2018-03-11


কবির আল মাহমুদ,মাদ্রিদ : স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে আগামী ১৫ই এপ্রিল বৈশাখী মেলা আয়োজন উপলক্ষ্যে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে আয়োজক সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন দে ভালিয়েন্তে বাংলা ও বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ইন স্পেন। কমিউনিটির বিভিন্ন স্থরের প্রবাসীদের নিয়ে আয়োজিত এ মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন মেলা উদযাপন কমিটির আহবায়ক গোলাম মোস্তফা জাহাঙ্গীর। প্রবাসে বাঙ্গালীর প্রানের এ উৎসবকে প্রানবন্ত এবং সার্বজনিন করতে এ সভার আহব্বান করেন বলে উল্লেখ করেন আয়োজকবৃন্দ।
গত (১২ই মার্চ)সোমবার রাতে বাঙালী অধ্যুষিত লাভাপিয়েসে সাফরান রেষ্টুরেন্টে আয়োজিত এ সভার সঞ্চালনা করেন সাংবাদিক বকুল খান ।
কমিউনিটি ব্যক্তিবর্গের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কমিউনিটি নেতা খোরশেদ আলম মজুমদার ,আবুল খায়ের , বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি জামাল উদ্দিন মনির ,সিনিয়র সহ সভাপতি কাজী এনায়েতুল করিম তারেক ,সহ সভাপতি এ কে এম জহিরুল ইসলাম ,জাকির হোসাইন সাধারন সম্পাদক কামরুজ্জামান সুন্দর ,অ্যাসোসিয়েশন দে ভালিয়েন্তে বাংলার সভাপতি মোহাম্মদ ফজলে এলাহী ,আওয়ামীলীগ নেতা শেখ আব্দুর রহমান ,জাকির হোসাইন,মমিনুল ইসলাম স্বাধীন ,ফারুক আহমেদ মবিন ,কাজী মোহাম্মদ পারভেজ ,বি এনপি নেতা ডাঃ দুলাল আহমেদ ,সুহেল ভূঁইয়া ,সৈয়দ মাসুদুর রহমান নাসিম, রমিজ উদ্দিন,ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আবুল হোসেন, গ্রেটার সিলেট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি লুৎফর রহমান,মোঃ একরামুজ্জামান কিরণ ,আবু বক্কর ,মোঃ সুরমান ,আবুল কালাম ,রাসেল দেওয়ান ,সৈয়দ আমিনুল হক আলাল ,সম্রাট সিকদার ,এস এম মিলন সিরাজ ,এস এম মাসুদুর রহমান ,মোঃ মুখলেছুর রহমান ,সাংবাদিক ফকরুদ্দিন রাজি ,সুমন নূর ,রফিক খান মোঃ কাদির প্রমুখ।
সভায় বক্তারা আয়োজকদের উদ্দেশ্যে সুন্দর, সুশৃঙ্খল্ভাবে মেলা পরিচালনা ও ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে কমিউনিউনিটির সকলের অংশগ্রহন নিশ্চিন্তকরণের আহব্বান জানান।


জনপ্রিয় ডেক্সঃ পর্যটন নগরী বার্সেলোনায় আগামী ১৫ই এপ্রিল বৈশাখী মেলা আয়োজন উপলক্ষ্যে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে আয়োজক সংগঠন কমুনিদাদ দে বাংলাদেশ এন কাতালোনিয়া।
কমিউনিটির বিভিন্ন স্থরের প্রবাসীদের নিয়ে আয়োজিত এ মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন সংঠনের সভাপতি মোঃ ফটিক মিয়া। প্রবাসে বাঙ্গালীর প্রানের এ উৎসবকে প্রানবন্ত এবং সার্বজনিন করতে এ সভার আহব্বান করেন বলে উল্লেখ করেন  আয়োজকবৃন্দ।
১১ই মার্চ বার্সেলোনার ক্যাফে নাইট রেষ্টুরেন্টে আয়োজিত এ সভার পরিচালনা করেন ভয়েস অব বার্সেলোনার সাধারণ সম্পাদক এ আর লিটু।

কমিউনিটি ব্যক্তিবর্গের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রবীন ব্যক্তিত্ব আরস আলী, আব্দুল বাসিত কয়সর, কমুনিদাদ দে বাংলাদেশ এন কাতালোনিয়ার সহ সভাপতি খালেদুর রহমান, মোনায়েম চৌধুরী বাবলা,  জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির সভাপতি সফিউল আলম শফি, এসোসিয়েশন কুলতুরাল দে সুনামগঞ্জ এন কাতালোনিয়ার সভাপতি মনোয়ার পাশা, সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম আবীর, আব্দুস সোবহান, মিয়া লাভু, হালিম মিয়া, আমিন আলী রফিক, হিরা আলম, আব্দুল হান্নান,  আনহার মিয়া, জাহাঙ্গীর আহমদ সুমন, নজরুল ইসলাম, মিজানুর রহমান, ফয়ছল আহমেদ,  মোঃ মাসুদ, সৈয়দ জুয়েল হোসেন, রাসেল আহমেদ, বিধু দাস, হোমায়ুন, আব্দুল মুকিত, জুবেদ, মোঃ সুইট আহমদ, রাজন আহমদ, রুহেল, ইমরান আহমদ প্রমুখ।
সভায় বক্তারা আয়োজকদের উদ্দেশ্যে সুন্দর, সুশৃঙ্খল্ভাবে মেলা পরিচালনা ও  ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে কমিউনিউনিটির সকলের অংশগ্রহন নিশ্চিন্তকরণের আহব্বান জানান।


মাহমুদুল হাসান শাহীন : পর্তুগালে বসবাসরত হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল থানাবাসির কর্তৃক আয়োজিত শহীদ মুজ্জাম্মিল সহ বিশ্বের নির্যাতিত মুসলিম উম্মাহের শান্তি কামনায় দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা পর্তুগালের রাজধানী লিসবনের একটি স্থানীয় হোটেলে শান্তিপূর্ণ ভাবেই সম্পন্ন হয়েছে।
মিজানুর রাহমানের সভাপতিত্বে এবং হাফেজ মাহমুদুল হাসান শাহীনের সঞ্চালনায় পবিত্র ক্বোরআন তিলাওয়াত এর মধ্য দিয়েই উক্ত অনুষ্টানটি অনুষ্টিত হয়েছে। পর্তুগালের বিভিন্ন সিটিতে অবস্থানরত বাঙ্গালিরা এ সভায় অংশ গ্রহণ করেন। সভায় অন্যান্যদের মাঝে স্বাগত বক্তব্য রাখেন শাহিদুজামান লাভু ইসমাইল হুসেন জুয়েল,আজমল চৌধুরী,টিপু সুলতান,কাজি ছিদ্দিক আহমেদ,শাহ সুনাওর মিয়া,আনোয়ারুল ইসলাম (শাহিন).কামাল,ছাঈদুর রহমান,শামিম আহমেদ,শাকিল আহমেদ, জুলকারনাইন সহ বিভিন্ন কমিউনিটির স্থানীয় নেতৃবৃন্দ । বক্তাগণ সিলেটে শহীদ হওয়া মুজ্জাম্মিল মাগফেরাত এবং পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে নির্যাতিত মুসলিম উম্মাহের শান্তি কামনা করেন।


জনপ্রিয় অনলাইন : বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছেন আদালত। তবে হাইকোর্টের এই আদেশ স্থগিত চাইবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।
খালেদা জিয়ার জামিন আদেশের পর দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান বলেছেন, ‘হাইকোর্টের এ আদেশ স্থগিত চেয়ে চেম্বার বিচারপতির আদালতে আবেদন করা হবে।’ তবে কবে নাগাদ দুদক আদেশ স্থগিত চেয়ে চেম্বার আদালতে যাবেন সে সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি।

অবশ্য রায় ঘোষণার পর বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেছেন, বিএনপির চেয়ারপারসনের জামিনে মুক্তি পেতে বাধা নেই। কেননা তাঁকে কোনো মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি। তিনি বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের আদেশ দুদিনের জন্য স্থগিত চেয়েছিলেন। কিন্তু সেটি আদালত বিবেচনায় নেননি।
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছর কারাদণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আজ সোমবার চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। বেলা আড়াইটার দিকে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ জামিনের এই আদেশ দেন।
হাইকোর্ট বলেছেন, খালেদা জিয়া বয়স্ক নারী। তাঁর শারীরিক নানা জটিলতা আছে। এসব বিবেচনা করে তাঁকে চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেওয়া হলো।
জামিনের এই আদেশে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা।
গত ২০ ফেব্রুয়ারি সাজার রায় হওয়ার পর জামিন চেয়ে আপিল করেন খালেদা জিয়া। জামিন আবেদনের শুনানির পর নিম্ন আদালতের নথি আসলে আদেশ দেবেন বলে জানান হাইকোর্ট। আজ দুপুরের ওই বেঞ্চে ৫ হাজার ৩২৮ পৃষ্ঠার নথি পৌঁছায়।
সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারিক আদালত। একই সঙ্গে খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানসহ মামলার অপর পাঁচ আসামির প্রত্যেককে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। চার আসামি হলেন, সাবেক মুখ্যসচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, সাবেক সাংসদ ও ব্যবসায়ী কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ ও জিয়াউর রহমানের ভাগনে মমিনুর রহমান। এর মধ্যে পলাতক আছেন, তারেক রহমান, কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান।

এক নজরে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা:
দুদকের মামলা: ২০০৮ সালের ৩ জুলাই
অভিযোগপত্র: ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট
অভিযোগ গঠন: ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ
আসামির সংখ্যা: ছয়জন
সাক্ষ্যগ্রহণ: ৩২ জন সাক্ষীর
যুক্তিতর্ক শেষ: ২৫ জানুয়ারি
বিচারের সময়: ২৩৬ কার্যদিবস
যুক্তিতর্ক শুনানি: ১৬ কার্যদিবস
রায় ঘোষণা: ৮ ফেব্রুয়ারি
জামিনের জন্য আপিল: ২০ ফেব্রুয়ারি
জামিন আদেশ: ১২ মার্চ
সুত্র : প্রথম আলো ।


জনপ্রিয় অনলাইন : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছর কারাদণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ সোমবার দুপুর আড়াইটার দিকে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ জামিনের এই আদেশ দেন।
হাইকোর্ট বলেছেন, খালেদা জিয়া বয়স্ক নারী। তাঁর শারীরিক নানা জটিলতা আছে। এসব বিবেচনা করে তাঁকে চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেওয়া হলো।

জামিনের এই আদেশে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন খালেদা জিয়ার অন্যতম আইনজীবী আবদুর রেজাক খান। তিনি বলেন, ‘বিচারিক নিয়মে জামিন হওয়ায় তাঁরা সন্তুষ্ট।’
এর আগে বেলা সোয়া দুইটার দিকে বিচারক আদালত কক্ষে আসেন। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম খালেদা জিয়ার আইনজীবী জয়নুল আবেদীনের কাছে জানতে চান, তাঁদের কিছু বলার আছে কি না। তখন তিনি বলেন, জামিন আবেদনের শুনানি তো শেষ হয়েছে। আমরা আদেশের জন্য অপেক্ষা করছি।
অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আদালতকে বলেন, ‘এ মামলাটি স্পর্শকাতর। বিচারিক আদালত খালেদা জিয়ার বয়স ও সামাজিক মর্যাদা বিবেচনা করে তাঁকে ৫ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন।’
গত ২০ ফেব্রুয়ারি সাজার রায় হওয়ার পর জামিন চেয়ে আপিল করেন খালেদা জিয়া। জামিন আবেদনের শুনানির পর নিম্ন আদালতের নথি আসলে আদেশ দেবেন বলে জানান হাইকোর্ট। আজ দুপুরের ওই বেঞ্চে ৫ হাজার ৩২৮ পৃষ্ঠার নথি পৌঁছায়।
সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন বিচারিক আদালত। একই সঙ্গে খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানসহ মামলার অপর পাঁচ আসামির প্রত্যেককে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। চার আসামি হলেন, সাবেক মুখ্যসচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, সাবেক সাংসদ ও ব্যবসায়ী কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ ও জিয়াউর রহমানের ভাগনে মমিনুর রহমান। এর মধ্যে পলাতক আছেন, তারেক রহমান, কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান।

এক নজরে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা:
দুদকের মামলা: ২০০৮ সালের ৩ জুলাই
অভিযোগপত্র: ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট
অভিযোগ গঠন: ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ
আসামির সংখ্যা: ছয়জন
সাক্ষ্যগ্রহণ: ৩২ জন সাক্ষীর
যুক্তিতর্ক শেষ: ২৫ জানুয়ারি
বিচারের সময়: ২৩৬ কার্যদিবস
যুক্তিতর্ক শুনানি: ১৬ কার্যদিবস
রায় ঘোষণা: ৮ ফেব্রুয়ারি
জামিনের জন্য আপিল: ২০ ফেব্রুয়ারি
জামিন আদেশ: ১২ মার্চ
বিদেশ থেকে পাঠানো এতিমদের সহায়তা করার উদ্দেশ্যেই বিদেশ থেকে পাঠানো ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা ক্ষমতার অপব্যবহার করে দুর্নীতির মাধ্যমে আত্মসাৎ করার অভিযোগে খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই দুদক এই মামলা করে। তদন্ত শেষে ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট ছয়জনের বিরুদ্ধেই অভিযোগপত্র দেন দুদকের উপপরিচালক হারুন অর রশীদ। অন্য আসামিরা হলেন সাবেক সাংসদ ও ব্যবসায়ী কাজী সালিমুল হক কামাল, সাবেক মুখ্যসচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ ও জিয়াউর রহমানের বোনের ছেলে মমিনুর রহমান। মামলায় শুরু থেকে পলাতক আছেন কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ আদালত খালেদাসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। এরপর তদন্ত কর্মকর্তাসহ ৩২ জনের সাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহণ করেন আদালত।
মামলার অভিযোগপত্রে বলা হয়, সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াসহ অন্য আসামিরা অসৎ উদ্দেশ্যে অন্যায়ভাবে ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন। সরকারি এতিম তহবিলের আর্থিক দায়িত্ববান বা জিম্মাদার হয়ে বা তহবিল পরিচালনার ভারপ্রাপ্ত হয়ে অপরাধজনক বিশ্বাসভঙ্গ করে পরস্পর যোগসাজশে দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা করেছেন, যা দণ্ডবিধির ৪০৯ ও ১০৯ ধারার অপরাধ।
খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্রে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রীর এতিম তহবিলে ইউনাইটেড সৌদি কমার্শিয়াল ব্যাংক থেকে ১২.৫৫ লাখ মার্কিন ডলার আসে যা বাংলাদেশি টাকায় তৎকালীন ৪ কোটি ৪৪ লাখ ৮১ হাজার ২১৬ টাকা। তিনি প্রধানমন্ত্রী থাকার সময় ১৯৯১ সালের ৯ জুন থেকে ১৯৯৩ সালের ৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই অর্থ দেশের প্রতিষ্ঠিত কোনো এতিমখানায় না দিয়ে অস্তিত্ববিহীন জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট গঠন করেন। অথচ কোনো নীতিমালা তিনি তৈরি করেননি, করেননি কোনো জবাবদিহির ব্যবস্থাও। অথচ খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রীর এতিম তহবিল থেকে ২ কোটি ৩৩ লাখ ৩৩ হাজার ৫০০ টাকা অস্তিত্ববিহীন জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে পাঠান। পরে ওই টাকা আত্মসাৎ করেন যার জন্য তিনি দায়ী। তদন্ত কর্মকর্তা অভিযোগপত্রে বলেন, খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতায় থেকে নিজের পদমর্যাদা বলে সরকারি এতিম তহবিলের আর্থিক দায়িত্ববান বা জিম্মাদার হয়ে বা তহবিল পরিচালনার ভারপ্রাপ্ত হয়ে অপরাধজনক বিশ্বাসভঙ্গ করে দণ্ডবিধির ৪০৯ এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারার অপরাধ করেছেন।
সুত্র : প্রথম আলো ।

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget