ফখরুল হত্যাকাণ্ডে বার্সেলোনা প্রবাসীদের প্রতিবাদ সভা

প্রবাস ডেক্সঃ ফেনী জেলার দাগনভূইয়া উপজেলায় চাঞ্চল্যকর ফখরুল উদ্দিন চৌধুরীর হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে স্পেনের বার্সেলোনায় প্রতিবাদ সভা করেছে বার্সেলোনা প্রবাসী বাংলাদেশীরা। গত ২৬ মার্চ বিকেল ৫টায় রামলা রাভালের একটি রেস্তোরাঁয় ‘আমরা প্রবাসী’ ব্যনারে উক্ত প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। 
সংগঠক শফিক খান ও সালাহ উদ্দিনের উপস্থাপনায় উক্ত প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংগঠন এসোসিয়াশিয়ন কুলতুরাল ই উমানেতারিয়া দে বাংলাদেশ এন কাতালোনিয়া-এর সভাপতি মাহারুল ইসলাম মিন্টু। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বার্সেলোনার বাংলা স্কুলের সভাপতি আলাউদ্দিন হক নেসা, স্পেন বাংলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আফাজ জনি, সাংগঠনিক সম্পাদক লোকমান হোসেন, প্রচার সম্পাদক লায়েবুর রহমান, এটিএন বাংলার বার্সেলোনা প্রতিনিধি সালেহ আহমদ সোহাগ, এসোসিয়াশিয়ন কুলতুরাল এর সহ সভাপতি উত্তম কুমার, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি শাহ আলম স্বাধীন, সাধারণ সম্পাদক সোহেল দেওয়ান, ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক জাফার হোসাইন, সংগঠক সাহাব উদ্দিন, শিমুল চৌধুরী, মোহাম্মদ হাসান, জাহাঙ্গির আলম প্রমুখ।
সভায় বক্তারা নিহত ফখরুলের স্মরণে ১ মিনিট নিরাবতা পালন করে। বক্তারা এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের তীব্র প্রতিবাদ জানায়।  এই হত্যায় জড়িত আসামীরা যত ক্ষমতাশালীই হোক না কেন তাদেরকে গ্রেফতার করে অতি দ্রুত বিচারের আওতায় আনার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, ও স্পেনের রাষ্ট্রদূতের কাছে আবেদন জানায়।
উক্ত প্রতিবাদ সভায় নিহত ফখরুলের ভাই হত্যাকাণ্ডের বিবরণ দিতে গিয়ে বলেন- ‘হত্যাকাণ্ডের কয়েকদিন আগে ফখরুল তার বন্ধু হিসেবে জানতো এমন কয়েকজন তার কেনা একটি নতুন মোটরসাইকেল চালানোর কথা বলে নিয়ে যায়। কিন্তু সেই মোটর সাইকেল ফেরত দেয়া নিয়ে তাদের সাথে ফখরুলের বাকবিতণ্ডা হয়। পরে গত ১৯ জানুয়ারী আনুমানিক রাত সাড়ে এগারোটায়  ফখরুলকে তার মা ও সন্তানের মাঝ থেকে ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে মোটরসাইকেল ফেরত দেবে বলে ফখরুলকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর ফখরুল আর বাসায় ফেরেনি। পরের দিন এলাকাবাসী তার ক্ষত বিক্ষত লাশ স্থানীয় একটি ব্রীজের পাশে পড়ে থাকতে দেখে। এই ঘটনায় নিহতের ভাই নাজিম উদ্দিন চৌধুরী বাদী হয়ে হত্যার ঘটনায় সন্দেহভাজন ৮জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এদের মধ্যে গ্রেফতার হওয়া জাহিদ হাসান হিরো ও আমির হোসাইন বাহাদুর আদালতে ১৬৪ ধারা জবানবন্ধীতে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে অন্যান্য যারা হত্যাকাণ্ডে জড়িত ছিল তাদের নাম প্রকাশ করে। এদের মধ্যে হত্যাকাণ্ডের সন্দেহভাজন মূল হোতা সাইদুল হক পারভেজ এলাকার রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালীর ব্যক্তির ভাই’। তিনি আরো অভিযোগ করেন, হত্যাকাণ্ডের মূল আসামী এই সাইদুল হক পারভেজ এলাকায় প্রকাশ্যে ঘোরাফের করলেও পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না।

Post a Comment

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget