TRENDING NOW


মো: ছালাহ উদ্দিন,বার্সেলোনা : মহামারি করোনা ভাইরাসে মৃতদের শ্রদ্ধা জানাতে স্পেনে ১০ দিনের জাতীয় শোক ঘোষণা করা হয়েছে।
বুধবার (২৬ মে) থেকে শুরু হয়ে আগামী ১০ দিন দেশজুড়ে শোক পালন করা হবে বলে মঙ্গলবার (২৫ মে) দেশটির মন্ত্রীসভার এক বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে জানান সরকারের মুখপাত্র মারিয়া জেসুস।
বিশ্বে যে কয়েকটি দেশ করোনা ভাইরাসের ভয়াবহ তাণ্ডবের শিকার হয়েছে স্পেন তাদের মধ্যে অন্যতম। এ মুহূর্তে দেশটিতে মৃত্যুর সংখ্যা কমে এলেও করোনা ভাইরাসে এক প্রকার মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছিল ইউরোপের এই দেশটি। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে স্পেনে মারা গেছেন প্রায় ২৭ হাজার মানুষ।
দেশটির সরকারের মুখপাত্র মারিয়া জেসুস মন্টিরো বলেছেন, করোনায় মৃতদের শ্রদ্ধা জানাতে সরকার ১০ দিনের জাতীয় শোক পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই সময়ে দেশের সরকারি সকল ভবনে পতাকা অর্ধনমিত রাখা হবে। নৌবাহিনীর জাহাজেও পতাকা অর্ধনমিত থাকবে।
স্পেনে এখন পর্যন্ত করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ২৬ হাজার ৮৩৭জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৮২হাজার ৪০০জনের বেশি মানুষ। করোনা সংক্রমণ এবং মৃত্যু কমে আসায় দেশটিতে লকডাউনে শিথিলতা আনা হয়েছে।

কবির আল মাহমুদ, স্পেন : স্পেনে বৈধ কাগজপত্র ছাড়া বসবাসকারী বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের দুই লাখ অবৈধকে বৈধ করে কাজ করার সুযোগ, স্বাস্থ্য সেবা সবার জন্য উন্মুক্ত এবং প্রবাসী অভিবাসীদের জন্য ফ্রী দোভাষী দেয়ার দাবিতে মাদ্রিদে মানববন্দন ও বিক্ষোভ-সমাবেশ করছে স্পেনের বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন ও অভিবাসীরা।
স্প্যানিশ মানবাধিকার সংগঠন রেড ইন্টার লাভাপিয়েস এবং রেড সলিদারিদাদ আমন্ত্রণে বাংলাদেশি মানবাধিকার সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন দে ভালিয়েন্তে বাংলার তত্ত্বাবধানে ৪ দফা দাবিসংবলিত ব্যানার নিয়ে প্রবাসী বাংলাদেশিরা এতে অংশগ্রহণ করেন। মঙ্গলবার (২৬ মে) কয়েক শত স্থানীয় আদিবাসীদের সঙ্গে উল্লেখযোগ্য প্রবাসী বাংলাদেশিরাও মানববন্দন এবং বিক্ষোভ-সমাবেশে অংশগ্রহণ করে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদের বাঙালী অধ্যুষিত লাভাপিয়েসের নেনসন মেন্ডেলা পার্ক সংলগ্ন সেন্ট্রো সালুদ (সরকারী মেডিক্যাল) এর সামনে এই মানববন্দন এবং বিক্ষোভ-সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বৈধ কাগজপত্র ছাড়া বসবাসকারী বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের অবৈধদেরকে বৈধ করে কাজ করার সুযোগ এবং প্রবাসী অভিবাসীদের জন্য ফ্রী দোভাষী দেয়াসহ চার দফা দাবি তুলে ধরেন প্রবাসীরা।
দাবিগুলো হলো- স্বাস্থ্য সেবা সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া,সকল প্রবাসী অভিবাসীদের জন্য ফ্রী দোভাষীর ব্যাবস্থা, অবৈধ অদিবাসীদেরকে বৈধতা প্রদান, মাস্ক সবার ফ্রী করা। বাংলাদেশি মানবাধিকার সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন দে ভালিয়েন্তে বাংলার সভাপতি মোহাম্মদ ফজলে এলাহীর উপস্থাপনায় আয়োজিত মানববন্দন ও বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য দেন রেড ইন্টার লাভাপিয়েসের সভাপতি মারিয়া খসে পেপা তররেস,রেড ইন্টার লাভাপিয়েসের মাইতি, রেড সলিরিদাদ এর আকখিদা নিনেস,
আন্তর্জাতিক মিউজিয়াম রেইনা সুফিয়ার পরিচালক আনা লঙ্গনী,পিলার আগুইলার, মাস মাদ্রিদের অরিক্স, অ্যাসোসিয়েশন দে ভালিয়েন্তে বাংলার সাধারন সম্পাদক রমিজ উদ্দিন, জুলহাস উদ্দিন,আলামীন পালোয়ান, শাহ আলমসহ বিভিন্ন সংগঠনের স্থানীয় নেতারা। মানববন্দন এবং সমাবেশে স্প্যানিশ, বাংলাদেশি, মরক্কো, আফ্রিকান, সেনেগালসহ বিভিন্ন দেশের প্রবাসী অভিবাসীরা অংশ নেন। সভায় বক্তারা বললেন,স্পেনে অবৈধ অভিবাসীরা যাদের বৈধ কাগজ নেই, তারা প্রতিনিয়ত ভালো কাজ এবং স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হন।স্পেনে অবৈধ অভিবাসীদের এসব ন্যায্য দাবিগুলো এখনও পুরণ হয়নি। এখনো অবৈধ অভিবাসীরা ভিবিন্নভাবে শোষিত হচ্ছে। এসব লিগ্যাল দাবি পুরণ করার জন্যই এই সংকটময় মুহূর্তে ও তারা রাজপথে নেমে এসেছেন।

এসবিএন অনলাইন : স্পেনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ প্রথম একজন বাংলাদেশি মহিলা মৃত্যুবরণ করেছেন। তার নাম সৈয়দা জামিলা খাতুন (৭৩)। স্থানীয় সময় ২৩ মে সকাল সাড়ে ১১টায় কাতালোনিয়ার আরনাউ দে ভিলানভা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন। সৈয়দা জামিলা খাতুনের বাড়ি বাংলাদেশের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়। এ নিয়ে স্পেনে করোনাভাইরাসে ৪ জন প্রবাসী বাংলাদেশি মৃত্যুবরণ করেছেন।
মৃতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, সৈয়দা জামিলা খাতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ১৭ দিন ধরে লেইডার আরনাউ দে ভিলানভা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। ২৩ মে  সকালে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জামিলা খাতুন মৃত্যুবরণ করেছেন বলে তার পরিবারকে জানায়।
মৃত সৈয়দা জামিলা খাতুন কাতালোনিয়া প্রদেশের লেইডায় বসবাস করতেন। মৃত্যুকালে তিনি ৩ ছেলে ও ৪ মেয়ে রেখে গেছেন। ছেলে ৩ জনই স্পেনে বসবাস করছেন। সৈয়দা জামিলা খাতুনের মেঝ ছেলে সৈয়দ গোলাম মোস্তফা জানান, জরুরি অবস্থার কারণে বাংলাদেশে যেহেতু লাশ প্রেরণ সম্ভব নয়, তাই স্পেনেই তার মায়ের কবরের ব্যবস্থা করার জন্য তারা প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
প্রসঙ্গত, স্পেনে স্বস্থিজনকহারে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ও মৃতের সংখ্যা কমছে। ইতিমধ্যে জরুরি রাষ্ট্রীয় সতর্কতার বিভিন্ন বিষয় শিথিল করে ৪ ধাপের একটি পরিকল্পনা সরকার ঘোষণা করেছে। এ ধাপগুলো সফলভাবে সম্পন্ন হলে আগামী জুন মাসের শেষের দিকে স্বাভাবিক অবস্থায় স্পেন ফিরে আসবে বলে দেশটির প্রধানমন্ত্রী পেদ্র সানচেজ জানিয়েছেন। বৈশ্বিক এ মহামারিতে স্পেনে গত ২৬ মার্চ হোসাইন মোহাম্মদ আবুল (৬৭), ৫ এপ্রিল জাকির হক ওরফে আনোয়ার হোসেন (৬৭),
  ৬ এপ্রিল আব্দুস শহীদ (৫৭) ও ২৩ মে সৈয়দা জামিলা খাতুন (৭৩)- এ ৪ জন প্রবাসী বাংলাদেশি মৃত্যুবরণ করেছেন। 

জনপ্রিয় অনলাইন : মুসলিমদের সব চেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব হচ্ছে ঈদুর ফিতর। আর এই দিনটিতে মুসলমানরা একসঙ্গে ঈদের নামাজ পড়েন। করোনাভাইরাসের কারণে এবার পরিস্থিতি একটু অন্যরকম।  তবে জার্মানির বার্লিনে মুসলিমরা যাতে ঈদের সময় নামাজ আদায় করতে পারেন তার জন্য একটি গির্জা তাদের দরোজা খুলে দিয়েছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কারণে স্থানীয় মসজিদে মানুষের স্থান সঙ্কুলান হচ্ছে না।
জার্মানিতে প্রার্থনা স্থলগুলো ৪ঠা মে থেকে খুলে দেয়া হয়েছে, কিন্তু বলা হয়েছে যারা প্রার্থনা করবেন তাদের দেড় মিটার (৫ ফুট) দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।
ফলে নিউকোলন এলাকার দার আস-সালাম মসজিদ শুক্রবার মাত্র হাতে গোণা কয়েকজন নামাজীকে জায়গা দিতে পারে।
সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসে ক্রুজবার্গ-এর মার্থা লুথেরান চার্চ। তারা বলেন মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ তাদের গির্জায় জুমার নামাজ আদায় করতে পারবেন।
এবছর পৃথিবীর আর সব দেশের মত বার্লিনেও করোনা সংকটের কারণে সবরকম ধর্মীয় অনুষ্ঠান নিয়ম অনুযায়ী ও প্রথা মেনে পালন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।
"এট দারুণ একটা ব্যবস্থা এবং এই সঙ্কটের মাঝে রোজার সময় আমাদের খুবই খুশি করেছে," রয়টার্স বার্তা সংস্থাকে বলেন স্থানীয় ওই মসজিদের ইমাম। "এই মহামারি আমাদের সম্প্রদায়ের মধ্যে ঐক্য তৈরি করেছে, সঙ্কটই মানুষকে কাছে নিয়ে আসে।"
"কিন্তু এখানে নামাজ আদায় করতে অদ্ভুত লাগছিল, ভেতরে বাজনা আছে, ছবি আছে," বলেন নামাজী সামির হামদুন, "ইসলামের প্রার্থনাস্থলে তো এসব থাকার কথা নয়।"
"কিন্তু এসব অগ্রাহ্য করতে হবে, ভাবতে হবে আমরা ঈশ্বরেরই একটা আলয়ে বসে আছি।"
"আমি জার্মান ভাষায় বক্তৃতা করেছি," জানান মনিকা ম্যাথিয়াস। "আর নামাজের সময় আমি শুধু একটা কথাই বলেছি- হ্যাঁ, হ্যাঁ, হ্যাঁ। কারণ আমরাও তো একইভাবে উদ্বিগ্ন এবং আমরা আপনাদের কাছ থেকেও শিখতে চাই।"
"একে অপরের প্রতি এই শ্রদ্ধাবোধটা খুবই সুন্দর," বলেন গির্জার যাজক মনিকা ম্যাথিয়াস। বিবিসি বাংলা
  

Your all gallery images here