Latest Post


মোঃছালাহ উদ্দিন : কাতালোনীয়ার সান্তা কলমা আওয়ামী লীগ এর আয়োজনে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪ তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করেছে।  গত ১৬ আগস্ট শুক্রবার বিকাল ০৫ ঘটিকার সময় কাতালোনীয়ার সান্তা কলমার স্থানীয় একটি হলরোমে আয়োজন করে সান্তা কলমা আওয়ামীলীগ জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে  আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বার্সেলোনায় নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাসের অনারারী কন্স্যুলার সিনিয়র রামন পেদ্রো।  সান্তা কলমা আওয়ামীলীগের সভাপতি নাজমুল আলম শফিক এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সান্তা কলমা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোখলেছুর রহমান নাসিম ও মো নীরু মিয়া যৌতভাবে।

আলোচনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কাতালোনীয়া আওয়ামী যুবলীগ এর সভাপতি কাজী আমির হোসেন আমু,কাতালোনীয়া আওয়ামী যুবলীগ এর সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান বিজয় ও কাতালোনীয়া আওয়ামীলীগ নেতা কামরুল মোহাম্মদ।  আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামীলীগ নেতা  মো:মাসুদ, আওয়ামীলীগ নেতা মোঃহাসান,আওয়ামীলীগ নেতা মিজানুর রহমান,আওয়ামীলীগ নেতা বিপ্লব ভৌমিক সহ অন্যানরা।
আলোচনা সভায় বক্তারা জাতির জনক  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ ১৯৭৫ সালে ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সকল নিহত শহীদদের শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।
এবং বলেন, যে নেতা একটি স্বাধীন ভূখন্ড দিয়েছেন, সে নেতাকে নৃশংসভাবে হত্যা করে বাংলাদেশের উন্নয়নকে দমিয়ে রাখতে চেয়েছিল ৭১ এর পরাজিত শক্তিরা ।সেই ৭১ ও ৭৫ এর সেই সহোদররা, উত্তরসূরীরা এখনো বাংলাদেশে আছে আর এই অপশক্তি সবসময় বাংলাদেশকে নিয়ে সড়যন্ত্রে লিপ্ত আছে তারা চায়না কখনো বাংলাদেশের উন্নয়ন ।বক্তারা আরো বলেন যে অপশক্তি ৭৫এর ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধু সহ তার পরিবারকে হত্যা করেছিলো এই একই অপশক্তি ২১শে আগস্ট  গ্রেনেড হামলা করে চেয়েছিলো বঙ্গবন্ধু কন্যা আজকের জননেত্রী শেখ হাসিনাকেও হত্যা করতে।কিন্তু তারা পারেনি তাদের এই আশা পুরন হয়নি।বক্তারা বলেন আজকের দিনে শোককে শক্তিতে রূপান্তরিত করে সকল অপশক্তির মোকাবেলা করতে হবে।
প্রবাস থেকে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালি করার লক্ষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যেতে হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কাজী আমির হোসেন আমু বলেন প্রবাসে আমাদের নতুন প্রজন্মকে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরে বঙ্গবন্ধুর জীবনী তাদের কাছে তুলে ধরতে হবে এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় তাদেরকে গড়ে তুলতে হবে।
সান্তা কলমা আওয়ামীলীগের সভাপতি নাজমুল আলম শফিক তার সমাপনি বক্তব্যে বলেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে শিক্ষা নিয়ে আমরা যেন সামনে এগিয়ে যেতে পারি, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় পরিণত করতে পারি- সেই প্রত্যয় আমাদের নিতে হবে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় প্রবাসে আওয়ামীলীগ এর সকল অঙ্গসংগঠন একই পরিবারের হয়ে কাজ করে যেতে হবে।
আলোচনা সভা শেষে মহান মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদ, জাতীয় চার নেতাসহ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের সকল শহীদদেরকে স্মরণ করে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। পরে ১৫ আগষ্ঠে বঙ্গবন্ধুসহ নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন মোঃআবুল হোসেন।


লায়েবুর খাঁন : কাতালোনিয়া মহিলা সমিতির বনভোজন ও ঈদ পুনর্মিলনী গত ১৮ই আগষ্ট রবিবার আনন্দঘন ও উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি বার্সেলোনার সিউডা ডেলা পার্কে প্রবাসীদের মিলনমেলায় পরিণত হয় এ বনভোজন। বিভিন্ন স্থান থেকে প্রবাসীরা সপরিবারে জড়ো হন বনভোজন কেন্দ্রে। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষণা করেন সংগঠনের সভাপতি মেহেতা হক । সাথে ছিলেন কার্যকরী কমিটির সকল সদস্য ও অতিথিবৃন্দ।

দিনের প্রথম পর্বে নাস্তা, তরমুজ, চিপস ও কোমল পানীয় পরিবেশন করা হয়।
মধ্যাহ্ন ভোজের পর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরু হয়। গান পরিবেশন করেন বিউটি শীল,দিবা,মন্জু,জিনাত,মৌসুমি,রাজু,মিশু ।

অতিথি হিসাবে উপস্হিত ছিলেন বার্সেলোনা স্কুলের সভাপতি আলা উদ্দিন হক নেছা,উমানিতারিয়া দে বাংলাদেশ এন কাতালোনিয়ার সভাপতি উত্তম কুমার,সাধারন সম্পাদক শামিম হাওলাদার,নবিনুল হক,বার্সেলোনা ব্যাডমিন্টন  ক্লাবের নজরুল ইসলাম,মোহাম্মদ কামরুল সহ স্হানীয় সামাজিক রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ । পরে অনুষ্টানের  সমাপ্তি করেন সংগঠনের সভাপতি ।


সাইফুল আমিন,মাদ্রিদ : প্রবাসে বেড়ে ওঠা নতুন প্রজন্মকে বাংলাদেশের কৃষ্টিকালচার ও সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচয় ও প্রবাসে ব্যস্ত জীবনের ক্লান্তি দূর করে প্রশান্তি নিতে এই আনন্দ বনভোজন। বনভোজন এর চিত্রে ফুটে উঠেছিল এক নতুন বাংলাদেশ,হৈ হুল্লোড়,উত্তাল সমুদ্রে সাতার কাটা থেকে শুরু করে নানান ধরনের খেলাধুলায় মেতে উঠেছেন সবাই,কেউ বা আবার নানা অঙ্গভঙ্গিতে সেল্ফি তোলায় ব্যস্ত, কেউ কেউ ভিডিও কলে আনন্দ শেয়ার করছেন দেশে থাকা প্রীয়জনদের সাথে, যেন আনন্দের শেষ নেই,বলছি ইতিহাস ঐতিহ্যের সংগঠন হবিগঞ্জ এসোসিয়েশন এর বনভোজনের কথা।
অভিবাসী বান্ধব দেশ হিসেবে পরিচিত দেশ স্পেন,প্রায় দুই যুগ ধরে এখানে বসবাস করে আসছেন প্রবাসী বাংলাদেশরা, সামাজিক দায়বদ্ধতায় গড়ে তুলেছেন নানা সামাজিক সংগঠন,তেমনি ভাবে ইতিহাস ঐতিহ্য ও  ভ্রাতৃত্ব বন্ধনের সংগঠন হবিগঞ্জ এসোসিয়েশন ইন স্পেন,ইউরোপের তীব্র গরমে যখন জন জীবন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে,দুরপ্রবাসে ক্লান্তির অবসানে একটু সুস্থি পাওয়ার তাগিদে,হবিগঞ্জ এসোসিয়েশন আয়োজন করে এক আনন্দ বনভোজন।এতে মাদ্রিদের সর্বস্তরের জনগণ উপস্থিত থেকে বনভোজন কে আনন্দ মুখরিত করে তুলেন। স্থানীয় সময় রাত ২টায় মাদ্রিদের এম্বাহাদর  থেকে দুইটি বাস যোগে রওয়ানা করেন স্পেনের সাগর কন্যা খ্যাত ভ্যালেন্সিয়া সমুদ্র সৈকতে। সকালের নাস্তা সেরেই সবাই আনন্দে মেতে উঠেন,বিশাল সমুদ্র জলে স্নান করা,ফুটবল,হাডুডু,ভাবীদের বালিশ খেলা,সহ নানা ধরনের আনন্দে মেতে উঠেন সবাই, ২য় পর্বে মধ্যাহ্নভোজ শেষ করার কিচ্ছুক্ষণ পড় আবার  নিজের মত করে সবাই আনন্দ মেতে উঠেন।
এসোসিয়েশন এর উপদেষ্টা মুজাক্কির মুত্তাকিন আনন্দ ভ্রমনে যারা উপস্থিত হয়েছেন সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন,মাদ্রিদের প্রবাসীদের একটি দিনের জন্যে আনন্দ দেয়ার লক্ষে আমরা প্রতিবছরের ন্যায় এবারও বনভোজন এর আয়োজন করেছি,ইনশাআল্লাহ এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। বাংলাদেশ এসোসিয়েশন এর সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান সুন্দর বলেন, আনন্দ বনভোজনে উপস্থিত প্রবাসীরা হবিগঞ্জ এসোসিয়েশন কে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন,কর্মব্যস্ত জীবনে যখন হাফিয়ে উঠেছিলাম,সেই মুহুর্তে এই একটি দিনের আনন্দ পেয়ে যেন সব ভুলেগেছি,আমরা আশাকরি প্রতিবছরই হবিগঞ্জ এসোসিয়েশন প্রতিবছরই এমন আনন্দ বনভোজনের আয়োজন করে থাকবে। পড়ে খেলাধুলায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরনী করা হয়। দিনব্যাপী সমুদ্র সৈকত ভ্রমণ ও বনভোজনের আনন্দ উপভোগ করতে করতে সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসে।একটি দিনের আনন্দের শেষে সবাই মাদ্রিদে ফিরে আসেন। আনন্দ বনভোজনে অংশগ্রহণকারীরা নিয়ম-শৃঙ্খলার ভূয়সী প্রশংসা করে আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান। বনভোজনে উপস্থিত ছিলেন,সংঘটন এর সিনিয়র সহ সভাপতি আব্বাস উদ্দিন,সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান,অল ইউরুপ বাংলাদেশ প্রেসক্লাব এর ক্রীড়া সম্পাদক সাইফুল আমিন,জুয়েল আহমেদ মালেক,জাকির হুসাইন,রুবেল রানা সহ স্পেনের সর্বস্তর এর জনগন।


মোঃ ছালাহ উদ্দিনঃ ইউরোপ সফরে আসা যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বিয়ানীবাজার উপজেলার মুড়িয়া ইউনিয়নের সম্ভাব্যচেয়ারম্যান পদপ্রার্থী  সাব্বির উদ্দিনকে  সংবর্ধনা প্রদান করেন স্পেনের বার্সেলনার প্রবাসী মুড়িয়া ইউনিয়ন বাসী। 

বার্সেলোনার একটি অভিজাত রেষ্ট্রুরেন্টে বুধবার (১৭ই জুলাই) কমিউনিটি এবং বিয়ানীবাজারের প্রবীন ব্যক্তিত্ব আবুল বাসিত কয়ছরের সভাপতিত্বে এবং ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয় এ সভা।  সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য রাখেন বিয়ানীবাজার সরকারী কলেজের সাবেক ছাত্র নেতা সাংবাদিক মোঃ ছালাহ উদ্দিন। এছাড়াও মুড়িয়া ইউনিয়ন বাসীর পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন আব্দুল কাদির,  ব্যবসায়ী আলিম উদ্দিন, সাইদুর রহমান আয়নুল, হুমায়ুন আহমদ, আলী হোসেন, শাহিন উদ্দিন, মুজ্জাকির আলী, ইসলাম উদ্দিন,হাসান আহমদ, জসিম উদ্দিন, রাজন আহমদ, আজমল আহমদ, পারভেজ আহমদ, লোকমান হোসেন প্রমুখ।

প্রবাসের ব্যস্ততার ফাকে সংবর্ধনা প্রদান করায়সংবর্ধীত অতিথি সাব্বির উদ্দিন বলেন, আমি আপনাদের কাছে কৃতজ্ঞ, বিগত তিনবার আমার ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে অল্প ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হতে পারিনি। যদি আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী হতে পারি তাহলে আমার ইউনিয়নের সকল সাধারণ মানুষের সেবার পাশাপাশি বিশেষ করে প্রবাসীদের সকল ধরনের কাজ সহজভাবে এবং আন্তরীকতার সাথে করবো এই ওয়াদা করছি।
আলোচনা সভা শেষে নৈশভোজের মধ্য দিয়ে সভার সমাপ্তি ঘটে।

মিরন নাজমুলঃ স্পেনের বার্সেলোনায় স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ করার জন্য সিটি করপোরেশন স্পেন বাংলা প্রেসক্লাবকে আশ্বাস প্রদান করেছে। আজ ১৭ জুলাই (বুধবার) স্পেন বাংলা প্রেসক্লাব বার্সেলোনা সিটি করপোরেশনের নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে মত বিনিময় সভা করেছে। সভায় সিটি কাউন্সিলর নাতালিয়া মারটিনেস রোদ্রিগেজ ও কাউন্সিলর জরদি রাবাসসাসহ সিটি করপোরেশনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ এবং স্পেন বাংলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আফাজ জনি, সাংগঠনিক সম্পাদক লোকমান হোসেন ও সভার সমন্বয়ক কামরুল মোহাম্মদসহ অন্যান্য নেতৃবন্দ উপস্থিত ছিলেন। সভায় সিটি করপোরেশনকে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মানের জন্য আনুষ্ঠানিত আবেদন পত্র পেশ করা হয়। 
গত দুই সপ্তাহ ধরে মহান একুশ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ইতিহাসে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ সংশ্লিষ্টতা এবং বাংলাদেশে একুশ উদযাপনের জন্যে শহীদ মিনারের গুরুত্ব বোঝানোর জন্য সমন্বয়ক কামরুল মোহাম্মদ ও স্পেন বাংলা প্রেসক্লাব বিভিন্ন নথিপত্র ও তথ্য উপাত্ত প্রস্তুত করেন। এর মধ্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ছিলো প্রবাসী সাংবাদিক মিরন নাজমুলের তৈরী করা বিশেষ ভিডিও চিত্র। ভিডিও চিত্রে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও প্রভাত ফেরী অনুষ্ঠানে প্রস্তুতিসহ একুশ সংক্রান্ত বিষয়ের সাথে নেপথ্যে ছিলো স্প্যানিশ ভাষায় গাওয়া ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারী’ গানটির প্রথম অন্তরা। স্প্যানিশ ভাষায় একুশের গান শুনে সিটি করপোরেশনে কর্মকর্তাবৃন্দ একুশ সংক্রান্ত পুরো প্রেজেন্টেশনের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং স্পেন বাংলা প্রেসক্লাবকে ধন্যবাদ জানান।
পরে উপস্থিত সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাবৃন্দ আশ্বাস দেন, শহরের সিউতাদ ভেইয়াতে সিটি করপোরেশন সৌধ নির্মাণের জন্য পুনরায় অনুমতি দিলে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ করা হবে। বার্সেলোনায় বাংলাদেশী কমিউনিটির ‘প্রাণের দাবি’ একটি স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণের জন্য গত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশী কমিউনিটি বিভিন্নভাবে দাবি করে আসছিলো। কিন্তু বার্সেলোনা শহরের বাংলাদেশী অধ্যুষিত এই এলাকা সিউদাদ ভেইয়াতে আপাততঃ কোন ধরণের সৌধ নির্মাণের অনুমতি না থাকায় এতোদিন শহীদ মিনার প্রশ্নে সিটি করপোরেশন বিশেষ ইতিবাচক আশ্বাস দেয়নি। দাবির প্রেক্ষিতে শুধু প্লাসা পেদ্রোতে গত ২১ ফেব্রুয়ারীর আগে একটি একুশের শহীদ মিনারের ছবি ও বাংলা লেখা সম্বলিত একটি স্থায়ী প্লাকা (সিল্ড) স্থাপন করে। কর্মকর্তারা আরো জানান, সিউতাদ ভেইয়াতে ভবিষ্যতে কোন প্রকার সৌধ নির্মাণের অনুমাতি যদি নাও আসে তাহলে সিউতাদ ভেইয়ার বাইরে হলেও মহান ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার সম্মানে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ করা হবে।
সিটি করপোরেশনের এই ঘোষণার মাধ্যমে বাংলাদেশী কমিউনিটি একান্ত দাবী এই স্থায়ী শহীদ মিনার তৈরী বাস্তবায়িত হবার ক্ষেত্রে হতাশার মধ্যে আশার আলো সঞ্চারিত হলো বলে মনে করছেন বার্সেলোনায় বসবাসকারী বাংলাদেশীরা। 


এম লায়েবুর রহমানঃ বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কাতালোনীয়া (বার্সেলোনা) আয়োজন করে ঈদ পূনর্মিলনী ও কর্মী সভা । রোববার (৭ই জুলাই ২০১৯)  বার্সেলোনার স্থানীয় একটি রেস্টুরেন্টে কাতালোনীয়া আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি কাজী আমির হোসেন আমুর সভাপতিত্বে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান বিজয় ও সাংগঠনিক সম্পাদক ছালাহ উদ্দিন এর যৌত সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কাতালোনীয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি শাহ আলম স্বাধীন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্পেন আওয়ামীলীগ নেতা মুহিবুল হাসান কয়েস এবং সান্তা কলমা আওয়ামীলীগ এর সভাপতি নাজমুল আলম শফি।
এছাড়াও যুবলীগের মিলনমেলায় অন্যানের মধ্যে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সান্তাকলমা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোকলেছুর রহমান নাসিম, সান্তা কলমা আওয়ামীলীগ নেতা মিজানুর রহমান, বঙ্গবন্ধু পরিষদ কাতালোনীয়ার সহ সভাপতি হানিফ শরিফ, কাতালোনীয়া স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম, কাতালোনীয়া আওয়ামী যুলীগের উপদেস্টা বিশিস্ট ব্যাবসায়ী করিম উদ্দিন, আওয়ামীলীগ নেতা কামরুল মোহাম্মদ।
অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কাতালোনীয়া যুবলীগ নেতা জাফর হোসাইন, যুবলীগ নেতা উজ্জ্বল হাসান, কাতালোনীয়া যুবলীগের সহ সভাপতি নুরু ভুইয়া, কাতালোনীয়া যুবলীগ নেতা মিজানুর রহমান, কাতালোনীয়া যুলীগ নেতা রবিউল হাসান, যুবলীগ নেতা পেয়ার আলী, যুবলীগ নেতা ইদ্রিস হাওলাদার, যুবলীগ নেত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান জিনাত সুলতানা, কাতালোনীয়া যুবলীগ নেতা মুকিত হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের প্রশংসা করে বলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সাহসী নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের কাছে একটি উন্নয়নের রোল মডেল। তিনি কাতালোনীয়া যুবলীগের প্রশংসা করে বলেন বার্সেলোনায় একমাত্র সংগঠন কাতালোনীয়া যুবলীগ তারা সবসময় বাংলাদেশের জাতীয় সকল দিবস সহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এর আয়োজন করে থাকে। এরকম কোন সংগঠন সক্রিয়ভাবে বাংলাদেশকে প্রবাসে উপস্থাপন করতে পারেনা, সে জন্য কাতালোনীয়া যুবলীগের সকল নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ জানান তিনি।
কাতালোনীয়া যুবলীগের সভাপতি কাজী আমির হোসেন আমু তার বক্তব্যে বলেন যুবদের মেধা শক্তিই সমাজ পরিবর্তনের হাতিয়ার। আমরা প্রবাসে থেকে বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কাজের কথা মানুষের কাছে তুলে ধরতে হবে । কারন আমাদের সরকার "জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার উন্নয়নের সরকার, আর এই উন্নয়নের অংশীধার আমরা প্রবাসীরাও ।আমরা প্রবাস থেকে রেমিটেন্স পাঠিয়ে দেশের উন্নয়নের চাকা শক্তিশালী করতেছি। আমাদের নেত্রীর সৎ ও সাহসীক নেতৃত্বের দেশ আজকে একটি মধ্য আয়ের দেশ হিসেবে পরিণত হয়েছে এবং আজ দেশের প্রতিটা মানুষ শান্তিতে আছে। এছাড়াও অনুষ্ঠানে বক্তারা বর্তমান বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কাজের প্রশংসা করে বক্তব্য রাখেন।
এসময় অন্যানদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুবলীগ নেতা মুক্তার আলী, যুবলীগ নেতা সাইদুর রহমান কাসেম, যুবলীগ নেতা শিহাব আহমদ, যুবলীগ নেতা সাবেল আহমদ, যুবলীগ নেতা লিমন আহমদ, যুবলীগ নেতা রাসেল আহমদ প্রমুখ।
এছাড়াও  অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামীলীগ পরিবারের মহিলা শিশু সহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ বিভিন্ন অংগ সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা।
আলোচনা সভা শেষে প্রীতিভোজের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget