2016-08-28

জনপ্রিয় অনলাইন : বাংলা টিভির পর্তুগাল প্রতিনিধি সাংবাদিক সেলিম উদ্দিন অল ইউরোপিয়ান বাংলা প্রেস ক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় পর্তুগালের স্থানীয় রোয়া দো বেনফরমসোতে অবস্থিত শাহজালাল রেষ্টুরেন্টে সংবর্ধনা প্রদান করা হয় । 

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে পর্তুগাল প্রবাসী   মৌলভীবাজার বাসী । মন্জুরল ইসলামের সভাপতিত্বে ও হোসেন আহমেদ এবং পারভেজের যৌথ পরিচালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পর্তুগাল আওয়ামী লীগের সভাপতি জহিরুল আলম জসিম,কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব সোয়েব আহমেদ,পর্তুগাল বি,এন,পির সহ-সভাপতি কাজী এমদাদ,পর্তুগাল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত ওসমান, পর্তুগাল বি,এন,পির যুগ্ম সম্পাদক ইউসুফ তালুকদার,পর্তুগাল বি,এন,পির যুগ্ম সম্পাদক আমির সোহেল, নোয়াখালী এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ,মৌলভীবাজার এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা খসরু মিয়া উপদেষ্টা মৌ: জাকির হোসাইন শহীদ আহমেদ , সুনামগঞ্জ এসোসিয়েশনের সভাপতি জাহিরুল ইসলাম

বক্তারা বলেন সেলিম উদ্দিন পর্তুগালের সাংবাদিকতার প্রবর্তক তারই হাত ধরেই পর্তুগালে সাংবাদিকতা শুরু হয়েছিল । তার এই অর্জনে আমরা গোটা কমিউনিটিই আজ গর্বিত আমরা আশা করব তিনি তার বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে গোটা ইউরোপের মধ্যে ও বাংলাদেশে পর্তুগালের বাংলাদেশীদের অবদান তুলে ধরবেন । 

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক জহিরুল হক ,ওসমানী নগর এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শেখ মিনহাজ আহমেদ, দেলওয়ার হোসেন,সাইফুর রহমান, সানি আহমেদ ও আল ইসলাহের সহ-সভাপতিতি সিরাজুল ইসলাম,জাকির হোসেন,ফরিদ আহমেদ ফহিম,মিজানুর রহমান ,মো:সফিউল আলম ,সাইদুর রহমান ,সাজিদ আহমেদ ,ড়ালিম আহমদ


 অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পর্তুগাল আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মুজিবুর মোল্লা, আইয়ুব আলী খান,তরুণ বি,এন,পি নেতা সুমন আহমেদ,ডালিম আহমেদ, সাজিদ,পারভেজ, জুয়েল সহ প্রমুখ । অনুষ্ঠানে সাংবাদিক সেলিম উদ্দিন মৌলভীবাজার বাসী সহ কমিউনিটির সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বক্তব্যে তিনি কমিউনিটির হয়ে কাজ করার অঙ্গীকার করেন । অনুষ্ঠানের একটি পর্যায়ে স্কাইপির মাধ্যমে মৌলভীবাজারবাসীকে ধন্যবাদ জানান অল ইউরোপীয়ান বাংলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মনিরুজ্জামান মনিরও সাধারন সম্পাদক আবু তাহের এবং চ্যানেল আই পর্তুগাল প্রতিনিধি নুরল্লা ৷

মোঃ কামরুজ্জামান,ফ্রান্স : ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে এক বাংলাদেশী পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করেছেন। শুধু মানবেতর নয়, পরিবারটির ছোট্ট একটি শিশু সহ শেষ আশ্রয়ের মাথা গুঁজার ঠায় পর্যন্ত নাই। 

মাথা গোঁজার আশ্রয়ের সব প্র্রচেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার পর পরিবারটি আজ প্যারিসের মেট্রো ষ্টেশনে অবস্থান করছেন।বিষয়টি ফেসবুকের মাধ্যমে কমিউনিটির নজরে এলেও এখন পর্যন্ত পরিবারটির কোন আশ্রয়ের ব্যবস্থা ব্যবস্থা হয় নাই। অনেকে আক্ষেপ করে বলেন ফ্রান্সে বাংলাদেশী বিভিন্ন সংগঠন মানবসেবার নামে বিভিন্ন সভা করে মানবতার ফুলঝুরি উড়িয়ে দিচ্ছেন, কিন্তু এই পরিবারটির বিপদে এখন পর্যন্ত কেউ এগিয়ে আসে নাই।বলা বাহুল্য শুধু ফ্রান্স নয়, গোটা ইউরোপেই এক শ্রেণীর ব্যক্তিরা কাগজ ছাড়া ব্যক্তিদের ভিন্ন চোখে দেখে থাকেন। মোঃ নূরের ফেসবুকের সট্যাটাসটি পাঠকদের সামনে তুলে ধরা হল : প্যারিসের মানবতার ফেরিওয়ালা এবং কমিউনিটি নেতারা কোথায় আছেন ? ফ্রান্সে প্রায় ৫০ হাজার বাংলাদেশির বসবাস , সংগঠন আর নেতার ও অভাব নাই , শুধু ভালো কাজের অভাব। বাংলাদেশের একটি হিন্দু পরিবার,ছোট একটি শিশু সহ গত এক সপ্তাহের অধিক সময় হোমলেস ,কোথাও একটু থাকার জায়গা না পেয়ে প্যারিসের গার সেইন্ট ল্যাজার মেট্রো স্টেশনের ভিতর ঘুমাইতেছে। আপনারা কি কেউ কোনো খবর রাখেন ? গত কাল থেকে একটা রুম ম্যানেজ করার জন্য চেষ্টা হচ্ছে ,এখনো পর্যন্ত ম্যানেজ হয় নাই। ওই পরিবার টি প্যারিসের বাহিরে ছিল ,তাদের মামলা শেষ ,ফয়ার থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। ৫০ হাজারের বিশাল কমিনিটি থাকতে বাংলাদেশী পরিবার প্যারিসের মেট্রো স্টেশনে ঘুমাচ্ছে , এই লজ্জা কার ? ফ্রান্সের বাংলাদেশী সংগঠন এবং কমিউনিটি ব্যক্তি দের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি। আশা করি ,আপনারা এই মানবিক কাজে এগিয়ে আসবেন।

সেলিম আলম নেদারল্যান্ড থেকে : হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসা মুজিব সহ ১৫ই আগস্টে নিহত সকল শহীদের স্মরণ এবং ২১ শে আগষ্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল করেছে হল্যান্ড আওয়ামীলীগ। 

গত ২৮ শে আগস্ট আর্মষ্ট্রাডামের স্থানীয় রেষ্টুরেন্টে অনুষ্টিত সভায় টেলিকনফারেন্সে বক্তব্য রাখেন ইউরোপ আওয়ামীলীগের সভাপতি শ্রী অনীল দাস গুপ্ত,সংগঠনের  সভাপতি মাঈদ ফারুকের সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক মোস্তফা কামালের পরিচালনায় অনুষ্টিত সভায় বক্তব্য রাখেন এমদাদ হোসেন,ইমরান হসেন, আবরার হোসেন,শ্যামল শীল,রশিদ রানা,জসিম উদ্দিন,ইকবাল বাবুল, শামিম আক্রাম,আলাউদ্দিন মোল্লা,জাফর আহমেদ,আতিকুর রহমান আরো সহ অনেকে। বক্তারা বলেন বঙ্গবন্ধু না হলে আমরা স্বাধীনতা পেতাম না,পেতাম না লাল সবুজের পতাকা,বাংলা ভাষা । 

তাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে লালন করা এবং মুক্তি যুদ্ধের সঠিক ইতিহাস নতুন প্রজন্মকে জানানো আমাদের দায়িত্ব । ব্ক্তারা আরো বলেন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে দ্রুত তাদের রায় কার্যকরের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি করেন । 

আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভুষন নাথ,নিপু দাস,সন্দীপ কুমার দাস,জয়নাল আবেদিন,নীপু দাশ, বিষ্ণু বিশ্বাস, লক্ষন সরকার, মোহাম্মেদ আসিক,জাহিদ হোসেন, কামাল হুসেন, তপন সরকার প্রমুখ।

রনি মোহাম্মদ,পর্তুগাল প্রতিনিধি : পর্তুগালের রাজধানীর লিসবনের, লিসবন শিল্পী গোষ্টী সংগঠনের পক্ষ থেকে বার্ষিক বনভোজন২০১৬ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

সকাল ৮.৩০ যাএা করে বনভোজন উদ্দেশ্যে শহর থেকে দূরে পর্তুগালের প্রাচীন ও প্রথম রাজধানী মনোমুগ্ধকর বিস্তৃর্ণ সমুদ্র ও পর্যটন শহর পর্তোর সিটি পর্কে।

দিনভর নানা ধরনের বিনোদন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পালিত হয় সংগঠনের বনভোজন। 

সকাল ৮টায় লিসবন থেকে পর্তোর উদ্দ্যেশ্যে ছেড়ে যাওয়া ৩টি বাসে আনন্দভ্রমন দিয়ে শুরু হয় বনভোজনের অনুষ্ঠান।

যাত্রা পথে ছিল কৌতুক, ইসলমী সংগীত আর নানা ধরনের গানের আয়োজন। বনভোজনস্থলে পৌঁছে উপস্থিত অতিথিদের জন্য পরিবেশন করা দেশীয় মধ্যাহ্নভোজ খাবার।

তারপর শুরু হয় বিনোদনমূলক বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালা। দেশীয় বাদ্যযন্ত্রে স্থানীয় শিল্পীদের গান, ক্রিড়া প্রতিযোগিতা, বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানসহ ছিল নানা আয়োজন। 

এছাড়া সবশেষ ছিল রেফেল ড্র সহ আকর্ষণীয় পুরষ্কার সহ বিশেষ সম্মাননা পুরষ্কার।


বনভোজনে উপস্থিত ছিলেন ইসলামীক ফোরাম অফ ইউরোপ পর্তুগালের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন,বিশিষ্ট ব্যাবসায়ি সোলেমান মিয়া,পর্তো বিএনপি নেতা কাজল আহমদ,
পর্তো ব্যাবসায়ী আলীম আহমেদ, লিসবন ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক মিজানুর রহমান, সহকারি ব্যাবস্থাপনা পরিচালক মাহবুব সুয়েদ, ব্যাবসায়ি আব্দুস সাত্তার, সম্রাট, নবিউল হক, মোশারফ হোসেন প্রমুখ।

এনায়েত হোসেন সোহেল,প্যারিস,ফ্রান্স : বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার মধ্যে দিয়ে সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে।

গত ২৮ অগাস্ট রবিবার বিকেলে সুইজারল্যান্ড বঙ্গবন্ধু পরিষদের আয়োজনে ইউওজি মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এ সময় দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভা ও নৈশ ভোজের আয়োজন করা হয়।

সুইজারল্যান্ড বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি শ্যামল খানের সভাপতিত্বে ও সহ সভাপতি কাজী আসাদুজ্জ্বামানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানের শুরুতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন জেনেভায় বসবাসরত বাংলাদেশী একঝাক শিশু ও দলীয় নেতৃবৃন্দ। পরে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেনেভা স্থায়ী মিশনের উপ রাষ্ট্রদূত নজরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ,জেনেভা স্থায়ী মিশনের ইকোনোমি মিনিষ্ঠার সু প্রিয় কুমার কুন্ডু ,সুইজারল্যান্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি হারুন ব্যাপারী,সুইজারল্যান্ড আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি জহিরুল ইসলাম,ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি সুইজারল্যান্ডের সভাপতি খলিলুর রহমান, বঙ্গবন্ধু পরিষদ সুইজারল্যান্ডের সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়ের মুনির।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন,সুইস বাংলাদেশের সভাপতি ইমরান খান মুরাদ,বাংলাদেশ ক্লাব জেনেভার সাবেক সভাপতি নজরুল ইসলাম,বঙ্গবন্ধু পরিষদ সুইজারল্যান্ডের যুগ্ম সম্পাদক শাহ আলম,মাসুম দুলাল;রবি সরকার ,সেলিম রেজা,শহীদ জসিম;মুক্তিযোদ্ধা উমেশ দাশ,সসীম গৌরীচরণ,ও নেজাম উদ্দিন প্রমুখ।

শোক দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন,বঙ্গবন্ধু একটি নাম, একটি ইতিহাস। বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের সৃষ্টি হতো না । বঙ্গবন্ধুর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে পুরো জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে স্বাধীনতা আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়েছিলেন বলেই বিশ্ব দরবারে বাঙ্গালী জাতি আজ স্বমহিমায় উজ্জল। এ সময় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়ন এবং ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত পলাতক বঙ্গবন্ধুর খুনীদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করার দাবির জানান। পরে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও পনেরোই আগস্টের শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মিলাদ ও দোয়া করা হয়।দোয়া পরিচালনা করেন আবু বকর মোল্লা।

অনলাইন : প্রথমবারের মত টাইগারদের সঙ্গে তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশে আসছে আফগানিস্তান। আফগান ক্রিকেট বোর্ডের ওয়েবসাইটে এই সফরের কথা নিশ্চিত করা হয়েছে।


মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ২৫-৩০ সেপ্টেম্বর তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান নাসিমুল্লাহ দানিশ বলেছেন, এইটি হবে বাংলাদেশ ও আফগানস্তানের মধ্যকার প্রথম সিরিজ। আমরা বাংলাদেশের ক্রিকেট প্রেমীদেরকে একটি আনন্দদায়ক ক্রিকেট উপহার দিতে চাই। তিনি বলেন, বিভিন্ন পরিস্থিতিতে আমাদের ক্রিকেটের উন্নতির জন্য বাংলাদেশ একটি উপযুক্ত স্থান।


আফগানস্তান ক্রিকেট বোর্ডের সিইও শফিক স্তানিকজাই বলেছেন, আমরা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের(বিসিবি) কাছে কৃতজ্ঞ আমাদেরকে আমন্ত্রন জানানোর জন্য এবং আমরা অনেক আন্তর্জাতিক খেলার জন্য যথাসম্ভব দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। আমরা শিখব ও বাংলাদেশের ক্রিকেট প্রেমীদের জন্য ভালো ক্রিকেট উপহার দিব। বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান মধ্যকার ১ম ম্যাচটি ২৫ সেপ্টেম্বর, ২য় ম্যাচটি ২৭ সেপ্টেম্বর ও ৩য় ম্যাচটি ৩০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

অনলাইন : মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আর্ন্তজাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে দেয়া মৃত্যুদণ্ডের রায়ের খসড়া ফাঁসের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার রায় আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর ঘোষণা করা হবে।

আজ রোববার এ মামলার রায় ঘোষণার জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু এদিন রায়ের আদেশ প্রস্তুত না হওয়ায় বাংলাদেশ সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালের বিচারক কে এম শামসুল আলম রায় ঘোষণার জন্য পরবর্তী দিন ধার্য করেন।
এর আগে গত ৪ আগস্ট আসামিদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায়ের জন্য ১৪ আগস্ট দিন ধার্য করেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। কিন্তু ওই দিনও রায়ের আদেশ প্রস্তুত না হওয়ায় রায় ঘোষণার জন্য এদিন ধার্য করেছিল আদালত।
এ মামলায় ২৫ জনের মধ্যে ২১ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন ট্রাইব্যুনাল।
মামলার আসামিরা হলেন, সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর স্ত্রী ফারহাত কাদের চৌধুরী, ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরী, সালাউদ্দিন কাদেরের আইনজীবী ব্যারিস্টার এ কে এম ফখরুল ইসলাম, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের অফিস সহকারী ফারুক আহমেদ, অস্থায়ী কর্মচারী নয়ন আলী, ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামের সহকারী আইনজীবী মেহেদী হাসান ও ম্যানেজার এ কে এম মাহাবুবুল আহসান।
আসামিদের মধ্যে ব্যারিস্টার এ কে এম ফখরুল ইসলাম, মাহবুবুল আহসান, ফারুক আহমেদ ও নয়ন আলী কারাগার রয়েছেন।
গত ৪ আগস্ট জামিন বাতিল করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল।
এদিকে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর স্ত্রী ফারহাত কাদের চৌধুরীর বয়স বিবেচনায় তার জামিন বহাল রাখেন ট্রাইব্যুনাল।
এ ছাড়া সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরী গত ৪ আগস্ট আদালতে আসার সময় ডিবি পুলিশ তাকে আটক করে বলে তার আইনজীবী দাবি করায় তার জামিনও বহাল রাখা হয়।
তবে রায় ঘোষণার দিন তাকে আদালতে হাজির করতে আইনজীবীকে নির্দেশ দেন ট্রাইব্যুনাল। অপর আসামি মেহেদী হাসান পলাতক রয়েছেন।
এ মামলায় গত ১৫ ফেব্রুয়ারি আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনে দায়ের হওয়া ওই মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মো. শাহজাহান।

রায় ফাঁসের ঘটনায় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের অস্থায়ী কর্মচারী নয়ন আলী আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। ওই জবানবন্দিতে ব্যারিস্টার ফখরুল ও ওই ট্রাইব্যুনালের অফিস সহকারী ফারুক আহমেদ জড়িত থাকার বিষয়টি প্রকাশ পায়।

জনপ্রিয় অনলাইন ডেস্ক : বাংলা সাহিত্যের আধুনিক কবিতার অন্যতম পথিকৃত কবি শহীদ কাদরী আর নেই। তিনি আজ আমেরিকার নিউইয়র্কে একটি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে কবির বয়স হয়েছিল ৭৪। 

তিনি স্ত্রী নীরা কাদরী, এক ছেলেসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুবান্ধব রেখে যান। নিউইয়র্ক থেকে আজ রোববার বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা পৌনে সাতটায় কবি শহীদ কাদরীর সহধর্মিনী নীরা কাদরী এসএমএসএর মাধ্যমে ঢাকায় সংস্কৃতি ব্যক্তিত্ব, বিশিষ্ট প্রকাশক ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হককে কবির মৃত্যুর সংবাদ জানান। মফিদুল হক আজ রাতে সাংবাদিকদের একথা জানিয়ে বলেন, নিউইয়র্ক সময় আজ সকালে কবি একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে কিডনি রোগে ভোগছিলেন। গত কয়েক বছর ধরে কবি সেখানে কিডনির চিকিৎসা করাচ্ছিলেন। তিনি জানান, গত কয়েকদিন ধরে নিউইয়র্কের হাসপাতালে তার কিডিনির চিকিৎসা চলছিল। এ অবস্থায় আজ তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মফিদুল হক জানান, কবির স্ত্রী নীরা কাদরী প্রেরিত সংবাদে তিনি বলেছেন কবির লাশ দেশে নিয়ে আসা হবে। তিনি কবির মৃত্যুতে শোক জানিয়ে বলেন, আশির দশকের প্রথম দিক থেকে কবি প্রবাস জীবন কাটাচ্ছিলেন। প্রথমে জার্মান, পরে লন্ডন এবং বেশ কয়েক বছর ধরে আমেরিকায় বসবাস করছিলেন। কবি শহীদ কাদরী ১৯৪২ সালের ১৪ আগস্ট ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। বাংলা কবিতায় এক অসাধারণ প্রতিভাশীল কবি ও লেখক তিনি। তিনি ১৯৪৭ সাল পরবর্তীকালের বাংলা সংস্কৃতির বিখ্যাত কবিদের একজন, যিনি নাগরিক-জীবন-সম্পর্কিত শব্দ চয়ন করে নাগরিকতা ও আধুনিকতাবোধের সূচনা করে বাংলা কবিতায় সজীব বাতাস বইয়ে দিয়েছেন। তিনি আধুনিক নাগরিক জীবনের প্রাত্যহিক যন্ত্রণা ও ক্লান্তির অভিজ্ঞতাকে কবিতায় রূপ দিয়েছেন। ভাষা, ভঙ্গি ও বক্তব্যের তীক্ষ্ম শাণিত রূপ তার কবিতাকে বৈশিষ্ট্য দান করেছে। শহর এবং তার সভ্যতার বিকারকে শহীদ কাদরী ব্যবহার করেছেন তার কাব্যে। তার কবিতায় অনুভূতির গভীরতা, চিন্তার সুক্ষ্মতা ও রূপগত পরিচর্যার পরিচয় সুস্পষ্ট। চল্লিশের দশকের শেষভাগ থেকে তিনি কাব্যচর্চা শুরু করেন। তার উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থগুলো হলো, উত্তরাধিকার (১৯৬৭), তোমাকে অভিবাদন প্রিয়তমা (১৯৭৪), কোথাও কোনো ক্রন্দন নেই, আমার চুম্বনগুলো পৌঁছে দিও (২০০৯), প্রেম বিরহ ভালোবসার কবিতা। শহীদ কাদরী বাংলা একাডেমী সাহিত্য পুরস্কার, একুশে পদক (২০১১)সহ অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হন। জাতীয় কবিতা পরিষদের সাবেক সভাপতি কবি রবিউল হোসাইন বাজানান, শহীদ কাদরীর মৃত্যুর মধ্যদিয়ে আধুনিক বাংলা কবিতার আরেকজন শ্রেষ্ঠতম কবিকে আমরা হারালাম। তিনি বাংলা কবিতার ইতিহাসে অমর হয়ে থাকবেন। আজ রাতে জাতীয় কবিতা পরিষদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, কবির লাশ দেশে আনার পর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের পর দাফন করা হবে। পরিষদের সভাপতি কবি মুহম্মদ সামাদ ও সাধারণ সম্পাদক কবি তারিক সুজাত কবির মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন। 

জনপ্রিয় অনলাইন : নারায়নগঞ্জে জঙ্গি বিরোধী অভিযানের ঘটনা নিয়ে সরকারের দেয়া তথ্য রহস্যজনক বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আসম হান্নান শাহ। আজ রোববার দুপুরে এক আলোচনা সভায় তিনি এই অভিযোগ করেন।

হান্নান শাহ বলেন, জনগনকে বিভ্রান্ত করার জন্যে যেসব তথ্য দেয়া হচ্ছে, এটা নিয়ে আমরা সত্যিকার অর্থে বিভ্রান্ত হচ্ছি। এই যে যিনি নারায়নগঞ্জে নিহত হলেন, বলা হলো উনার সাথে আরো দুইজন। কয়েকদিন আগে পত্র-পত্রিকায় দেখেছিলাম যে উনি (তামীম চৌধুরী) ভারতে আছেন। তাহলে এটা তো আমি বুঝি না, ভারতের ওই লোক ওইখান থেকে নারায়নগঞ্জে চলে এলেন কিভাবে। এই রহস্য সৃষ্টির পেছনে গোয়েন্দাদের হাত রয়েছে দাবি করেন হান্নান শাহ। সেগুন বাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ের মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী প্রজন্ম ৭১ ফোরামের উদ্যোগে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে সন্ত্রাস ও জাতীয় ঐক্য শীর্ষক এই আলোচনা সভা হয়। কথিত জঙ্গিদের জীবিত না ধরে হত্যার ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে আসম হান্নান শাহ বলেন, কয়েকদিন আগে যখন আমাদের পুলিশ ডিপার্টমেন্ট থেকে বলা হলো মেজর জিয়াউর রহমান এবং তামীম সাহেব কোথায় আছেন তারা জানেন। এখন ধরার অপেক্ষা মাত্র। আমি সিভিল ডিফেন্স করেছি, আর্মি ইন্টিলিজেন্স করেছি, অনেক কিছু করেছি জীবনে। মরা মানুষ তো কথা বলে না। মানুষকে আমরা জীবিত ধরি, যাতে তার কাছ থেকে কথা বের করতে পারি। যদি সরকার মনে করতো বা বাহিনী মনে করতো, তাদেরকে জীবিত ধরা উচিত আরো সংবাদের জন্য। তারা ইচ্ছা করলে পারতেন। জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় জাতীয় ঐক্যের বিষয়ে হান্নান শাহ বলেন, আমরা সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্য চাই, সরকার চায় না। কারণটা কি? আমরা চাই, এদেশে থেকে সন্ত্রাস নির্মূল হোক। তিনি বলেন, নারায়নগঞ্জে যে বাসায় জঙ্গি হত্যা হলো, সেই বাড়িটিও আওয়ামী লীগের নেতার। গুলশানের হলি আর্টিজেনের যে মারা গেলো, বেশ কয়েকজনের সাথে আওয়ামী লীগের সরকারি দলের সম্পৃক্ততার প্রমাণ আছে। তাই সরকারকে বলব, সর্বদলীয় মিটিং ডেকে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠা করুন এবং যতদ্রুত সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন। হান্নান শাহ বলেন, দেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে গেছে রামপালের বিরুদ্ধে। আপনারা (সরকার) যত রাম-ধাম ঝপ করেন না কেনো, কিছুই হবে না। বাংলাদেশে মানুষ এই প্রকল্প হতে দেবে না। আপনারা বিশ্বাস করেন আর না করেন, যেদিন নেত্রী (বেগম খালেদা জিয়া) বা যে কেউ ডাক দেবে, রামপালকে বন্ধ করতে হবে, দেখেইন ঢাকা শহরে কত মানুষ নামে, মানুষ রাস্তায় নামবেই। জনগনের বিজয় হবেই হবে। সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম রিপনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় জাগপার সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবিব লিংকন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ সম্পাদক শাম্মী আখতার, কেন্দ্রীয় নেতা রফিক শিকদার প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। 

জনপ্রিয় অনলাইন ডেস্ক :  প্রধানমন্ত্রী দেশের রপ্তানী খাতকে সমৃদ্ধ করার জন্য ব্যবসায়ীদের নতুন বাজার খুঁজে বের করার পাশাপাশি পণ্য বহুমুখিকরণের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা নতুন নতুন বাজার খুঁজে বেড়ান। কোন দেশে কোন পণ্যের চাহিদা সেটা বিশ্লেষণ করে বাজার খোঁজ করুন। বাজার নিজেদের খুঁজে বের করতে হবে। এক্ষেত্রে সরকারের পক্ষ থেকে সবরকমের সহযোগিতা করা হবে। কিন্তু বাজার খোঁজার উদ্যোগটা আপনাদেরই নিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখানে এসে ভাল লাগল, এখন অনেক নতুন নতুন পণ্য বিদেশে রপ্তানী হচ্ছে। তবে, এর পরিমাণটা বাড়াতে হবে। কারণ পৃথিবীতে এখন বহু দেশ এবং মানুষের চাহিদাও দিন দিন পরিবর্তিত হচ্ছে। কোন দেশে কোন পণ্যের চাহিদা রয়েছে তা আপনাদের খুঁজে বের করতে হবে। এজন্য পণ্যের বহুমুখিকরণও একান্তভাবে প্রয়োজন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় আয়োজিত জাতীয় রপ্তানি ট্রফি বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন।
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. তাজুল ইসলাম চৌধুরী, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেদায়েত উল্লাহ আল মামুন, এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান মাফরুহা সুলতানা বক্তৃতা করেন।
শেখ হাসিনা বলেন, ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করবেন। সরকার এখানে ব্যবসা করতে আসেনি। আমরা সব ধরনের সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্যের সার্বিক অগ্রগতির মাধ্যমে দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থার যেন দ্রুত উন্নতি হয় সেই লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছি। এ সময় বিগত ৭ বছরে প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকা ব্যবসা ক্ষেত্রে তাঁর সরকার নগদ সহায়তা প্রদান করেছে বলে প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন।
প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন,
আপনারা নতুন নতুন বাজার খুঁজে বেড়ান। কোন দেশে কোন পণ্যের চাহিদা সেটা বিশ্লেষণ করে বাজার খুঁজুন। বাজার নিজেদের খুঁজে বের করতে হবে। এক্ষেত্রে সরকারের পক্ষ থেকে সবরকমের সহযোগিতা করা হবে। কিন্তু বাজার খোঁজার উদ্যোগটা আপনাদেরই নিতে হবে।
তিনি বলেন, পৃথিবীতে এখন বহু দেশ এবং মানুষের চাহিদাও দিন দিন পরিবর্তিত হচ্ছে। কোন দেশে কোন পণ্যের চাহিদা রয়েছে তা আপনাদের খুঁজে বের করতে হবে। এজন্য পণ্যের বহুমুখিকরণও একান্তভাবে প্রয়োজন।
সীমিত পণ্যের উপর দেশের রপ্তানি নির্ভরতা দেশের রপ্তানি বাণিজ্যের অন্যতম দুর্বলতা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রপ্তানি বাণিজ্যের এ সমস্যা দূর করার জন্য আমরা পণ্য তালিকায় নতুন নতুন পণ্যের সংযোজন এবং কম অবদান রাখছে এমন পণ্যের রপ্তানি বৃদ্ধির প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।
প্রধানমন্ত্রী এ সময় সরকারের ব্যবসাবান্ধব নীতির প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে আমরা সারাদেশে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। ইতোমধ্যে ১০টির কাজ এগিয়ে চলছে।
সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় পণ্য ও বাজার বহুমুখী করার ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অধিক মূল্য সংযোজিত পণ্য উৎপাদনে ও দেশজ কাঁচামাল নির্ভর রপ্তানি পণ্য উৎপাদনে আপনাদের মনোনিবেশ করার অনুরোধ জানাচ্ছি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনারা জানেন বিশ্বের উন্নত দেশ এমনকি উন্নয়নশীল দেশে শ্রমশক্তির প্রকট অভাব। এজন্য আমরা শ্রমঘন শিল্প প্রতিষ্ঠার উপর গুরুত্ব প্রদান করেছি।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনশক্তি অর্থনৈতিক সম্পদ। এদেশের ৭৩ শতাংশ মানুষ ৪০ বছর বা তার চেয়ে কম বয়সী। বয়স্ক মানুষের সংখ্যাধিক্যতা এবং কর্মঠ মানুষের ঘাটতির কারণে শ্রমঘন শিল্পে বিশ্বের শক্তিশালী দেশসমূহ ক্রমাগত পিছিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ যাতে সেই জায়গা পুরণ করতে পারে তার জন্য আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমাদের রপ্তানি খাতের শ্লোগান হচ্ছে
ফ্রম শার্ট টু শিপ, বলেন প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে ২০১১-১২ ও ২০১২-১৩ অর্থবছরে রফতানি বাণিজ্যের বিকাশে উল্লেখযোগ্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা পর্যায়ে ১১৩টি প্রতিষ্ঠানের মাঝে জাতীয় রফতানি ট্রফি প্রদান করেন।
২০১১-১২ এবং ২০১২-১৩ অর্থবছরের জন্য সর্বমোট ৫২টি স্বর্ণ, ৩৭টি রৌপ্য এবং ২৪টি ব্রোঞ্জ ট্রফি ও সনদ প্রদান করা হয়।
সূত্র : বাসস 

সেলিম আলম,ডেনমার্ক থেকে : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১তম মৃত্যু বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল করেছে ডেনমার্ক আওয়ামীলীগ

গত ২৭ আগষ্ট কোপেনহেগেনের একটি হলে রাফায়েতুল হক মিটুর সভাপতিত্বে এবং মাহবুবুল হকের পরিচালনায় দিবসটি পালিত হয়েছে । ডেনমার্ক আওয়ামীলীগ নেতা মাহবুবুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারন কারী সকলকে প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার মত করে দেশ কে ভালবেসে ডেনমার্ক সহ বর্হিবিশ্বে  এক হয়ে কাজ করতে হবে

ঐক্যের আহবান জানিয়ে টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে বক্তব্য রাখেন ইউরোপ আওয়ামীলীগের সভাপতি শ্রী অনীল দাশ গুপ্ত,মোস্তফা মজুমদার,নাসির উদ্দিন সরকার,লিংকন মোল্লা,সাব্বির আহমেদ, তাইবুর ভুঁইয়া,জাহিদ বাবু,নিজাম উদ্দিন,খুকন মজুমদার,মোহাম্মেদ শহিদ,নাইম বাবু,লিমেন,বুরহান,সামী প্রমুখ।

বক্তারা বলেন স্বাধীনতা বিরোধী যুদ্ধা অপরাধীরা জাতির অবিসংবাদিত নেতা শেখ মুজিবুর রহমান কে স্বপরিবারে হত্যা করেও আমাদের অগ্রযাত্রাকে থামিয়ে রাখতে পারেনি,জাতিকে উজ্জিবিত করে দেশকে এগিয়ে নিতে আল্লাহ বাচিয়ে রেখেছেন তার সূযোগ্য দু'কন্যা মাননীয় প্রাধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনাকে,দেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে তাদের যোগ্য নেতৃত্বে । সভায় বিশেষ মোনাজাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের জন্য মাগফেরাত কামনা করা হয়।

কাতালোনিয়া প্রতিনিধি : বাংলাদেশ ছাএলীগ কেন্দ্রীয় সংসদের সাবেক সফল যুগ্ম-সম্পাদক,তৃণমুল ছাত্রলীগের আন্দোলন সংগ্রামের প্রিয় মূখ,বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নিবেদিত প্রাণ, পরীক্ষিত ও সময়ের সাহসী ছাত্রলীগ নেতা মাসুদ কামাল সূফির নিঃর্শত মুক্তির দাবিতে স্পেন ছাএলীগের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে স্থানীয় এক রেস্তোরাঁয়।
উক্ত প্রতিবাদ সভায় উপস্হিত ছিলেন ছাত্রলীগ নেতা,দিলাল হোসাইন,আব্দুর রকিব শপন,মিলন আহমদ,রনি মিয়া,মারুফ,লাল মিয়া সহ আরো অনেকেইএসময় ছাত্রলীগ নেতারা তাদের বক্তব্যে বলেনঃ আমরা আজ এই প্রতিবাদ সভা থেকে একটি কথাই বলতে চাই,আমাদের সবার প্রিয় মাসুদ কামাল সূফি ভাই সম্পূর্ণ নির্দোষ, তাকে মিথ্যা বানোয়াট মামলা গ্রেফতার করে কারাভোগ করানো হচ্ছে,আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং সরকারের কাছে অবিলম্বে আপোষহীন ছাত্রলীগ নেতা মাসুদ কামাল সূফি ভাইয়ের নিঃর্শত মুক্তির জোড়ালো দাবী জানাচ্ছি

আব্দুল করিম,প্যারিস ,ফ্রান্স. বিয়ানীবাজার উপজেলা সমাজ কল্যান সমিতি ফ্রান্সের যোগাযোগ সম্পাদক পারুল হোসেনের মাতার অকাল মৃত্যুতে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার প্যারিসের ওভারভিলা বাংলাদেশী কমিউনিটি জামে মসজিদে এ মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।


ফ্রান্সে বসবাসরত বিয়ানীবাজারবাসি আয়োজিত মিলাদ মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন ফ্রান্স আওয়ামীলীগের সভাপতি মহসিন খান লিটন, মসজিদ কমিটির সভাপতি সালেহ আহমদ,ওয়াহিদ ভার তাহের,বিয়ানীবাজার উপজেলা সমাজকল্যাণ সমিতির উপদেষ্ঠা সুনাম উদ্দিন খালিক,হাজি জাহেদ আহমদ, আবু বক্কর ,প্যারিস বাংলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এনায়েত হোসেন,সমিতির সভাপতি বুরহান উদ্দিন,সহ সভাপতি দেলোয়ার হোসেন,মোস্তুফা মনসুর ,সাধারণ সম্পাদক সুমন আহমদ,সহ সাধারণ সম্পাদক পারভেজ উদ্দিন,জাকির হোসেন,বাহার উদ্দিন,মিজানুর রহমান মিজান,দেলোয়ার হোসেন সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ প্রমুখ।

মিলাদ ও দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন,মাওলানা আব্দুস শহীদ।পরে মুসল্লিদের মধ্যে তবরুক বিতরণ করা হয়।

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget