স্পেনে বাংলাদেশ দূতাবাসের মিট দ্য প্রেস : ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে রপ্তানি আয় ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের যে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন


কবির আল মাহমুদ,বিশেষ প্রতিনিধি : স্পেনের বাংলাদেশ দূতাবাসের সমসাময়িক কার্যক্রম ও প্রবাসীদের সেবা প্রদানের পরিধি বৃদ্ধির প্রসঙ্গ নিয়ে মাদ্রিদে দূতাবাসের উদ্যোগে বাংলাদেশি সংবাদকর্মীদের সঙ্গে মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল ২৪ অক্টোবর দূতাবাসের হলরুমে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর মোহাম্মদ নাভিদ শফিউল্লাহ দূতাবাসের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের সঙ্গে এ বিষয়ে মতবিনিময় ও মুক্ত আলোচনা করেন।
স্পেনে বাংলাদেশ দূতাবাসের সমসাময়িক অর্জন প্রসঙ্গে মোহাম্মদ নাভিদ শফিউল্লাহ জানান, স্পেন-বাংলাদেশ বাণিজ্য সম্পর্ক বৃদ্ধি পেয়েছে। মাদ্রিদ মিশনের প্রচেষ্টায় গত বছর বাংলাদেশ রপ্তানি খাতে স্পেনে বৈশ্বিকভাবে চতুর্থ ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে। বাংলাদেশের চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, পাট সামগ্রী, ওষুধ পণ্য, সিরামিক সামগ্রী, হিমায়িত খাবার, মাছ ও কৃষিজাত পণ্য সামগ্রীকে স্পেনের বাজারজাত করার প্রক্রিয়াও মাদ্রিদ মিশন উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখে যাচ্ছে।
বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে রপ্তানি আয় ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের যে লক্ষ্যমাত্রা প্রদান করেছিল, মাদ্রিদ মিশন তা পূর্ণ করতে সক্ষম হয়েছে বলেও তিনি সাংবাদিকদের জানান।
মোহাম্মদ নাভিদ শফিউল্লাহ আরও বলেন, মাদ্রিদ মিশন স্প্যানিশদের বাংলাদেশে বিনিয়োগেও উৎসাহিত করছে। এর ফলে ইসোলাক্স করসান নামে স্পেনের একটি বহুজাতিক কোম্পানি ঢাকা, খুলনা ও সিলেটে বিদ্যুৎ উৎপাদন খাতে সহযোগিতা করছে। ঢাকার মিরপুর জোনের ১০ জেলায় বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশনে সহযোগিতা করার চুক্তি করেছে স্প্যানিশ প্রতিষ্ঠান কবরা-তেদাগুয়া।
মোহাম্মদ নাভিদ শফিউল্লাহ জানান, প্রবাসী বাংলাদেশিদের সেবা প্রদানে বাংলাদেশ দূতাবাস অফিশিয়াল ওয়েবসাইট (www.bangladeshembassy.es) করার পাশাপাশি ফেসবুকেও বাংলাদেশ দূতাবাসের পেজ খোলা হয়েছে। এর মাধ্যমে ডিজিটাল পাসপোর্টসহ (এমআরপি) দূতাবাসের যাবতীয় তথ্যাবলি পাওয়া যাবে। তিনি আরও জানান, ২০১৫ সালের ২৯ মার্চ থেকে স্পেনে প্রবাসী বাংলাদেশিদের জন্য মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট প্রদানের কার্যক্রম শুরু হয় এবং এখন পর্যন্ত সাড়ে ১২ হাজার মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট প্রদান করা হয়েছে। বার্সেলোনায় প্রবাসী বাংলাদেশিদের সংখ্যা বেশি থাকায় সেখানে ও মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট প্রদানের কার্যক্রম এর পাশাপাশি প্রতি দুই মাস পরপর কনস্যুলেট সেবা প্রদান করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে বার্সেলোনার প্রবাসী বাংলাদেশিদের অর্থ ও সময় খরচ কমে গেছে।
মুক্ত আলোচনায় বাংলাদেশ দূতাবাসের হেড অব চ্যান্সারি হারুন আল রাশিদ ও প্রথম সচিব (লেবার উইং) মোহাম্মদ শরিফুল ইসলামও উপস্থিত ছিলেন।
বাংলাদেশে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান প্রসঙ্গটি সাংবাদিকেরা তুললে হারুন আল রাশিদ বলেন, স্পেন দূতাবাস প্রতিনিয়ত স্পেনের পররাষ্ট মন্ত্রণালয়ের সাথে রোহিঙ্গাদের পূনর্বাসন কল্পে মায়ানমারের বিরুদ্ধে শক্ত ভূমিকা পালন করে আসছে । এছাড়া ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন এব্যাপারে সজাগ রয়েছে। 
এ আলোচনায় সংবাদকর্মীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্পেন বাংলা প্রেস ক্লাব এর উপদেষ্টা ও বাংলা ভিশন প্রতিনিধি মিনহাজুল আলম মামুন,দেশকণ্ঠ সম্পাদক এ কে এম জহিরুল ইসলাম , আমার দেশ ও চ্যানেল আই মাদ্রিদ প্রতিনিধি বকুল খান,ইউকে বিডি নিউজ এর ইউরোপীয়ান প্রতিনিধি কবির আল মাহমুদ ,সাংবাদিক ফকরুদ্দিন রাজী ,সাইফুল আমীন ও তারেক আহমেদ প্রমুখ । 

Post a Comment

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget