Latest Post


জনপ্রিয় অনলাইন : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শরিক দল বিএনপির প্রতীক ধানের শীষ নিয়ে অংশ নেবে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন রাজনৈতিক জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে মতিঝিলে ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে ঐক্যফ্রন্টের এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বৈঠক শেষে জোটের শরিক দল নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না সাংবাদিকদের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

আরও পড়ুন- ঐক্যফ্রন্টের প্রতীক ধানের শীষ, ইসিতে চিঠি

বৈঠক শেষে বেরিয়ে মাহমুদুর রহমান মান্না সাংবাদিকদের বলেন, জোটের দলগুলোর প্রার্থীরা নির্বাচনে কোন প্রতীকে অংশ নেবেন, তা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। আমরা আলোচনার পর সিদ্ধান্ত নিয়েছি, জোটের সব দলের প্রার্থীরা ধানের শীষ প্রতীকেই নির্বাচনে অংশ নেবেন।
বৈঠকে ড. কামাল হোসেন, জোটের মুখপাত্র ও বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, গত ৮ নভেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা। তফসিলে ২৩ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারিত ছিল। তফসিলের পর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে একমাস ও সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন জোট যুক্তফ্রন্ট এক সপ্তাহ পিছিয়ে পুনঃতফসিল ঘোষণার জন্য আবেদন করেন নির্বাচন কমিশনে (ইসি)। পরে ইসি বৈঠক করে এক সপ্তাহ পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করে ১২ নভেম্বর পুনঃতফসিল ঘোষণা করে।
এদিকে, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) ধারা-২০-এর (১)-এর (এ) বিধান অনুযায়ী, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে ইচ্ছুক একাধিক নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল মিলে নির্বাচনী জোট গঠন করলে এ জোটের যেকোনো একটি দলের প্রতীক জোটভুক্ত প্রার্থীদের বরাদ্দ করা যাবে। এ ধরনের প্রতীক পেতে হলে জোটকে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার তিন দিনের মধ্যে নির্বাচন কমিশন বরাবর আবেদন করতে হবে।
এই হিসাবে ৮ নভেম্বর তফসিল ঘোষণার পর ১১ নভেম্বরের মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোকে জোটগতভাবে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার তথ্য জানাতে নির্দেশনা দেয় ইসি। ওই সময় ঐক্যফ্রন্ট তাদের প্রতীক নির্ধারণ করতে পারেনি। তবে বিএনপি চিঠি দিয়ে ইসিকে জানায়২০ দলীয় জোটের আটটি দল ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেবে। পরে পুনঃতফসিল ঘোষণার পর জানানো হয়, জোটগতভাবে অংশগ্রহণ ও প্রতীকের সিদ্ধান্ত বৃহস্পতিবারের (১৫ নভেম্বর) মধ্যে জানানোর সময়সীমা বেঁধে দেয় ইসি। সেই নির্দেশনা অনুযায়ীই ঐক্যফ্রন্ট তাদের বৃহত্তম শরিক দল বিএনপ্রি প্রতীক ধানের শীষে নির্বাচনি মাঠে নামার সিদ্ধান্ত নিলো।
উল্লেখ্য, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলোর মধ্যে গণফোরামের প্রতীক উদীয়মান সূর্য, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) প্রতীক তারা, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের প্রতীক গামছা ও নাগরিক ঐক্যের প্রতীক চারটি জোটবদ্ধ হাত। এর মধ্যে নাগরিক ঐক্য অনিবন্ধিত হওয়ায় ব্যালটে তাদের প্রতীক থাকবে না এমনিতেই। আর বাকি দলগুলো ঐক্যফ্রন্টের অধীনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে রাজি হওয়ায় তাদের দলীয় প্রতীকগুলোও থাকবে না।


জনপ্রিয় অনলাইন : তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় আলোকচিত্রী ড. শহিদুল আলমকে জামিন দিয়েছেন আদালত। তার জামিন বিষয়ে রুল যথাযথ ঘোষণা করে বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) বিচারপতি শেখ আব্দুল আউয়াল ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তী এই জামিন আদেশ দেন।

আদালতে শহিদুল আলমের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সারা হোসেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ফজলুর রহমান খান।
এর আগে গত ১ নভেম্বর শহীদুল আলমের জামিন বিষয়ে শুনানি করে মামলাটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দেন বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।
নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনের সময় আল-জাজিরায় প্রচারিত শহিদুল আলমের সাক্ষাৎকারের ভিডিও এবং ফেসবুক লাইভের বেশ কয়েকটি ভিডিও দেখেন বিচারপতিরা।
গত ৫ আগস্ট রাতে ধানমন্ডির বাসা থেকে গ্রেফতার হন শহিদুল আলম। সাতদিনের রিমান্ড শেষে নিম্ন আদালতের আদেশে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।
কারাগারে পাঠানোর দুইদিন পর ১৪ আগস্ট ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে জামিন আবেদন করা হলে ১১ সেপ্টেম্বর শুনানির জন্য দিন ধার্য রাখেন। এরপর ১৯ আগস্ট শুনানির তারিখ এগোনোর জন্য আবেদন করা হলেও তা গ্রহণ করা হয়নি।

২৬ আগস্ট শহিদুল আলমের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন চাইলে ওই আদালত শুনানির জন্য তা গ্রহণ করেননি। এ অবস্থায় ২৮ আগস্ট হাইকোর্টে তার জামিন চেয়ে আবেদন করা হয়। ২৯ আগস্ট আবেদনটি শুনানির জন্য আরজি জানানো হয়। ৪ সেপ্টেম্বর আবেদনটির ওপর শুনানিতে হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চের একজন বিচারপতি বিব্রতবোধ করেন।
পরে শহিদুল আলমের জামিন আবেদনটি শুনানির জন্য অন্য বেঞ্চে পাঠানো হয়।
রায়ের পরে ব্যারিস্টার সারা হোসেন বলেন, যেহেতু তিনি এই উপমহাদেশের, এমনকি সারাবিশ্বের একজন নামকরা আলোকচিত্রী, এই বিষয়টাও আদালত বিবেচনায় নিয়েছেন। এই মুহূর্তে উনার মুক্তি পেতে বাধা নেই। সরকার যদি আবারও বিরোধীতা করে- সেটা পরে দেখা যাবে।
আর রাষ্ট্রপক্ষ হাইকোর্টের এই জামিন আদেশের বিরুদ্ধে আপিলে যাবে বলে জানিয়েছেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মো. আলী জিন্নাহ।
সুত্র : সারাবাংলা


জনপ্রিয় অনলাইন : আজ ১৪ নভেম্বর বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস। বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস হলো বিশ্বজুড়ে ডায়াবেটিস সম্পর্কে বিশ্বময় সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে একটি ক্যাম্পেইন, যা প্রতিবছর ১৪ই নভেম্বর অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্বজুড়ে ডায়াবেটিস রোগ ব্যাপক হারে বেড়ে যাওয়ায়,বিশ্ব ডায়াবেটিস ফেডারেশন (আইডিএফ) ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ১৯৯১ সাল-এ ১৪ নভেম্বরকে ডায়াবেটিস দিবস হিসেবে ঘোষণা করে।
শুধু বুড়ো মানুষই নয়, বহু তরুণও এখন ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হতে পারে। ডায়াবেটিসের সরাসরি নিরাময় না থাকায় এতে আক্রান্ত হলে তা নিয়ন্ত্রণে রাখতে হয়। তবে কিছু উপায় রয়েছে যা আগে থেকে পালন করলে ডায়াবেটিস দূরে রাখা যায়।আসুন বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসে জেনে আসি ডায়াবেটিস থেকে বাঁচার ১০ টি উপায়।
১. ডায়াবেটিসকে জানুন
শরীরের ইনসুলিনের ভারসাম্যহীনতায় রক্তে শর্করার মাত্রা অস্বাভাবিক হয়ে ডায়াবেটিসের সৃষ্টি হয়। সময় থাকতেই ডায়াবেটিস সম্পর্কে জেনে রাখা ভালো। এতে আগে থেকেই রোগটি সম্পর্কে সচেতনতা গড়ে তোলা যায়।
২. শারীরিক অনুশীলন করুন
আপনি যদি নিয়মিত শারীরিক অনুশীলন করেন তাহলে তা নানাভাবে আপনার স্বাস্থ্যের উপকার করবে। বিশেষ করে দেহের ওজন নিয়ন্ত্রণ, বিভিন্ন রোগ দূরে রাখায় এর ভূমিকা রয়েছে। এতে ডায়াবেটিসের মতো রোগও দূরে থাকবে।
৩. লাল আটার খাবার
ধবধবে সাদা আটা-ময়দা বাদ দিয়ে লাল আটার তৈরি রুটি ও অন্যান্য খাবার খান। এটি আপনার ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাবে।
৪. ফ্যাটযুক্ত খাবার বাদ দিন
ফাস্ট ফুড দোকানের জাংক খাবার ও অন্যান্য অস্বাস্থ্যকর খাবারে উচ্চমাত্রায় স্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে, যা আপনার রক্তে ক্ষতিকর কোলস্টেরল বাড়িয়ে দিতে পারে। এটি রক্তের শর্করার মাত্রাও বাড়ায়। তাই এসব খাবার বাদ দিতে হবে।
৫. মিষ্টি পানীয় বাদ দিন
তেষ্টা পেলেই মিষ্টি পানীয় বা কোমল পানীয় পান করার অভ্যাস বাদ দিন। মূলত যে কোনো মিষ্টি পানীয়ই ক্ষতিকর। তাই এসব পানীয় সম্পূর্ণ ত্যাগ করুন।
৬. মানসিক চাপমুক্ত থাকুন
মাত্রাতিরিক্ত মানসিক চাপ আপনার রক্তের শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে। এ কারণে মানসিক চাপ থেকে নিজেকে দূরে রাখুন। প্রয়োজনে ইয়োগা, মেডিটেশন ও শ্বাস-প্রশ্বাসের অনুশীলন করুন।
৭. ভালোভাবে ঘুমান
রাতে সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুমান। এতে আপনার দেহের ওপর চাপ কমবে এবং ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগ দূরে থাকবে। ঘুমের অভাবে দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতার ক্ষতি হয়।
৮. স্বাস্থ্য পরীক্ষা করুন
অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ডায়াবেটিসের লক্ষণগুলো নীরবেই থাকে। এ কারণে ডায়াবেটিসে আক্রান্তরা তা বুঝতে পারেন না। ফলে পরিস্থিতি জটিল হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এ কারণে নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।
৯. গ্রিন টি পান করুন
নিয়মিত গ্রিন টি পান করুন। এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসহ বিভিন্ন উপাদান রয়েছে, যা রক্তের শর্করা কমাতে ভূমিকা রাখে।
১০. ধূমপান বর্জন করুন
ধূমপানে ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। এর কারণ হলো দেহের হরমোনজনিত পরিবর্তন। এ কারণে ডায়াবেটিস থেকে দূরে থাকতে ধূমপান বর্জন করা উচিত।


জনপ্রিয় অনলাইন : নির্বাচনী প্রক্রিয়া শুরু হতে না হতেই বিএনপির সহিংসতাও শুরু হয়ে গেছে এমন মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে এবং তাঁর তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, বিএনপিকে কোনো দিক থেকেই আর রাজনৈতিক দল বলা যায় না, তারা একটি সন্ত্রাসী সংগঠন। তাদের সবাইকে জেলে ভরে রাখা উচিত। 

গতকাল বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশ ও বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষ ও পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনার কথা উল্লেখ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক পোস্টে জয় এ কথা লেখেন। সেখানে একটি সংবাদ তিনি শেয়ারও করেন।
পোস্টে জয় লেখেন, নির্বাচনী প্রক্রিয়া শুরু হতে না হতেই বিএনপির সহিংসতাও শুরু হয়ে গেছে। ঠিক যেভাবে তারা ২০১৩ ও ২০১৫ সালে অগ্নিসন্ত্রাসের মাধ্যমে সাধারণ মানুষদের জীবন্ত পুড়িয়েছিল। বিএনপিকে কোনোদিক থেকেই আর রাজনৈতিক দল বলা যায় না, তারা একটি সন্ত্রাসী সংগঠন। কানাডিয়ান ফেডারেল আদালতও একই কথা বলেছে একাধিকবার। তাদের সবাইকে জেলে ভরে রাখা উচিত।
 সুত্র : বাংলা ।


জনপ্রিয় অনলাইন : পুলিশের ওপর হামলা ও গাড়ি পোড়ানোর মামলায় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরীকে গ্রেফতার করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর নাইটিংগেল মোড় থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ পূর্ব বিভাগের উপ-কমিশনার খন্দকার নুরুন্নবী গ্রেফতারের বিষয়টি বাংলা ট্রিবিউনকে নিশ্চিত করেছেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছেএকটি মামলার এজাহারভুক্ত ১২ নম্বর আসামি নিপুণ রায় চৌধুরী। তিনি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের পুত্রবধূ ও বিএনপির সাবেক প্রতিমন্ত্রী নিতাই রায় চৌধুরীর মেয়ে।
এর আগে পল্টন থানায় দায়ের করা তিনটি মামলা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (পূর্ব বিভাগ) কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বুধবার রাতে পল্টন থানায় দায়ের করা তিনটি মামলা বৃহস্পতিবার ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়।
বুধবার (১৪ নভেম্বর) নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে পুলিশ ও নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে পুলিশের ২১ জন, ২ জন আনসার ও বিএনপির অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এছাড়া কার্যালয়ের পাশে থাকা পুলিশের দুটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষুব্ধরা। এ ঘটনায় পল্টন থানায় তিনটি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। তিন মামলায় আসামি করা হয়েছে ৪৮৮ জনকে ও গ্রেফতার করা হয়েছে ৬৮ জনকে।
সুত্র : বাংলা ট্রিবিউন

জনপ্রিয় ডেক্সঃ ‘সর্ব ইউরোপিয়ান হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশন’ এর নবগঠিত কার্যকরী কমিটির উদ্যোগে ত্রৈমাসিক পাঠচক্র অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ১১ নভেম্বর বার্সেলোনার স্থানীয় একটি রেস্তোরাঁয় আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে নবগঠিত হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশনের সদস্যছাড়াও স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সর্ব ইউরোপিয়ান হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশন এর সভাপতি মো: ছালাহ উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সহ সভাপতি মো: বাবুল আহমেদ এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত ত্রৈমাসিক পাঠচক্রে ১৯৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধের পটভূমি নিয়ে আলোচনা করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন কাতালোনিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি শাহ আলম স্বাধীন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন কাতালোনিয়া আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি কাজি আমির হোসেন আমু, কাতালোনিয়া আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের  আহবায়ক নজরুল ইসলাম, কাতালোনিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদ এর সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান সুহেল, কাতালোনিয়া আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সচিব মির্জা আব্দুস সালাম, কাতালোনিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদ এর সহ সভাপতি হানিফ শরিফ ও আওয়ামী লীগ নেতা কামরুল মোহাম্মদ। 


অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন কাতালোনিয়া যুবলীগের সহ সভাপতি রুবেল খান, মহি উদ্দিন কিশোর,  নুরু ভূঁইয়া, সুহেল মিয়া, মোহাম্মদ ইদ্রিস মিয়া, কাসেম হোসেন, কামাল বেপারী, সাবেল আহমেদ, সর্ব ইউরোপিয়ান হৃদয়ে ৭১ ফাউন্ডেশন এর সাংগঠনিক সম্পাদক আসিফ কিবরিয়া, সহ অর্থ সম্পাদক  মো: শিহাব আহমদ, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল পিয়াস, উপ দপ্তর সম্পাদক আরিফ আহমদ প্রমূখ। (সূত্রঃ এসবিএন)

জনপ্রিয় ডেক্সঃ বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে কাতালোনিয়া আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। গত ১১ নভেম্বর বার্সেলোনার স্থানীয় একটি রেস্তোরাঁয় কেক কেটে সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আনন্দ উদযাপন করেন কাতালোনিয়া যুবলীগের নেতৃবৃন্দ। এসময় আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রচারণায় প্রবাসের আওয়ামী যুবলীগের ভূমিকা নিয়েও আলোচনা করা হয়।



কাতালোনিয়া আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি কাজী আমির হোসেন আমুর সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক মো: ছালাহ উদ্দিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন কাতালোনিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি শাহ আলম স্বাধীন এবং
  বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন কাতালোনিয়া আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম,
কাতালোনিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান সুহেল, কাতালোনিয়া আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সচিব মির্জা আব্দুস সালাম, কাতালোনিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদের সহ সভাপতি হানিফ শরিফ ও আওয়ামীলীগ নেতা কামরুল মোহাম্মদ। এছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন কাতালোনিয়া যুবলীগের সহ সভাপতি রুবেল খান, মহি উদ্দিন কিশোর, নুরু ভূঁইয়া,  মো: বাবুল আহমদ, সুহেল মিয়া, ইদ্রিস মিয়া, কাসেম হুসেন, কামাল বেপারী, সাবেল আহমেদ, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আসিফ কিবরিয়া মো: শিহাব আহমদ, স্পেন ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল্লাহ আল পিয়াস, যুবলীগ সদস্য আরিফ আহমদ প্রমূখ।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক ও শোষণমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে যুব সমাজকে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্য নিয়ে আওয়ামী যুবলীগ নামক যে সংগঠন প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, সে সংগঠনের দায়িত্ব এখন অনেক। আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে বিজয়ী করতে যুব সমাজকে উদ্বুদ্ধ করার দায়িত্বও নিতে হবে যুবলীগকে। (সূত্রঃ এসবিএন)


জনপ্রিয় অনলাইন: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিসহ সব দলের অংশগ্রহণের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, দেশের সব রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশ নিলে একটি গণতান্ত্রিক পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
এ গণতন্ত্র উদ্ধার করতে গিয়ে আমাদের অনেক নেতাকর্মী জীবন দিয়েছেন। গতকাল রাজধানীর ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের সংসদীয় বোর্ডের সভার শুরুতে দেয়া বক্তব্যে এসব কথা বলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, নির্বাচনে ৩০০ আসনে আওয়ামী  লীগের উপযুক্ত মনোনয়ন প্রত্যাশীকেই প্রার্থিতা দেয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করাই সরকারের লক্ষ্য।
জনগণ যাদের ভোট দেবে তারাই বিজয়ী হবে। আমরা সকলে মিলে নির্বাচন করবো।
জনগণ যাকে চাইবে তাকে ভোট দেবে- সেটাই আমরা করবো। সবাই যেহেতু নির্বাচন করবে সেজন্য সবাইকে ধন্যবাদ ও স্বাগত জানাচ্ছি। ১ থেকে ৭ই নভেম্বর বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও জোটের সঙ্গে সংলাপের প্রসঙ্গ তুলে শেখ হাসিনা বলেন, নির্বাচনটা কিভাবে করবো এবং নির্বাচন যাতে সুষ্ঠুভাবে হয় সে আলোচনা হয়েছে। অনেকে অনেক দাবি-দাওয়া করেছিল। বেশ কিছু আমরা মেনে নিই। তা ছাড়া নির্বাচনটা যেন সকলের জন্য অংশগ্রহণমূলক হতে পারে, সবাই যেন নির্বাচন করার সুযোগ পায় সেদিকে আমরা দৃষ্টি রাখব, সে কথা আমরা দিয়েছি। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, আমরা সব সময় এটাই চাই যে, আমরা যে উন্নয়নটা করেছি তার ধারা যেন অব্যাহত থাকে। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে।
এই গতিটা যেন কোনোমতেই থেমে না যায়। বাংলাদেশকে আমরা যেভাবে গড়ে তুলতে চাই উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে, সেভাবে যেন গড়ে তুলতে পারি সেদিকে দৃষ্টি রেখেই আমরা আলাপ-আলোচনা করি। মনোনয়ন ফরম আগ্রহী সবাইকে দেয়া হলেও প্রার্থী নির্ধারণে
উপযুক্ত ব্যক্তিকে বাছাইয়ের চেষ্টা থাকবে বলে জানান তিনি। এদিকে দলীয় প্রার্থী ঠিক করতে পরে আরো সভা হবে বলে জানান তিনি।
শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ডের সদস্যদের মধ্যে বোর্ডের সদস্য ও দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম ও রশিদুল আলম বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। অসুস্থতার জন্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ও ড. আলাউদ্দীন সভায় উপস্থিত হতে পারেননি। এ ছাড়া কাজী জাফরুল্লাহ বিদেশে রয়েছেন। এদিকে উদ্বোধনের পর গতকাল দ্বিতীয়বারের মতো বঙ্গবন্ধু এভিনিউ অফিসে যান প্রধানমন্ত্রী। এক ঘণ্টার বেশি সময় তিনি অবস্থান করেন। প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে পুরো এভিনিউ এলাকা ছিল সরগরম। নেতা-কর্মীদের মুহুর্মুহু স্লোগানে মুখরিত ছিল। মনোনয়ন প্রত্যাশী কয়েক নেতা ব্যানার ও ফেস্টুন নিয়ে শোডাউন করেন।
এদিকে সকালে যুব লীগের ৪৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সংগঠনের নেতাকর্মীরা গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি বলেন, গণতন্ত্র জোরদার এবং অব্যাহত উন্নয়নের স্বার্থে তার সরকারের লক্ষ্য হচ্ছে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ অনুষ্ঠান নিশ্চিত করা। দেশের উন্নয়ন ধারাবাহিকতা অক্ষুন্ন রাখতে আগামী নির্বাচন
অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। যুবলীগ সভাপতি আলহাজ ওমর ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর-রশিদ বক্তৃতা করেন। এর আগে যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি এবং উত্তর ও দক্ষিণ শাখার নেতৃবৃন্দ ফুলের তোড়া দিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান। প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করে বলেন, নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশের গণতন্ত্র আরো শক্তিশালী হয়ে উন্নয়ন বেগবান হবে। তিনি বলেন, নির্বাচন যাতে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয় সেটাই আমাদের লক্ষ্য। আমি আশা করবো অন্য রাজনৈতিক দলগুলোও নির্বাচনে আসবে। কারণ, একটা রাজনৈতিক দল নির্বাচনে না এলে সেই দল শক্তিশালী হয় না। তাই আমরা আশা করি, সব দল আসবে।
বাংলাদেশের গণতন্ত্র আরো শক্তিশালী হবে। এই নির্বাচন বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশের যে উন্নয়নের ধারাটা সূচিত হয়েছে, আমরা মেগা প্রকল্পগুলো নিয়েছি, দারিদ্র্যবিমোচনের অঙ্গীকার করেছি। শেখ হাসিনা বলেন, দারিদ্র্য ৪০ ভাগ থেকে ২১ ভাগে নামিয়ে এনেছি। আরেকটাবার ক্ষমতায় আসতে পারলে আরো চার থেকে পাঁচ ভাগ কমাতে পারবো। তাহলে বাংলাদেশকে দারিদ্র্যমুক্ত ঘোষণা করতে পারবো। আমরা না থাকলে কেউ করবে না। তিনি বলেন, যুব সমাজকে একটা বার্তা দিতে হবে। আজকে যুব সমাজের জন্য যে কাজগুলো করে দিয়েছি সেই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে তাদের জীবনটা যেন সম্মানজনক হয়, উন্নত হয়। যুবসমাজের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যদি ত্যাগের মনোভাব থাকে তাহলে সফল হতে পারবে।
যারা রাজনীতি করবে তাদেরকে বঙ্গবন্ধুর ত্যাগ ও আদর্শ থেকে শিক্ষা নিতে হবে। কি পেলাম, কি পেলাম না সেই হিসাব করবেন না, হিসাব করবেন কতটুকু জনগণকে দিলাম, দিতে পারলাম। শেখ হাসিনা বলেন, লোভকে জয় করা আর ভয়কে জয় করা, এটা যে করতে পারবে সে-ই পারবে দেশ ও জাতির সেবা করতে। আর সম্পদের পাহাড় গড়লে ওই সম্পদই থাকবে। মরতে তো একদিন হবেই। কিন্তু দেশকে কিছু দিয়ে দেয়া যাবে না। ভোগে সার্থকতা নেই, ত্যাগেই সার্থকতা। অনুষ্ঠানের শুরুতে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শেখ হাসিনাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়।
যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক তার বক্তৃতায় শেখ হাসিনার সরকারের সময় বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মসূচি এবং যুবলীগের পক্ষ থেকে নেয়া নানা কাজের কথা উল্লেখ করেন। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য ফারুক হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক মহিউদ্দিন মহি, দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমান, প্রকাশনা সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ বাবলু, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট, উত্তরের সভাপতি মাইনুল হোসেন খান নিখিলসহ অন্যরা। 
সুত্র : দৈনিক মানবজমিন ।


আফাজ জনিঃ স্পেনের বার্সেলোনায় আঞ্চলিক সংগঠনের ভিড়ে নতুন করে নাম লিখাতে যাচ্ছে জকিগঞ্জ সমাজকল্যান পরিষদ।  শনিবার (১০/১১/২০১৮) স্থানীয় একটি রেস্তোরায় সংগঠন গঠন এবং কর্মপরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপস্থিত জকিগঞ্জ  বার্সেলোনা প্রবাসীদের ঐক্যমতের ভিত্তিতে পাঁচ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। 

অনুষ্ঠানে মুসাইদ আহমদ সামু ও মোহাম্মদ বদরুল হকের যৌথ পরিচালনায় সভাপতিত্ব করেন সাদ আহমদ খাঁন
আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন আব্দুল মুকিত খাঁন, হেলাল আহমদ চৌধুরী,  মেহরাব হোসেন মাসুম, নেজাম উদ্দিন, সিহাব আহমদ, মুসনাদ খাঁন, রাসেল আহমদ, শাহিন আহমদ, ফয়সল আহমদ, সাহেদ আহমদ, হোসাইন মুন্সি, শাহিদুল আলম, ফাহিম আহমদ প্রমূখ
উপস্থিতিরা নতুন এ সংগঠনের মাধ্যমে বার্সেলোনায় বসবাসরত জকিগঞ্জ থানা সহ প্রবাসী সকল বাংলাদেশীদের মধ্যে ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সুসম্পর্ক বজায় রেখে সমাজ উন্নয়নে ভূমিকা রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
আব্দুল মুকিত খাঁনকে প্রধান এবং হেলাল আহমদ চৌধুরী, মেহরাব হোসেন মাসুম, নেজাম উদ্দিন, সিহাব আহমদকে সহকারী করে এ আহ্বায়ক কমিটি ঘোষনা করা হয়।
উপস্থিতিদের সম্মতিতে আগামী ২০শে নভেম্বর রাত ১১ঘটিকায় কাইয়ে মানসো-৭২ কমিটি গঠনের লক্ষ্যে সভা আহব্বান করা হয়।
সভার শেষ পর্যায়ে মাওলানা মোহাম্মদ বদরুল হক বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন।

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget