2017-04-02

লায়েবুর খাঁনঃ সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে গতানুগতিক ধারার একটু বাহিরে গিয়ে নিজেদের হাঁসি কান্না ভাগাভাগি করার প্রত্যয়ে এক্য, বল এবং সংগ্রাম মূলমন্ত্রে আত্ম প্রকাশ করে কাতালোনিয়ার ভয়েস অব বার্সেলোনা
অনুষ্ঠানে মিলিত একঝাক যুবকের একই আওয়াজ; আমরা পদ-পদবি চাই না, আমরা একত্রে থেকে সমাজ গঠনে কাজ করে যেতে চাই। এপ্রিলের ২ তারিখে বার্সেলোনার একটি হলে অনুষ্ঠিত হয় ভয়েস অব বার্সেলোনার প্রস্তুতি সভা।
সভা পরিচালনা করেন উদীয়মান সংগঠন এ আর লিটু এবং সভাপতিত্বে ছিলেন সফল ব্যাবিসায়ী আমিন আলী রফিক। নবগঠিত এ সংগঠনের কার্যক্রম, দিক নির্দেশনা, সঠিক পথচলা এ বিষয়গুলো নিয়ে উপস্থিতির মধ্যে বক্তব্য রাখেন কমিউনিটি ব্যাক্তিত্ব হাসিবুর রহমান মিলন, আফাজ জনি, কাজী আমির হোসেন আমু, খালেদুর রহমান, খালেদ রফিক, নজরুল ইসলাম আবির, মিজানুর রহমান মিজান, কামরুজ্জামান ফটিক, সুমন আহমদ, আনিসুর রহমান বিজয়, মোঃ ফয়সল আহমদ, মোঃ আলী আকবর, বিধুভূষন দাস, আব্দুল মুকিত, জুয়েল আহমদ সৈয়দ, হুমায়ূন আহমদ প্রমূখ।
স্পেন বাংলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আফাজ জনি সমাপনি বক্তব্যের পূর্বে সভাপতি-মোঃ ফয়সল আহমদ, সাধারণ সম্পাদক-এ আর লিটু, প্রচার সম্পাদক হিসেবে এম লায়েবুর রহমান এর নাম ঘোষনা করেন।

নাঈম হাসান পাভেল,সিনত্রা, পর্তুগাল : নানান আনন্দ য়োজনে পর্তুগালের চিত্তাকর্ষন রোমান সভ্যতার নগরী কুইম্ব্রা ও পর্তুগালের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ সেররা দ্যা এসট্রেলায় স্বাধীনতা দিবস পালন উপলক্ষে আনন্দ ভ্রমন ও বনভোজন করেছে বৃহত্তর নোয়াখালী এ্যাসোসিয়েশন ইন পর্তুগাল।
গত ২ এপ্রিল রবিবার পর্তুগালে বসবাসরত বৃহত্তর নোয়াখালীর প্রবাসী পরিবারের সদস্যদের প্রানবন্ত ও স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে মিলনমেলায় পরিনত হয় নোয়াখালীবাসীর অানন্দভ্রমণ ও বনভোজন। নন্দ ভ্রমণের দিনে পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে স্থানীয় সময় সকাল ৮টা ৩০ মিনিটে পর্তুগালের বাংলাদেশী অধ্যুষিত মার্তৃম মুনিজ পার্ক সংলগ্ন রাস্তা থেকে বাস যোগে অংশগ্রহণকারীরা যাত্রা শুরু করেন। প্রথমে রোমান সভ্যতার নগরী কুইম্ব্রা এসে পৌঁছায় বাস।
১২৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত কুইমব্রা বিশ্ববিদ্যালয় ও কুইমব্রা শহরের চারিদিকে ঘুরে দেখেন অংশগ্রহণকারীরা, বাচ্চদের নিয়ে বিভিন্ন রাইড ভ্রমণ শেষে পরে লিসবনের রাধুঁনী রেস্টুরেন্টের সুস্বাদু ও মুখরোচক বাংলা খাবারের
য়োজনে দুপুরের খাবার উপভোগ করেন সবাই। এরপর অংশগ্রহণকারী সবার গন্তব্য হয় পর্তুগালের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ সেররা দ্যা এস্ট্রেলার উদ্দেশ্যে। যেটি ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় সাড়ে ছয় হাজার মাইল উপরে অবস্থিত। গ্রীষ্ম বা শীত হোক সব ঋতুতে বরফে সৃত থাকে পুরো পর্বত। ভূপৃষ্ঠ থেকে বাস যখন ঘুরে ঘুরে প্রায় সাড়ে ছয় হাজার মাইল পাড়ি দেয় চারিদিক দৃষ্টচরে মনে হবে কোনও পর্বতদেশ পাড়ি দেয়ার মত।
র সেররা দ্যা এস্ট্রেলায় যখন পৌছে যায় কাশটা মনে হবে খুব কাছে, যেন হাত বাড়ালেই অাকাশটা ছুঁতে পারছি। পর্বতে পৌছে পরবর্তী আনন্দ অাড্ডা বিনোদন কার্যক্রম শুরু হয়, বরফ নিয়ে বাচ্চাদের স্কেটিং র এদিক ওদিক ছুটোছুটি ছিলে চোখে পড়ার মত। শিক্ষা সফরের য়োজন ও পরিচালনায় ছিলেন বৃহত্তর নোয়াখালী অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি জাহাঙ্গীর লম, জোষ্ঠ্য সভাপতি বুল কালাম জাদ, অর্থ সম্পাদক তবারক হোসেন তপু, নজরুল ইসলাম সুমন, রনি মোহাম্মদ এবং মনজুরুল হোসেন জিন্নাহ। এছাড়াও অংশগ্রহন কারীদের মধ্যে অারও উপস্থিত ছিলেন, অাবুল বাসার, শহীদ উল্লাহ, মোঃ মহিন, মোঃ লিটন, মোঃ সোহেল, মোশাররফ হোসেন, মোঃ কতারুজ্জামান প্রমুখ ও পরিবারবর্গ।

জনপ্রিয় অনলাইন : তিব্বতি ধর্মীয় নেতা দালাই লামার অরুণাচল সফরকে কেন্দ্র করে ক্রমশ সুর চড়াচ্ছে চীন। দালাই লামাকে ব্যবহার করে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক নষ্ট করছে ভারত, অভিযোগ তুলেছিল চীন। এবার বৃহস্পতিবার সরাসরি ভারতীয় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেণ রিজিজুর নাম উল্লেখ করে তাকে মৌখিকভাবে আক্রমণ করল চীনা সংবাদপত্র।

চীনা সংবাদপত্রের সম্পাদকীয়তে প্রকাশিত হয়েছে, রিজিজু নিজেকে খুব চালাক মনে করতে পারেন। বেইজিংয়ের কূটনৈতিক অবস্থানকে অনুকরণ করতে পারেন রিজিজু, কিন্তু তাকে বুঝতে হবে তাইওয়ানের মতো তিব্বতও চীনের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। সংবাদপত্রটির দাবি, দালাই লামাকে কূটনৈতিক অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করছে নয়াদিল্লি।
একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের দাবি, দালাই লামাকে অরুণাচলে ঢুকতে দেয়ায় পাল্টা কাশ্মিরের পরিস্থিতি আরো ঘোরাল করে তোলার হুমকি দিয়েছে চীনা সরকার। চাইলেই কাশ্মির ইস্যুতে হস্তক্ষেপ করতে পারে চীন, দাবি সে দেশের সরকারি সংবাদমাধ্যমের। এমনকী, গ্লোবাল টাইমসে তো এও বলা হয়েছে, ভারতের চেয়ে চীনের জিডিপি ঢের বেশি। সেনাবহরেও ভারতের চেয়ে বহুগুণ শক্তিশালী চীন। চোখের পলক ফেলার আগে ভারত মহাসাগর পর্যন্ত পৌঁছে যাবে চীনা মিলিটারি। আর ভারতের প্রতিবেশীরা চীনের ভালো বন্ধু। যুদ্ধ বাধলে বেইজিং কি নয়াদিল্লির কাছে হেরে যাবে বলে মনে হয়?
ভারতের কাছে কূটনৈতিক স্তরে প্রতিবাদ দাখিল করে প্রতিবেশী দেশটির দাবি, দালাই লামাকে অরুণাচলে যাওয়ার অনুমতি দিয়ে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে প্রভাবিত করেছে ভারত৷ এদিকে, তার অরুণাচল সফর নিয়ে পরিস্থিতি ভারত-চিন পারস্পরিক বাদানুবাদ এমন জায়গায় পৌঁছেছে যে, আর নীরব থাকতে পারেননি তিব্বতি ধর্মগুরু৷ বুধবার তিনি বলেই ফেলেন, ভারত তাকে কখনও চীনের বিরুদ্ধে ব্যবহার করেনি৷
মঙ্গলবারই অরুণাচলের বমডিলায় পৌঁছেছেন দালাই লামা৷ তার অরুণাচল সফর নিয়ে গত কয়েকদিন ধরেই একের পর এক হুমকি দিয়েছে চীন৷ অবশেষে গতকাল ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একপ্রকার কড়া বিবৃতি দিয়ে জানিয়ে দেয়া হয়, তিব্বতি ধর্মগুরুর অরুণাচলে যাওয়া ধর্মীয় সফর৷ ভারত এই বিষয়ে কোনো বিতর্ক চায় না৷ চীনের হুমকি ছিল ফল ভালো হবে না৷ জবাবে ভারত জানায়, এই ধরনের মন্তব্য তারা ভালভাবে দেখছে না৷ এরপরেই সুর চড়িয়েছে চীনও৷ বেইজিং সরাসরিই দলাই লামার অরুণাচল সফর বাতিল করার দাবি তুলেছে৷ সেদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়া চুনইয়াং সাংবাদিকদের বলেন, বিতর্কিত অরুণাচলে দালাই লামাকে যাওয়ার অনুমতি দিয়ে ভারত জেদ দেখিয়েছে৷ ঝুঁকি নিয়েছে ভারত৷ এর জেরে দুই দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কে প্রভাব পড়বে৷ এই ব্যাপারে কড়া পদক্ষেপের কথাও বলেছেন চুনইয়াং৷

চীন পাল্টা সুর চড়ালেও ভারত যে নিজেদের অবস্থান থেকে একচুল সরছে না, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সে বার্তাও স্পষ্ট করে দেয়া হয়েছে৷ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র গোপাল বাগলে নয়াদিল্লির মঙ্গলবারের বিবৃতি উল্লেখ করে বলেছেন, ভারত ওই নীতিতেই অনড়৷ তিনি বুধবারও স্পষ্ট করে জানিয়ে দেন, দালাই লামার সফর পুরোপুরি ধর্মীয়৷ তিনি আগেও বহুবার অরুণাচলে গিয়েছেন৷ তাই এ বিষয়ে রাজনীতির রং চড়ানো হোক বা কৃত্রিম বিতর্ক তৈরি হোক, তা ভারত চায় না৷

জনপ্রিয় অনলাইন : যত দুরেই হোক ছুটে আসে মনের টানে। ফেইস বুকে পরিচয় অতঃপর প্রেম। ব্রাজিল থেকে ক্ষনিকের জন্য ছুটে এলো প্রেমিকের বাড়ী রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর বাজার।
এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে উৎসুক জনতা একনজর দেখার জন্য ভীড় জমায় ওই প্রেমিকের বাড়ীতে। জনতার ঢল নামার কারণে বুধবার সকালে বালিয়াকান্দি থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে চলে যান ব্রাজিল কন্যা। তারপরই অধরা। বৃহস্পতিবার দিন ভর চায়ের দোকান, প্রতিটি মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ে ব্রাজিল কন্যার গল্প। এর সাথে বিয়ের নানা ধরনের গুঞ্জন ওঠে। আবার কক্সবাজার ভ্রমনের বিষয়টিও আসে। সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে বৃহস্পতিবার রাতেই ব্রাজিল কন্যা জেইসার সাথে সঞ্জয়ের শুভ পরিনয় সম্পন্ন হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী জানিয়েছেন, উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের জামালপুর বাজারের মিষ্টি দোকানী বলাই ঘোষের ছেলে শ্যামলী পরিবহনের ঢাকা-কোলকাতা সার্ভিসের কর্মী সঞ্জয় ঘোষের সাথে ফেইসবুকে প্রেমের পরিনয়ের প্রেক্ষিতে তার বাড়ীতে ব্রাজিল থেকে ছুটে আসে জেইসা ওলিভেরিয়া সিলভার। গত ১এপ্রিল ব্রাজিল থেকে রওনা হলেও সোমবার রাত সাড়ে ৯টায় ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে আসে। সেখানে আগে থেকেই অপেক্ষামান প্রেমিক সঞ্জয় ঘোষ তাকে নিয়ে গ্রামের বাড়ী জামালপুর বাজারে আসে। মঙ্গলবার সকাল থেকেই এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকার বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরুষ একনজর দেখতে ওই বাড়ীতে ভীড় জমায়। উৎসুক জনতার ঢল নামে ওই প্রেমিকের বাড়ীতে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার এইচ এম রকিব হায়দারের সাথে দেখা করেন জেইসা ও তার প্রেমিক সঞ্জয় ঘোষ। তারা নিরাপত্তার জন্য আবেদন করেন।
প্রেমিক সঞ্জয় ঘোষ জানান, ফেইসবুকে তার সাথে ১৭ মাস পুর্বে ব্রাজিলের মিউনেশিয়াল এ্যাসিসটেন্ট জেইসা ওলিভেরিয়া সিলভার ফেন্ডস রিকুয়েস্ট পাঠায়। তাকে বন্ধু বানানোর পর দিন যতই যেতে থাকে তাদের দু,জনের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক থেকে প্রেম পরিনয়ে গড়ায়। এক পর্যায়ে সে বাংলাদেশ সম্পর্কে জানতে এ দেশে আসতে চায়। তার অনুমতি পাওয়ার পর সোমবার রাতে তার বাড়ীতে আসে। সে বিয়ে করতে চাইলে সে বিয়ে করবে বলে প্রকাশ করেন। তার পরিবারের সদস্যদের কোন বাধা নেই। মানুষের ভীড় করার কারণে তাকে নিয়ে বুধবার দুপুরে ঢাকায় নিয়ে যায়। ১০ এপ্রিল ব্রাজিলে ফিরে যাবে জেইসা। তবে তার মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
ব্রাজিলের নাগরিক জেইসা ওলিভেরিয়া সিলভা জানান, সে সঞ্জয় ঘোষের সাথে পরিচয়ের সুত্রধরে এসেছে। সে বাংলাদেশকে খুব ভালো বাসে। বিয়ের বিষয়টি পরিবারের সাথে আলোচনা করেই করা হবে।
জামালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইউনুছ আলী সরদার জানান, বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানী ঢাকার মিরপুর এলাকার সঞ্জয় ঘোষের জনৈক এক দাদুর বাসায় রাতে তাদের শুভ পরিনয় হয়েছে বলে তিনি জানতে পেরেছেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার এইচ,এম রকিব হায়দার জানান, আমার নিকট নিরাপত্তা চেয়ে আবেদন করলে ওই সময়ই বালিয়াকান্দি থানায় পাঠানো হয়।
বালিয়াকান্দি থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আবুল কালাম ভুইঞা জানান, জামালপুরে থাকা কালে তাকে নিরাপত্তার জন্য পুলিশের একটি টিম সেখানে সার্বক্ষনিক রাখা হয়।
সঞ্জয় ঘোষের চাচা ব্যবসায়ী মনো ঘোষ জানান, বৃহস্পতিবার ঢাকায় তাদের শুভ পরিনয় হয়েছে। বিষয়টি সঞ্জয় ঘোষ তাদের নিশ্চিত করেছেন। আগামী ১০ এপ্রিল সঞ্জয় ঘোষকে সাথে নিয়েই ব্রাজিল যাবে তাদের নববধু জেইসা। তাদের পরিবার এবিয়েতে খুশি। সকলের নিকট নব দম্পত্তির জন্য আর্শিবাদ কামনা করেছেন।

জনপ্রিয় অনলাইন : সম্প্রতি দলাই লামার অরুণাচল প্রদেশ সফরকে ঘিরে ক্ষোভ উগরে দিল চীনা সংবাদমাধ্যম। চীনের সরকারি সংবাদমাধ্যম বৃহস্পতিবার ভারতকে হুমকি দিয়েছে। সেই সংবাদমাধ্যমের দাবি, জম্মু-কাশ্মীরের অশান্ত পরিস্থিতিতে এবার হস্তক্ষেপ করতে পারে চীন।

অরুণাচল প্রদেশ সফরে এসে তিব্বতের স্বায়ত্ত্বশাসন নিয়ে সওয়াল হন দলাই লামা। এর পাশাপাশি তিনি জানিয়েছিলেন, চীনের থেকে স্বাধীনতা চান না তিনি। এই মন্তব্যেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে চীন। এরপরই চীনা সংবাদমাধ্যম তীব্র হুঁশিয়ারি দিয়েছে ভারতকে। অরুণাচল প্রদেশের একটি বিস্তীর্ণ অংশকে দক্ষিণ তিব্বত বলে দাবি করে চীন। সংবাদমাধ্যমটির দাবি, তিব্বতের আধ্যাত্মিক ধর্মগুরু দলাই লামাকে কূটনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে ভারত।
এর পাশাপাশি, চীনের দাবি যে তাদের জিডিপি ভারতের তুলনায় কয়েক গুণ বেশি। তাদের সামরিক ক্ষমতা ভারত মহাসাগর পর্যন্ত পৌঁছতে পারে। ভারতের প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক ভালো। এর পাশাপাশি ভারত-চীন সীমান্ত সংলগ্ন রাজ্যগুলি সর্বদাই অস্থির অবস্থায় থাকে। সব মিলিয়ে ভারত কোনোদিনই বেজিং-এর সঙ্গে জিততে পারবে না বলে দাবি। চীনের একটি আন্তর্জাতিক সংস্থার সম্পাদকীয়তে চীনের অর্থনৈতিক, সামরিক শক্তি এবং কূটনৈতিক কথা মনে করিয়ে দিয়ে বলেছে, ভারত চীনের সঙ্গে টেক্কা দিতে পারবে না।

চীন দাবি করেছে, ভারত বৌদ্ধ ধর্মের আধ্যাত্মিক ধর্মগুরু দলাই লামাকে হাতিয়ার করে যে খেলাটি খেলছে সেটি অত্যন্ত কুরুচিকর৷ এর আগে ফ্রেব্রুয়ারিতে দুই দেশের মধ্যে একাধিক চুক্তি হয়েছিল৷ নিউক্লিয়ার প্রজেক্ট নিয়েও কথা হয়েছিল এই আলোচনাতে। সূত্র: কলকাতা টুয়েন্টিফোর।

সুফিয়ান আহমদ, বিয়ানীবাজার প্রতিনিধিঃ আগামী ২৫ শে এপ্রিল মঙ্গলবার অনুষ্টিত হবে বিয়ানীবাজার পৌরসভার প্রথম নির্বাচন। প্রথম নির্বাচন উপলক্ষ্যে এই নির্বাচনের প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন ৬ মেয়র প্রার্থীসহ ৬৩ জন সাধারণ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদের প্রার্থী। মনোনয়ন জমা, বাছাই ও প্রত্যাহার শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক  বরাদ্দ  দেয়া হয়েছে। উপজেলা কনফারেন্স হলে সকাল ১০ ঘটিকা থেকে শুরু হয় প্রতিক বরাদ্দের কার্যক্রম। শেষ হয় বিকেল ৩ ঘটিকার সময়। উপজেলা কনফারেন্স হলে প্রতীক বরাদ্দ দেন রিটার্নীং কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনির হোসেন।

প্রতিক প্রাপ্তরা হলেন, মেয়র পদে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ আব্দুস শুকুর  (নৌকা), বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) মনোনীত প্রার্থী মোঃ আবু নাসের পিন্টু (ধানের শীষ), জাসদ মনোনীত প্রার্থী শমসের আলম (মশাল), জামায়াতে ইসলামী মনোনীত সতন্ত্র প্রার্থী কাজী মোঃ জমির হোসেন  (রেল ইঞ্জিন), বর্তমান প্রশাসক সতন্ত্র প্রার্থী মোঃ তফজ্জুল হোসেন (জগ) ও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল কাশেম পল্লব  (মোবাইল ফোন) ।
সাধারণ কাউন্সিলর পদে প্রতিক প্রাপ্তরা হলেন, ০১ নং ওয়ার্ডে   বীর মুক্তিযোদ্ধা সহিব আলী (ডালিম), সুমন আহমদ (উটপাখি), আফজল হোসেন (ব্রিজ), আমির হোসেন (টিউব লাইট), এমাদ আহমদ (ব্লেক বোর্ড), খয়রুজ্জামান (পাঞ্জাবি), আব্দুল কবির (গাজর), মারুফ আহমদ (পানির বোতল)।
০২ নং ওয়ার্ডে- আলকাস উদ্দিন (উটপাখি) , ছয়ফুল আলম (ডালিম), ওয়াহিদুর রহমান টিপু (টেবিল লেম্প), এনামুল হক (পাঞ্জাবি)।
০৩ নং ওয়ার্ডে- সাহাব উদ্দিন (পাঞ্জাবি), কবির আহমদ (ডালিম), ইসলাম উদ্দিন (পানির বোতল), লোকমান হোসেন (বেল্ক বোর্ড), মছমন উদ্দিন (উটপাখি), আপ্তাব উদ্দিন (টিউব লাইট), আতিক উদ্দিন (গাজর), মাহমুদ সামি (টেবিল লেম্প) ও মানিক আহমদ (ব্রিজ),
০৪ নং ওয়ার্ডে- সাইবুল আলম রেজা (পাঞ্জাবি), আকসার হোসেন (পানির বোতল), হাবিবুর রহমান (গাজর)ওয়াহিদুজ্জামান টিটন (ডালিম), আব্দুর নুর উদ্দিন (স্ক্রু ডাইবার), জমির আহমদ লাবু (উটপাখি), আব্দুল আজিজ (ফাইল কেবিনেট), লুৎফুর রহমান (ব্লেক বোর্ড), সাদিকুর রহমান (টিউব লাইট), সিপার আহমদ (ব্রিজ), আবুবক্কর সিদ্দিক কলা মিয়া (ডেরস)।
০৫ নং ওয়ার্ডে- জুনেল আহমদ (পাঞ্জাবি), নাজিম উদ্দিন (উটপাখি), নিজাম উদ্দিন (টিউব লাইট), কান্তি চক্রবর্তী (ব্রিজ), সাইফুল ইসলাম (ডালিম), সেলিম উদ্দিন (পানির বোতল), আরিফ উদ্দিন তুহিন (টেবিল লেম)
০৬ নং ওয়ার্ডে- আবুল আহসান মোঃ আশরাফ (উটপাখি), মোঃ সালেহ আহমদ হেলাল (গাজর), বেলায়েত হোসেন (ডালিম), মোঃ লোকমান আহমদ (টিউব লাইট) ও মোঃ সিরাজ উদ্দিন (পানির বোতল)।
০৭ নং ওয়ার্ডে-  মিছবাহ উদ্দিন (উটপাখি) ও সম্রাট শেখর দেব (টেবিল লেম)।
০৮ নং ওয়ার্ডে - আলী আহমদ বদরুছসামাদ (গাজর), মোঃ এনাম হোসেন (পানির বোতল),মোঃ এনামুল হক (ডালিম), জাহাঙ্গীর আলম (ব্লেকবোর্ড), আব্দুল কাইয়ুম (ব্রিজ), আব্দুল হান্নান (টেবিল লেম) ও মোঃ আনোয়ার হোসেন (উটপাখি)।
০৯ নং ওয়ার্ডে-  জাফর সিদ্দিক (টিউবলাইট), মোঃ এমাদুর রহমান (ডালিম), আবুল হাসনাত নাসির (ফাইল কেবিনেট), মনির আলী (ব্লেকবোর্ড), আব্দুর রহমান আফজল (টেবিল লেম), মোঃ কবির আহমদ (গাজর), মোঃ বাবুল হোসেন (উটপাখি), শাহজান কবির (পানির বোতল), সরোয়ার হোসেন (পাঞ্জাবি), শাহজানুল ইসলাম লায়েক (ব্রিজ) ও শফিক উদ্দিন (ডেরস)।

সংরক্ষিত মহিলা আসনঃ-
,,৩ নং ওয়ার্ডে- রাজিয়া বেগম (আনারস) ও মরিয়মুনা বেগম (অটোরিক্সা)।
,,৬ নং ওয়ার্ডে- মালিকা বেগম ( আনারস) ও উসা রানি চন্দ্র (হারমনিয়াম)। 

,,৯ নং ওয়ার্ডে- রুসনা বেগম ( অটোরিক্সা), তিনা রানি কর ( জবা ফুল) ও সুজনা রাণী দেব ।

সুফিয়ান আহমদ, বিয়ানীবাজার প্রতিনিধিঃ বহুল প্রত্যাশীত বিয়ানীবাজার পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা কনফারেন্স হলে  রিটার্নীং কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনির হোসেন নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ করে দেন। প্রতিক প্রাপ্তরা হলেন, মেয়র পদে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মোঃ আব্দুস শুকুর  (নৌকা), বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) মনোনীত প্রার্থী মোঃ আবু নাসের পিন্টু (ধানের শীষ), জাসদ মনোনীত প্রার্থী শমসের আলম (মশাল), জামায়াতে ইসলামী মনোনীত সতন্ত্র প্রার্থী কাজী মোঃ জমির হোসেন  (রেল ইঞ্জিন), বর্তমান প্রশাসক সতন্ত্র প্রার্থী মোঃ তফজ্জুল হোসেন (জগ) ও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল কাশেম পল্লব  (মোবাইল ফোন) ।
এব্যাপারে রিটার্নীং কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনির হোসেন জানান, বিয়ানীবাজার পৌরসভার নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন পদের প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। বরাদ্দের পর থেকেই তাদের প্রচার প্রচারণায় আর কোন বাধা নেই। তবে কেউ যদি নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্গন করেন, তাহলে তাকে ছাড় দেয়া হবে না।
এদিকে প্রতিক পাওয়ার পর পরই পৌরশহরে চলছে জোর প্রচার-প্রচারণা। নানা-ছন্দে আর গানের তালে তালে চলছে প্রার্থীদের প্রচারণা।

উল্লেখ্য, গত ২৭ মার্চ রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে বিয়ানীবাজার পৌরসভার প্রথম নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতার জন্য মেয়র পদে ১১ জন, সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ৮১ জন ও মহিলা কাউন্সিলার পদে ৮জন প্রার্থী মিলিয়ে মোট ১শজন প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র জমা দেন। বাছাইয়ে জাসদ প্রার্থীসহ ৩ মেয়র ও ১৯ জন কাউন্সিলর প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হলে আপীলের মাধ্যমে বুধবার জাসদ প্রার্থী আবার প্রার্থীতা ফিরে পেলেও বাকী দুজন পান নি। আর কাউন্সিলরদের মধ্যে প্রার্থীতা ফিরে পান মোট ১৭ জন।

লায়েবুর খাঁন : মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে কাতালোনিয়া বিএনপির এক আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়েছে ।
গত ২রা এপ্রিল  বার্সেলোনার এক রেষ্টুরেন্টে সংগঠনের সভাপতি শফিউল আলম শফির সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক আযমান আলীর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন কাতালোনিয়া বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক শামীম আহমদ, যুগ্ম সম্পাদক তুতিউর রহমান,সাংগঠনিক সম্পাদক ও শান্তাকলমা বিএনপির সাধারন সম্পাদক মামুনুর রহমান,শান্তাকলমা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সাজ্জাদ আহমেদ,সহ সাধারন সম্পাদক টুনু মিয়া,কাতালোনিয়া স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারন সম্পাদক এ আর লিটু, ইলিয়াস মুক্তি সংগ্রাম পরিষদ কাতালোনিয়ার সহ সভাপতি শাহিন আহমেদ,লায়েবুর রহমান প্রমুখ ।
এ সময় আরো উপস্হিত ছিলেন ফয়ছল আহমদ, সুট আহমদ, ফখর আহমদ, ফুহাদ আহমদ, মুসাদ্দেক আহমদ, রাসেল ,ছাবের আহমদ সহ আরো অনেকে ।

বক্তারা বলেন একদলীয় শাসনের হাত থেকে বাংলাদেশের মানুষের মুক্তির যে কোন আন্দোলনে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার আহ্বানে সারা দিয়ে নব্য বাকশালী সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান বক্তারা। অনুষ্ঠানে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান থেকে অদ্যাবধিস্বাধীনতা, স্বাধিকার এবং সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে শাহাদত বরণকারী সকলের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং দেশের মঙ্গল কামনা করেন।

আমিনুল ইসলাম,কাতার প্রতিনিধিঃ খাদ্যের মাধ্যমে সাংস্কৃতিক বৈশিএ্য উদযাপন বহুবিচিত্র সাংস্কৃতিক উৎসব দেশের বিভিন্ন খাদ্য সবার মাঝে পরিদর্শন করতে প্রতি বছরের ন্যায় এবার ও ৮ম বারের মত কাতারে ইন্টারন্যাশনাল ফুড ফেস্টিভ্যাল ২০১৭ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
কাতারের রাজধানীর দোহার প্রানকেন্দ্র কর্নিশপাড় সোনারগাঁও হোটের সামনে চলছে ১১ দিন ব্যাপী ইন্টারন্যাশনার ফুড ফেস্টিভ্যাল উৎসব।
এতে বিভিন্ন দেশের ফাইভ স্টার হোটেলের খাদ্য সামগ্রী পদর্শিত হচ্ছে।শুধু তাই নয় এখানে বিশিষ্ট রাধুনীদের হাতে লাইভে শিখানো হচ্ছে রান্নার বিভিন্ন সহজ কৌশল।কোন অংশে যেন আনন্দের কমতি নেই এই উৎসবে।
সেই সাথে স্বপ্নের ডিনার করতে চলে আসতে পারেন ভ্রামমান স্কাই হোটেলে।যেখানে প্রতি প্লেটের খাবার নিচ্ছে কাতারি ৫০০ রিয়াল ও বাংলা ১০ হাজার টাকা।শিশুদের আনন্দ দিতে পানিতে রয়েছে বাহারি রঙের আলো।
শুধু কাতারী নয় বাঙ্গালীদের মাঝে ও আনন্দ বিরাজে কোন কমতি ছিল না।আর সবাইকে আনন্দ দিতে গানের আয়োজন ও ছিল চোঁখে পড়ার মত।চোঁখে সামনে খাবার গুলো তৈরি হচ্ছে এ যেন এক ভিন্ন স্বাদ।আর সাপ্তাহিক ছুটির দিনে দুপুর ২ টা থেকে রাত ১১ টা পর্যন্ত চলে এই আয়োজন। এবারে ফুড ফেস্টিভ্যালে সবার মাঝে বিভিন্ন খাদ্য তালিকা তুলে ধরতে ১০০ শত অধিক স্টর পদর্শিত হচ্ছে। তাছাড়া রয়েছে শিশুদের আনন্দ দিতে হরেক রকম আনন্দবিলাশ রয়েছে।আর প্রত্যেকদিন অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার আগ মুহুর্তে চলে চমক দেখানোর বাহাড়ি রঙ্গের আতশবাজি খেলা।
জানা যায়,গত ২৯ মার্চ শুরু হওয়া এই মেলা চলবে আগামী ০৮ এপ্রিল পর্যন্ত।আর এই ফুড উৎসব সবার জন্য উম্নুক্ত।

সেলিম উদ্দিন ,পর্তুগাল : ৪৬ তম মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে পর্তুগাল আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে আওয়ামী লীগে সভাপতি জনাব জহিরুল আলম জসিম সভাপতিত্বে সাধারন সম্পাদক শওকত ওমানের পরিচালনায় ,শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলোয়াত করেন জনাব ইমরান হোসেন ভূঁইয়া,এবং মহান শহিদদের প্রতি ১মিনিট নিরবতার পালনের মধ্যদিয়ে আলোচনা সভা শুরু হয় ।
 এতে বক্তব্য রাখেন উপদেষ্টা মন্ডলির অন্যতম সদস্য বৃহওর ফরিদপুর এসোসিয়েশন সভাপতি জনাব মাহাবুব আলম,সিনিয়র সহ সভাপতির বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জনাব মিয়া ফরহাদ ,সহ সভাপতি এম এ খালেক,সিনিয়র নেতা আবুল কালাম আজাদ,যুগন সম্পাদক এ কে রাকিব,গ্রীস আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক জনাব মিজানুর রহমান মোল্লা,সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক মিতুন,যুব বিষয়ক সম্পাদক জনাব ইমরান হোসেন ভূঁইয়া,সাবেক ছাত্র লীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন,আওয়ামী লীগ নেতা জনাব মিজানুর রহমান মাসুদ,সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও পর্তুগাল আওয়ামী লীগের সদস্য মোহাম্মদ তারেক,ইউকে যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ আলিম উদ্দিন ।
এতে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা বলেন পর্তুগাল আওয়ামী লীগের আগামী সম্মলেনর আগে কোন রকম সংযোজন বিযোজন করা হবেনা
,সবাইকে দলের সাথে কাজ করে যাওয়ার জন্য উদাত্ত্ব আহবান জানান,সিনিয়র সহ সভাপতি সভাই নিয়ে আগামী সম্মেলন হবে কেই যাহাতে বাদ না পরে সেই দিকে লক্ষ রাখা হবে,এ কে রাকিবের এক প্রশ্ন জবাবে এই কথা গুল বলেন,সভাপতি সম্মেলন যথাসময়ে অনুষ্টিত হবে এই কথা বলেন,এতে আরও উপস্তিত ছিলেন সহ সভাপতি জনাব আবদু রাজ্জাক ,সহ সভাপতি পনির আজমল,মামুনুর রশিদ মামুন,প্রচার সম্পাদক মজিবুর মোল্লা,আন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক জনাব ওমর ফারুক,সহ প্রচার সম্পাদক রেজাউল বাসেদ,জামাল ফকির,কাজী বাপ্পী ,মাইন উদ্দিন ,মামুনুর রশিদ,মহিবুর রহমান মুকিব,জোবায়ের ,নজরুল ইসলাম সুমন,আইয়ুব খাঁন,শফিউল আলম ,জানে আলম ,হাসান ভূঁইয়া ,সোহেল,সহ পর্তুগাল আওয়ামী লীগের নেতৃ বৃন্দ।বক্তারা তাদের বক্তব্যে বলেন সভাপতির বক্তব্যে জাহাঙ্গীর কবির হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকল শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ও গণআন্দোলনে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশ যখন জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বের দরবারে উন্নয়নের রোল মডেল, তখন স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টি করে জঙ্গিদের দিয়ে বাংলাদেশের উন্নয়ন ধারাকে বাধা গ্রস্থ করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। তাই বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশে-বিদেশে স্বাধীনতার পক্ষ ও আওয়ামীলীগের সকলে একসাথে সম্মিলিত ভাবে এদের প্রতিরোধসহ লক্ষ্যে দাড়াতে হবে।পর্তুগাল আওয়ামীলীগের প্রাণ সাধারণ সম্পাদক শওকত ওসমান পর্তুগাল আওয়ামীলীগকে ইউরোপের একটি শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ সংগঠন আখ্যায়িত করে বলেন, ব্যক্তির চেয়ে দলকে প্রাধান্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে আমাদের, দলের জন্য রাজনীতি যারা করবেন সামনের সম্মেলনে তাদের মূল্যায়ন অবশ্যয় হবে ।আলোচনা শেষে দোআ পরিচালনা করেন বায়তুল মোকারম জামে মসজিদের ২য়ত খতিব হাফেজ মোহাম্মদ হাসান।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি : সিলেট জেলা ছাত্রদল নেতা দিলদার হোসেন শামিম মঙ্গলবার (৪ এপ্রিল ২০১৭) সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি লাভ করেন। মুক্তি লাভের পর কারা ফটকে তাকে সংবর্ধনা প্রদান করে যুবদল ও ছাত্রদল। সংবর্ধনা শেষে কারা ফটক থেকে আনন্দ মিছিল বারুত খানা পয়েন্টে পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়। আনন্দ মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল ও যুবদল নেতৃবৃন্দের মধ্যে আব্দুল মজিদ, লোকমান আহমদ, নজরুল ইসলাম, কল্লোল জ্যোতি বিশ্বাস জয়, আব্দুর রউফ, আসাদুল হক আসাদ, খন্দকার ফয়েজ আহমদ, রুনু আহমদ, জয়নুল আহমদ, দিলাজ আহমদ, আনসার আলী, আনোয়ার হোসেন খান, রেজাউল হক চৌধুরী, রুহুল আমিন, শাহ আকাবব আহমদ পলাশ, মাসুদ আহমদ, আনহার খান রাজু, এডভোকেট মো: আব্দুল্লাহ আল-হেলাল, এস রহমান সায়েফ, ফয়সল আহমদ, ইফতেখার আহমদ, আকবর হোসেন, চৌধুরী সোবহান আজাদ, সাদেক আহমদ ফারুকী, সোহেল আহমদ, নিলূৎপল ভট্রাচার্য জয়, সজিব আহমদ, শাহ অলিদ, রাজ আহমদ, এহসানুল করিম, রাসেদ আহমদ, জুবায়ের আহমদ, সজিব আহমদ, রাসেল আহমদ, জুবায়ের আহমদ, লিহান খান, মিজান খান, প্রমুখ।

আনন্দ মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে ছাত্রদল নেতৃবৃন্দ অবৈধ আওয়ামীলীগ সরকারের কারাগারের আটক সকল রাজবন্দিরে অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবী জানান। কানাইঘাট উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সিলেট জেলা ছাত্রদলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক দিলদার হোসেন শামীম কারাগারে থাকাকালীন সময় যাঁরা বিভিন্নভাবে তার মুক্তি কামনা করেছেন, তাঁদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন ।


মোঃ কামরুজ্জামান, ফ্রান্স : কয়েক মাস যাবত ফ্রান্সের বাংলাদেশী কমিউনিটি এবং সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে « ফ্রান্সে ভুয়া বাংলাদেশী পরিচয়ে কত শতাংশ ভারতীয় রয়েছে »  তা গুরুত্ব সহকারে আলোচিত হচ্ছে । একই সাথে এই সকল ভারতীয়দের শনাক্ত করার সম্ভাব্য উপায় এবং OFPRA & CNDA  কিভাবে এই সকল ভুয়া বাংলাদেশীদের সহজেই শনাক্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারে তার বিভিন্ন উপায় তুলে ধরছেন । বলা বাহুল্য, ফ্রান্সে অসংখ্য ভারতীয় ভুয়া  বাংলাদেশী মিথ্যা পরিচয়ে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করে থাকে। ২০০১-১৬, ১৬ বছরে ২৭,৩২৬ জন বাংলাদেশী প্রথম রাজনৈতিক আশ্রয় লাভের আবেদন করে, জনমনে এখন প্রশ্ন  এর মধ্যে কত শতাংশ ভারতীয় ?           
ফ্রান্সে ভারতীয়রা অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশী সেজে সংখ্যালঘু হিসেবে আশ্রয় আবেদন করতো রাজনৈতিক আশ্রয় লাভ করার জন্য।  প্রকৃত পক্ষে,  তারা ভারতীয় সংখ্যাগুরু, বাংলাদেশী সংখ্যালঘু নয়, তারা ভুয়া বাংলাদেশী । OFPRA ৩০শে জুন ২০০৫ তারিখ হইতে ভারতকে নিরাপদ দেশের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার পর হইতে এর সংখ্যা আরও বেড়ে গেছে বলে মনে করেন ফ্রান্স প্রবাসী বাংলাদেশীরা। ভারতীয়রা বাংলাদেশী হিন্দু সম্প্রদায় সেজে বাংলাদেশী পরিচয়ে রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন করে থাকে, আর এই ভুয়া বাংলাদেশী ভারতীয়রা সহজেই প্রমাণ করতে পারে যে তারা সংখ্যালঘু, যেহেতু তারা হিন্দু প্রধান দেশের নাগরিক। অপরদিকে এক শ্রেণীর কুলাংকার, অসাধু বাংলাদেশী দালাল চক্র অর্থের বিনিময়ে বাংলাদেশের জন্ম সনদ সহ প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র ভারতীয়দের সরবরাহ করে থাকে। এই সকল চক্রের কোন সন্ধান পেলে সরাসরি OFPRA & CNDA  কে ফোনে বা ইমেইলে বা সরাসরি গিয়ে বা পুলিশকে অবহিত করার অনুরোধ করেছেন ফ্রান্স প্রবাসী বাংলাদেশীরা।
অপরদিকে ফ্রান্স প্রশাসনের কাছে বাংলাদেশীদের দাবি, OFPRA & CNDA  একটু সক্রিয় হলেই যে সব ভারতীয়রা ভুয়া বাংলাদেশী সেজে রাজনৈতিক আশ্রয় লাভ করেছে, তাদের শনাক্ত করতে পারবে। বাংলাদেশীরা এই বিষয়ে OFPRA & CNDA  কে কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করা অনুরোধ করেছেন :     
    
১। বাংলাদেশী পরিচয়ে রাজনৈতিক আশ্রয় লাভকারীদের দেশে টাকা পাঠানোর তথ্য অনুসন্ধান বা যাচাই করলেই OFPRA & CNDA  সহজেই শনাক্ত করতে পারে, কে বাংলাদেশী আর কে ভুয়া  বাংলাদেশী পরিচয়ে ভারতীয়। কারণ ভারতীয়রা কোন দিন ১ টাকাও বাংলাদেশে প্রেরণ করে না, এরা ফ্রান্সের প্রধান প্রধান মানি ট্রান্সফার ( WESTERN UNION + RIA + MONEY GRAM ) সহ লোকাল ব্যাঙ্ক এর মাধ্যমে ভারতে এদের পরিবারের সদস্যদের কাছে টাকা প্রেরণ করে থাকে।
ভারতীয় নাগরিকরা সাধারণত ভারতে BANK ACCOUNT এ টাকা প্রেরণ করে, তাই BANK  থেকেও  ফ্রান্স প্রশাসন প্রয়োজনে তথ্য নিতে পারবেন। আবার ভুয়া বাংলাদেশী পরিচয়ে ভারতীয়রা ভারতে নিজের নামে একটা ব্যাংক ACCOUNT  ও রাখে, যা তাদের ভারতীয় পরিচয় পত্র দিয়া খোলা।        
৩। Titre de Voyage  নিয়ে কাহারা বেশী  ভারতে ঘুরতে গেছে, এই ভাবেও এই সকল ভারতীয়দের ফ্রান্স প্রশাসন শনাক্ত করতে পারবেন ।  
৪। ভারতে টাকা ট্র্যান্সফারের সাথে ভারতে ভিজিটের ক্রস চেকিং করলেও সহজেই শনাক্ত করা সম্ভব এই সকল ভুয়া বাংলাদেশীদের।    
৫। OFPRA & CNDA  এর বিচারক বাংলা ভাষার উচ্চারণগত দিক থেকেও শনাক্ত করতে পারবেন যে, সে ভারতের নাকি বাংলাদেশের ! কারণ ভারতীয়দের বাংলার উচ্চারনের সূর ও টান বাংলাদেশীদের চেয়ে কিছুটা পার্থক্য রয়েছে। আবার এরা ইন্টার্ভিউ এর সময় অনুবাদকের কথা বুঝতেছেনা, এই রকম ভান করে ইংরেজিতে উত্তর দেওয়ার পরিবেশ সৃষ্টি করে থাকে। অনেকে আবার ইন্টার্ভিউয়ে অসুস্থতার ভান করে থাকে।  
৬। ভুয়া বাংলাদেশী পরিচয়ের  ভারতীয়রা  তাদের রাজনৈতিক আশ্রয় আবেদনেবেশীর ভাগ ক্ষেত্রে বলে যে, তার পরিবারের ৪/৫ জনকে মেরে ফেলা হয়েছে, তাই তার পুরো পরিবার ভারতে চলে এসেছে, বাংলাদেশে তার আর কেউ নাই। এই কথা লিখার উদ্দেশ্য হচ্ছে, রিফিউজি স্ট্যাটাস পেলে পরিবারের সদস্যদেরকে তার উছিলায় ফ্রান্সে আনার পথ খোলা রাখা এবং ভারত কেন্দ্রিক সব কিছু চালু করা।      
এছাড়া বাংলাদেশীরা একটু সচেতন হলেই অনেক ভুয়া বাংলাদেশীদের শনাক্ত করা সম্ভব, যেমন যদি কেউ ভুয়া বাংলাদেশী পরিচয়ধারী ভারতীয়ের অফ্রার ফাইল নম্বর এবং তার অরিজিনাল ভারতীয় আইডির তথ্য জানেন,তাহলে অফ্রাতে বিষয়টি জানাইলে ভুয়া বাংলাদেশীর রিফিউজি স্ট্যাটাস বাতিল করে দিবে ফরাসী কতৃপক্ষ, কিন্তু এইক্ষেত্রে ভুয়া বাংলাদেশী ভারতীয়ের জন্ম সনদ বা ভারতীয় আইডির যথাযথ প্রমাণ দিতে হবে। একই সাথে তার ফরাসী আইডি বা রিসিপিসি নাম্বারও জানা থাকতে হবে, তবে এই ক্ষেত্রে অফ্রার ফাইল নাম্বারটা গুরুত্বপূর্ণ সহায়ক তথ্য হিসেবে কাজ করবে। অপরদিকে, এই সকল ভুয়া বাংলাদেশীরা ফ্রান্স সহ ইউরোপে বিভিন্ন দেশে অপরাধ করলে তার দায়ও পড়ছে বাংলাদেশীদের উপরকারণ বাংলাদেশী পরিচয়ে এই সকল ভারতীয়রা  মিথ্যা রাজনৈতিক আশ্রয়  প্রার্থনা করলেই, তাদেরকেও সরকারী হিসাব মতে বাংলাদেশী হিসেবেই গণ্য করা হয়বিষয়টি খুবই স্পর্শকাতর বিধায়, বিষয়টি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশী  কমিউনিতে ক্ষোভ বিরাজ করছে

তাই ভুয়া বাংলাদেশী পরিচয়ে ফ্রান্সে যে সকল ভারতীয়রা মিথ্যা রাজনৈতিক আশ্রয়  প্রার্থনা বা রাজনৈতিক আশ্রয়  লাভ করেছে, তাদের শনাক্তে বাংলাদেশীদের মতামত সাজেশন অনুসারে ফ্রান্স প্রশাসন প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন এই প্রত্যাশা সকল বাংলাদেশীদের।       

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget