2017-11-05

জনপ্রিয় অনলাইন : বিশ্বকাপ জিতলে কি করবেন? এমন প্রশ্নে ফুটবল তারকাদের একেকজনের উত্তর একেক রকম। ডিয়েগো ম্যারাডোনার মত চ্যালেঞ্জপ্রেমী ফুটবলার তো কাপড় ছাড়া রাস্তায় হাঁটার চ্যালেঞ্জও নিয়েছিলেন।

তবে মেসি ওতটা পাগলাটে নন। নরম স্বভাবের আর্জেন্টাইন অধিনায়ক তবু বড়সড় একটা চ্যালেঞ্জ নিয়েই রেখেছেন মনের মধ্যে। কি সেই চ্যালেঞ্জ? রাশিয়ায় বিশ্বকাপ জিতলে ৬৫ কিলোমিটার রাস্তা পায়ে হেঁটে যাবেন তিনি।
বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত হয়ে গেছে। এখন শুধু ভাবনা শিরোপা নিয়ে। বারবার যেটা হাতে ধরা দেই দেই করেও দিচ্ছে না আর্জেন্টিনার। মেসিকে এজন্য কম কথা শুনতে হয়নি। বিশ্বকাপ না জিততে পারলে হয়তো আরও শুনতে হবে। আর্জেন্টাইন অধিনায়ক তাই লক্ষ্য ঠিক করে ফেলেছেন এবার। বলেছেন, ‘আমাদের সবার একটাই চাওয়া-বিশ্বকাপ জয়।’

পরের প্রসঙ্গটা খুব মজার। শেষপর্যন্ত যদি মেসির অধীনে আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ জিতেই যায়, তবে বার্সেলোনা তারকা কি করবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে ৩০ বছর বয়সী মেসির চটজলদি উত্তর, ‘আমরা যদি বিশ্বকাপ জিততে পারি, আমি সান নিকোলাস পর্যন্ত হাঁটব (বুয়েনস আয়ার্স থেকে ৬৫ কিলোমিটার দূরের একটি শহর)।’

জনপ্রিয় অনলাইন : বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাসহ এবং বর্তমানে রোহিঙ্গাদের নিয়েও প্রতিহিংসা করছে তিনি। প্রতিহিংসা না করে ইতিহাস থেকে শিক্ষা নেওয়ার জন্য বলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ।

শুক্রবার (১০ নভেম্বর) ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের মিললনায়তনে বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির উদ্যোগে নির্যাতিত রোহিঙ্গা মুসলমানের সংকট নিরসনে আলোচনা সভা ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
হানিফ আরও বলেন, ২০০৪ সালের জনসভায় মধ্যে গ্রেনেড হামলা করে আমাদের ২৪ জন নেতাকে হত্যা করেছেন। সেই সময় আমাদেরকে মামলা দিতে দেন নাই। নিহত আত্মীয়দেরকে তাদের মুখ দেখতে দেননি।
সংসদের মধ্যে খালেদা জিয়া রসিকতা করে তখন বলেছিলেন শেখ হাসিনা নাকি নিজের হাত ব্যাগে করে গ্রেড নিয়ে গিয়ে ছিলো। তিনি নাকি নিজে আত্মহত্যা করার জন্য এই হামলা করেছেন।
খালেদাকে উদ্দেশ্য করে তিনি আরও বলেন, ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত প্রতিহিংসার রাজনীতি করেছেন। তা আপনি ভুলে গেছেন আমরা ভুলে যাইনি।
বেগম জিয়ার সমালোচনা করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ আপনাকে মামলা দেয়নি। আপনি ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলের দুর্নীতির মামলার আাসামি হয়েছেন। সাবেক প্রধানমন্ত্রীর নামে দুর্নীতির মামলা হয়ে আসামী হলে দেশের সম্মান আর থাকে না। আমরা চাই আপনি সঠিক তথ্য দিয়ে মামলা শেষ করে দেশের সম্মান রক্ষা করবেন। নিজে নির্দোষ করতে পারছেন না।
তিনি আরও বলেন, আপনি গতকাল বলেছেন, এটা নাকি রাজনৈতিক মামলা। বঙ্গবন্ধুও রাজনৈতিক মামলার শিকার হয়েছেন। তার সাথে আপনি নিজেকে তুলনা করেছেন। শেখ মুজিবুর রহমান দেশকে স্বাধীন করার জন্য পাকিস্তানের মামলার আসামি হয়েছিলেন। কিন্তু আপনি দুর্নীতির মামলার আসামি হয়েছেন। শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে মিলানো খুবই দুঃখজনক বলে জানান তিনি ।
বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মাও. ইসমাঈল হোসাইন এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম।

কামরুল ইসলাম বলেন, কওমী মাদ্রাসার শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা কখনো জঙ্গিবাদ করে না। বিএনপি, জামায়াত-শিবির সব সময় ষড়যন্ত্র করে আসছে। তাদের কাছে ইসলাম নেই। তারা রোহিঙ্গাদের নিয়েও ষড়যন্ত্র করছে। তারা রোহিঙ্গাদের ব্যবহার করতে চান। ২০১৪- ১৫ সালের বর্বরতা আর দেখতে চাই না। পেট্রোল বোমা মেরে কত মানুষকে হত্যা করেছে। সেই চিত্র আর দেখতে চাই না।

জনপ্রিয় অনলাইন : ফেসবুকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে স্ট্যাটাস দেওয়ার প্রতিবাদে রংপুরের পাগলাপীরে মহাসড়ক অবরোধ করেছে স্থানীয়রা। এ সময় পুলিশের সাথে সংঘর্ষে নিহত হয়েছে ১ জন। গুলিবিদ্ধ ৬ জন। শুক্রবার (১০ নভেম্বর) বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বেশ কয়েকদিন ধরে এলাকায় ফেসবুকে মহানবী (সঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস ছড়ানো হয়। যে কারণে এলাকায় ক্ষোভ বিরাজ করে। আজ জুম্মার নামাজের পর স্থানীয় মুসল্লিরা মহাসড়কে একত্রিত হয়ে সড়ক অবরোধ করে। এসময় পুলিশের সঙ্গে মুসল্লিদের ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের এক সময় গুলিতে একজন নিহত ও পাঁচজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তাৎক্ষণিকভাবে নিহত ব্যক্তির নাম পরিচায় জানা যায়নি।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার প্রতিবাদে চলা বিক্ষোভ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় ১১ টি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় ১০ পুলিশসহ অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। আজ শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর থেকে এ সংঘর্ষ শুরু হয়।

কবির আল মাহমুদ ,মাদ্রিদ : স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদীদল বিএনপি স্পেন শাখার উদ্দ্যোগে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল হয়েছে।
সভায় বক্তারা বলেন ,৭ নভেম্বর জাতীয় জীবনের এক ঐতিহাসিক অবিস্মরণীয় দিন। ১৯৭৫ সালের এই দিনে সৈনিক-জনতা রাজপথে নেমে এসেছিলো জাতীয় স্বাধীনতা সুরক্ষা ও হারানো গণতন্ত্র পুনরুজ্জীবনের দৃঢ় প্রত্যয় বুকে নিয়ে। তাই ৭ নভেম্বরের ঐতিহাসিক বিপ্লব অত্যন্ত তাত্পর্যমণ্ডিত। এদিন গণতন্ত্র অর্গলমুক্ত হয়ে অগ্রগতির পথে এগিয়ে যায়, বহুদলীয় গণতন্ত্রের যাত্রা শুরু হয়। মানুষের মনে স্বস্তি ফিরে আসে। তাই ৭ নভেম্বরের চেতনায় সকল জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণতন্ত্রকে পুনরুজ্জীবিত করা এবং জাতীয় স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা এই মুহূর্তে অত্যন্ত জরুরি।
গত ৮ নভেম্বর বুধবার রাতে মাদ্রিদের ঢাকা ক্যাফে রেস্টুরেন্টে এইআয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন স্পেন বিএনপির আহবায়ক খোরশেদ আলম মজুমদার। স্পেন বিএনপির সদস্য সচিব রিয়াজ উদ্দিন লুৎফুরের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন স্পেন বিএনপির সাবেক যুগ্ন সম্পাদক ও বর্তমান যুক্তরাজ্য বিএনপি নেতা তালাত মাহমুদ উজ্জ্বল। বক্তব্য দেন স্পেন বিএনপির যুগ্ন আহবায়ক মোজাম্মেল হোসাইন মনু ,মিজানুর রহমান বিপ্লব ,মোঃ সুহেল ভূঁইয়া ,মিল্টন ভূঁইয়া কচি ,সৈয়দ মাসুদুদুর রহমান নাসিম ,আনোয়ারুল আজিম ,এস এম মনির ,বিএনপি নেতা হেমায়েত খান ,কাজী জসিম ,আমির হোসেন ,সাদেক খান ও পলাশ প্রমুখ। সভাপতির বক্তব্যে খোরশেদ আলম মজুমদার জনগণের সঙ্গে সরকারের সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে উল্লেখ করে বলেন, সরকার গায়ের জোরে মিথ্যা মামলা দিয়ে, খুন করে, গুম করে ক্ষমতায় টিকে আছে। তিনি বলেন, সরকার খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা করছে। সাধারণ মামলাগুলোর তারিখ পড়ে এক, দুই কিংবা তিন মাস পরে।
খালেদা জিয়ার মামলার তারিখ পড়ে প্রতি সপ্তাহে। এসব করে সরকার খালেদা জিয়াকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করছে। তিনি সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে আরো বলেন, কে কোন দল করে, সেটা বড় বিষয় না। দেশকে বাঁচানোর জন্য, গণতন্ত্রকে বাঁচানোর জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ‘আওয়ামী অপশক্তির’ বিরুদ্ধে আন্দোলনে জয়যুক্ত হতে হবে। সভায় শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও সদ্য প্রয়াত সাবেক রাষ্ট্র পতি আব্দুর রহমান বিশ্বাস বিদ্রহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মুনাজাত করা হয়।

জনপ্রিয় অনলাইন : আগামী শুক্রবার ওয়েম্বলিতে অনুষ্ঠিতব্য ইংল্যান্ড ও জার্মানির মধ্যকার প্রীতি ফুটবল ম্যাচে ব্যবহৃত হবে ভিডিও এসিস্টেন্ট রেফারি (ভার)। ফলে প্রথমবারের মত যুক্তরাজ্যে একটি অফিসিয়াল ম্যাচে ব্যবহৃত হতে যাচ্ছে বহুল আলোচিত এই প্রযুক্তি।

গোল, পেনাল্টি, সরাসরি লালকার্ড প্রদর্শন, শনাক্তকরণ সংক্রান্ত সমস্যার সমাধানসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণে সঠিক পর্যালোচনার জন্য ২০১৬ সাল থেকে দুই বছরের পরীক্ষামূলক কার্যক্রমের বিষয়ে সম্মত হয়েছিল ইন্টারন্যাশনাল ফুটবল এসোসিয়েশন বোর্ড (আইএফএবি)।
ভার বা অন্য কোন কর্মকর্তার এমন কোন ক্ষমতা নেই রেফারিকে মাঠে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণে চাপ দিতে পারে। তারা শুধু ভিডিও ফুটেজ দেখে এ বিষয়ে কর্তব্যরত রেফারির সঙ্গে আলোচনা করতে পারে এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণে রেফারিকে সহায়তা করতে পারে।

এর আগে অবশ্য একবার ভার প্রযুক্তি ব্যবহৃত হয়েছে ওয়েম্বলিতে। তবে সেটি ছিল একটি চ্যারিটি ম্যাচে। পরীক্ষামূলকভাবে ওই প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলাফল যাচাইয়ের জন্য অক্টোবরে প্রযুক্তিটি ব্যবহার করা হয়েছিল।

জনপ্রিয় অনলাইন : সাংবাদিক তৈয়বুর রহমান অগ্নিদগ্ধ হওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার বিকালে তার মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৫৮ বছর।
সাংবাদিক তৈয়বুর রহমানের তিন মাস আগে স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। তখন থেকে তিনি বাকশক্তিহীন ছিলেন। রংপুরে তার গ্রামের বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে ছিলেন। মঙ্গলবার দুপুরে গোসল করানোর পর চেয়ারে বসিয়ে নিচে মশার কয়েল জ্বালিয়ে রাখা হয়েছিল। সেই কয়েল থেকে আগুন ধরে দগ্ধ হন তিনি। এরপর তাকে হাসপাতালে আনা হয়। রংপুর মেডিকেলের বার্ন ইউনিটের প্রধান মারুফুল ইসলাম জানান, আগুনে তার কোমর থেকে নিচের অংশ দগ্ধ হয়েছিল।
সাংবাদিক তৈয়বুর রহমান কাজ করেছেন দৈনিক আজাদ, দৈনিক সংবাদ, প্রথম আলো, জনকণ্ঠ, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, দৈনিক মানবকণ্ঠ এবং রাইজিং বিডিতে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করার পর কাস্টমসে চাকরি নিয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে নিজেকে মানিয়ে নিতে না পেরে সাংবাদিকতায় চলে আসেন।
সাংবাদিক তৈয়বুর রহমান নিঃসন্তান ছিলেন।

সাইফুল্লাহ মাহমুদ দুলাল, কানাডা  : আগামী তিন বছরে প্রায় ১০ লাখ অভিবাসী নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে জাস্টিন ট্রুডোর লিবারেল সরকার। তিনটি ক্যাটাগরিতে এই অভিবাসী নেওয়া হবে বলে বুধবার অটোয়ায় হাউস অফ কমন্স-এ এই তথ্য জানান কানাডার সিটিজেনশিপ, অভিবাসী ও শরণার্থী বিষয়ক মন্ত্রী আহমেদ হুসেন।

যে সব ক্যাটাগরিতে লোক নেয়া হবে, তা হচ্ছে- ইকোনোমিক মাইগ্রেন্ট ক্যাটাগরি, পরিবার ক্যাটাগরি; এমন কি শরণার্থী ক্যাটাগরিও। ইতোমধ্যে ২০১৮ সালে নেয়া হবে তিন লাখ ১০ হাজার অভিবাসী, ২০১৯ সালে যা হবে তিন লাখ ৩০ হাজার এবং ২০২০ সাল এগিয়ে দাঁড়াবে তিন লাখ ৪০ হাজারে। 
মন্ত্রী বলেন, অভিবাসী নেওয়ার নতুন এই লক্ষ্যমাত্রা ২০২০ সালের মধ্যে কানাডার মোট জনসংখ্যার এক শতাংশ হবে, যা বয়সের ভারসাম্য বজায় রাখবে। তিনি এই সিদ্ধান্তকে সরকারের ঐতিহাসিক, দায়িত্বপূর্ণ পরিকল্পনা এবং সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে উচ্চাকাঙ্ক্ষী সিদ্ধান্ত বলে অবিহিত করেন। নতুন অভিবাসীরা সমাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে বলে আমাদের সরকার বিশ্বাস করে, বলছিলেন আহমেদ হুসেন। ২০৩৫ সালের মধ্যে ৫০ লাখ কানাডীয় অবসরে যাবেন, এবং তখন সিনিয়র ও অবসরপ্রাপ্তদের সাহায্যে আমাদের খুব কম সংখ্যক লোক থাকবে, যোগ করেন মি. হুসেন। 
হুসেন বলেন, ১৯৭১ সালে প্রতি একজন সিনিয়র নাগরিকের জন্য ৬ দশমিক ৬জন কর্মক্ষম মানুষ ছিলেন, কিন্তু ২০১২ সালে এই অনুপাত কমে দাঁড়ায় ৪ দশমিক ২জনে এবং ২০৩৬ সালে এই অনুপাত হবে প্রতি একজন সিনিয়র নাগরিকের জন্য মাত্র ২জন কর্মক্ষম মানুষ। আর এই সময়ের মধ্যে জনসংখ্যার প্রায় শতভাগ বৃদ্ধি আসবে অভিবাসীদের মাধ্যমে। বর্তমানে আসে ৭৫ শতাংশ আছে বলে সিবিএন থেকে জানা যায়।
হুসেন আরও বলেন, অভিবাসন নতুনত্ব আনে এবং অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করে। পরিবারের সদস্যদের অভিবাসন এবং নাগরিকত্বের আবেদন প্রক্রিয়া নিয়ে সময়ক্ষেপণ জটিলতা কমাতে কাজ করছে তার সরকার। ফেডারেল সরকারের অর্থনৈতিক উন্নয়ন বিষয়ক উপদেষ্টা পরিষদ ২০২১ সাল থেকে সাড়ে চার লাখ নতুন অভিবাসী নেয়ার জন্য সুপারিশ করেছে।
এদিকে কুইবেক সরকার আগামী বছর অর্থাৎ ২০১৮ সালে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে আলাদা ভাবে অভিবাসী নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বলে জানা গেছে।

সুত্র : দৈনিক ইত্তেফাক ।

জনপ্রিয় অনলাইন : ভূমধ্যসাগরের ইতালীয় উপকূল থেকে রবিবার ২৬ কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের সবার বয়স ১৪-১৮ বছরের মধ্যে। চলতি সপ্তাহে লিবিয়া হয়ে ইউরোপে পাড়ি দিতে গিয়ে মাঝ দরিয়ায় তাদের মৃত্যু হয়। স্প্যানিশ একটি জাহাজ প্রথমে সাগরে তাদের মরদেহ দেখতে পায়। এই কিশোরীরা সবাই নাইজেরিয়ার নাগরিক। ইতালির স্যালারনো শহরের পুলিশ প্রধান লোরেনা সিকোতি তাদের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম সিএনএন।

এই ঘটনায় এক নবজাতকসহ ৯০ জন নারী এবং ৫২ জন পুরুষকে উদ্ধার করা হয়েছে।ভূমধ্যসাগরে শরণার্থীবাহী জাহাজডুবির ঘটনা নতুন নয়। কিন্তু এবারের ঘটনায় নিহত ২৬ জনের সবাই কিশোরী হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। কর্তৃপক্ষের ধারণা, ওই কিশোরীরা যৌন-পাচারকারীদের নৌকায় ছিল। সেখানে তারা কোনও কারণে পাচারকারীদের হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে কিনা; তা তদন্ত করছেন ইতালির কর্মকর্তারা।
কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মরদেহগুলোর ময়নাতদন্ত করা হবে। কিশোরীদের মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে অনুসন্ধান চালানো হবে।
উদ্ধারকর্মীরা জানান, নিহত কিশোরীদের পাশেই দুর্ঘটনাকবলিত জাহাজে ঝুলে ছিলেন উদ্ধার হওয়া বাকি ব্যক্তিরা।
জীবন-জীবিকার তাগিদে প্রতিনিয়ত স্বপ্নভূমির উদ্দেশে দেশ ছাড়ছেন বিপুল সংখ্যক মানুষ। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জাহাজ বা নৌকায় চড়ে বসছেন অসংখ্য শরণার্থী। আর উত্তাল সাগরের বুকে একের পর নৌকাডুবিতে প্রাণ যাচ্ছে হাজার হাজার মানুষের। এ তালিকায় সর্বশেষ সংযোজন রবিবারের এ দুর্ঘটনা।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর দুনিয়াজুড়ে জীবন বাঁচাতে আর মাথা গোঁজার জন্য নিরাপদ আশ্রয় খুঁজতে এত বিপুল সংখ্যক শরণার্থীর নানা দিকে ছোটাছুটির ঘটনা এর আগে আর ঘটেনি। ২০১৪ সালে যুদ্ধ-দাঙ্গাপীড়িত বা অভাবের তাড়নায় প্রায় পাঁচ কোটি মানুষ নিজের জন্মভূমি আর ঘরবসত ছেড়ে নানা দেশে পাড়ি দিয়েছিল। সেই ধারা এখনও অব্যাহত রয়েছে।

২ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে তুরস্কের উপকূলে সন্ধান মেলে আয়লান নামের এক সিরীয় শিশুর মৃতদেহ। সমুদ্রের উত্তাল ঢেউয়ে নিথর পড়ে থাকা শিশু আয়লান কুর্দির নাম শুনলে এখনও স্তব্ধ হয়ে যান অনেকে। ছোট নৌকায় থাকা আয়লান ও তার ভাই ভেসে যায় তুরস্কের সৈকতে। তাদের মা ভেসে যান দূরের অন্য এক সৈকতে। এখনও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সপরিবারে সাগরে ভাসছেন হাজারো আয়লান কুর্দি। এই শরণার্থীদের সলিল সমাধি যেন থামছেই না।

জনপ্রিয় অনলাইন : জার্মানির বন শহরে জাতিসংঘের বার্ষিক জলবায়ু সম্মেলন সোমবার শুরু হয়েছে। চলবে দুই সপ্তাহ। সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জার্মান পরিবেশমন্ত্রী বারবারা হেন্ড্রিক্স বলেন, প্যারিস চুক্তি অপরিবর্তনীয়। বরং আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে এই চুক্তি বাস্তবায়নের চেষ্টা করতে হবে। আমাদের হাতে বেশি সময় বাকি নেই। ২০১৫ সালে প্যারিস চুক্তিতে সম্মত হয়েছিল ১৯৬টি দেশ। চুক্তি অনুযায়ী, এই শতাব্দীতে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি দুই ডিগ্রি, সম্ভব হলে দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে রাখার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে প্রতিটি দেশ নির্দিষ্ট পরিমাণ কার্বণ নিঃসরণ কমাবে বলে জানিয়েছে। তবে সেটি বাধ্যতামূলক কোনও বিষয় নয়। বন সম্মেলনে প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নের খুঁটিনাটি নিয়ে আলোচনা হবে।

দ্বীপরাষ্ট্র ফিজি এবারের সম্মেলনের সভাপতি দেশ। তবে সেখানে পর্যাপ্ত অবকাঠামো না থাকায় জার্মানিতে কনফারেন্স অফ দ্য পার্টিস' বা কপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবারের সম্মেলনটি এ ধরনের আয়োজনের ২৩তম সংস্করণ হওয়ায় এটি কপ২৩' নামে পরিচিতি পাচ্ছে।
ফিজির প্রধানমন্ত্রী ফ্রাংক বাইনিমারামা কপ২৩-র সভাপতি হিসেবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে আমাদের বিশ্ব চরম আবহাওয়ার শিকার হচ্ছে। হারিকেন, দাবদাহ, বন্যা, খরা, বরফ গলা ও কৃষিকাজে পরিবর্তন আসায় খাদ্য নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়ছে। তিনি জানান, ফিজি জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশ্বের অন্যতম ক্ষতিগ্রস্ত একটি দেশ।
ফিজির মতো দেশগুলো রক্ষায় বিশ্বের অন্যান্য দেশকে তাদের অঙ্গীকার পুরোপুরি বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বাইনিমারামা। তিনি অবশ্য বক্তব্যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্যারিস চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণার উল্লেখ করেননি।
গত জুন মাসে ট্রাম্প এই ঘোষণা দিয়েছিলেন। বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ কার্বন নির্গমনকারী দেশ হওয়ায় ট্রাম্পের এই ঘোষণা প্যারিস চুক্তির সাফল্যের উপর কালো ছায়া ফেলেছে। তবে জার্মানি, ফ্রান্স এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্য সরকার ও বড় বড় প্রতিষ্ঠান প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নের উপর জোর দিচ্ছে।  
কপ২৩ সম্মেলনে যোগ দিতে বাংলাদেশ থেকে পরিবেশ ও বন সচিব ইসতিয়াক আহমদসহ একটি প্রতিনিধি দল জার্মানি পৌঁছেছে। সম্মেলনের শেষ দিকে পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু যোগ দেবেন বলে জানিয়েছেন পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক (জলবায়ু পরিবর্তন ও আন্তর্জাতিক কনভেনশন) মির্জা শওকত আলী। এর আগে পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হাছান মাহমুদের সম্মেলনে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে।
এদিকে, সম্মেলনকে ঘিরে পরিবেশবাদী সংগঠনগুলো বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে। ইতিমধ্যে তারা আয়োজক দেশ জার্মানিতে কয়লাসহ জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যাপক ব্যবহারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে।

কপ২৩ সম্মেলনে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট ও নোবেলজয়ী আল গোর, হলিউড অভিনেতা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও, আর্নল্ড শোয়ার্জেনেগারসহ আরও অনেকে যোগ দেবেন। সূত্র: ডয়চে ভেলে।

কবির আল মাহমুদ ,মাদ্রিদ : স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে বাংলাদেশি এন.জিও সংগঠন ভালিয়েন্তে বাংলাকে মাদ্রিদ সিটি কর্পোরেশন এর পক্ষ থেকে একটি স্থায়ী অফিস প্রদান করা হয়েছে ।
গতকাল ৬ নভেম্বর সোমবার সন্ধ্যায় মাদ্রিদ সিটি কর্পোরেশন উর্ধতন নেতৃবৃন্দ ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের উপস্থিতিতে নতুন এই অফিস এর আনুষ্ঠানিক শুভ উদ্বধোন করা হয়। এন.জিও সংগঠন ভালিয়েন্তে বাংলা প্রবাসী বাংলাদেশিদের নানা সুযোগ-সুবিধা,ও মানবাধিকার নিয়ে বিগত বছরগুলোতে কাজ করে আসার ধারাবাহিকতায় মাদ্রিদ সিটি কর্পোরেশন এই স্থায়ী অফিস প্রদান করা করল।
নতুন এই অফিস প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ভালিয়েন্তে বাংলার নেতৃবৃন্দ স্পেনে বাংলাদেশিদের নানা সুযোগ-সুবিধাসহ কল্যাণ করা এবং প্রবাসে বাঙালি চেতনাকে সমুন্নত রাখার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। এ ছাড়া দেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে কার্যকরী ভূমিকা রাখার পাশাপাশি স্পেন ও বাংলাদেশের মধ্যে সুনিবিড় সম্পর্ক স্থাপনে ভালিয়েন্তে বাংলার পক্ষ থেকে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন।
ভালিয়েন্তে বাংলার সভাপতি মোহাম্মদ ফজলে এলাহীর সভাপতিত্বে ও সংগঠনিক সম্পাদক রমিজ উদ্দিনের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন মাদ্রিদ সিটি কর্পোরেশন এর ডেপুটি মেয়র ও সেন্ট্রো মাদ্রিদের প্রেসিডেন্ট খরখে গারসিয়া কাসতিয়ানো।শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন ভালিয়েন্তে বাংলার আফরোজা খানম। বক্তব্য দেন ডিপার্টমেন্ট সার্ভিসিও সোসিয়াল মাদ্রিদ এর ব্যাবস্থাপক কারমেন কারমেন সেপেদা, রেড ইন্টার লাভাপিয়েস এর সভাপতি পেপা টরেস ,বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এনায়েতুল করিম তারেক , সাধারন সম্পাদক কামরুজ্জামান সুন্দর, আবু জাফর রাসেল ,আইনজীবী তারেক হোসাইন , আবুল হাসেম মেম্বার ও আক্তার হোসেন প্রমুখ। অনুষ্টানে ফিতা কেটে নতুন এই অফিস এর আনুষ্ঠানিক শুভ উদ্বধোন করেন মাদ্রিদ সিটি কর্পোরেশন এর ডেপুটি মেয়র ও সেন্ট্রো মাদ্রিদের প্রেসিডেন্ট খরখে গারসিয়া কাসতিয়ানো উল্লেখ্য মাদ্রিদ প্রবাসীদের কল্যাণেমাদ্রিদ সিটি কর্পোরেশন এর পক্ষ থেকে একটি স্থায়ী অফিস প্রদান করায় উপস্থিত প্রবাসীরা আনন্দ প্রকাশ করেছেনএবং মিষ্টি বিতরন করেন।

ইউরোপ প্রতিনিধি : গত ৪ নভেম্বর শনিবার  স্টকহোমের একটি মিলনায়তনে সুইডেন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জাতীয় চার নেতার শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে এক দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ই আগস্টে শাহাদাৎ বরণকারী সকল শহীদ, মহান মুক্তিযুদ্ধে ত্রিশ লক্ষ শহীদ এবং বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত জাতীয় চার নেতার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন ও দোয়া মাহফিলের মধ্যে দিয়ে আলোচনা সভা শুরু হয়। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন সুইডেন আওয়ামী লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলম। অসুস্থ্যতাজনিত কারণে সভাপতির অনুপস্থিতিতে সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সহ-সভাপতি শাহআলম চৌধুরী। প্রচার সম্পাদক ইউসুফ আলী রতন এর পরিচালনায় আলোচণা সভায় বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক ডঃ ফরহাদ আলী খান, সহ-সভাপতি খালেদ চৌধুরী, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রশিদ মান্নান ও আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট মোর্শেদ চৌধুরী বাপ্পি। সভায় বক্তাগণ তাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি বক্তব্যে বলেন, ৭৫ এর ১৫ ই আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে সপরিবারে হত্যা ও ৩রা নভেম্বর জাতীয় চার নেতাকে জেল প্রকোষ্ঠে নির্মমভাবে হত্যা মানবজাতির ইতিহাসে অন্যতম নিষ্ঠুরতম ও বর্বর হত্যাকাণ্ড। একটি দেশের সবচেয়ে নিরাপদ স্থান কারাগারের নির্জন প্রকোষ্ঠে মহান মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব প্রদানকারী চারজন বীর নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমেদ, এ এইচ এম কামরুজ্জামান ও ক্যাপ্টেন মনসুর আলী কে হত্যা করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস করার লক্ষে একাত্তরে পরাজয়ের প্রতিশোধ নেয়। যারা হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে এবং এহেন বর্বরতায় মদদ জুগিয়েছে, অবিলম্বে তাদের বিচার কার্যকর করতে হবে। যে সকল খুনি বিদেশে পালিয়ে আছে, তাদের অবিলম্বে দেশে ফিরিয়ে নিয়ে বিচার কার্য ও রায় বাস্তবায়নে প্রবাসী বাঙালিদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। এদের বিরুদ্ধে দেশে ও প্রবাসে জোর প্রতিরোধ গড়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা কে বেগমান রাখতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অনুসারীদের ঐক্য আরো জোরদার করতে হবে। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা ওয়ালিদ জুয়েল, সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম নয়ন, খালেদ আলী ও কাউসার আলী, অভিবাসন বিষয়ক সম্পাদক শ্যামল দত্ত, শামীম আহমেদ, কার্যকরী পরিষদের সদস্য জাহাঙ্গীর আহমেদ, নূর সালাম, সব্যসাচী বড়ুয়া টিলু, মুর্শেদুজ্জামান খান মফিজ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনিস হাসান তপন, সুমন পুরকায়স্থ, মান্না দেব, নাসির আহমেদ ও পিঙ্কু দেব সহ দলীয় নেতৃবৃন্দ।

জনপ্রিয় অনলাইন : পুলিশের কাছে আত্মসমপর্নের পর কাতালান নেতা কার্লোস পুজদেমনকে শর্ত সাপেক্ষ মুক্তি দিয়েছে বেলজিয়াম। মুক্তি পেয়েছেন তার চারজন মন্ত্রীও। সোমবার ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, স্পেন পুজদেমনের নামে ইউরোপীয় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করলে আত্মসমর্পন করেন তিনি। এরপর ১৫ দিনে একবার আদালতে হাজিরা দেওয়ার শর্তে মুক্তি দেওয়া হয়। বেলজিয়াম ত্যাগে নিষেধাজ্ঞাও জারি করে বেলজিয়ামের আদালত।
এক আইনজীবী জানান, সামনের ১৫ দিনের মধ্যেই চেম্বার দ্য কাউন্সিলে পুজদেমন ও তার চার মন্ত্রীকে হাজির হতে হবে।
শুক্রবার স্পেনের একজন বিচারক এই পরোয়ানা জারি করেছিলেন।পুজদেমনসহ তার চার সহযোগীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ, রাষ্ট্রদ্রোহ, সরকারি অর্থের অপব্যয়, নির্দেশ অমান্য ও বিশ্বাস ভঙের অভিযোগ আনা হয়েছে।
কাতালোনিয়ার পার্লামেন্টে স্পেন থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা প্রস্তাব পাস হওয়ার পর মাদ্রিদভিত্তিক কেন্দ্রীয় সরকার পুজদেমনকে বহিষ্কার করে। একই সঙ্গে কাতালোনিয়ার সংসদ ভেঙে দিয়ে ও সায়ত্বশাসন বাতিল করে কেন্দ্রীয় শাসন জারি করে। এরপরই বেলজিয়ামে চলে যান পুজদেমন।

এর আগে বেলজিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে পুজদেমন দাবি করেছিলেন, ন্যায় বিচার পাওয়ার প্রতিশ্রুতি না পেলে তিনি স্পেনে ফিরবেন না।

ইউরোপ প্রতিনিধি : জাতীয় চার নেতার জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ এর উদ্যোগে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ সভাপতি ইকবাল হোসেন মিঠু এর সভাপতিত্বে প্রধান আলোচক ছিলেন সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক ও ডেনমার্ক আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদক ড. বিদ্যুৎ বড়ুয়া। বক্তারা বলেন ,জাতির জনক বঙ্গবনধু শেখ মুজিব ও জাতীয় চারনেতার আদর্শকে ধারণ করে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠন করতে হবে। আজ অবধি যদি ১৫ অগাস্ট ও ৩ নভেম্বর এর হত্যাকান্ড না ঘটতো আজ বাংলাদেশের ইতিহাস অন্যরকম হতো। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ও জাতীয় চারনেতার সঠিক দিক নির্দেশনার কারণে বাংলাদেশ আজ স্বাধীন রাষ্ট্রে পরিগণিত হয়েছে। পনের অগাস্ট এর হত্যাকারীরা ৩ নভেম্বর এর জাতীয় চার নেতা হত্যাকাণ্ডের ঘাতক। এই ঘাতকের দোসররা আজো বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষডযন্ত্রে লিপ্ত। এই সব দোসরদের আশ্রয় প্রশ্রয় দাতাদের অন্যতম বিএনপি জামাত এর বিরুদ্ধে দেশের জনগণকে সতর্ক থাকতে হবে। পাশাপাশি বঙ্গবনধু ও জাতীয় চারনেতার আদর্শ ধারণ করে আমাদের জাতি গঠনে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। আরো উপস্থিত ছিলেন জাহাঙ্গীর আলম, মোহাম্মদ ইউসুফ, মোতালেব ভূঁইয়া, হিল্লোল বড়ুয়া , আবদুল আল জাহিদ, ফাহমিদ আল মাহিদ ,ডাঃ সানন্দা, কোহিনূর মুকুল, সোমা সিদ্দিকা, আহসান উজ্জামান, রিয়াজুল আহমেদ, রিয়াদ হোসেন, অভিক হোসেন, সুমন দেবনাথ, ডেনমার্ক যুবলীগ এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জামিল আখতার কামরুল, সাধারণ সম্পাদক আমির জীবন, ডেনমার্ক ছাত্রলীগ এর সভাপতি ইফতেখার সম্রাট, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম সহ আরো অনেকে।

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget