খালেদা জিয়া হাসপাতালে প্রথম ঈদ কাটালেন যেভাবে


জনপ্রিয় অনলাইন  : প্রথম বারের মত হাসপাতালে ঈদ করছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ঈদের দিনটি কেমন কাটালেন তিনি? তার জন্য এবারের ঈদের অভিজ্ঞতা একেবারেই ভিন্ন। এরআগে তিনি ঈদ কাটিয়েছেন কারাগারে। এবার হাসপাতালে। অসুস্থতার কারণে তাকে চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে থাকতে হচ্ছে বন্দি অবস্থায়। এরমধ্যে স্বজনদের মাধ্যমে দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানাতে ভুলেননি সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী। ২০১৮ সালের কোরবানীর ঈদ করেছিলেন পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দীন আলম রোডের কেন্দ্রীয় কারাগারে। তখন তার সঙ্গে দেখা করার অনুমতি পেয়েছিলেন ২০জন। আর এবার ঈদে ৭জন স্বজন তার সঙ্গে সাক্ষাৎতের অনুমতি পায়। তারা প্রায় দেড় ঘন্টার মত অবস্থান করেন হাসপাতলের ৬২১নম্বর কেবিনে। এরপর তারা বেরিয়ে আসেন। দেখা করার সুযোগ পাননি দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ নেতাকর্মীরা।

জানা গেছে, পরিবারের সাত স্বজন ঈদের দিন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে হাসপাতালেই দেখা করেছেন। তারা বাসা থেকে রান্না করা খাবারও নিয়ে যান। খালেদা জিয়ার বোন সেলিনা ইসলাম ও তার স্বামী রফিকুল ইসলাম, ভাই সাঈদ ইস্কান্দরের স্ত্রী, তারেক রহমানের স্ত্রী জোবাইদা রহমানের বড় বোন, খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর শাশুড়ি, ভাই শামীম ইস্কান্দরের ছেলে অভিক ইস্কান্দর হাসপাতালে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তারা বেলা একটার দিকে হাসপাতালে যান। বেলা দেড়টার দিকে কেবিন ব্লকের ৬২১ নম্বর কক্ষে প্রবেশ করেন। চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দীন দিদার বলেন, স্বজনদের মাধ্যমে বিএনপির চেয়ারপারসন দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। জানা গেছে, হাসপাতালে খালেদা জিয়ার সঙ্গে থাকা গৃহকর্মী ফাতেমার তৈরি খাবার ও পরিবার থেকে পাঠানো খাবার ঈদের দিন খেয়েছেন তিনি।
ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মাহবুব আলম বলেন, একজন বন্দির মতো খালেদা জিয়া কারা জেল কোড অনুযায়ী খাবার পাবেন। ঈদের দিন অনুমতি সাপেক্ষে পরিবারের সদস্যরা তার সঙ্গে দেখা করতে পারবেন। সেদিন তারা বেগম জিয়ার জন্য খাবারও নিয়ে আসতে পারবেন। কারা কর্তৃপক্ষ সেসব খাবার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তাকে খেতে দেবে।

এছাড়া কারাবিধি অনুসারে ঈদের দিন সকালে তাকে পায়েস, সেমাই ও মুড়ি দেয়া হয়। তার খাবার তৈরি হয় চিকিৎসকের পরামর্শ ও ডায়েট চার্ট অনুযায়ী। দুপুরের খাবারে ভাত অথবা পোলাও। এর সঙ্গে তার জন্য বরাদ্দ রয়েছে ডিম, রুই মাছ, মাংস আর আলুর দম। রাতের মেন্যুতে থাকছে পোলাও। এর সঙ্গে গরু অথবা খাসির মাংস, ডিম, মিষ্টান্ন, পান-সুপারি এবং কোমল পানীয় থাকবে।

Post a Comment

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget