ে আলোচনা করেন জার্মানের বার্লিনের বায়তুল মোকাররম জামে মসজিদের খতিব মাওলানা হেলাল উদ্দিন সিরাজী। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বয়ান পেশ করেন বার্সেলোনার লতিফিয়া ফুলতলী জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা মুফতি আব্দুল জলিল। 
মসজিদ পরিচালনা কমিটির সদস্যবৃন্দ ছাড়া, সাংবাদিক, সামাজিক, রাজনৈতিক ব্যাক্তিবর্গ সহ বার্সেলোনার ধর্মপ্রান মুসল্লীরা উপস্থিত ছিলেন এ মাহফিলে। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে নবী করিম (সাঃ) জীবনদর্শন সম্পর্কে সংকিপ্ত আলোচনা করে উপস্থিত সকলের প্রতি আহ্বান জানান, নবীজীর দেখানো পথ অনুসরণ করে ইসলামের বিধান কায়েম করার। আলোচনা শেষে মিলাদ এবং বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন আগত প্রধান অতিথি।

মসজিদ কমিটির সহযোগীতার পাশাপাশি বাস্তবায়ন কমিটির পক্ষে সার্বিক সহযোগিতা করেন জাহাঙ্গীর আলম শিপলূ।


জনপ্রিয় অনলাইন : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শরিক দল বিএনপির প্রতীক ধানের শীষ নিয়ে অংশ নেবে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন রাজনৈতিক জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে মতিঝিলে ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে ঐক্যফ্রন্টের এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বৈঠক শেষে জোটের শরিক দল নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না সাংবাদিকদের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

আরও পড়ুন- ঐক্যফ্রন্টের প্রতীক ধানের শীষ, ইসিতে চিঠি

বৈঠক শেষে বেরিয়ে মাহমুদুর রহমান মান্না সাংবাদিকদের বলেন, জোটের দলগুলোর প্রার্থীরা নির্বাচনে কোন প্রতীকে অংশ নেবেন, তা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। আমরা আলোচনার পর সিদ্ধান্ত নিয়েছি, জোটের সব দলের প্রার্থীরা ধানের শীষ প্রতীকেই নির্বাচনে অংশ নেবেন।
বৈঠকে ড. কামাল হোসেন, জোটের মুখপাত্র ও বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, গত ৮ নভেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা। তফসিলে ২৩ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারিত ছিল। তফসিলের পর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে একমাস ও সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন জোট যুক্তফ্রন্ট এক সপ্তাহ পিছিয়ে পুনঃতফসিল ঘোষণার জন্য আবেদন করেন নির্বাচন কমিশনে (ইসি)। পরে ইসি বৈঠক করে এক সপ্তাহ পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করে ১২ নভেম্বর পুনঃতফসিল ঘোষণা করে।
এদিকে, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) ধারা-২০-এর (১)-এর (এ) বিধান অনুযায়ী, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে ইচ্ছুক একাধিক নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল মিলে নির্বাচনী জোট গঠন করলে এ জোটের যেকোনো একটি দলের প্রতীক জোটভুক্ত প্রার্থীদের বরাদ্দ করা যাবে। এ ধরনের প্রতীক পেতে হলে জোটকে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার তিন দিনের মধ্যে নির্বাচন কমিশন বরাবর আবেদন করতে হবে।
এই হিসাবে ৮ নভেম্বর তফসিল ঘোষণার পর ১১ নভেম্বরের মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোকে জোটগতভাবে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার তথ্য জানাতে নির্দেশনা দেয় ইসি। ওই সময় ঐক্যফ্রন্ট তাদের প্রতীক নির্ধারণ করতে পারেনি। তবে বিএনপি চিঠি দিয়ে ইসিকে জানায়২০ দলীয় জোটের আটটি দল ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেবে। পরে পুনঃতফসিল ঘোষণার পর জানানো হয়, জোটগতভাবে অংশগ্রহণ ও প্রতীকের সিদ্ধান্ত বৃহস্পতিবারের (১৫ নভেম্বর) মধ্যে জানানোর সময়সীমা বেঁধে দেয় ইসি। সেই নির্দেশনা অনুযায়ীই ঐক্যফ্রন্ট তাদের বৃহত্তম শরিক দল বিএনপ্রি প্রতীক ধানের শীষে নির্বাচনি মাঠে নামার সিদ্ধান্ত নিলো।
উল্লেখ্য, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলোর মধ্যে গণফোরামের প্রতীক উদীয়মান সূর্য, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) প্রতীক তারা, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের প্রতীক গামছা ও নাগরিক ঐক্যের প্রতীক চারটি জোটবদ্ধ হাত। এর মধ্যে নাগরিক ঐক্য অনিবন্ধিত হওয়ায় ব্যালটে তাদের প্রতীক থাকবে না এমনিতেই। আর বাকি দলগুলো ঐক্যফ্রন্টের অধীনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে রাজি হওয়ায় তাদের দলীয় প্রতীকগুলোও থাকবে না।

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget