তুলুজে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বর্ষবরণ উদযাপিত

মোঃ কামরুজ্জামান,ফ্রান্স : ফ্রান্সের পিঙ্ক সিটি খ্যাত তুলুজে বিপুল উৎসাহ উদ্দিপনা ও বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা ১৪২৪ সালকে বরণ করলো তুলুজ প্রবাসী বাংলাদেশীরা। বাংলাদেশী কমিউনিটি এসোসিয়েশন তুলুজ ফ্রান্সের উদ্যোগে বাঙ্গালীর প্রাণের উৎসব ও বাঙালী সংস্কৃতির অসাম্প্রদায়িক চেতনার সার্বজনীন উৎসব পহেলা বৈশাখ (বাংলা নববর্ষ) অনুষ্ঠানটি গত রবিবার তুলুজের স্থানীয় মেরীর হল Salle des fêtes de Limayrac এ উদযাপিত হয়। ব্যাপক উৎসাহ এবং উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশীরা এই উৎসবে স্বপরিবারে অংশ গ্রহন করেন।
দলমত নির্বিশেষে কমিউনিটির সকল শ্রেনীর অংশ গ্রহনে অনুষ্ঠানটি ছিল প্রবাসীদের মিলন মেলা।নাচে গানে বিপুল সংখ্যক প্রবাসী আনন্দে ছিলেন উদ্বেলিত। খুশির আমেজে  উপস্থিত  শিশুরা আনন্দে উল্লাসে মেতে উঠেন।বাঙ্গালি সংস্কৃতিকে আঁকড়ে ধরে থাকার প্রয়াসে বাংলা নববর্ষকে বরণ করতে অনুষ্ঠানের শুরুতে সকলে একে অপরের সাথে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।  অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তুলুজের মেয়র Jean-Luc Moudenc এর পক্ষে ডিপুটি মেয়র Djillali Lahiani (Maire adjoint Toulouse )বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন WBO এর সভাপতি ও আয়েবার  মহাসচিব কাজী এনায়েত উল্লাহ ইনু, স্পেনের বাংলাদেশ সমিতি বার্সেলোনার সভাপতি মাহারুল ইসলাম মিন্টু, ও তুলুজের জনপ্রিয় চিকিৎসক  Dr Jean Noël mazier অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিগণ উপস্থিত হলে  অনুষ্ঠান প্রাণবন্ত হয়ে উঠে। প্রবাসী বাংলাদেশীরা প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিদেরকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন ।অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন  বাংলাদেশী কমিউনিটি এসোসিয়েশন তুলুজ, ফ্রান্স এর সভাপতি  ফখরুল আকম সেলিম।  অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে ছিল মধ্যাহ্ন ভোজ, যদিও অনুষ্ঠানের শেষ অব্দি পর্যন্ত এই পর্ব সকলের জন্য উন্মোক্ত ছিল । দ্বিতীয় পর্বে ছিল সাংগঠনিক পর্ব । সাংগঠনিক পর্ব পরিচালনা করেন ফেরদৌস খান ও  শাকের চৌধুরী ।তৃতীয় পর্ব ছিল ভাবীদের বানানো পিঠা উৎসব এবং শেষ পর্বে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।   বাংলাদেশ এবং ফ্রান্সের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের মূল পর্ব শুরু হয়। এরপর একে একে বিশেষ অতিথিগণ এবং সংগঠনের নেতৃবৃন্দের মধ্যে প্রধান উপদেষ্টা ফারুক হোসেন, উপদেষ্টা মোতালিব মিয়া, সহ-সভাপতি জোসেফ কস্তা, সাধারণ  সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন, কোষাধ্যক্ষ তাজিম উদ্দিন খোকন বাংলা নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন অনুষ্ঠানে তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে আগত অতিথি সহ সকলকে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি দেশ বিদেশে নিজেদের সকলের মাঝে স্বচ্ছ বাঙালী সত্ত্বা জাগিয়ে তোলার আহবান জানান। তিনি বলেন, আমাদের সংস্কৃতি পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সংস্কৃতিআসুন আমরা সবাই বাঙালী থাকি, আমাদের সন্তানদের বাঙালী সংস্কৃতির মধ্যে রাখার চেষ্টা করি ।তিনি আরও বলেন, এ ধরণের অনুষ্ঠান শুধুমাত্র আমাদের জন্য নয় বরং এরই মাধ্যমে প্র্রবাসে নতুন প্রজন্মকে আমাদের কৃষ্টি ও সংস্কৃতি সম্বন্ধে পরিচয় করে দেয়া এবং নব প্রজন্মকে আমাদের বাংলা সংস্কৃতির হাল ধরার সুযোগ সৃষ্টি করা।      অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তুলুজের ডিপুটি মেয়র Djillali Lahiani (Maire adjoint Toulouse ) শুভ নববর্ষ জানিয়ে বক্তব্য শুরু করেন। তিনি তার বক্তব্যে তুলুজে বসবাসরত বাংলাদেশীদের বিভিন্ন ভাল দিক উল্লেখ করে প্রশংসা করেন এবং ভবিষ্যতে বাংলাদেশীদের বিভিন্ন প্র্রকার সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান সহ তাকে এই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।  সংগঠনের সভাপতি ফখরুল আকম সেলিম প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথি, আমন্ত্রিত অতিথি সহ তুলুজে বসবাসরত বাংলাদেশীদের এই অনুষ্ঠানে আসার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন । তিনি তুলুজে একটি শহীদ মিনার তৈরি এবং বাংলা সংস্কৃতি চর্চার জন্য একটি স্কুল প্রতিষ্ঠার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তিনি কার্যকরী পরিষদের সদস্যদেরকে অক্লান্ত পরিশ্রম করে এই অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য ধন্যবাদ জানান ।একই সাথে তিনি প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন ভবিষ্যতেও তার সাথে একই ভাবে কার্যকরী পরিষদ কাজ করে কমিউনিটিকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন ।তিনি স্পেশাল ধন্যবাদ  জানান যারা  অনুষ্ঠানের খাবার রান্না এবং সর্বপুরি যারা অনুষ্ঠানের হল রুম সাজিয়েছেন তাদেরকে।তিনি ধন্যবাদ জানান  আগত শিল্পী বৃন্দদের এবং সাংবাদিকগণকে।এমনকি তিনি সাংবাদিকগণকে ষ্টেজে আমন্ত্রণ জানান পরিচয় সহ শুভেচ্ছা বক্তব্য দেওয়ার জন্য। সাংগঠনিক পর্ব শেষে ভাবীদের বানানো পিঠা ছিল অনুষ্ঠানের আরেকটি চমক।উপস্থিত সকলকে ভাবীরা নিজ নিজ বানানো পিঠার সামনে দাঁড়িয়ে সকলকে আপ্যায়িত করেন।   এরপর অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে  ছিল জনপ্রিয় শিল্পীদের অংশ গ্রহনে চোখ ধাঁধানো মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সাংস্কৃতিক পর্ব যৌথভাবে উপস্থাপনা করেন বিপ্লব ও আবিদা সুলতানা ।  প্রবাসী বাংলাদেশীদের সমবেত কন্ঠে এসো হে বৈশাখ ... গানটির পরিবেশনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় সাংস্কৃতিক  পর্ব। আকর্ষণীয় পর্ব ছিল গানের তালে তালে ইভা রোজারিও সহ তার দল ও শিশু তুফা,উরিসা,রাইদা,নামিরা, বিভা মিন্সদের নৃত্য পরিবেশন এবং শিশুদের ফ্যাশন শো। এছাড়া  স্থানীয় শিল্পী মনির, শেখর, স্বপন, স্পেন থেকে আগত শিল্পী মুন্না ও জিন্নাত শফিক এবং  বাংলাদেশ থেকে আগত রূপের মাইয়ার মামুন গান পরিবেশন করেন।  

Post a Comment

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget