পৌর নির্বাচন : বিয়ানীবাজারে কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি !

সুফিয়ান আহমদ,বিয়ানীবাজার প্রতিনিধিঃ বহুল প্রত্যাশীত বিয়ানীবাজার পৌরসভার প্রথম নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দলীয় মেয়র পদে প্রার্থী বাছাই প্রক্রিয়া ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে।

প্রার্থী বাছাই উপলক্ষ্যে গত বৃহস্পতিবার দুুপুরে উপজেলা পরিষদস্থ চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে এক বর্ধিত সভায় শনিবার পর্যন্ত ফরম সংগ্রহের দিন নির্ধারণ করে দেয়া হয়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, সাংগঠনিক সম্পাদক, পৌর সভাপতি, সাবেক সাধারণ সম্পাদকসহ আরো বেশ কয়েকজন দলীয় মনোনয়নের জন্য ফরম সংগ্রহ করেন। তবে বিগত ইউপি নির্বাচনে দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থীদের ফরম সংগ্রহ করতে ১ হাজার টাকা করে ফি নির্ধারিত থাকলেও পৌর মেয়র প্রার্থীদের জন্য কোন ফরম ফি রাখা হয়নি।
এদিকে শনিবার মেয়র পদে আগ্রহী প্রার্থীদের নিয়ে স্থানীয় একটি অভিজাত রেষ্টুরেন্টে এক সভায় মিলিত হয় উপজেলা আওয়ামীলীগ। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাছিব মনিয়ার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান খানর পরিচালনায় সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের শাখা সংগঠনের দায়িত্বশীলরা উপস্থিত ছিলেন। সভা থেকে প্রার্থীদের নামের একটি তালিকা তৈরী করা হয়েছে বলে জানা যায়। এই তালিকা থেকে ৩জনের নাম প্রস্তাব করে কেন্দ্রে প্রেরণ করা হবে। 
প্রাপ্ত সূত্রে জানা যায়, ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য মোট ১৬ জন দলীয় ফরম সংগ্রহ করেন। তারা হলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাছিব মনিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক সালেহ আহমদ বাবুল, প্রচার সম্পাদক হারুনুর রশীদ দিপু, শিক্ষামন্ত্রীর এপিএস ও সহ দপ্তর সম্পাদক দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি সামছুল হক, সহ-সভাপতি খছরুল হক, সাবেক সহ সভাপতি কয়ছর আহমদ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুস শুকুর, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আবুল কাশেম পল্লব, আওয়ামীলীগ নেতা ময়নুল হোসেন, আবুল হোসেন খসরু, গৌছ উদ্দিন খাঁন, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক আব্দুল কুদ্দুছ টিটু ও শামীম আহমদ।
এদের মধ্যে থেকে ৩জনের নাম কেন্দ্রে প্রেরণ করা হবে। তবে ক্ষেত্রবিশেষ তালিকার বাহিরে থেকেও মনোনয়ন দেয়া হতে পারে। সেটা ঠিক করবেন দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে শেষমেশ কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি তাঁ এবার দেখার অপেক্ষায় বিয়ানীবাজারবাসী।

এবিষয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান খান বলেন, আমরা সভায় বসে আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন যাচাই-বাছাই করে ৩জন বা প্রয়োজনে তিনের অধিক জনের নাম ২১ তারিখের মধ্যে জেলায় প্রেরণ করবো। পরবর্তীতে সাংগঠনিক পদ্ধতি অনুযায়ী কেন্দ্র থেকে মনোনয়ন দেয়া হবে। কেন্দ্র থেকেই নির্ধারণ করা হবে নৌকার মাঝিকে।

Post a Comment

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget