ঢাকা ০৮:২০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
স্পেনের হুয়ান কার্লোস ইউনিভার্সিটিতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন বন্ধুসূলভ মহিলা সংগঠন বার্সেলোনার আয়োজনে পিঠা উৎসব টেনেরিফে বাংলাদেশ দূতাবাসের কনস্যুলার সেবা প্রদান ইউরোপিয়ান বাংলা জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন এর আত্মপ্রকাশ শান্তাকলমায় হৃদরোগে শরিয়তপুরের রেমিট্যান্স যোদ্ধার মৃত্যু শীতার্তদের মাঝে কুলাউড়া ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের কম্বল বিতরণ সারপার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শীতবস্ত্র বিতরণ ও পিঠা উৎসব চেটে খাওয়া আঙুল কি সুন্নত? ১২ ফেব্রুয়ারি পর্তুগালে ‘লাল হাভেলী বাংলা কাগজ কমিউনিটি এওয়ার্ড’ প্রবাসী সাংবাদিকদের সঙ্গে চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজির মতবিনিময়

মেসির সংবাদ সম্মেলন ‘থাকার জন্য সব কিছুই করেছিলাম’

জনপ্রিয় অনলাইন
  • আপডেট সময় : ০৬:৩৯:২৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৮ অগাস্ট ২০২১ ৫৫৪ বার পড়া হয়েছে

আমি বার্সেলোনাতে থেকে যেতে বদ্ধপরিকর ছিলাম। এটি আমার ঘর, আমাদের ঘর। বার্সায় থেকে যাওয়াটাই আমার পরিকল্পনা ছিল, এখানেই আমার পুরো খেলোয়াড়ি জীবন কেটেছে। কিন্তু আজকে এই ক্লাব থেকে আমাকে চিরতরে বিদায় নিতে হচ্ছে। আগের বছর আমি চলে যেতে চেয়েছিলাম। কিন্তু এ বছর আমি থাকতে চেয়েছিলাম, কিন্তু পারিনি। এভাবে আমি চলে যেতে চাইনি, কারণ এটিই আমার ঘর।

এভাবে বিদায় নিতে হবে আমি ভাবিনি। আমি চেয়েছিলাম মাঠে সমর্থকদের সামনে বিদায় নিতে। আরও একবার তাদের কাছ থেকে অভিবাদন পেতে। আরও একবার ভালোবাসায় সিক্ত হতে। কিন্তু ১৮ মাস পর ভক্তদের এত কাছাকাছি থেকেও আমাকে তারা বিদায় বলতে পারবে না, সেটি ভাবিনি। কিন্তু সেটিই হয়েছে।

আশা করি আমি একদিন ক্লাবের কোনো একটা অংশ হয়ে ফিরতে পারব, যে ভূমিকাতেই হোক। আশা করি এই ক্লাবকে সেরা করার জন্য আবার কিছু করতে পারব। এ মুহূর্তে অনেক কিছুই আমার মনে পড়ছে না। কিন্তু এখন ভাবার বা কথা বলার মতো খুব ভালো অবস্থায় আমি নেই।

২১ বছর পর আমি আমার স্ত্রী, তিনজন কাতালান-আর্জেন্টাইন সন্তানকে নিয়ে চলে যাচ্ছি। এই শহরে থাকতে পেরে আমি গর্বিত। আশা করছি একদিন এখানে আবার আমরা থাকার জন্য ফিরব, আমি আমার ছেলেদেরও সেটিই বলেছি।

বার্সার হয়ে একটা সেরা মুহূর্ত বেছে নেওয়া অনেক কঠিন। আমার অনেক ভালো মুহূর্ত আছে, খারাপও আছে। হয়তো আমি অভিষেকের মুহূর্তটার কথাই বলব। যেটা দিয়ে সব কিছু শুরু হয়েছিল, আমার স্বপ্নের শুরু।

আমি ভেবেছিলাম সব ঠিক হয়ে গেছে, কিন্তু শেষ মুহূর্তে লা লিগার ইস্যুর জন্য এটা হলো না। এটিই হয়েছে। আমি ক্লাবের কথা বলতে পারি না, লাপোর্তা আমাকে বলেছে- এটা লা লিগার জন্য হয়েছে। আমি শুধু বলতে পারি, আমি এখানে থাকার জন্য যা যা সম্ভব সব কিছুই করেছি। আমি এটা বলেছি, এই বছর আমি থাকতে চেয়েছিলাম। কিন্তু হয়নি।

আমি এখনো বিশ্বাস করতে পারছি না, এই ক্লাবটা ছেড়ে দিচ্ছি, আমার জীবন পুরোপুরি বদলে যাচ্ছে। এখন আমাকে শূন্য থেকে শুরু করতে হবে আবার, জীবনে বড় পরিবর্তন আসছে। আমার পরিবারের জন্যও এই শহর ছাড়া কঠিন। কিন্তু এখন এটার সঙ্গেই আমাদের মানিয়ে নিতে হবে। সব কিছু নতুন করে শুরু করতে হবে আমাদের।

পিএসজি হয়তো একটা সম্ভাবনা…। কিন্তু আজকে পর্যন্ত কারও সঙ্গে কিছুই চূড়ান্ত হয়নি। যখন সব কিছু নিশ্চিত হলো, আমি অনেক কল পেয়েছি। অনেক ক্লাবই আগ্রহ দেখিয়েছে। কিন্তু আমি কোনো কিছু চূড়ান্ত করিনি। কথা এখনো চলছে। এখানে আমি মর্যাদা ও সম্মান নিয়ে বড় হয়েছি। আমি আশা করব, আমি মাঠে যা করব এটার পাশাপাশি মানুষ এসবের কথাও মনে রাখবে।

এটাই আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে কঠিন মুহূর্ত, এ ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই। আমার জীবনে অনেক কঠিন মুহূর্ত এসেছে, অনেক পরাজয়ও দেখেছি। কিন্তু সব সময় আবার মাঠে ফিরে আবার বদলা নেওয়ার সুযোগ ছিল আমার। কিন্তু এখন আমি আর ফিরতে পারছি না, আমার সময় শেষ। এর চেয়ে কঠিন মুহূর্ত আর আসেনি।

বার্সা বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্লাব, দারুণ একটা স্কোয়াড আছে তাদের। খেলোয়াড় আসবে আর যাবে, এটিই সত্যি। আর লাপোর্তা যা বলেছে, এই ক্লাবটা কোনো ব্যক্তির চেয়ে বড়। সমর্থকরা এটার সঙ্গেই অভ্যস্ত হয়ে যাবে, এটিই সত্যি। অনেক ভালো খেলোয়াড় আছে দলে, ভালো কিছুই হবে দিনশেষে।

সব কিছুই ঠিক হয়ে ভেবেছিলাম, সবাই জানত আমি থাকব। আমি বলতে পারি, সমর্থকদের কাছে সব সময় সৎ থেকেছি। কখনই তাদের সঙ্গে প্রতারণা করিনি। আর অন্য কেউ করেছে বলে মনে হয় না; কারণ ব্যাপারটা ছিল অসম্ভব। আমি নিজের কথা বলতে পারি, কারও সঙ্গে কখনই আমি অসৎ হইনি।

আমি শুধু জানি, লা লিগার জন্য এটি সম্ভব ছিল না। কারণ ক্লাবের অনেক দেনা ছিল, আর দেনার ভার নিতে পারছিল না তারা। যখন বার্সা বুঝল লা লিগার জন্য এটা হবে না, তখন কথাবার্তা থেমে গেল। এটা ছিল অসম্ভব। এর পর আমাকে আমার ক্যারিয়ারের কথা ভাবতে হয়েছে। তেবাসকে নিয়ে আমার বলার কিছু নেই, তার সঙ্গে হাতেগোনা কয়েকবার কথা হয়েছে। ওটা বন্ধুত্বপূর্ণই ছিল। তেবাসের সঙ্গে আমার কোনো সমস্যা নেই। গত কিছু দিন খুব কষ্ট গেছে আমার।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

মেসির সংবাদ সম্মেলন ‘থাকার জন্য সব কিছুই করেছিলাম’

আপডেট সময় : ০৬:৩৯:২৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৮ অগাস্ট ২০২১

আমি বার্সেলোনাতে থেকে যেতে বদ্ধপরিকর ছিলাম। এটি আমার ঘর, আমাদের ঘর। বার্সায় থেকে যাওয়াটাই আমার পরিকল্পনা ছিল, এখানেই আমার পুরো খেলোয়াড়ি জীবন কেটেছে। কিন্তু আজকে এই ক্লাব থেকে আমাকে চিরতরে বিদায় নিতে হচ্ছে। আগের বছর আমি চলে যেতে চেয়েছিলাম। কিন্তু এ বছর আমি থাকতে চেয়েছিলাম, কিন্তু পারিনি। এভাবে আমি চলে যেতে চাইনি, কারণ এটিই আমার ঘর।

এভাবে বিদায় নিতে হবে আমি ভাবিনি। আমি চেয়েছিলাম মাঠে সমর্থকদের সামনে বিদায় নিতে। আরও একবার তাদের কাছ থেকে অভিবাদন পেতে। আরও একবার ভালোবাসায় সিক্ত হতে। কিন্তু ১৮ মাস পর ভক্তদের এত কাছাকাছি থেকেও আমাকে তারা বিদায় বলতে পারবে না, সেটি ভাবিনি। কিন্তু সেটিই হয়েছে।

আশা করি আমি একদিন ক্লাবের কোনো একটা অংশ হয়ে ফিরতে পারব, যে ভূমিকাতেই হোক। আশা করি এই ক্লাবকে সেরা করার জন্য আবার কিছু করতে পারব। এ মুহূর্তে অনেক কিছুই আমার মনে পড়ছে না। কিন্তু এখন ভাবার বা কথা বলার মতো খুব ভালো অবস্থায় আমি নেই।

২১ বছর পর আমি আমার স্ত্রী, তিনজন কাতালান-আর্জেন্টাইন সন্তানকে নিয়ে চলে যাচ্ছি। এই শহরে থাকতে পেরে আমি গর্বিত। আশা করছি একদিন এখানে আবার আমরা থাকার জন্য ফিরব, আমি আমার ছেলেদেরও সেটিই বলেছি।

বার্সার হয়ে একটা সেরা মুহূর্ত বেছে নেওয়া অনেক কঠিন। আমার অনেক ভালো মুহূর্ত আছে, খারাপও আছে। হয়তো আমি অভিষেকের মুহূর্তটার কথাই বলব। যেটা দিয়ে সব কিছু শুরু হয়েছিল, আমার স্বপ্নের শুরু।

আমি ভেবেছিলাম সব ঠিক হয়ে গেছে, কিন্তু শেষ মুহূর্তে লা লিগার ইস্যুর জন্য এটা হলো না। এটিই হয়েছে। আমি ক্লাবের কথা বলতে পারি না, লাপোর্তা আমাকে বলেছে- এটা লা লিগার জন্য হয়েছে। আমি শুধু বলতে পারি, আমি এখানে থাকার জন্য যা যা সম্ভব সব কিছুই করেছি। আমি এটা বলেছি, এই বছর আমি থাকতে চেয়েছিলাম। কিন্তু হয়নি।

আমি এখনো বিশ্বাস করতে পারছি না, এই ক্লাবটা ছেড়ে দিচ্ছি, আমার জীবন পুরোপুরি বদলে যাচ্ছে। এখন আমাকে শূন্য থেকে শুরু করতে হবে আবার, জীবনে বড় পরিবর্তন আসছে। আমার পরিবারের জন্যও এই শহর ছাড়া কঠিন। কিন্তু এখন এটার সঙ্গেই আমাদের মানিয়ে নিতে হবে। সব কিছু নতুন করে শুরু করতে হবে আমাদের।

পিএসজি হয়তো একটা সম্ভাবনা…। কিন্তু আজকে পর্যন্ত কারও সঙ্গে কিছুই চূড়ান্ত হয়নি। যখন সব কিছু নিশ্চিত হলো, আমি অনেক কল পেয়েছি। অনেক ক্লাবই আগ্রহ দেখিয়েছে। কিন্তু আমি কোনো কিছু চূড়ান্ত করিনি। কথা এখনো চলছে। এখানে আমি মর্যাদা ও সম্মান নিয়ে বড় হয়েছি। আমি আশা করব, আমি মাঠে যা করব এটার পাশাপাশি মানুষ এসবের কথাও মনে রাখবে।

এটাই আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে কঠিন মুহূর্ত, এ ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই। আমার জীবনে অনেক কঠিন মুহূর্ত এসেছে, অনেক পরাজয়ও দেখেছি। কিন্তু সব সময় আবার মাঠে ফিরে আবার বদলা নেওয়ার সুযোগ ছিল আমার। কিন্তু এখন আমি আর ফিরতে পারছি না, আমার সময় শেষ। এর চেয়ে কঠিন মুহূর্ত আর আসেনি।

বার্সা বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্লাব, দারুণ একটা স্কোয়াড আছে তাদের। খেলোয়াড় আসবে আর যাবে, এটিই সত্যি। আর লাপোর্তা যা বলেছে, এই ক্লাবটা কোনো ব্যক্তির চেয়ে বড়। সমর্থকরা এটার সঙ্গেই অভ্যস্ত হয়ে যাবে, এটিই সত্যি। অনেক ভালো খেলোয়াড় আছে দলে, ভালো কিছুই হবে দিনশেষে।

সব কিছুই ঠিক হয়ে ভেবেছিলাম, সবাই জানত আমি থাকব। আমি বলতে পারি, সমর্থকদের কাছে সব সময় সৎ থেকেছি। কখনই তাদের সঙ্গে প্রতারণা করিনি। আর অন্য কেউ করেছে বলে মনে হয় না; কারণ ব্যাপারটা ছিল অসম্ভব। আমি নিজের কথা বলতে পারি, কারও সঙ্গে কখনই আমি অসৎ হইনি।

আমি শুধু জানি, লা লিগার জন্য এটি সম্ভব ছিল না। কারণ ক্লাবের অনেক দেনা ছিল, আর দেনার ভার নিতে পারছিল না তারা। যখন বার্সা বুঝল লা লিগার জন্য এটা হবে না, তখন কথাবার্তা থেমে গেল। এটা ছিল অসম্ভব। এর পর আমাকে আমার ক্যারিয়ারের কথা ভাবতে হয়েছে। তেবাসকে নিয়ে আমার বলার কিছু নেই, তার সঙ্গে হাতেগোনা কয়েকবার কথা হয়েছে। ওটা বন্ধুত্বপূর্ণই ছিল। তেবাসের সঙ্গে আমার কোনো সমস্যা নেই। গত কিছু দিন খুব কষ্ট গেছে আমার।