2016-07-31



জনপ্রিয় অনলাইন ডেস্ক : তিনজন নতুন মুখ নিয়ে দলের সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির ১৯ সদস্যের মধ্যে ১৭ জনের নাম ঘোষণা হয়েছে। ঘোষণা হয়নি ২ জনের নাম ।
এছাড়া ঘোষণা করা হয়েছে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটিও।শনিবার দুপুরে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এই কমিটি ঘোষণা করেন।

কমিটিতে ১৭ জনকে স্থায়ী কমিটিতে, ৭৩ জনকে উপদেষ্টা, ৩৫ জন ভাইস চেয়ারম্যান, যুগ্ম মহাসচিব, সম্পাদক ও সহসম্পাদক মিলে ১৭৪ জন এবং সদস্য রাখা হয়েছে ২৯৩ জনকে। সদস্যদের মধ্যে ১১৩ জন নতুন।
এছাড়া ৫০২ জন নির্বাহী কমিটিতে স্থান পেয়েছেন। এদের ৪৯৮ জনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। বাকিদের নাম পরে জানানো হবে।
গত ১৯ মার্চ ঢাকায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন প্রাঙ্গণে দলের ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠানের চার মাস ১৬ দিন পর এই কমিটির ঘোষণা আসল।
১৯ সদস্যের স্থায়ী কমিটিতে আগের কমিটির ১৪ জন রয়েছেন। বাকি তিনজন নতুন। তারা হলেন- মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সালাউদ্দিন আহমেদ।
গত কমিটির সদস্য এম শামসুল ইসলাম ও বেগম সারোয়ারি রহমান দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ। সাংগঠনিক কাজে অংশ নিতে না পারায় তারা নতুন কমিটিতে স্থান পাননি। তবে তাদেরকে উপদেষ্টামণ্ডলীতে রাখা হয়েছে।
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া স্থায়ী কমিটির প্রথম সদস্য। তিনি ছাড়া ঘোষিত কমিটির ক্রমানুসারে অন্যরা হলেন- তারেক রহমান, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, তরিকুল ইসলাম, লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান, আসম হান্নান শাহ, এমকে আনোয়ার, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মইন খান, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সালাউদ্দিন আহমেদ (সর্বশেষ)।
১৯ সদস্যে মধ্যে ১৭ ও ১৮ নম্বর সদস্যের নাম ঘোষণা করা হয়নি বলে জানান মির্জা ফখরুল। পরে তা ঘোষণা করা হবে।
গত কমিটিতে সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্যের পাশাপাশি চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
গত বছরের জানুয়ারিতে আন্দোলনের মধ্যে আগের কমিটির যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদ নিখোঁজ থাকার পর ভারতের মেঘালয়ের শিলংয়ে তার সন্ধান মেলে। পরে অবৈধ অনুপ্রবেশের মামলায় তিনি বর্তমানে ভারতে অবস্থান করছেন।
এছাড়া অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সর্বশেষ মেয়র সাদেক হোসেন খোকা বর্তমানে চিকিসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে আছেন।
গত ১৯ মার্চ দলের ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলের ১০ দিন পর মহাসচিব পদে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব হিসেবে রুহুল কবির রিজভী ও কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহার নাম মনোনয়ন দেন চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।
এরপর সব মিলে তিন দফায় যুগ্ম মহাসচিব, সাংগঠনিক সম্পাদক ও সহসাংগঠনিক সম্পাদক নিয়ে ৪২ জনের নাম ঘোষণা করা হয়।
২০০৯ সালের পঞ্চম জাতীয় কাউন্সিলে গঠনতন্ত্র সংশোধন করে ১৩ সদস্যের স্থায়ী কমিটির সদস্য সংখ্যা ১৯ এ উন্নীত করা হয়।
ওই সময়ে তরিকুল ইসলাম, আসম হান্নান শাহ, এমকে আনোয়ার, বেগম সারোয়ারি রহমান, জমিরউদ্দিন সরকার, ড. আবদুল মঈন খান, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, রফিকুল ইসলাম মিয়া, সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও তারেক রহমান- এই ১২ জনকে স্থায়ী কমিটির সদস্য করা হয়।
পঞ্চম জাতীয় কাউন্সিলের পর স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আরএ গনি এবং খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন (মহাসচিব) মারা যান। আর সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর যুদ্ধাপরাধের দণ্ডে ফাঁসি হয়।







জহুর উল হকলিসবন প্রতিনিধি  :  গত ৫ই আগষ্ট বাদ আসর পর্তুগালের রাজধানীর লিসবনে  বাঙগালী অধ্যুসিত এলাকায় অবস্থিত বাইতুল মোকারম জামে মসজিদে ফ্রান্স প্রবাসী মরহুম হাসিব আলীর আত্মার মাগফিরাত কামনা করে  এক মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য ফ্রান্স প্রবাসী  বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী মরহুম আব্দুল হাসিব বাংলাদেশের মৌলভীবাজার জেলার  বড়লেখা উপজেলার ৫নং দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউনিয়ন এর তমুসির আলীএর পুত্র  বড়লেখা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শাহাব উদ্দিনের ছোট ভাই। গত  ১লা আগষ্ট সকাল ১১টার দিকে তিনি নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়ানিল্লাহির রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স ছিল (৪৮) বছর। তাঁর অকাল মৃত্যুতে ফ্রান্সপর্তুগাল, স্পেন সহ পুরো ইউরোপে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে ও ২ মেয়েসহ আত্মীয়-স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে এ দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়  দোয়া মাহফিলে উপস্থিত থেকে বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ তাঁর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন। মোনাজাত পরিচালনা করেন  বাইতুল মোকারম জামে মসজিদের খতিব অধ্যাপক আবু সাইদ 



বাহার উদ্দিন বকুল,জেদ্দা,সৌদি আরব: গত ৪ আগষ্ট স্থানীয় সময় সকাল ১১-৪০ মিনিটে ৪০১ জন হজযাত্রী নিয়ে জেদ্দা কিং আব্দুল আজিজ ইন্টারন্যাশনাল বিমান বন্দরে পৌঁছেছে বাংলাদেশের প্রথম হজ ফ্লাইট বিজি- ১০১১ জেদ্দা বিমান বন্দরে হজযাত্রীদের উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসিহ, জেদ্দা কনস্যুলেটের কনসাল জেনারেল এ.কে.এম শহিদুল করীম, কনসাল হজ মাকসুদুর রহমানসহ এছাড়া কাউন্সিলর মোঃ মোকাম্মেল হোসেন, কাউন্সিলর আজিজুর রহমান, বাংলাদেশ বিমানের রিজিওনাল ম্যানেজার মোহাম্মদ আলী ওসমান নূর, সোনালী ব্যাঙ্ক প্রতিনিধি সৈয়দ মঞ্জুরুল হক এবং কনস্যুলেট কর্মকর্তাগণসহ সৌদি পদস্থ কর্মকর্তাগণ হজযাত্রীদের অভ্যর্থনায় উপস্থিত ছিলেন।

প্রথম ফ্লাইটে আসা হজযাত্রীগণকে সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা উপহার হিসেবে খেজুর জায়নামাজ ও তসবিহ তুলে দেয়া হয়। উষ্ণ অভ্যর্থনায় হজযাত্রীগণ আনন্দিত হন এবং খুশী মনে উপহার গ্রহণ করেন।

বাংলাদেশ হজ মিশন এবং মোয়াল্লেমের লোকজনদের সহায়তায় হজযাত্রীগণ জেদ্দা বিমান বন্দর থেকে বাস যোগে ৭০ কিলোমিটার দূরে পবিত্র মক্কায় পৌঁছবেন। সৌদি আরবে চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর/ ৯ জিলহজ তারিখে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে।

চলতি বছরে মোট ১ লাখ, ১ হাজার ৭৫৮ জন বাংলাদেশী হজ পালন করতে সৌদি আরবে আসবেন বলে জানা গেছে। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১০ হাজার এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৯১ হাজার ৭৫৮ জন হজযাত্রী রয়েছেন। হজযাত্রী বাহী শেষ ফ্লাইট আসবে ৫ সেপ্টেম্বর। ফিরতি ফ্লাইট ১৭ সেপ্টেম্বর শুরু হয়ে ১৬ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে।

কনসাল হজ মাকসুদুর রহমান জানিয়েছেন বাংলাদেশ থেকে আগত সকল হজযাত্রীগণের জন্যে ইতিমধ্যে বাড়িভাড়া হয়েছে এবং হজ পালনের সকল আয়োজন সম্পন্ন করা হয়েছে। হাজীগণের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে মেডিকেল টিম কাজ করবে বলে জানান তিনি।



ইউরো প্রতিনিধি : সর্ব-ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এম এ গনির স্বেচ্ছাচারিতা,ব্যাক্তি আক্রোশ,দূর্নিতি,দলীয় গঠনতন্ত্র পরিপন্থি অবৈধ কার্যক্রম এবং গন বহিষ্কারের প্রতিবাদে,গত বুধবার গুলশানের একটি হোটেলে,সর্ব-ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি অনিল দাশগুপ্তের অনুমতিক্রমে এক প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে সর্ব-ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ।উক্ত প্রতিবাদ সভায় সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন সংগঠনটির সাংগঠনিক সম্পাদক জি এম কিবরিয়া। 

প্রতিবাদ সভার মুল বক্তব্যে কিবরিয়া বলেন,জনাব গনি,সর্ব-ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি শ্রী অনিল দাশগুপ্ত এমন কি কোন সদস্যের সাথেও আলোচনা না করে,সম্পুর্ন ব্যাক্তি স্বার্থ চরিত্রার্থ করার জন্য,গঠনতন্ত্রকে বৃদ্ধা আঙ্গুলি প্রদর্শন করে,সর্ব-ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক,জনাব শামীম হককে অবৈধ উপায়ে বহিষ্কার করেন। শামীম হক প্রসঙ্গে,তিনি সর্ব-ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি,বাবু অনিল দাশগুপ্তের করা মন্তব্যের সাথে একমত হয়ে বলেন,সংগঠনের কোন নেতাকে বহিষ্কার করার অধিকার কেবল মাত্র বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার রয়েছে,জনাব গনি সম্পুর্নই অনধিকার চর্চা করেছেন এবং জনাব শামীম হককে অতীতের ন্যায় সর্ব-ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ তথা শেখ হাসিনার অগ্রসৈনিক হিসাবে কাজ করার আহবান জানান। এম এ গনি যদি ১৪ ই আগস্টের মধ্যে,প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে করা সকল ভুল স্বীকার না করেন এবং সংগঠনের কাছে ক্ষমা না চান তবে সর্ব-ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতির অনুমতি নিয়ে তাকে সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডের জন্য বহিষ্কার করার জন্য,ইউরোপের সকল নেতাকে সংগে নিয়ে,জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করে বহিষ্কার করার জোর দাবী জানাবেন এবং ইউরোপের সকল দেশে আনুষ্ঠানিক ভাবে অবাঞ্চিত ঘোষনা করা হবে,এ সময় সভায় উপস্থিত সকল প্রবাসী নেতা হাত উচিয়ে জি এম কিবরিয়ার সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেন। বেলজিয়াম আওয়ামী লীগের সভাপতি বজলুর রশিদ বুলু বলেন,দেশে যখন বিএনপি-জামতের প্রত্যেক্ষ মদদে জঙ্গীবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে,ঠিক তখনই আপনি জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ না করে শামীম হকের মত ত্যাগী নেতাকে অবৈধ প্রক্রিয়ায় বহিষ্কার করলেন? কেনই বা টাকার বিনিময়ে ডেনমার্ক,সুইডেন,গ্রীস,স্পেনে দুই/তিনটা করে কমিটি দিলেন? আপনার উদ্দেশ্য আজ সবার কাছে পরিষ্কার।আবার যদি এসকল অবৈধ কাজ আবার করার চেষ্টা করেন তবে মনে রাখবেন,ঐক্যবদ্ধ ভাবে আপনাকে প্রতিহত করা হবে। তুরস্ক আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ ফারুক প্রিন্স তার বক্তব্যে বলেন,আজ যারা প্রবাসী আওয়ামী লীগের নেতা হয়েছেন,তারা প্রথমে বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ করেই বর্তমান অবস্থানে আসতে পেরেছেন।তিনি আরো বলেন,আমার নেতা শামীম হকের রাজনৈতিক কর্মকান্ডের কারনে বিশ্ব ব্যাপি সর্ব-ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগ পরিচিতি পেয়েছে।গনি সাহেব কে বিএনপির এজেন্ট,নব্য মোস্তাক হিসাবে অবহিত করেন তিনি। উক্ত প্রতিবাদ সভায় উপস্থিত সকল প্রবাসী নেতৃবৃন্দ তাদের সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে জনাব গনির নানা অনিয়ম ও দুর্নীতি কথা তুলে ধরে শামীম হকের অবৈধ বহিষ্কারের তীব্র প্রতিবাদ জানান।অন্যান্যর মধ্যে বক্তব্য প্রদান করেন,জার্মান আওয়ামী লীগের সভাপতি বশিরুল আলম চৌধুরী সাবু,ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান, দক্ষিন কোরিয়া আওয়ামী লীগের সভাপতি শিমুল হাসান, বেলজিয়াম আওয়ামী লীগ নেতা নুরুজ্জামান,সর্ব ইউরোপ আওয়ামী লীগ নেতা হাসনাত মিয়া, সুইডেন আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজুল হক খান রানা,সুইজার‌্যান্ড আওয়ামী লীগ নেতা তাজুল ইসলাম,জার্মান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আহমেদ বাদল,স্পেন আওয়ামী লীগের নেতা জাকির হোসেন,বেলজিয়াম আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন,নরওয়ে আওয়ামী লীগের নেতা আজগর আলী,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির সহ সম্পাদক নুরুল হাসান মিয়া প্রমূখ।



রনি মোহাম্মদ, লিসবন,পর্তুগাল : জাতীয়তাবাদী শক্তি সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের পরিবারকে ধ্বংস করতে এবং আগামী দিনে দেশের রাষ্ট্রনায়ক তারেক রহমানকে রাজনীতি ও নির্বাচন থেকে দূরে রাখতেই বিচার বিভাগের ওপর প্রভাব বিস্তার করে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ৭ বছরের দন্ডাদেশ রায় দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন পর্তুগাল বিএনপি।

পর্তুগালের রাজধানী লিসবনের মার্তিম মনিজের কেন্দ্রস্থল বাঙ্গালী অদ্যসিত রুয়া দো বেনফরমসোর স্থানীয় কাজা দা কবিলা মিলোনায়তনে বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশীদের উপস্থিতির মধ্য দিয়ে ৩০শে জুলাই  প্রতিবাদ সভায় অনুষ্টিত হয়।

পর্তুগাল বিএনপির প্রতিষ্টাতা সভাপতি অলিউর রহমান চৌধুরির সভাপতিত্বে এবং সাধারন সম্পাদক মহিন উদ্দিনের পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন পর্তুগাল বিএনপির সিনিয়ার সহসভাপতি নজরুল ইসলাম সিকদার, সহসভাপতি সালা উদ্দিন, বীর মুক্তিযুদ্ধা কাজী এমদাদ মিয়া, পোর্ত  বিএনপির কাজল আহমেদ, সেভ বাংলাদেশ পর্তুগালর আহবায়ক সোলেমান মিয়া, আলগ্রাব বিএনপির মামুনুর রসিদ, ইয়াকুব, পর্তুগাল বিএনপি সহসাধারন সম্পাদক ইউসুপ তালুকদার, আমির সোহেল, সাবেক ছাএদল নেতা ইঞ্জিনিয়ার আরিফ মোল্লা, শেখ খালেদ হোসেন, সাইফুল হক, আবদুছ সালাম, সামছু উদ্দিন হায়দার, ওমর ফারুক লিটন,সানি  আহমেদ, আঃ ওয়াহিদ পারভেজ, নাজমুল হুদা, মোঃ আঃ গাফ্ফার প্রমুখ।

প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত এবং তারেক রহমানকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখার ষড়যন্ত্র হিসেবে এ রায় দেয়া হয়েছে। আরো বলেন, দেশে সন্ত্রাস জঙ্গিবাদের কারণে মানুষ যখন চরম নিরপত্তাহীনতার মধ্যে জীবন যাপন করছে। ভারতের মাস্টরপ্লান বাস্তবায়নের জন্য সুন্দরবনকে ধ্বংস করে রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মান করছে। রামপালে বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদে রাজপথে আজ সাধারন মানুষ সরকারি হামলায় নির্যাতিত হচেছ। এর ফলে দেশের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে এই সরকার। দেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সাধারন মানুষ যখন রাজপথে, তখনই সরকার তারেক রহমানের অর্থপাচারের মামলায় নিন্ম আদালতে খালাস পাওয়ার পরও বিচার বিভাগের ওপর প্রভাব বিস্তার করে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে দন্ডাদেশ দেয়া এ রায়ের বিরুদ্বে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায়। শুধু দেশে নয় প্রবাসথেকেও দেশবিরোধী যে কোন কাজে অতীতেও প্রবাসী বিএনপি অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে ভবিষ্যতেও করবে বলে জানান নেত্রীবৃন্দ।

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget