2016-12-11

সুফিয়ান আহমদ, বিয়ানীবাজার প্রতিনিধিঃ যথাযোগ্য মর্যাদা ও আনন্দ উৎসবের মধ্য দিয়ে বিয়ানীবাজারে পালিত হয়েছে মহান বিজয় দিবস। এউপলক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসন হাতে নেয় নানা আয়োজন।
এসবের মধ্যে ছিলো মহান মুক্তিযোদ্ধে শহীদদের স্মরণে পুষ্পমাল্য অর্পন,কুচকাওয়াজ অনুষ্টান, শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগীতা, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে সংবর্ধনা প্রদান, প্রীতি ফুটবল খেলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্টান। দিনব্যাপী আয়োজিত এঅনুষ্টান মালার শুরুতেই বিজয়ের প্রথম প্রহরে পৌরশহরের শহীদ টিলাস্থ স্মৃতিসৌধে পুষ্পামাল্য অর্পণ করেন উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড, বিয়ানীবাজার সরকারী কলেজ, উপজেলা আওয়ামীলীগ,যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ এর অঙ্গসংগঠন, উপজেলা বিএনপি, যুবদল,ছাত্রদলসহ এর অঙ্গসংগঠন, উপজেলা জাতীয় পার্টি, জাতয় যুব সংহতি, জাতীয় ছাত্র সমাজ, বিয়ানীবাজার প্রেসক্লাব, রোটারী ক্লাব অব বিয়ানীবাজার, রোটারেক্ট ক্লাব অব বিয়ানীবাজার, লায়ন্স ক্লাব অব বিয়ানীবাজার,গোলাবশাহ কিশোর সংঘসহ বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।

এরপর সকাল ৮টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে পৌরশহরের পিএইচজি হাই স্কুল মাঠে শুরু হয় বিজয় দিবসের দ্বিতীয় অধিবেশনের কার্যক্রম। উপজেলার ৩৭ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ পুলিশ প্রশাসন, স্কাউট দল অভিবাদন জানান ও মনোরম ডিসপ্লে প্রদর্শন করেন। তিন বিভাগে বিভক্ত হয়ে উপজেলার মাধ্যমিক ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ডিসপ্লে প্রদর্শন করেন।  এসব ডিসপ্লেতে মহান স্বাধীনতার সংগ্রাম,বাঙ্গালী জীবন, স্মৃতি সৌধ্যসহ বিভিন্ন বিষয় উপস্থাপন করেন শিক্ষার্থীরা।
উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত এঅনুষ্ঠানামালায় প্রধান অতিথি ছিলেন, বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান খান। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রোকসানা বেগম লিমা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মু: আসাদুজ্জামান, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা চন্দন কুমার চক্রবর্তী, বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাসিব মনিয়া, সহ সভাপতি আব্দুল আহাদ কলা, যুগ্ম সম্পাদক মোস্তাক আহমদ ও সামসুদ্দিন মাখন, শিক্ষাবিদ আলী আহমদ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার হাজী এম এ কাদির, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বাবুল ও জাকির হোসেন, প্রচার সম্পাদক হারুনুর রশিদ দিপু, গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ছালেহ আহমদ বাবুল, সহ দপ্তর সম্পাদক দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল, বিয়ানীবাজার আদর্শ মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মুজিবুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুশ শুক্কুর, পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি সামসুল হক, সাধারণ সম্পাদক এবাদ আহমদ প্রমুখ।
সন্ধ্যার পর স্থানীয় সংগীত শিল্পীদের নিয়ে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয় দিনব্যাপী আয়োজিত এঅনুষ্টানমালা।

ছবি ক্যাপশন ঃ
১)   মনোজ্ঞ ডিসপ্লে প্রদর্শনের জন্য কসবা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষিকার হাতে পুরষ্কার তুলে দিচ্ছেন অতিথিবৃন্দ।

২)   মনোজ্ঞ ডিসপ্লে প্রদর্শন করছে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা।

রনি মোহাম্মদ,লিসবন,পর্তুগাল : পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে বাংলাদেশের গৌরবের ৪৫তম বিজয় দিবসে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি পুস্পস্তবক অর্পণের মধ্যে দিয়ে স্মরণ করেছে প্রবাসী বাংলাদেশীরা।
গুড়ি গুড়ি বৃষ্টির মধ্যে দিয়েও ১৬ই ডিসেম্বর রাত ১২.০১ মিনেটের প্রথম প্রহরে লিসবনেব শহীদ মিনারে মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের স্মরনে পুস্পস্তবক অর্পন করেন পর্তুগাল আওয়ামীলীগ, পর্তুগাল বিএনপি,
বৃহত্তর নোয়খালী এসোসিয়েশন অব পর্তুগাল, বৃহত্তর ফরিদপুর এসোসিয়েশন অফ পর্তুগাল, সিলেট বিয়ানীবাজার প্রবাসী কল্যান সমিতি, প্রগতিশীল ইয়ুথ ফোরাম সিলেট,
ইউরোপ প্রবাসী বাংলাদেশী এসোসিয়েশন পর্তুগাল শাখা, পর্তুগাল সাংবাদিক ফোরাম সহ পর্তুগালের রাজনৈক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও পর্তুগাল বসবাসরত বাংলাদেশীরা।
পরে শহীদ মিনারে মুক্তিযু্দ্বের শহীদদের স্মরনে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে রাখেন পর্তুগাল আওয়ামীলীগের সভাপতি জহিরুল আলম জসিম
,
পর্তুগাল বিএনপির সাধারন সম্পাদক মহিন উদ্দিন, বৃহত্তর নোয়খালী এসোসিয়েশনের সভাপতি হুমায়ন কবির জাহাঙ্গীর, ফরিদপুর এসোসিয়েশনের সভাপতি মাহবুব আলম,
প্রগতিশীল ইয়ুথ ফোরামের সভাপতি ফরহাদ মিয়া, ইউরোপ প্রবাসী বাংলাদেশী এসোসিয়েশন শওকত ওসমান, বিয়ানীবাজার প্রবাসী কল্যান সমিতির মোঃ রিপন,
আবুল কালাম আজাদ, কাজী ইমদাদ, ইউসুফ তালুকদার, একে রাকীব,আমীর সোহেল, দেলোয়ার হোসেন, পারভেজ সহ বিভিন্ন রাজনৈক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।



রনি মোহাম্মদ,পর্তুগাল: পর্তুগালের দ্বিতীয় বৃহওর শহর পর্তোতে বাংলাদেশ দূতাবাসের নবনিযুক্ত কনস্যুলার হাসান আব্দুল্লাহ তৌহিদ এর সম্মানে বাংলাদেশ কমিউনিটির পর্তোর পক্ষ থেকে পর্তোর স্থানীয় একটি রেষ্টুরেন্টে বিপুল সংখ্যক প্রবাসি বাংলাদেশীদের উপস্থিতিতে এক অনাড়ম্বর নৈশ ভোজের মাধ্যমে সংবর্ধনা দেয়া হয়।

বাংলাদেশ কমিউনিটির পর্তোর সভাপতি শাহ আলম কাজালের সঞ্চালনায় নৈশ ভোজে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ দূতাবাসের কনস্যুলারের সহকারি ওয়ায়েস করণী খান, পর্তোর কমিউনিটি ব্যাক্তিতো মামুন হাজরি, নাজির আহমেদ, আব্দুল আলিম, মোর্শেদ আলম, তৌহিদ আলম, মহিন আহমেদ, মোজ্জাম হোসেন, সর্দার হোসেন, লিটন মিয়া, বেলাল হোসেন সহ কমিউনিটি, রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনের বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ। 

অনুষ্টনের শুরুতে কনস্যুলার হাসান আব্দুল্লাহ তৌহিদকে ফুল দিয়ে বরণ এবং পরিচয় করিয়েদেন বাংলাদেশ কমিউনিটির পর্তোর সভাপতি।
এর পর শাহ আলম কাজালের নেতৃত্বে কমিউনিটির পক্ষ থেকে ক্রেস্ট দিয়ে সম্মানোনা জানানো হয়। 


নবনিযুক্ত কনস্যুলার হাসান আব্দুল্লাহ তৌহিদ তার শুভেচছা বক্তব্যে, পর্তো বসবাসরত সকল প্রবাসী বাংলাদেশীদেরকে ধন্যবাদ জানান, এবং বলেন এমন আনন্দঘন পরিবেশে সকলের সাথে একত্রে মিলিত হতে পেরে আমি আনন্দিত।
প্রবাসী বাংলাদেশীদের সমস্য দূরি করন মাদের প্রধান লক্ষ।

বাহার উদ্দিন বকুল, জেদ্দা, সৌদি আরব : সৌদি আরবের জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেটে আনন্দঘন পরিবেশে বিজয় দিবস পালিত হয়েছে।

সাপ্তাহিক  ছুটির দিন হওয়ার কারণে প্রবাসীরা স্বতঃস্ফুর্ত ভাবে মহান বিজয় দিবস পালনে দারুণ উৎসাহিত হয়। তাই মানুষের ঢল নামে কনস্যুলেট প্রাঙ্গনে।

৪৫তম বিজয় দিবসের সকাল ৮টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে সরসূচনা করেন কনসাল জেনালেন এ.কে.এম শহীদুল করিম। ভাবগম্ভীর পরিবেশে জাতীয় সঙ্গীতের সুরমূর্চ্ছ্বনায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন কালে কনস্যুলেট কর্মকর্তা বৃন্দ সহ বীর মুক্তিযোদ্ধা গণ এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ অংশ গ্রহণ করেন।
অতঃপর রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনান যথাক্রমে কাউন্সিলর হজ্জ মাকসুদুর রহমান, কাউন্সিলর  শ্রম মোঃ আমিনুল ইসলাম,কাউন্সিলর আলতাফ হোসেন, এবং কনসাল জহিরুল ইসলাম। সেই সাথে শহীদদের আত্মার শান্তি কামনা সহ দেশের উন্নতি-অগ্রগাতি কামনায় দোয়া ও মোনাজাত করাহয়।
কাউন্সিলর আজিজুর রহমানের সঞ্চালনায় সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় শুভেচ্ছা বক্তৃব্য রাখেন বীর মুক্তি যোদ্ধাগণ এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। কনসাল জেনারেল এ.কে.এম শহীদুল করিম সমাপনী বক্তৃতায় স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি 
গভীর শ্রদ্ধানিবেদন করেন। স্বাধীনতা যুদ্ধে হানাদার বাহিনী ও তাদের দোষরদের বর্বরতা ও পৈশাচিকতার নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের মাধ্যমে জাতি আজ কলঙ্কমুক্ত হচ্ছে। শহীদুল করিম আরো বলেন, দেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে।
ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে প্রধানমন্ত্রীর কর্মপরিকল্পনায় দেশ আজ নিন্ম মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে যা একটি বড় অর্জন। বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রবাসীদের বড় ভূমিকা রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রবাসী শ্রমজীবি সকলের প্রতি সরকার সংবেদন শীল।প্রবাসী গণকে বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি দেশের ভাব মুর্তি উজ্জ্বল রাখার আহ্বান জানান।
অতঃপর কনস্যুলেট প্রাঙ্গনে স্থাপিত জাতীয় স্মৃতি সৌধ রেপ্লিকায় পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে স্বাধীনতা যুদ্ধে আত্মদান কারী শহীদদের প্রতি সম্মান জানানো হয়। প্রথমে জেদ্দা কনস্যুলেটের পক্ষথেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন কনসাল জেনারেল এ.কে.এম শহীদুল করিম এবং কনসাল বৃন্দসহ কনস্যুলেট কর্মকর্তা গণ।
অতঃপর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল, জেদ্দা সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন এবং সামাজিক সংগঠনের নেতা-কর্মীগণ উৎসাহ উদ্দীপনায় পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এ দিকে বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশাল স্কুল এন্ড কলেজ বাংলা মাধ্যম ও ইংলিশ মাধ্যমে
  আলাদাভাবে মহান বিজয় দিবস উদযাপন করেছে।

ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে জাতীয় পতাকা উত্তোলন পূর্বক অর্ধনমিত করণ,পুষ্পস্তবক অর্পণ, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়।অংশগ্রহণ করেন, পরিচালনা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী নেয়ামুল বশির  এবং সদস্য বৃন্দ,অধ্যক্ষ ড. আবদুল বাকি এবং সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা ছাত্র ছাত্রীরা।
বাংলা মাধ্যম স্কুলে সকালে জাতীয় পতাকা উত্তোলন পূর্বক অর্ধনমিত করণ,পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং বিকেলে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়। অংশগ্রহণ করেন, পরিচালনা পরিষদ চেয়ারম্যান মার্শেল কবির পান্নু এবং সদস্য বৃন্দ, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হামদুর রহমান এবং সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা ছাত্র ছাত্রীরা।
সম্মানিত অতিতি গণের মধ্যে ছিলেন, জেদ্দাস্থ  বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল এ.কে.এম শহিদুল করিম, কাউন্সিলর আলতাফ হোসেন,কাউন্সিলর আজিজুর রহমান, কনসাল মোহাম্মদ রেজাই রাব্বি সহ বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ এবং সামাজিক, রাজনৈতিক ও অভিবাবক বৃন্দ। বিকেলে উভয় স্কুল প্রাঙ্গনে আলাদা আলদা ভাবে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। 
সাংস্কৃতিকপর্বে উপভোগ্য ছিলো মহান বিজয় দিবসের উপর নির্মিত ল্যাজারশো।এছাড়াও উভয় স্কুলের ছাত্র ছাত্রীরা পরিবেশন করে কবিতা আবৃতি, একক গান, নৃত্য, দলীয় সঙ্গিত।

নুরুল ওয়াহিদ কোপেনহেগেন থেকে : যথাযোগ্য মর্যাদায় কোপেনহেগেনে পালিত হয়েছে মহান বিজয় দিবস। শনিরার ১৭ই ডিসেম্বর বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে দুতাবাস প্রাঙ্গনে আয়োজন করা হয় আলোচনা সভা ।
শুরুতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে কোরআন তেলায়াত ও মুক্তিযোদ্ধে শহীদদের প্রতি সম্মান জানিয়ে ১ মি: নিরবতা পলন করা হয় । আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন রাষ্টদূত আব্দুল মুহিদ । পরে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শুনানো হয়। দূতাবাসের হলরুমে প্রথম সচিব শাহরিয়ার শাকিলের পরিচালনায় রাষ্ট্রদূত তার বক্তৃতায় বলেন, বঙ্গবন্ধুর ত্যাগ, বিচক্ষণতা ও যোগ্য নেতৃত্বে আমরা একটি স্বাধীন দেশ পেয়েছি। বঙ্গবন্ধু সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। দেশ এখন অর্থনৈতিক ভাবে সমৃদ্ধশালী হচ্ছে । সেই লক্ষে তার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সেই লক্ষেই কাজ করে যাচ্ছেন । তিনি প্রবাসীদের অবদানের কথা তুলে ধরেন বলেন, প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স দেশীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। যার কারণে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার দাড়িয়েছে ৬.৩ শতাংশ । এ সময় উপস্থিত ছিলেন, মাহবুবুল হক,চিত্র শিল্পী রুহুল আমিন কাজল,হাসনাত রুবেল, মাহবুবুর রহমান,নাসির সরকার,খোকন মজুমদার, লিংকন মোল্লা, বিদ্যুৎ বড়ুয়া,নুরুল ইসলাম টিটু,জাহাঙ্গির আলম,সফিউল আলম শাফি,বদরুল আলম রনি,সফিকুর রহমান,মঞ্জুর আলম লিমেন সহ দুতাবাসের কর্মকর্তা ও বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক,সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্টান শেষে বাংলাদেশী খাবার পরিবেশন করা হয় ।

সেলিম উদ্দীন,পর্তুগাল : ১৬ ডিসেম্বর লিসবন সময় সকাল ১০.৩০টায় শুরু হয় আনুষ্ঠানিকতা। জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও এক মিনিট নীরবতা পালনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়।পর্তুগালে অবস্হানরত বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দকে দূতাবাসের কর্মকর্তা ও পর্তুগালে অবস্হানরত বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন পর্তুগালে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ইমতিয়াজ আহমেদ।

পরে অনুষ্ঠানে একে একে বাণী পাঠ করে শুনানো হয় মহামান্য রাষ্ট্রপতি,প্রধানমন্ত্রী ,পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রীর বানী।এ সময় পুরো দূতাবাস চত্বর প্রবাসী বাংলাদেশীদের মিলনমেলায় পরিণত হয়।
সংক্ষিপ্ত আনুষ্ঠানিকতা শেষে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে আত্মত্যাগী শহীদদের স্মরণে নির্মিত অস্থায়ী বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ পর্তুগাল শাখা সহ  বিভিন্ন  সামাজিক সংগঠন ।
পরে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নিয়ে দেখানো হয় ২০মিনিটের একটি প্রামাণ্য চিত্র এবং আগত অতিথিবৃন্দকে প্রদান করা হয় অসমাপ্ত আত্মজীবনীর একটি করে সিডি কপি।
অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে অল ইউরোপিয়ান বাংলা প্রেস ক্লাব এর পক্ষ থেকে রাষ্ট্রদূত এবং আগত অতিথিবৃন্দকে পড়ানো হয় বিজয়ের প্রতীক বিজয় ফুল.এই সময় উপস্থিত ছিলেন অল ইউরোপীয়ান বাংলা প্রেস ক্লাব এর সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিম উদ্দিন(বাংলা টিভি ইউকে) এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নুরুল্লাহ (চ্যানেল আই পর্তুগাল প্রতিনিধি).প্রথম বিশ্বযুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারীদের স্মরণে ব্রিটেনসহ আরও কয়েকটি দেশে চালু থাকা পপি ফুল পরার চল দেখে এই
বিজয় ফুল চালু করার ধারণা মূলত কবি শামীম আজাদের।
রাষ্ট্রদূত পরে এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্য শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে।তিনি এই সময় কিছুটা আবেগ্লাপুত হয়ে বলেন আজ আমি বাংলাদেশের রাষ্টদূত হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিতে পারি আজকের এই দিনের জন্য।আজকের এই দিন বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিন।
পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্তির দিন। এদিন বিশ্বের মানচিত্রে সৃষ্টি হয় নতুন একটি সার্বভৌম দেশ
, বাংলাদেশ। যা বাঙালি জাতিকে এনে দেয় আত্মপরিচয়ের ঠিকানা।
যারা বুকের তাজা রক্ত দিয়ে এ বিজয় ছিনিয়ে এনেছেন আজ সেসব শহীদকে বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় স্মরণ করবে দেশের সর্বস্তরের মানুষ। বাংলার দামাল মুক্তিযোদ্ধা আর মুক্তিপাগল মানুষের প্রবল প্রতিরোধ আর লড়াইয়ের মুখোমুখি হয়ে বাংলাদেশ থেকে পরাজিত হয়ে এ দিনে আত্মসমর্পণ করেছিলো পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী।
৪৫ বছর আগে আজকের এই দিনে পূর্ব আকাশে উদয় হয়েছিলো হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সূর্য।পরে আগত অতিথিবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য দেন ফরিদপুর এসোসিয়েশন পর্তুগাল শাখার এর সভাপতি মাহবুবুল আলম
,পর্তুগাল আওয়ামীলীগের সভাপতি জহিরুল আলম জসিম, পর্তুগাল আওয়ামীলীগ এর সিনিয়র সহ -সভাপতি ফরহাদ মিয়া
,পর্তুগাল আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত ওসমান ,যুক্তরাজ্য ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রনি হোসাইন ,পর্তুগাল আওয়ামীলীগের সদস্য ও উদীয়মান রাজনীতিবিদ দেলোয়ার হোসাইন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের স্থায়ী সদস্য মোহাম্মদ খালেক ,নোয়াখালী এসোসিয়েশন এর সহ সভাপতি আবুল কালাম আজাদ , কমিনিটি ব্যাক্তিত্ব ও ব্যাবসায়ী লিহাজ মিয়া সহ অনেকে। পরে মুক্তিযুদ্ধে নিহত শহীদদের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত পরিচালনা করেন রিবোলেইরা বাংলা জামে মসজিদ এর খতিব মাওলানা শাহান মীর।

এনায়েত হোসেন সোহেল,প্যারিস, ফ্রান্স : ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে ও বিপুল সংখ্যক প্রবাসীদের উপস্থিতিতে প্যারিসে ফেঞ্চুগঞ্জ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন ফ্রান্সের কার্যনির্বাহী পর্ষদ গঠিত হয়েছে। 

গত ১১ ডিসেম্বর বিকেলে ২০১৭-২০১৮ সালের জন্য গার দো নর্দের একটি অভিজাত রেষ্টুরেন্টে সদস্যদের নির্বাচনের মাধ্যমে এ কমিঠি গঠন করা হয়। কমিটিতে জুনেদ আহমদকে সভাপতি ও শিপলু মিয়াকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। ফেঞ্চুগন্ঞ্জ ওয়েল ফেয়ার এসোসিয়েশনের আহবায়ক সেলিম মিয়ার সভাপতিত্বে ও জাকারিয়া আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত কমিঠি গঠন উপলক্ষে আলোচনা সভায় এসময় বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সাবেক সভাপতি খসরুজ্জামান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক খালেদ চৌধুরী, এম খালেদ আহমদ, রুমেল উদ্দিন, ফরিদুজ্জামান, কামরুল চৌধুরী, ফয়ছল আহমদ, এমরান আহমদ,মিঠুন রহমান প্রমুখ। এসময় বক্তারা সংগঠনের বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শেষে ২০১৭-২০১৮ সালের জন্য কার্য নির্বাহী পর্ষদ গঠনের জন্য সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে সকল সদস্যের ভোট প্রদান করেন। ভোটে নির্বাচিত হোন সভাপতি জুনেদ আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক শিপলু মিয়া। পরে নবাগত সভাপতি ও সম্পাদককে ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান করেন উপস্থিত সদস্যবৃন্দ। এসময় নবনির্বাচিত সভাপতি জুনেদ আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক শিপলু মিয়া তাদের বক্তব্যে ফ্রান্সের ফেঞ্চুগঞ্জ প্রবাসীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান এবং আগামী কিছুদিনের মধ্যে ফেঞ্চুগঞ্জের সকল প্রবাসীকে সম্পৃক্ত করে একটি শক্তিশালী পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করবেন বলে জানান।

এনায়েত হোসেন সোহেল,প্যারিস,ফ্রান্স : ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে অনাড়ম্ভর অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে বিজয় ব্যাজ কর্মসূচি পালিত হয়েছে। 

গত ১৫ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেলে গার দো নর্দের ক্যাফে প্যারিজিয়ান বারে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের চেতনাকে বুকে ধারণ করার প্রত্যয় এবং ফ্রান্সে বসবাসরত বাংলাদেশী শিশু-কিশোরদের কাছে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধারা জন্য প্রতি বছরের ন্যায় এবার ও প্যারিস - বাংলা প্রেসক্লাব এ কর্মসূচির আয়োজন করে।

প্যারিস-বাংলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আবু তাহিরের সভাপতিত্বে ও কোষাধ্যক্ষ ফেরদৌস করিম আখঞ্জির পরিচালনায় মহান মুক্তিযোদ্ধে শহীদদের প্রতি এক মিনিট নীরবতা পালন করে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্যারিস-বাংলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক , ফ্রান্সে বিজয় ব্যাজ কর্মসূচির প্রধান উদ্যোক্তা এনায়েত হোসেন সোহেল। 

এ সময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন,বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফ্রান্সের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা কৃষিবিদ এবিএম শাহজাহান।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,বিখ্যাত চিত্রশিল্পী শাহাদাত হোসেন,এনআরবি ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সভাপতি ডঃ মালেক ফরাজী ,মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম সাধু ,জাতীয় পার্টি ফ্রান্সের সভাপতি এ কে এম আলমগীর হোসেন ,বরিশাল বিভাগীয় কমিউনিটির সভাপতি মোতালেব খান , গোলাপগঞ্জ উপজেলা উন্নয়ন পরিষদ এর সভাপতি লিয়াকত আলী মেম্বার , বিশ্বনাথ উপজেলা এসোসিয়েশনের সভাপতি কানু মিয়া , কুলাউড়া ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক অজয় দাস, বিকশিত নারী সংঘের সিনিয়র সহসভাপতি তানজিম হেলেনা,শিল্পী ওমর গাজী ,নড়াইল জেলা সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন , স্বরলিপি শিল্পী গোষ্ঠী,র যুগ্ম সম্পাদক শাকিল সরকার, সাহিত্য জমিন পত্রিকার সহসম্পাদক আব্দুল হামিদ, বিকশিত নারী সংঘের সিনিয়র সহসভাপতি তানজিম হেলেনা জাতীয় পার্টি ফ্রান্সের সাধারণ সম্পাদক হাবীব খাঁন ,প্রেস ক্লাবের দফতর সম্পাদক সেলিম চৌধুরী, জাকির হোসেন,ময়না মিয়া,রেজাউল করিম, প্রমুখ,। পরে অতিথিরা উপস্থিত সকলের বুকে বিজয় ব্যাজ পরিয়ে দেন। এসময় প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে মুক্তিযোদ্ধা চিকিৎসার জন্য আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়।

সেলিম উদ্দিন ,পর্তুগাল : বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল পর্তুগাল শাখার নতুন কার্যনির্বাহী কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পূর্ণ।

রাজধানী লিসবনের বাংলা পাড়া খ্যাত মাতৃ মনিজের কাজা দো কবিলা মিলনায়তনে পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি অলিউর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে, সাধারন সম্পাদক মহিন উদ্দীন অনুষ্ঠানের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পর্তুগাল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা হবায়ক মোহাম্মদ মোমেন।

পবিত্র কোরআন থেকে তেলোয়াত এবং জাতীয় সংগীত ও দলীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয়।অভিষেক অনুষ্ঠানের সবচেয়ে বেশী চমক বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের উপস্তিতি। 

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ পর্তুগাল শাখার সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক এম.এ. রাকিব এর নেতৃত্বে ৩সদস্যর একটি প্রতিনিধি দল এর উপস্তিতি।এছাড়াও ইসলামিক ফোরাম ইউরোপ পর্তুগাল , বৃহত্তর নোয়াখালী এ্যাসোসিয়েশন ইন পর্তুগাল, বৃহত্তর ফরিদপুর এ্যাসোসিয়েশন, সেভ বাংলাদেশ পর্তুগাল , সুনামগঞ্জ জেলা সমিতি, বিয়ানিবাজার সমিতি, কুমিল্লা ভিক্টরিনস ক্লাব পর্তুগাল, লিসবন ইন্টারন্যাশনাল বাংলা স্কুল সহ কমিউনিটির বিশেষ প্রতিনিধি দল অংশ নেন ।

যদিও অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে সেভ বাংলাদেশ পর্তুগাল, ইসলামিক ফোরাম ইউরোপ পর্তুগাল, লিসবন ইন্টারন্যাশনাল বাংলা স্কুল সহ কমিউনিটির বিশেষ প্রতিনিধি দল শুভেচ্ছা বক্তব্য ছাড়ায় অনুষ্ঠান স্থল ত্যাগ করেন,ত্যাগের কারণ আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের সভাস্থলে প্রবেশ ।
নতুন কার্যনির্বাহী কমিটিতে ত্যাগী ও নিবেদিত কর্মীদের প্রাধান্য দিয়ে পর্তুগাল বিএনপির সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের সর্বসম্মতিক্রমে অলিউর রহমান চৌধুরীকে সভাপতি, মহিন উদ্দিনকে সাধারণ সম্পাদক পদে পুনর্বহাল রেখে ও নতুন মুখ লিটন কাদেরীকে সাংগঠনিক সম্পাদক, তরুণ ব্যাবসায়ী সুমন আহমেদকে সিনিয়র সাংগঠনিক সম্পাদক ,অলি আহমেদ সানিকে দপ্তর সম্পাদক এবং সাবেক ছাত্রদল নেতা আব্দুল ওয়াহিদ চৌধুরীকে প্রচার সম্পাদক করে পর্তুগাল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা অাহবায়ক মোহাম্মদ মোমেন ১০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষনা করেন, এবং দলের গঠনতন্ত্র ও নিয়মাবলী পাঠ করেন।
অনুষ্ঠান শেষে নতুন কমিটিতে দায়িত্বপ্রাপ্তদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন নতুন কমিটির সভাপতি অলিউর রহমান চৌধুরী।


উৎসহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে লিসবন, পর্তো ও আলগ্রাব সহ পর্তুগালের বিভিন্ন শহর থেকে বিপুল সংখ্যক প্রবাসীদের উপস্থিতিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি পর্তুগাল শাখার নব নির্বাচিত কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠিত হয়েছে।
লিসবনের প্রাণ কেন্দ্র মাতৃ মনিজের কাজা দো কবিলা মিলনায়তনে পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি অলিউর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে সাধারন সম্পাদক মহিন উদ্দীন অনুষ্ঠানের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পর্তুগাল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা হবায়ক মোহাম্মদ মোমেন। পবিত্র কোরআন থেকে তেলোয়াত এবং জাতীয় সংগীত ও দলীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয়। অভিষেক অনুষ্ঠানে পর্তুগাল অাওয়ামি-লীগের প্রতিনিধি দলের উপস্থিতি ভিন্ন মাত্রা যোগ করে, এছাড়াও ইসলামিক ফোরাম ইউরোপ, বৃহত্তর নোয়াখালী এ্যাসোসিয়েশন ইন পর্তুগাল, বৃহত্তর ফরিদপুর এ্যাসোসিয়েশন, সেভ বাংলাদেশ, সুনামগঞ্জ জেলা সমিতি, বিয়ানিবাজার সমিতি, কুমিল্লা ভিক্টরিনস ক্লাব পর্তুগাল, লিসবন ইন্টারন্যাশনাল বাংলা স্কুল সহ কমিউনিটির বিশেষ প্রতিনিধি দল অংশ নেন এবং শুভেচছা বক্তব্য রাখেন। ত্যাগী ও নিবেদিত কর্মীদের প্রাধান্য দিয়ে পর্তুগাল বিএনপির সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের সর্বসম্মতিক্রমে অলিউর রহমান চৌধুরীকে সভাপতি, মহিন উদ্দিনকে সাধারণ সম্পাদক পদে পুনর্বহাল রেখে ও নতুন মুখ লিটন কাদেরীকে সাংগঠনিক সম্পাদক

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget