ধানের শীষে ভোট করবে ঐক্যফ্রন্ট


জনপ্রিয় অনলাইন : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শরিক দল বিএনপির প্রতীক ধানের শীষ নিয়ে অংশ নেবে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন রাজনৈতিক জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

বৃহস্পতিবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে মতিঝিলে ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে ঐক্যফ্রন্টের এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বৈঠক শেষে জোটের শরিক দল নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না সাংবাদিকদের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

আরও পড়ুন- ঐক্যফ্রন্টের প্রতীক ধানের শীষ, ইসিতে চিঠি

বৈঠক শেষে বেরিয়ে মাহমুদুর রহমান মান্না সাংবাদিকদের বলেন, জোটের দলগুলোর প্রার্থীরা নির্বাচনে কোন প্রতীকে অংশ নেবেন, তা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। আমরা আলোচনার পর সিদ্ধান্ত নিয়েছি, জোটের সব দলের প্রার্থীরা ধানের শীষ প্রতীকেই নির্বাচনে অংশ নেবেন।
বৈঠকে ড. কামাল হোসেন, জোটের মুখপাত্র ও বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, গত ৮ নভেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা। তফসিলে ২৩ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারিত ছিল। তফসিলের পর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে একমাস ও সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন জোট যুক্তফ্রন্ট এক সপ্তাহ পিছিয়ে পুনঃতফসিল ঘোষণার জন্য আবেদন করেন নির্বাচন কমিশনে (ইসি)। পরে ইসি বৈঠক করে এক সপ্তাহ পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করে ১২ নভেম্বর পুনঃতফসিল ঘোষণা করে।
এদিকে, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) ধারা-২০-এর (১)-এর (এ) বিধান অনুযায়ী, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে ইচ্ছুক একাধিক নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল মিলে নির্বাচনী জোট গঠন করলে এ জোটের যেকোনো একটি দলের প্রতীক জোটভুক্ত প্রার্থীদের বরাদ্দ করা যাবে। এ ধরনের প্রতীক পেতে হলে জোটকে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার তিন দিনের মধ্যে নির্বাচন কমিশন বরাবর আবেদন করতে হবে।
এই হিসাবে ৮ নভেম্বর তফসিল ঘোষণার পর ১১ নভেম্বরের মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোকে জোটগতভাবে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার তথ্য জানাতে নির্দেশনা দেয় ইসি। ওই সময় ঐক্যফ্রন্ট তাদের প্রতীক নির্ধারণ করতে পারেনি। তবে বিএনপি চিঠি দিয়ে ইসিকে জানায়২০ দলীয় জোটের আটটি দল ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেবে। পরে পুনঃতফসিল ঘোষণার পর জানানো হয়, জোটগতভাবে অংশগ্রহণ ও প্রতীকের সিদ্ধান্ত বৃহস্পতিবারের (১৫ নভেম্বর) মধ্যে জানানোর সময়সীমা বেঁধে দেয় ইসি। সেই নির্দেশনা অনুযায়ীই ঐক্যফ্রন্ট তাদের বৃহত্তম শরিক দল বিএনপ্রি প্রতীক ধানের শীষে নির্বাচনি মাঠে নামার সিদ্ধান্ত নিলো।
উল্লেখ্য, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলোর মধ্যে গণফোরামের প্রতীক উদীয়মান সূর্য, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) প্রতীক তারা, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের প্রতীক গামছা ও নাগরিক ঐক্যের প্রতীক চারটি জোটবদ্ধ হাত। এর মধ্যে নাগরিক ঐক্য অনিবন্ধিত হওয়ায় ব্যালটে তাদের প্রতীক থাকবে না এমনিতেই। আর বাকি দলগুলো ঐক্যফ্রন্টের অধীনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে রাজি হওয়ায় তাদের দলীয় প্রতীকগুলোও থাকবে না।

Labels:

Post a Comment

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget