ঢাকা ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

তিন দিনের রিমান্ডে নিপুণ রায়

জনপ্রিয় অনলাইন
  • আপডেট সময় : ০৪:৩৫:৩০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩০ মার্চ ২০২১ ৭৫৭ বার পড়া হয়েছে

হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতালে নাশকতা চালানোর প্ররোচনা দেওয়ার একটি মামলায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ বিএনপির সভাপতি নিপুণ রায়ের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

আজ সোমবার রাজধানীর হাজারীবাগ থানা পুলিশ নিপুণ রায়কে আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম মামুনুর রশিদ তিন দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন। এর আগে গতকাল রোববার রায়ের বাজারের নিজ বাসা থেকে নিপুণ রায়কে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

দেশব্যাপী ফেসবুক ও ম্যাসেঞ্জারের কার্যকারিতা ভালো না থাকলেও সেখাইনে ভাইরাল হয় মোবাইল ফোনে নিপুণের নাশকতার প্ররোচনা দেওয়ার দুটি অডিও ক্লিপ। যেখানে তাকে, আরমান নামের এক কর্মীকে যানবাহনে আগুন ধরানোর নির্দেশ দিতে শোনা যায়।

আরমান কেরানীগঞ্জের একজন বিএনপি নেতা। তাকে কল করে নিপুণ বাসে বা অন্য কোনো বাহনে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার কথা বলেন। ঘটনার ভিডিও করে সেটি তাকে পাঠাতেও বলেন। ‘জায়গামতো’ ভিডিওটি পাঠাবেন বলেও ফোনে জানান নিপুণ।

র‌্যাব সদর দপ্তর জানায়, গতকাল রোববার নিপুণ রায় চৌধুরী হেফাজতের হরতালে তার দলীয় কর্মীদের গাড়ি পোড়ানোর নির্দেশনা দেন। নাশকতার নির্দেশদাতা হিসেবে বিকেলে তাকে আটক করা হয়। এর আগে নিপুণ রায়ের নির্দেশনা পালনকারী কেরানীগঞ্জের স্থানীয় বিএনপি নেতা আরমান, খোরশেদ ও শাহীনকে আটক করে র‌্যাব।

অনলাইন পাঠকদের জন্য নিপুণ ও আরমানের দুটি ফোন কলের কথোপকথন তুলে ধরা হলো

প্রথম ফোন কল, যেটি নিপুণ করেছিলেন আরমানকে

নিপুণ রায় : আরমান ভাই, এলাকাতেই তো আছেন তাই না? কালকে তো হরতাল, একটা কিছু করা যাবে না?

আরমান : কী করতে হবে বলেন।

নিপুণ রায় : ধরায় দেন।

আরমান : ওকে ঠিক আছে।

নিপুণ রায় : বাস হোক যেটায় হোক, একদম পুরা, ফুল ধরবে, ফুল ধরবে। একটু দূর থেকে ভিডিও ছবি আমারে পাঠাবেন, অবশ্যই অবশ্যই। ঠিক আছে? আমি কিন্তু জায়গামতো পাঠাবো। হ্যাঁ, ওইটা মাথায় রাখবেন। ঠিক আছে, আজকেই আজকেই।

আরমান : ওকে।

নিপুণ রায় : বের হন।

আরমান : ইনশাল্লাহ।

নিপুণ রায় : এটা আমি দেখতে চাই। একদম দাউদাউ।

ঘটনার পর আরাম ফোন করেন নিপুণকে

আরমান : ভিডিও করতে পারিনি। ছবি পাঠিয়েছি। লীগের লোকজন ঘেরা। পুলিশ ঘিরে রেখেছে।

নিপুণ রায় : ওকে, সরে দাঁড়ান।

আরমান : সরে গেছি গা।

নিপুণ রায় : হোয়াটসঅ্যাপে পাঠান।

আরমান : হুম, হোয়াটসঅ্যাপেই পাঠাইছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

তিন দিনের রিমান্ডে নিপুণ রায়

আপডেট সময় : ০৪:৩৫:৩০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩০ মার্চ ২০২১

হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতালে নাশকতা চালানোর প্ররোচনা দেওয়ার একটি মামলায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ বিএনপির সভাপতি নিপুণ রায়ের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

আজ সোমবার রাজধানীর হাজারীবাগ থানা পুলিশ নিপুণ রায়কে আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম মামুনুর রশিদ তিন দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন। এর আগে গতকাল রোববার রায়ের বাজারের নিজ বাসা থেকে নিপুণ রায়কে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

দেশব্যাপী ফেসবুক ও ম্যাসেঞ্জারের কার্যকারিতা ভালো না থাকলেও সেখাইনে ভাইরাল হয় মোবাইল ফোনে নিপুণের নাশকতার প্ররোচনা দেওয়ার দুটি অডিও ক্লিপ। যেখানে তাকে, আরমান নামের এক কর্মীকে যানবাহনে আগুন ধরানোর নির্দেশ দিতে শোনা যায়।

আরমান কেরানীগঞ্জের একজন বিএনপি নেতা। তাকে কল করে নিপুণ বাসে বা অন্য কোনো বাহনে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার কথা বলেন। ঘটনার ভিডিও করে সেটি তাকে পাঠাতেও বলেন। ‘জায়গামতো’ ভিডিওটি পাঠাবেন বলেও ফোনে জানান নিপুণ।

র‌্যাব সদর দপ্তর জানায়, গতকাল রোববার নিপুণ রায় চৌধুরী হেফাজতের হরতালে তার দলীয় কর্মীদের গাড়ি পোড়ানোর নির্দেশনা দেন। নাশকতার নির্দেশদাতা হিসেবে বিকেলে তাকে আটক করা হয়। এর আগে নিপুণ রায়ের নির্দেশনা পালনকারী কেরানীগঞ্জের স্থানীয় বিএনপি নেতা আরমান, খোরশেদ ও শাহীনকে আটক করে র‌্যাব।

অনলাইন পাঠকদের জন্য নিপুণ ও আরমানের দুটি ফোন কলের কথোপকথন তুলে ধরা হলো

প্রথম ফোন কল, যেটি নিপুণ করেছিলেন আরমানকে

নিপুণ রায় : আরমান ভাই, এলাকাতেই তো আছেন তাই না? কালকে তো হরতাল, একটা কিছু করা যাবে না?

আরমান : কী করতে হবে বলেন।

নিপুণ রায় : ধরায় দেন।

আরমান : ওকে ঠিক আছে।

নিপুণ রায় : বাস হোক যেটায় হোক, একদম পুরা, ফুল ধরবে, ফুল ধরবে। একটু দূর থেকে ভিডিও ছবি আমারে পাঠাবেন, অবশ্যই অবশ্যই। ঠিক আছে? আমি কিন্তু জায়গামতো পাঠাবো। হ্যাঁ, ওইটা মাথায় রাখবেন। ঠিক আছে, আজকেই আজকেই।

আরমান : ওকে।

নিপুণ রায় : বের হন।

আরমান : ইনশাল্লাহ।

নিপুণ রায় : এটা আমি দেখতে চাই। একদম দাউদাউ।

ঘটনার পর আরাম ফোন করেন নিপুণকে

আরমান : ভিডিও করতে পারিনি। ছবি পাঠিয়েছি। লীগের লোকজন ঘেরা। পুলিশ ঘিরে রেখেছে।

নিপুণ রায় : ওকে, সরে দাঁড়ান।

আরমান : সরে গেছি গা।

নিপুণ রায় : হোয়াটসঅ্যাপে পাঠান।

আরমান : হুম, হোয়াটসঅ্যাপেই পাঠাইছি।