2016-06-12

আব্দুল করিম,প্যারিস,ফ্রান্স : প্যারিসে ফ্রান্স বাংলা দর্পন পত্রিকার প্রকাশনা ও ইফতার অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৭ জুন শুক্রবার বিকেলে ক্যাথসীমার সোনার বাংলা রেষ্ঠুরেন্টে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

ফ্রান্স বাংলা দর্পণর সম্পাদক সামসুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও নির্বাহী সম্পাদক ফেরদৌস করিম আখনজীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত প্রকাশনা অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ এসোসিয়েশনের আহ্বায়ক সালেহ উদ্দিন চৌধুরী, সিলেট বিভাগ সমাজ কল্যান সমিতির উপদেষ্টা সুনাম উদ্দিন খালিক, সোবহান খান, ফ্রান্স বিএনপির সাধারন সম্পাদক এম এ তাহের, ইউরোপিয়ান প্রবাসী বাংলাদেশী এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি মামুন মিয়া,প্যারিস বাংলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আবু তাহির, সাধারন সম্পাদক এনায়েত হোসেন সোহেল, ফ্রান্স বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারন সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম। বক্তব্য রাখেন ,প্যারিস ভিশন এর সম্পাদক মান্নান আজাদ,ফ্রান্স বিএনপির সহসভাপতি সিরাজুর রহমান, সিলেট বিভাগ সমাজ কল্যান সংস্থার সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম, ফ্রান্স তৃণমূল বিএনপির সভাপতি আলী হোসেন,জাতীয়তাবাদী নাগরিক মুক্তি পরিষদ ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট শামীমা আক্তার রুবী, ইপিবার সহ কোষাধ্যক্ষ অজয় দাশ,লেখক,সমালোচক শরীফ উদ্দিন আহমেদ সৈকত, লেখিকা কবি নাজমা আহেমদ নিঝুম। অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তব্য রাখেন, প্যারিস বাংলা প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক লুতফুর রহমান বাবু। এছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, পত্রিকার প্রকাশক আজাদ মিয়া ও সেলিম ওয়াদা শেলু। অনলাইন প্যারিস বার্তা সম্পাদক মাম হিমু, প্যারিস বাংলা প্রেসক্লাবের সাংস্কৃতিক ও প্রকাশনা সম্পাদক দোলন মাহমুদ, সাংবাদিক খালেদ গোলাম কিবরিয়া,হবিগঞ্জ জেলা যুব কল্যাণ সংস্থার সিনিয়র সদস্য মাসুক মিয়া প্রমুখ ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন,গণতন্ত্রকে মজবুত এবং অধিকার পতিষ্ঠার ক্ষেত্রে সংবাদপত্রের ভূমিকা অনন্য। আর্তপীড়িত বঞ্চিত ও নিযার্তিতদের নিপড়নের হাত থেকে রক্ষাকরতে পারে সংবাদপত্র। আর জনগনের এ মৌলিক চাহিদা মেটাতে পারে কেবল সেই সাংবাদিক। যে সাংবাদিক কর্তব্যে সৎ, কর্মঠ, নির্ভীক ও নিষ্টাবান। সাংবাদিকের ব্যক্তিক ও নৈতিক আচারণের উপর নির্ভর করে সংবাদপত্রের স্বরুপ। সংবাদ পত্র হচ্ছে সমাজের দর্পন। প্রবাসে সংবাদপত্র প্রকাশ করা খুবই দুরহ ব্যাপার।প্রবাসে বাংলা পত্রিকা প্রকাশে অনেক প্রতিকুলতা থাকে। এর মধ্যেও নিরপেক্ষতা এবং স্বচ্ছতা ধরে রাখতে হবে, তা না হলে পত্রিকা গ্রহন যোগ্যতা হারাবে, পত্রিকায় সব ধরনের সংবাদই প্রকাশ করতে হবে। বক্তারা বলেন,একজন সাংবাদিক যে কোনো দলীয় মতের হতে পারে কিন্তু পেশার ক্ষেত্রে তাকে সাংবাদিকই থাকতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে দেশটা কোনো দলের নয় জনগনের। সাংবাদিক যদি কোনো দলের মূখপাত্র হয়ে কাজ করেন তবে সেই সংবাদপত্র কুলষিত হবে। সব থেকে বড় ক্ষতি হবে গণমা  ধ্যমেরই। ফ্রান্স বাংলা দর্পন প্রকাশনা পরবর্তী ইফতার মাহফিলে মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা অধ্যাপক বদরুল ইসলাম।

গাইবান্ধা : ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীর ছবির পাশে নগ্নছবি সংযুক্ত করে প্রচারের অভিযোগে জেলার গোবিন্দগঞ্জে বায়োজিদ মণ্ডল নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। 

শুক্রবার সকালে তাকে তার বাড়ি রাজাহার ইউনিয়নের পূর্বপাড়া গ্রাম থেকে আটক করা হয়। গোবিন্দগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আটককৃত যুবক দীর্ঘদিন ধরে তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে আওয়ামী লীগ সম্পর্কে বিভিন্ন অশোভনীয় কটূক্তি করে আসছিল। সম্প্রতি তিনি তার ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশে সম্মানহানীকর একটি নগ্নছবি সংযুক্ত করে পোস্ট করে।

এ ব্যাপারে রাজাহার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগ পেয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশ সকালে বায়োজিত মণ্ডলকে তার বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে।

অনলাইন ডেস্ক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) অডিটোরিয়াম সংলগ্ন ইবাদত খানা এবং অডিটোরিয়ামের মধ্যে কোন দেয়াল নেই। মাগরিবের নামাজের সময় হওয়ার সাথে সাথে সেখানে মুয়াজ্জিন আজান দিচ্ছিলেন। আর ওই সময়ই অডিটোরিয়ামে বক্তব্য করছিলেন মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। মঞ্চের সামনে থেকে একজন শ্রোতা উঠে দাঁড়িয়ে বললেন, পাশে আজান হচ্ছে। তার কথায় কর্ণপাত না করে নিজের বক্তব্য চালিয়ে যাচ্ছিলেন মন্ত্রী। লোকটি আবার বললেন, আজান হচ্ছে পাশে। এবার মন্ত্রী বলে উঠলেন আজান ফরজ নয়, নামাজ ফরজ। আজান শোনা লাগবেনা। আমাদের দেশের মানুষের এই একটি সমস্যা।

আজানের একজন উত্তর দিলে চলবে। শোনা লাগবেনা। তিনি মঞ্চের সামনে বসা একজনকে বলেন, আপনি আজানের উত্তর দিন। এই বলে নিজের বক্তব্য দীর্ঘায়িত করতে থাকেন।
মন্ত্রীর এমন বক্তব্যে মঞ্চে থাকা বেশ কয়েকজন শ্রোতাকে এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা যায়। তারা বলেন, যেহেতু এখানে অডিটোরিয়াম এবং নামাজ ঘরের মাঝে কোন দেয়াল নেই, সেহেতু একটুখানি সময় নিজের বক্তব্য বন্ধ রাখলেই ভালো হতো।

সংগঠনের সভাপতি ড. শামসুল হক ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইফতেখার উদ্দীন চৌধুরী, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাসিম, বাহলুল মজনুন চুন্নু প্রমুখ।

অনলাইন ডেস্ক : দিয়েগো আর্মান্দো মারাদোনা ,জন্ম ৩০ অক্টোবর ১৯৬০। একজন আর্জেন্টিনীয় ফুটবল কোচ সেইসাথে একজন ম্যানেজার এবং প্রাক্তন খেলোয়াড়। অনেক বিশেষজ্ঞ, ফুটবল সমালোচক, প্রাক্তন ও বর্তমান খেলোয়াড় এবং ফুটবল সমর্থক তাকে সর্বকালের সেরা ফুটবলার হিসেবে গণ্য করেন। তিনি ফিফার বিংশ শতাব্দীর সেরা খেলোয়াড়ে পেলের সাথে যৌথভাবে ছিলেন মারাদোনাই একমাত্র খেলোয়াড় যিনি দুইবার স্থানান্তর ফি এর ক্ষেত্র বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন।

প্রথমবার বার্সেলোনায় স্থানান্তরের সময় ৫ মিলিয়ন ইউরো এবং দ্বিতীয়বার নাপোলিতে স্থানান্তরের সময় ৬.৯ মিলিয়ন ইউরো। নিজের পেশাদার ক্যারিয়ারে মারাদোনা আর্জেন্টিনোস জুনিয়র্স, বোকা জুনিয়র্স, বার্সেলোনা, নাপোলি, সেভিয়া এবং নিওয়েলস ওল্ড বয়েজের হয়ে খেলেছেন। ক্লাব পর্যায়ে তিনি তার নাপোলিতে কাটানো সময়ের জন্য বিখ্যাত, যেখানে তিনি অসংখ্য সম্মাননা জিতেন। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আর্জেন্টিনার হয়ে তিনি ৯১ খেলায় ৩৪ গোল করেন।
তিনি চারটি ফিফা বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করেন। যার মধ্যে ছিল ১৯৮৬ বিশ্বকাপ, যেখানে তিনি আর্জেন্টিনা দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেন এবং দলকে বিশ্বকাপ জয়ে নেতৃত্ব দেন। প্রতিযোগিতার সেরা খেলোয়াড় হিসেবে স্বর্ণ গোলক জিতেন তিনি। প্রতিযোগিতার কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আর্জেন্টিনা ২১ গোলে জয় লাভ করে।
আর্জেন্টিনার পক্ষে উভয় গোলই করেন মারাদোনা। দুইটি গোলই ফুটবল ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে আছে দুইটি ভিন্ন কারণে। প্রথম গোলটি ছিল হ্যান্ডবল যা হ্যান্ড অফ গড নামে খ্যাত। দ্বিতীয় গোলটি মারাদোনা প্রায় ৬০ মিটার দূর থেকে ড্রিবলিং করে পাঁচজন ইংরেজ ডিফেন্ডারকে পাশ কাটিয়ে করেন। ২০০২ সালে ফিফাডটকম এর ভোটাররা গোলটিকে শতাব্দীর সেরা গোল হিসাবে নির্বাচিত করে।

এদিকে, গতকাল শুক্রবার ভারতীয় গণমাধ্যম আর প্লাসের খবরে বলা হয়েছে, সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবল কিংবদন্তী আর নেই। পরপারে পাড়ি জমিয়েছেন তিনি।

ঢাকা: শনিবার কোপা আমেরিকার কোয়ার্টার ফাইনালে রোমাঞ্চকর এক জয় পেয়েছে কলম্বিয়া। এই জয়ে শতবর্ষী আসরটির সেমিফাইনালের খেলা নিশ্চিত করেছে হামেস রদ্রিগেজদের দল। এদিন টাইব্রেকার নামক ভাগ্য পরীক্ষায় পেরুকে ৪-২ গোলের ব্যবধানে হারিয়েছে কলম্বিয়া।যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সিতে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে সমান তালে লড়ে গেছে কলম্বিয়া-পেরু! তাই প্রথমার্ধ কেটেছে গোলশূণ্যভাবে। আবার দ্বিতীয়ার্ধও কেটেছে একইভাবে, গোলের দেখা পায়নি দুদলের কেউই (০-০)। অতিরিক্ত সময়েও একে অপরকে রুখে দিলে রোমাঞ্চের শেষটা গড়ায় টাইব্রেকারে।

এই ভাগ্য পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে হোসে পেকারম্যানের দল কলম্বিয়া নাম লিখিয়েছে কোপা আমেরিকার শেষ চারে। অপরদিকে স্বপ্নভঙ্গের বেদনা নিয়ে দেশের বিমান ধরার অপেক্ষায় পেরু। এ যেন নিয়তির কাছেই হার মানলো তারা!টাইব্রেকারে কলম্বিয়ার পক্ষে প্রথম শট নেয়ার জন্য আসেন হামেস রদ্রিগেজ। বাঁ-পায়ের বাঁকানো শটে পেরুর গোলরক্ষক পেদ্রো গ্যালিসিকে পরাস্ত করেন রিয়াল মাদ্রিদের এই তারকা ফরোয়ার্ড (১-০)। সাদামাটা উদযাপনই করলেন কলম্বিয়ার প্রাণভোমরা।
এভাবে প্রথম দুটি শটে দুদলের স্কোরলাইনে সমতা ছিল। কলম্বিয়ার পক্ষে দ্বিতীয় গোলটি করেন জুয়ান গুলারেমিয়ো। আর পেরুর হয়ে কলম্বিয়ার জাল কাঁপান রাউল মারিও এবং রেনাটো টাপিয়া (২-২)।
টাইব্রেকারের তৃতীয় শটে গোল আদায় করে নেন কলম্বিয়ার মোরেনো গ্যালিন্ডো (৩-২)। অপরদিকে পেরুর পক্ষে তৃতীয় শট নেয়া মিগুয়েল অ্যাঞ্জেল লক্ষ্যভেদে ব্যর্থ হয়েছেন (৩-২)। তার দুর্বল শটটি পা দিয়ে রুখে দেন কলম্বিয়ার গোলরক্ষক ওস্পানিও।

কলম্বিয়ার হয়ে চতুর্থ শটে গোল করতে সক্ষম হন পেরেজ কার্ডোনা (৪-২)। এরপর পেরুকে ফের হতাশায় ডুবান আলবার্তো কুয়েভা ব্রাভো। বলটি বারের ওপর দিয়ে বাইরে পাঠিয়ে দেন তিনি। আর তাতে টাইব্রেকার নামক পরীক্ষায় জয় লাভ করে কলম্বিয়া।

মাগুরা : জেলার সদর উপজেলার মগির ঢালে পুলিশের সঙ্গে বন্ধুকযুদ্ধে ডাকাত সর্দার কামাল (৪০) নিহত হয়েছে। পরে ঘটনাস্থল থেকে দুই রাউন্ড গুলি, একটি দেশি বন্দুক ও দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। গত১৭ জুন  রাত পৌনে ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত কামাল সর্দার উপজেলার জগদল ইউনিয়নের শ্যাওলাডাঙ্গা গ্রামের অফসার সর্দারের ছেলে।

মাগুরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আজমল হুদা বাংলামেইলকে জানান, মাগুরা-যশোর মহাসড়কে গাছ ফেলে ডাকাতির চেষ্টা করছে একদল ডাকাত। সংবাদ পেয়ে ওই এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ।পুলিশের উপস্থিতি বুঝতে পেরে ডাকাতরা গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষায় পুলিশ পাল্টা গুলি ছুড়লে ডাকাত সরদার কামাল নিহত হয়। ওসি আরও বলেন, কামাল আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সর্দার। তার নামে খুন, ডাকাতি, ধর্ষণসহ বিভিন্ন অপরাধে থানায় নয়টি মামলা আছে।

লাশ মাগুরা সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানান ওসি আজমল হুদা।

ঢাকা: ডাক্তারের স্ত্রী ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ায়ের স্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার, নায়কের স্ত্রী নায়িকা এমন ঘটনা নেহাত কম নয়। তবে প্রেসিডেন্টের স্ত্রী (ফার্স্ট লেডি) প্রেসিডেন্ট হওয়ার ইতিহাস আছে কি? এই মুহূর্তে তা মনে পড়ছে না। তবে চলতি বছরের আগামী নভেম্বর মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মনোনীত প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের জয়ের মাধ্যমে সেই ইতিহাসটা হাতে পারে, আর সেটার পর্যাপ্ত সম্ভাবনাও আছে।

কেননা একে তো রিপাবলিকান দলের সম্ভাব্য প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প বহুমাত্রিক বিতর্কে বিপর্যস্ত। তার ওপর নিজ দলের বড়-বড় বর্তমান ও সাবেক রাজনীতিবিদ এবং নেতাদের নেই পরিপূর্ণ সমর্থন। আর ভোটারদের মধ্যে ট্রাম্প নিয়ে দ্বিধা-বিভক্তি তো আছেই। তাই যেন-তেনভাবে দলীয় মনোনয়ন পেলেও জাতীয় মনোনয়ন নিয়ে সংশয় তো থেকেই যাচ্ছে।
সেই সঙ্গে ইসলাম ও মুসলমানদের নিয়ে বিভিন্ন সময়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিতর্কিত ও আপত্তিকর বক্তব্য দেওয়ায় গোটা দুনিয়ার সব ধর্মের সচেতন মানুষের কাছে সমর্থন বঞ্চিত হবেন তিনি। একাধিকবার অযৌক্তিকভাবে শুধু ব্যক্তিগত আক্রশে বিশ্ব মিডিয়ার সংবাদকর্মীদের গালিগালাজ করেও কলঙ্কিত হয়েছেন ট্রাম্প।
খিটখিটে মেজাজ, ব্যবসার ডলারের গরম আর মানুষের সঙ্গে অমানবিক আচরণের প্রভাব তো কম নেই। তার র‌্যালি-সমাবেশে হামলা-সংঘর্ষ হতাহতের ঘটনাও আছে। স্রেফ অর্থের জোরে অনেকটা উড়ে এসে জুড়ে বসার মতো অবস্থা ট্রাম্পের।
অন্যদিকে, ৩৬ বছর ধরে মার্কিন রাজনীতিতে উল্লেখযোগ্য হয়ে উঠা শান্ত, বিনীয়ী ও কৌশলি যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ফার্স্ট লেডি ও প্রাক্তন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন জনসমথর্ন নিয়ে দাপটের সঙ্গেই মাঠে রয়েছেন। তার সঙ্গে আছে বর্তমান প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার শুভেচ্ছা, আশীর্বাদ, সমর্থন ও নির্বাচনী প্রচারণায় পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি।
নব্বইয়ের দশকে হিলারির স্বামী বিল ক্লিনটন ক্ষমতায় থাকাকালীন দেশটির অর্থনৈতিক অবস্থা চাঙা ছিলো। বেকারত্বের হার কম ছিলো। ওই সময় বিশ্বে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক মর্যাদা বেড়েছে। সেসব অর্জনের কথা মাথায় রেখে ভোটাররা হিলারির পাশে দাঁড়াতে পারেন।
প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন বিল ক্লিনটনের হোয়াইট হাউজের কর্মী মনিকা লিউনস্কির সঙ্গে তার কেলেঙ্কারি হিলারির প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী প্রচারে স্বভাবতই উসকানি দেবেন রিপাবলিকানরা। সেক্ষেত্রে হিলারির জনপ্রিয়তায় ভাটা পড়েনি এবং আগামীতেও পড়বে না বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
মায়ের সঙ্গে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেবেন একমাত্র মেয়ে চেলসি ক্লিনটন। সঙ্গে বাকপটু বিল ক্লিনটন যুক্ত হলে নির্বাচনে আর ঠেকায় কে? বিগত কয়েক মাস ধরে চলা দেশটির বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে অনুষ্ঠিত প্রাইমারিতে ডেমোক্র্যাটিক পার্থিতার দৌড় থেকে ছিটকে পড়েছেন হিলারির একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নি স্যান্ডার্স। তিনি বলেছেন, হিলারির সঙ্গে অনেক বিষয়ে আমি একমত নই, তবে ট্রাম্পকে ঠেকাতে আমরা অবশ্যই এক হয়ে কাজ করবো।'
অর্থাৎ যেভাবেই হোক ট্রাম্পকে ঠেকাও এই নীতি অনুসরণ করেই চলবে ডেমোক্র্যাটদের অ্যাকশন। হিলারির পাশে বন্ধু হয়ে ট্রাম্পবিরোধী সেই অ্যাকশনে শামিল হবেন স্যান্ডার্স।
সব মিলে বলাই যেতে পারে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের স্ত্রী হিলারি ক্লিনটনই হতে যাচ্ছেন আগামীর মার্কিন প্রেসিডেন্ট! তবে নির্বাচনী ডামাডোল এবং ম্যাকানিজমের এই দুনিয়ায় তা নিশ্চিত করে না বলাই ভালো।
সর্বশেষ ওয়াশিংটন ডিসির প্রাইমারিতেও বিজয়ী হয়েছেন হিলারি। এর আগে গত ০৫ জুন পুয়ের্তো রিকোর অঙ্গরাজ্যের অনুষ্ঠিত প্রাইমারিতে বড় জয় পাওয়ার পরই মনোনয়ন নিশ্চিত হওয়ার বিষয়ে খবর প্রকাশ হয়। ওইদিন হিলারি ক্লিনটন মোট ২ হাজার ৩৮৪ ডেলিগেটের সমর্থন পেয়ে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে মনোনীত হয়েছেন।
এরমধ্যে প্লেজড ডেলিগেটের সমর্থন ১ হাজার ৮১২ এবং সুপার ডেলিগেটের সমর্থন রয়েছে ৫৭২। মনোনীত হওয়ার জন্য তার দরকার ছিলো ২ হাজার ৩৮২ ডেলিগেটের সমর্থন। প্রয়োজনের চেয়ে একটি বেশি ডেলিগেটের সমর্থন পেয়ে তার প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে যায়। তবে এখন শুধু আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণার অপেক্ষা।
যুক্তরাষ্ট্রের ২৪০ বছরের ইতিহাসে অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধি হিসেবে হিলারি হচ্ছেন প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট প্রার্থী। সে দিক থেকে আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে এক ঐতিহাসিক নির্বাচন বলেই মনে করা হচ্ছে।
২০০৮ সলে বারাক ওবামার সঙ্গে দলীয় মনোনয়ন পেতে ব্যর্থ হয়েছেন হিলারি। এবার স্যান্ডার্সকে পেছনে ফেলে মনোনয়ন পেয়েছেন নিউইয়র্কের সাবেক এই সিনেটর।

স্কুল জীবনের সাঁতার ও বেসবল প্রতিযোগিতা, স্টুডেন্ট কাউন্সিল, স্কাউটিং, গান গাওয়া আর পরিপক্ক জীবনের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ার, সবকিছু উজার করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট হওয়ার স্বপ্নের হাতছানিতে নিশ্চয়ই হাতছাড়া করতে চাইবেন না ৬৯ বছর বয়সী সাবেক বিশ্বের শীর্ষ ক্ষমতাধর নারী হিলারি ক্লিনটন।

ইউরোতে গ্রুপ তে আজ সুইডেনের মুখোমুখি হচ্ছে ইতালি। ম্যাচ শুরু বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাতটায়। আরেক ম্যাচে রাত দশটায় গ্রুপ ডি তে ক্রোয়েশিয়ার প্রতিপক্ষ চেক রিপাবলিক।


প্রথম ম্যাচে শক্তিশালী বেলজিয়ামকে হারিয়ে বেশ ফুরফুরে মেজাজে আছে ইতালিয়ানরা। দ্বিতীয় ম্যাচে তাদের লক্ষ্য আরেক শক্ত প্রতিপক্ষ সুইডেনকে হারিয়ে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করা। সুইডেনের সঙ্গে মুখোমুখি লড়াইয়ে অনেক এগিয়ে আজ্জুরিরা। ২২ ম্যাচের ১০ টিতেই জিতেছে চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা অন্যদিকে সুইডেন জিতেছে ৬টিতে। এদিকে প্রথম ম্যাচে রিপাবলিক অব আয়ারল্যান্ডের সাথে ড্র করায় কিছুটা চাপে রয়েছে ইব্রাহিমোভিচের সুইডেন। এ ম্যাচে হারলে নক আউটে ওঠার পথ অনেকটাই কঠিন হয়ে যাবে এরিক হ্যামরেনে শিষ্যদের।

বকুল খান,মাদ্রিদ : স্পেনের মাদ্রিদে বিক্রম পুর মুন্সিগঞ্জ সমিতিরআয়োজনে প্রবাসী বাংলাদেশী কমিউনিটিদের নিয়ে  ইফতার ও দোয়া  মাহফিল সম্পন্ন হয়েছে।

মাদ্রিদের বাংলাদেশ মসজিদ ও শাহজালাল ফুলতলি কালচারাল সেন্টার গত ১৫ জুন এক  যুগে অনুষ্ঠিত এ ইফতারে প্রায় সহস্রাধিক মুসল্লিরা এতে অংশ নেন।

পরে এক আলোচনা সভা  গোলাম মোস্তফা জাহাঙ্গীরর সভাপতিত্বে ও মোঃ স্বাধীনের পরিচালনায় এতে বক্তব্য রাখেন, সিনিয়র সহ সভাপতি মিলটন ভুইয়া কচি,সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল কাইউম,শাহ আলম,মোঃ শাহিন,সানি দেওয়ান রাসেল,সুমন নুর,রানা,মুয়াজ্জেম হুসেন,রাজু আহমেদ,আলমগির হুসেন রতন।নিজাম মুন্সি প্রমুখ।এছাড়াও আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে ছিলেন,বাংলাদেশে মসজিদ কমিটির সভাপতি খুরশেদ আলম মজুমদার ও বাংলাদেশে এসোসিয়েশন এর সাধারন সম্পাদক কাম্রুজ্জামান সুন্দর।


 বক্তারা বলেন এ সংগঠন দীর্ঘ দিন থেকে স্পেনে একটি শক্তিশালী বাংলাদেশি কমিউনিটি গঠনে ইতিবাচক ভুমিকা রেখে যাচ্ছে এ ধারা অব্যাহত থাকলে ,আমাদের আগামী প্রজন্ম এদেশের মূলধারার সাথে সম্প্রক্ত হয়ে বাংলাদেশের সুনাম বৃদ্ধি করবে। পরে মুসলিম উম্মার সুখ সমৃদ্ধি ও শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

ঢাকা: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে দায়ের করা মামলায় চিত্রনায়িকা শারমিন আক্তার নিপার (মাহিয়া মাহি) প্রথম স্বামী শাহরিয়ার ইসলাম শাওনকে জামিন দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল।বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক কে এম সামছুল আলম এক লক্ষ টাকা মুচলেখায় তার জামিন মঞ্জুর করেন।

এ দিন ট্রাইব্যুনালে শাওনের জামিন আবেদন করেন তার আইনজীবী বেলাল হোসেন।জামিন শুনানিতে তিনি বলেন,মাহির সাথে শাওনের এক বছর আগে বিয়ে হয়। মাহি তার বিয়ের তথ্য গোপন করে অন্যত্র বিয়ে করেন। এতে তিনি আইনগত অপরাধ করেছেন।আইনজীবী আরো বলেন,এসব চিত্রনায়িকার এক বা একাধিক বিয়ে হওয়া অস্বাভাবিক নয়। মাহি তার প্রথম স্বামীকে তালাক না দিয়ে অন্যত্র বিয়ে করে আইনগত অপরাধ করেছেন। তাই সবদিকে বিবেচনা করে শাওনকে জামিন দেওয়া হোক।
গত ২৮ মে শাওনকে গ্রেফতার করে আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করলে আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। ৩১ মে দুই দিনের রিমান্ড শেষে তাকে আদালতে হাজির করে ফের রিমান্ড আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক সোহরাব মিয়া। আদালত তার রিমান্ড নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়,গত ২৭ মে চিত্রনায়িকা মহিয়া মাহি রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় হাজির হয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে শাহরিয়ার ইসলাম শাওনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। তিনি মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন,আমার পূর্ব পরিচিত (বন্ধু)শাহরিয়ার ইসলাম শাওন তার কাছে থাকা আমাদের কিছু অন্তরঙ্গ স্থিরচিত্র কয়েকটি আনলাইন ও ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছেন। এ বিষয় তার সাথে তার বন্ধু হাসান,আল আমিন,খালাতো ভাই রেজওয়ান জড়িত রয়েছে বলে আমার ধারণা। গত ২৫ মে আমার অন্যত্র বিবাহ হয়। আমাদের দাম্পত্য সম্পর্ক নষ্ট করার জন্য এবং সামাজিকভাবে হেয় করার জন্য এ সব কাজ করেছেন শাওন।

অনলাইন ডেস্ক: লিবিয়ায় গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণে অগ্নিদগ্ধ হয়ে তিন বাংলাদেশি শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে । এ সময় আরো দুইজন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন।

গত ১৫ই জুন রাতে আল জাওয়াইয়া শহরের অদূরে মুত্রুত এলাকায় এ ঘটনা ঘটে ।
জানা গেছে, ওই শ্রমিকরা ইফতার তৈরির জন্য গ্যাসের চুলা জ্বালানোর চেষ্টা করা মাত্র সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ঘটে এবং মুহূর্তের মধ্যে রুমে  আগুন ছড়িয়ে পড়ে । এতে রুমে থাকা পিরোজপুর জেলার মটবাড়িয়া ভিটাখালী ইউনিয়নের বেলাল হোসেন, একই এলাকার চুন্নু মিয়া, মোস্তফা , দুলাল ও হানিফের শরীর আগুনে ঝলসে যায়। পরে স্থানীয় অন্যান্য শ্রমিকরা এসে তাদের উদ্ধার করে আল- জাওয়াইয়া সেন্টাল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে রোগীদের অবস্থার অবনতি হলে দ্রুত ত্রিপলী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মোস্তফা, বেলাল হোসেন ও হানিফ মারা যান । অপর দুইজনের অবস্থাও আশঙ্কজনক।

ঢাকা: আওয়ামী লীগও জাতীয় ঐক্য চায় বলে জানিয়েছেন দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির উদ্যোগে ইফতার মাহফিল ও আলোচনা সভায় এ কথা বলেন হানিফ। জঙ্গি দমন ও গুপ্তহত্যা বন্ধে বিএনপিসহ অন্যান্য দলগুলোর জাতীয় ঐক্যের আহ্বানের পরিপ্রেক্ষিতে হানিফ বলেন, জাতীয় ঐক্য আমরাও চাই। কাদের সঙ্গে? কী ঐক্য করব? যারা ঐক্যের কথা বলছেন তারাই তো এ সব গুপ্তহত্যার সঙ্গে জড়িত। গুপ্তহত্যা কারা করছে সবাই তা জানে।
বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির চেয়ারম্যান মাওলানা মো. ইসমাইল হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন, আমিনুল ইসলাম আমিন ও বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির মহাসচিব মাওলানা মুফতি তাজুল ইসলাম ফারুকী প্রমুখ।

ঢাকা : দেশে আইন বহির্ভূতভাবে গণগ্রেফতার চলছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শুক্রবার রাজধানীর বারিধারায় জমিয়তে উলামায়ে বাংলাদেশ আয়োজিত ইফতার মাহফিলে ফখরুল এ অভিযোগ করেন। ফখরুল বলেন, হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করে সারা দেশে ১২ হাজারের বেশি মানুষকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। কয়েকদিন হাইকোর্ট একটি রায় দিয়েছিলেন যে বিনা পরোয়ানায় কাউকে গ্রেপ্তার করা যাবে না। অথচ তারা এই ১২ হাজার মানুষকে গ্রেপ্তার করেছে সম্পূর্ণ বিনা পরোয়ানা। এর মধ্যে তাদের ভাষায় ১৩৫ জন জঙ্গি খুঁজে পেয়েছে। ১২ হাজার মানুষ কারা? তারা ধর্মপ্রাণ মানুষ, ইমান-আকিদায় বিশ্বাস করে। সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে পরিচালিত হচ্ছে তাদের বিশেষ অভিযান।
তিনি বলেন, দেশে বর্তমান শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি বিরাজমান। একের পর এক গুপ্তহত্যার ঘটনা ঘটলেও পুলিশ এসব ঘটনায় জড়িত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।
তিনি আরও বলেন, জঙ্গি দমনের নামে পুলিশ বিনা পরোয়ানায় বেছে বেছে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গণগ্রেপ্তার করছে। দেশে আইনের শাসন ফিরিয়ে আনতে দেশপ্রেমিক সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।

ঢাকা: গণগ্রেপ্তারের অভিযোগের মধ্যেই শেষ হলো পুলিশে সপ্তাহব্যাপী সাঁড়াশি অভিযান। এ অভিযানে  মোট ১৪৫৫২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আগাম ঘোষণা দিয়ে ১০ জুন থেকে দেশজুড়ে সপ্তাহব্যাপী জঙ্গিবিরোধী সাঁড়াশি অভিযান শুরু হয় আর তা শেষ হয় আজ শুক্রবার ভোরে।

অভিযানে শেষ পর্যন্ত কত গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা নিয়ে পুলিশ গত দুদিন আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো তথ্য দেয়নি। তবে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের জনসংযোগ কর্মকর্তা কামরুল আহছান লস এঞ্জেলেস টাইমসকে জানান, অভিযানে ১৪৫৫২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
পুলিশের দাবি, তাদের মধ্যে ১৭৬ জন সন্দেহভাজন জঙ্গি। এবারের অভিযানে দুর্র্ধর্ষ কোনো জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। এমনকি গত ১৮ মাসে উগ্রপন্থীদের ৪৭টি হামলায় যে ৪৯ জন নিহত হয়েছেন, তাতে জড়িত কাউকে গ্রেপ্তারের কথাও পুলিশ জানাতে পারেনি।
ফলে এবারের
জঙ্গিবিরোধী সাঁড়াশি অভিযান নিয়ে নানা প্রশ্ন ওঠেছে। প্রথমত, আগাম ঘোষণা নিয়ে এমন প্রক্রিয়ায় জঙ্গিবিরোধী অভিযানের নজির নেই বললেই চলে। দ্বিতীয়ত, জঙ্গিবিরোধী অভিযানে গিয়ে অন্যান্য মামলায় ১২ সহস্রাধিক ব্যক্তিকে  নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। অভিযোগ আছে, অনেক এলাকা থেকে যাদের করা হয়েছে, তাদের সবাইকে আদালতে হাজির করা হয়নি। অনেকে থানা বা পুলিশের হেফাজত থেকে টাকার বিনিময়ে উধাও হয়ে গেছে। এমনকি অনেককে কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ বা মামলা ছাড়াই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঈদের আগে সাঁড়াশি অভিযানে কোনো কোনো পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে বাণিজ্য করার অভিযোগও উঠেছে। অভিযোগ উঠেছে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অমান্য করেই এবারের অভিযানে ৫৪ ধারার লাগামহীন প্রয়োগ ঘটেছে। তবে গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে ৬০২৬ জনই পরোয়ানাভুক্ত আসামি। এ ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, দীর্ঘদিন ধরে অনেক ওয়ারেন্ট তামিল হয়নি। অভিযানে অনেক ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি, সন্ত্রাসী, মলম ও অজ্ঞান পার্টির সদস্য গ্রেপ্তার  হয়েছে। তাই গ্রেপ্তারের সংখ্যাটি বড় দেখায়। তর দাবি, অভিযানে ৭৫ ভাগ সফলতা এসেছে। ছোটখাটো যেসব অভিযোগ এসেছে, তা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক নূর খান লিটন বলেন, এবারের অপারেশনে ১৩ হাজারের ওপরে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তার মধ্যে জঙ্গি সন্দেহে আনুমানিক দুশ মানুষকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এত বড় একটা সংখ্যার বিপরীতে যখন দুশ মানুষ গ্রেপ্তার হয় জঙ্গি সন্দেহে, তখন আমাদের মনে সন্দেহ জাগে যে তাহলে এই অপারেশনের মূল উদ্দেশ্য কী ছিল? এদিকে দেশব্যাপী বিশেষ অভিযানের মধ্যেই জঙ্গি কায়দায় দুটি হামলারও ঘটনা ঘটেছে। এতে একজন নিহত এবং একজন আহত হয়েছেন।
এ ব্যাপারে পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি এ কে এম শহিদুর রহমান বলেন, সপ্তাহব্যাপী জঙ্গিবিরোধী অভিযানে পুলিশের অনেক সফলতা রয়েছে। জঙ্গি গ্রেপ্তারের পাশাপাশি উগ্রপন্থীদের মধ্যে ভীতিও তৈরি হয়েছে। তবে আপাতত এ অভিযানের মেয়াদ আর বাড়ছে বলে মনে হয় না।
গত ৫ জুন চট্টগ্রামে খুন হন পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। এর পর গত বৃহস্পতিবার পুলিশ সদর দপ্তরে চলমান পরিস্থিতি নিয়ে পুলিশ মহাপরিদর্শক একেএম শহীদুল হকের নেতৃত্বে সভা হয়। সেখান থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বলা হয়, শুক্রবার থেকে দেশব্যাপী জঙ্গিবিরোধী অভিযান শুরু হবে। তবে বাবুল আক্তারের স্ত্রীকে হত্যার পর থেকে দেশে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে
বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন ১৩ জন। তাদের মধ্যে সন্দেহভাজন জঙ্গি নিহত হয়েছেন পাঁচজন। বাকিরা ছিনতাইসহ অন্যান্য সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত বলে দাবি করছে পুলিশ।
জঙ্গিবিরোধী অভিযান সম্পর্কে জানতে গত বুধবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেনস ব্লুম বার্নিকাট।
এত বেশি সংখ্যক গ্রেপ্তার  নিয়েও প্রশ্ন ছিল তার।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাকে জানিয়েছেন, বাংলাদেশে ৬৩০টি থানা রয়েছে। প্রতিটি থানায় যদি গড়ে ২০ জনও  হয়, তাহলে সংখ্যা অনেক বেশি হয়।
এদিকে গণগ্রেপ্তারের অভিযোগের পর গত বুধবার থেকে পুলিশ সদর দপ্তর সারাদেশে মোট গ্রেপ্তারের সংখ্যা তাদের বিজ্ঞপ্তিতে জানাচ্ছে না। কেবল জঙ্গি সন্দেহে কৃতদের সংখ্যা প্রকাশ করছে। জঙ্গিবিরোধী অভিযানের ষষ্ঠ দিনে গতকাল ১০ সন্দেহভাজন জঙ্গিকে  করা হয়েছে।

বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামী শুরু থেকে দাবি করছে, বিরোধী দলকে দমন-নিপীড়ন করতে এ অভিযান চালানো হয়। ঈদের আগে পুলিশকে বাণিজ্য করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। তবে পুলিশ এ ধরনের অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করছে।

জনপ্রিয় অনলাইন : অনেক সময় মেয়েদের অতিরিক্ত সাদা স্রাব ক্ষরণ হয়। এটি যেকোনো বয়সেই হতে পারে। অনেকে এটাকে লিউকোরিয়া বলে থাকেন।

কোনো কোনো সময় বেশি স্রাব গিয়ে মেয়েদের অস্বস্তিকর অবস্থায় ফেলে দেয়। স্বাভাবিক নিয়মে কিছুটা স্রাব যেতেই পারে; কিন্তু সেটা যদি হয় দুর্গন্ধযুক্ত, সাথে থাকে মাসিকের পথে অথবা আশপাশে অস্বাভাবিক চুলকানি কিংবা মাত্রাতিরিক্ত সাদা স্রাব তখন আপনাকে নজরে আনতেই হবে। আপনি একজন গাইনি চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করবেন। স্রাবের জন্য যদি আপনার কাপড় নষ্ট হয় কিংবা আপনার প্যাড নিতে হয় সেটা আপনার শরীরের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। আর সাথে দুর্গন্ধ যেটা সেটা কয়েক রকম ইনফেকশানের জন্যও হতে পারে। এ রকম স্রাবের কিছু কারণও আছে। ভ্যাজাইনাল ট্রাইকোমোনাস, ভ্যাজাইনাল ক্যানডিডিয়াসিস কিংবা ব্যাকটেরিয়াল ভ্যাজাইনোসিসের জন্যও এ রকম সমস্যা হতে পারে। একটু বয়স্কাদের ক্ষেত্রে জরাযুর মুখ কিংবা জরাযুর ক্যান্সার (Cervical Cancer, Endomet) ইত্যাদি কারণের জন্যও স্রাব দুর্গন্ধযুক্ত হতে পারে। এ জন্য বলছি, কারণ যেটাই থাকুক না কেন সেটা সঠিকভাবে শনাক্ত করা এবং সেটার সঠিক চিকিৎসার জন্য আপনাকে ডাক্তারের কাছে যেতেই হবে। অনেকের আবার বারবার এ ধরনের সমস্যা হওয়ার কথা বলে থাকেন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে চিকিৎসাব্যবস্থা স্বামীকেও নিতে হয়। সে ক্ষেত্রে কেন স্বামীকে চিকিৎসা নিতে হয় চিকিৎসক বুঝিয়ে বলবেন। তরুণীদের ক্ষেত্রে এ ধরনের সমস্যা ভবিষ্যৎ গর্ভধারণের ক্ষেত্রে সমস্যার সৃষ্টি করে বন্ধ্যত্ব পর্যন্ত করে দিতে পারে। এ রকম ইনফেকশন যেটাকে বলে পিআইডি (পেলভিক ইনফ্লামেটরি ডিজিজ)। এ জাতীয় সমস্যা হলে অবশ্যই চিকিৎসা নিতে হবে। পিআইডির ক্ষেত্রে দুর্গন্ধযুক্ত স্রাবসহ তলপেটে ব্যথা হয়ে থাকে, কোনো কোনো ক্ষেত্রে তলপেটের ব্যথা কিছুটা কম মাত্রায় হওয়াতে অনেকে এটাকে আমলে নেন না; কিন্তু এ ধরনের ইনফেকশন হলে চিকিৎসা নিতেই হবে। অনেকের এই সমস্যার সাথে মাসিকের সময় প্রচণ্ড তলপেটে ব্যথাও হয়ে থাকে। সেই সাথে থাকে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ কিংবা মাঝে মধ্যে অনিয়মিত কমবেশি রক্তক্ষরণের সমস্যা। অনেক সময় এসব সমস্যার সাথে সাথে জ্বরও আসতে পারে। অনেকের আবার প্রস্রাবে সমস্যা যেমন প্রস্রাব করার সময় জ্বালাপোড়ার কথা বলে থাকেন। দুর্বলভাবও লাগতে পারে। অনেকে আবার স্বামীর সাথে মেলামেশার সময়ও ব্যথা অনুভব করেন। এসব সমস্যার প্রত্যেকটি যে একই রোগীর থাকবে এমনটি কিন্তু নয়। দু-একটি উপসর্গ দেখা দিলেই আপনি চিকিৎসকের কাছে যাবেন। আজকাল প্রেগন্যান্সি বা গর্ভধারণে জটিলতা সৃষ্টির একটি অন্যতম কারণ যুবতীদের এ ধরনের ইনফেকশন, যে ক্ষেত্রে চিকিৎসা নেয়া হয়নি। কারণ পিআইডি যখন ডিম্বনালীতে (ঋধষষড়ঢ়রধহ ঃঁনব) ছড়িয়ে পড়ে তখন নালীটির মাধ্যমে স্বাভাকি শুক্রাণু চলাচলের ক্ষমতা অনেক ক্ষেত্রেই নষ্ট করে দেয়। পরে দেখা যায় বন্ধ্যত্ব (ঝঁনভবৎঃরষরঃু), কাজেই এসব ক্ষেত্রে সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। এ ছাড়া নিজেকেও সব সময় পরিছন্ন রাখতে হবে। মাসিকের সময় স্যানিটারি প্যাড ব্যবহার করা উত্তম। মোটকথা আপনার সচেতনতা, উপযুক্ত সময়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া এবং সেই অনুযায়ী নিয়ম-কানুন মেনে উপযুক্ত চিকিৎসা আপনাকে অনেক ঝুঁকি থেকে রক্ষা করতে পারে।
লেখিকা : সহকারী অধ্যাপিকা, গাইনি, পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার লি:, শান্তিনগর, ঢাকা

অনলাইন : গুলি ও ছুরিকাঘাতে লেবার পার্টির এমপি জো কক্স নিহত হবার পর ইউরোপীয় ইউনিয়নে ব্রিটেনের থাক না থাকা নিয়ে আসন্ন গণভোটের প্রচারণা স্থগিত করা হয়েছে। এদিকে ঘটনা তদন্তের কাজ শুরু করেছে পুলিশ।

শোক প্রকাশ করছেন যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানিসহ বিশ্ব নেতৃবৃন্দ। লেবার পার্টির সংসদ সদস্য জো কক্সকে গুলি করে ও ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়েছে। গত পঁচিশ বছরের মধ্যে জো কক্সই প্রথম কোনো এমপি যাকে হত্যা করা হলো।

এর আগে ১৯৯০ সালে পদে আসীন অবস্থায় আইরিশ রিপাবলিকানদের হামলায় কনজারভেটিভ একজন সংসদ সদস্য মারা গিয়েছিলেন। জো কক্স নিজের নির্বাচনী এলাকা ওয়েস্ট ইয়র্কশায়ারের ব্রিস্টলে একটি লাইব্রেরির সামনে যখন বৈঠক করছিলেন জো কক্স, তখন সেখানেই গুলি ও ছুরিকাঘাতের শিকার হন তিনি। এই ঘটনায় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন, লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন ও অন্যান্য রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ শোক জানিয়েছেন। 

অনলাইন ডেস্ক : আজ বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকা সেনানিবাসের কোনো মসজিদ থেকে মাগরিবের আজান শোনা যায়নি। এতে করে এলাকাবাসী অনেকেই ইফতারের সময় দুঃচিন্তায় পড়ে যায়। জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইফতার উপলক্ষে ঢাকা সেনানিবাসে আসেন সন্ধ্যায়।

এই উপলক্ষে সেনানিবাসের সমল মসজিদের মাইকে মাগরিবের আজান দেয়া নিষিদ্ধ করে ক্যান্টনমেন্ট কতৃপক্ষ। আরও খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তার অযুহাতে এই নিষেধাজ্ঞা জারী করা হয়। আজানের সময় গোলাগুলি হলে নাকি শোনা যাবে না, নিরাপত্তাবাহিনী এসএসএফের যুক্তি এমন। উল্লেখ্য আজ সন্ধ্যায় ঢাকা সেনানিবাসের সেনামালঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে সশস্ত্র বাহিনীর সম্মিলিত ইফতার। ইফতারে অন্যান্যের মধ্যে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত ও জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, সরকারের মন্ত্রীবর্গ, তিন বাহিনী প্রধানগন, কূটনৈতিক কোরের ডীন, সরকারের উর্ধন বেসামরিক কর্মকর্তাগন, ও সশস্ত্র বাহিনীর সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা ও সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। তবে রাষ্ট্র কতৃক এভাবে আজানের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপে ইফতারে আগত অনেক মুসল্লি, এমনকি সামরিক বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে ক্ষোভের কথা শোনা গেছে। বিশেষ করে পথচারী ও সড়কে চলমান মানুষেরা আজানের আওয়াজ না পেয়ে ইফতার করতে বিলম্ব করেন। অনেকে ক্ষেভের সাথে প্রশ্ন করেন, ৯০ ভাগ মুসলমানের দেশে অতীতে যা কখনও ঘটেননি এটাও কি সম্ভব? এটা কি ইসরাইল? ইসরাইলে মাইকে আজান নিষিদ্ধ। তবে হয়রানির ভয়ে দেশের সংবাদ মাধ্যম ও নিউজ পোর্টাল এ সংক্রান্ত সংবাদ পরিবেশন করতে সাহস করেনি।

ঢাকা: ঈদ মানেই শাকিবময় প্রেক্ষাগৃহ। এমন ধারণা থেকে যারা এই নায়ককে নিয়ে ছবি বানান, সবারই আশা থাকে তার ছবিটি ঈদের সময় মুক্তি দেয়া হোক। সেই কারণেই হয় তো, যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত শিকারিসহ ঈদে শাকিব খান অভিনীত আরও তিনটি ছবি মুক্তি দৌড়ে রয়েছে। চলচ্চিত্রগুলো হল, মোস্তফা কামাল রাজ পরিচালিত সম্রাট, শামিম আহমেদ রনি পরিচালিত মেন্টাল নাম বদলে এখন রানা পাগলা

অন্যদিকে যৌথ প্রযোজনার আরেক ছবি বাদশাও ঈদে বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহের দখল নিতে চায়। কিন্তু স্বয়ং শাকিব খান চান না একসঙ্গে তিনটি ছবি মুক্তি পাক। তার কথায় যুক্তি আছে, এত কম প্রেক্ষাগৃহে একসঙ্গে এত ছবি চালালে বিনিয়োগ উঠবে না।
তাহলে কলকাতার নায়ক জিৎকে মোকাবেলা করবেন
সম্রাট শিকারি দিয়ে? কিন্তু সমালোচকরা বলছে ভিন্ন কথা, তাদের মতে শেষ পর্যন্ত মুক্তির দৌড় থেকে ছিটকে পড়বে সম্রাট। তার মানে যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত দুই ছবি শিকারি বাদশার দখলে থাকবে প্রেক্ষাগৃহ। তাহলে যে শাকিব চলচ্চিত্রে ভিনদেশি আগ্রাসন প্রতিরোধের জন্য কাফনে কাপড় গায়ে জড়িয়েছিলেন, তিনি এখন কার পক্ষে
ভারতীয় ছবি আমদানির বিরুদ্ধে শুরু থেকেই মাঠে ছিলেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি ও চিত্রনায়ক শাকিব খান। যার ফল স্বরূপ কয়েকটি হিন্দি ও ভারতীয় বাংলা ছবি আমদানি করা হলেও, তা সফলতার মুখ দেখেনি। কিন্তু কয়েকদিন যেতে না যেতেই, পাল্টে যায় চিত্র। যৌথ প্রযোজনার দোহাই দিয়ে নাম মাত্র বাংলাদেশের কলাকুশলী নিয়ে নির্মিত হতে থাকে একের পর এক ছবি। শুরু থেকেই দেশিয় চলচ্চিত্র নির্মাতাদের বিরাট একটি অংশ এ উদ্যোগকে যৌথ প্রতারণা দাবি করে বিরোধিতা করলেও, তা কাজে আসেনি। 
ফলাফল হিসেবে দেশের শীর্ষ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়াও এ পথে পা বাড়ায়। সম্প্রতি তাদের সে যাত্রায় সঙ্গী হন শাকিব খানও। নির্মিত হয় যৌথ প্রযোজনার ছবি শিকারি। এ পর্যন্ত সবকিছু নীরবে হলেও, ছবিটির মুক্তি দেয়া দিয়ে শুরু হয়েছে তুঘলকি কাণ্ড।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আসছে ঈদে প্রথমবারের মতো যৌথ প্রযোজনা নির্মিত ছবির মুখোমুখি হতে চলেছে দেশিয় চলচ্চিত্র। যদিও মুক্তির দৌড়ে চারটি ছবির মধ্যে তিনটিই শাকিব খানের। যার মধ্যেশিকারি বাদশা ব্যতিত বাকি দুটি দেশিয় চলচ্চিত্র। 
ঈদের চলচ্চিত্রের লড়াই এবার যৌথ প্রযোজনা বনাম দেশিয় চলচ্চিত্র।
কিন্তু গণ্ডগোলটা লাগলো মেন্টাল ছবির নাম পরিবর্তন করে সেন্সর লাভ করার পর। নতুন নাম রানা পাগলা মেনে নিতে পারছেন না ছবির নায়ক শাকিব খান। কারণ ব্যক্তি জীবনে তার প্রকৃত নাম মাসুদ রানা। ছবিটিতেও নাম তার রানা। চরিত্রের নাম নিয়ে আপত্তি না থাকলেও ছবির নাম নিয়ে শাকিবের বক্তব্য, ছবির এ ধরনের নাম (রানা পাগলা) আমার ব্যক্তি ইমেজের জন্য ক্ষতিকর। ছবিটির নামের সূত্র ধরে মানুষ আমাকে নিয়ে হাসি-ঠাট্টাও করতে পারেন। তাই আমি এই নাম নিয়ে জোর আপত্তি জানিয়েছি।
এদিকে সেন্সর বোর্ড শাকিবের আপত্তিকে আমলে না নেয়ায়, তথ্য মন্ত্রণালয়ের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। বৃহস্পতিবার সকালে এ বিষয়ে একটি চিঠিও মন্ত্রী বরাবর পাঠিয়েছেন। 
তবে ছবির প্রযোজক পারভেজ চৌধুরী বলছেন ভিন্ন কথা। তিনিও চেয়েছিলেন মেন্টাল নামটি রাখতে।  ছবিতে বাংলা নাম বাধ্যতামূলক করার কারণেই নাম পাল্টে রানা পাগলা রেখেছেন। কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বাংলানাম বাধ্যতা মূলক করার আগেই ছবিটির নাম এফডিসিতে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। তাহলে কেন এমন নাম রাখলেন? সে তথ্য খোঁজ করতে গিয়েই বেরিয়ে এসেছে নতুন খবর। 
তা হলো, ঈদের ছবির দৌড়ে মেন্টাল যুক্ত হোক তা শাকিব চাননি। এ কারণে অনেকটা গোপনেই ছবিটির সেন্সর করাতে চেয়েছিলেন প্রযোজক। কিন্তু ইংরেজি নাম নিয়ে যদি সেন্সরে ঝামেলা হয়, এ কারণে নাম নতুন করে রেজিস্ট্রেশন করে জমা দেন। যা শাকিবের অজান্তেই হয়েছে। তারপর ঈদে ছবিটি মুক্তির ঘোষণা দিলে শাকিব নাম নিয়ে প্রশ্ন তুলেন।  
শুধু কী তাই একই সঙ্গে তিন ছবি মুক্তি পাক শাকিব তাও চান না। তার মতে, প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যা আগের চেয়ে কমে গেছে। তাই এত কম প্রেক্ষাগৃহে একসঙ্গে এত ছবি চালালে বিনিয়োগ উঠবে না। 
শাকিবের কথায় যুক্তি থাকলেও সমালোচকদের মতে, ঈদে শাকিব খান অভিনীত ছবিগুলোর মধ্যে মুক্তির দৌড়ে এগিয়ে রয়েছে যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত শিকারি 
অন্যদিকে দেশিয় ছবি সম্রাট ঈদে মুক্তির কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত আলোর মুখ দেখে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। কারণ সবার আগে ঈদে ছবিটি মুক্তির ঘোষণা দেয়া হলেও, হঠাৎ করেই প্রচার প্রচারণায় ভাটা দেখা যাচ্ছে। 
সবশেষে, শাকিবের নাম পাল্টে ঈদের ছবি হিসেবে মুক্তির দৌড়ে শামিল হয়েছে রানা পাগলা। কিন্তু নাম নিয়ে আপত্তি থাকায় শেষ পর্যন্ত এ ছবিটিও মুক্তির স্বাদ নিতে পারবে কিনা কিংবা মুক্তি পেলেও কয়টি প্রেক্ষাগৃহ দখল করতে পারবে তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়। অথচ সম্রাট রানা পাগলা দুটোই সম্পূর্ণ দেশিয় চলচ্চিত্র। যার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে এখানকার কলাকুশলীদের ঘাম। 

অন্যদিকে শিকারি নামে যৌথ প্রযোজনার ছবি হলেও, আদতে ভারতীয় বাংলা ছবি বলেই মানছেন সমালোচকরা। 

অনলাইন : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন ব্যানকন-৭ (ইউনিফিল) এ যোগ দিতে লেবানন গেছেন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ১৩৫ জন সদস্য। গত ১৬ জুন রাত ১০টায় চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে জাতিসংঘের বিশেষ বিমানে তারা চট্টগ্রাম ত্যাগ করেন।


বিমানবন্দরে চট্টগ্রাম নৌ অঞ্চলের চিফ স্টাফ অফিসার ক্যাপ্টেন একেএমএম শেরাফুল্লাহ নৌ সদস্যদের বিদায় জানান। এসময় নৌবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বিমানবন্দরে কন্টিনজেন্ট কমান্ডার (ব্যানকন-৭) ক্যাপ্টেন মির্জা মামুনুর রশিদ সাংবাদিকদের বলেন, ভূমধ্যসাগরে বিগত ছয় বছর বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ছয়টি টিম সাফল্যের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছে। আমরা সপ্তম টিম। তিনি বলেন, ভূমধ্যসাগরে বিশ্বের ছয়টি দেশের সাতটি রণতরী আছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের দুটি রণতরী সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে।তিনি সফলভাবে মিশন সম্পন্ন করার জন্যে দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।২২ জুন আরও ১৩৫ জন নৌ সদস্য লেবাননের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম ত্যাগ করার কথা রয়েছে।নৌবাহিনীর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় ২০১০ সালে নৌবাহিনীর দুটি যুদ্ধজাহাজ ওসমান ও মধুমতি প্রথমবারের মতো লেবাননে শান্তিরক্ষা মিশনে যোগ দেয়। চার বছর সফলভাবে দায়িত্ব পালনের পর জাহাজ দুটি দেশে ফিরে আসে।এরপর বিএনএস আলী হায়দার ও নির্মূল জাহাজ দুটি লেবাননে তাদের স্থলাভিষিক্ত হয়। জাহাজ দুটি লেবাননের ভূখণ্ডে অবৈধ অস্ত্র এবং গোলাবারুদ প্রবেশ বন্ধে কাজ করছে। এছাড়া লেবাননের জলসীমায় গোয়েন্দা নজরদারি এবং সেদেশের নৌবাহিনীর সদস্যদের প্রশিক্ষণের কাজও করছে মিশনে থাকা বাংলাদেশি নৌ সেনারা। লেবাননে শান্তিরক্ষা মিশনে যুদ্ধজাহাজ নিয়ে নৌবাহিনীর সদস্যদের যোগ দেয়ার মধ্য দিয়ে বিশ্ব পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জল হবে বলে মনে করছেন দেশের অন্যতম ‍গুরুত্বপূর্ণ এই প্রতিরক্ষ‍া ‍বাহিনীর কর্মকর্তারা।

অনলাইন ডেস্ক : দেশে যখন জাসকে নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যে ঝড় উঠেছে ঠিক তখন দলটির অবস্থান পরিস্কার করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও ১৪-দলীয় জোটের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম।

তিনি বলেছেন, ১৪ দলের মূল নেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি ১৪ দলের ঐক্যের প্রতীক। তাঁর অনুপ্রেরণায় ১৪ দল গঠিত হয়েছে। ১৪ দল আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন আদর্শিক জোট। শুধু ক্ষমতা ভাগাভাগি, নির্বাচনের জন্য নয়আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে এই ১৪ দল গঠিত হয়েছে। ১৪ দল আছে, থাকবে। যত দিন আমাদের লক্ষ্য অর্জন না হয়, তত দিন থাকবে।
নাসিম বলেন, ১৪ দল আরও সম্প্রসারিত হবে, ঐক্যও সম্প্রসারিত হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। তা না হলে অশুভ শক্তি অনৈক্যের ফাটল দিয়ে ঢুকে আমাদের ছুরিকাহত করবে।
আজ বুধবার সকালে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের যৌথ সভায় নাসিম এসব কথা বলেন। ১৯ জুন বেলা তিনটা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত মানববন্ধন কর্মসূচি সফল করতে এই যৌথ সভা করা হয়।
তিনি বলেন,প্রধানমন্ত্রী আমাকে বলেছেন, ১৪ দলকে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে নিয়ে যান। প্রয়োজনে ১৪ দল আরও সম্প্রসারিত হবে, ঐক্যও সম্প্রসারিত হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে যেতে হবে। তা না হলে ওই অশুভ শক্তি অনৈক্যের ফাটল দিয়ে ঢুকে আমাদের ছুরিকাহত করবে। ৭৫ সালের ভুলে গেলে চলবে না। এটা মনে রেখে আমাদের কাজ করতে হবে।
যৌথ সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ ছাত্রলীগের কর্মশালায় সৈয়দ আশরাফের দেওয়া বক্তব্যের বিষয়ে বলেন,ছাত্রলীগের অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ সম্পর্কে জ্ঞানদান করার জন্য নানা কর্মশালা করা হয়। হয়তো সেই প্রেক্ষাপটে অতীতের একটি ইতিহাস সম্পর্কে সৈয়দ আশরাফ সাহেব একটা কথা বলেছেন।
কিন্তু এর মানে এই নয় যে আমাদের ১৪ দলের মধ্যে কোনো অনৈক্য সৃষ্টি হয়েছে। আমরা সব অতীতকে জেনেই ঐক্য করেছি। আমরা পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিতে চাই, ১৪ দলের মধ্যে কোনো বিভ্রান্তি নেই। ১৪ দল ঐক্যবদ্ধ আছে, ঐক্যবদ্ধভাবেই শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশকে জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদমুক্ত করার জন্য ভূমিকা রাখবে।এই বক্তব্য নিয়ে কারওর উসকানিতে কোনো লাভ হবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদের সভাপতিত্বে যৌথ সভায় আরও বক্তব্য দেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান, আওয়ামী লীগ নেতা এস এম কামাল হোসেন প্রমুখ।

অনলাইন  ডেস্ক : মরণব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত বিয়ানীবাজার উপজেলার মুড়িয়া ইউপির সারপার গ্রামের মো. রুকুনুজ্জামানকে আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেছে উপজেলার মুড়িয়ার সীমান্তবর্তী নওয়াগ্রামবাসি।

গত ১৩ই জুন দুপুরে নওয়াগ্রামবাসির পক্ষ থেকে যমুনা ব্যাকের মাধ্যমে রুকুনুজ্জামানের সুস্থতার জন্য এক লক্ষ সাত হাজার দুইশত সাত (১,০৭,২০৭) টাকা প্রদান করে।উল্ল্যোখ, বিগত তিন মাসের ও বেশী সময় ধরে মরণব্যাধি ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হন বিয়ানীবাজার উপজেলার মুড়িয়া ইউনিয়নের পুর্ব মুড়িয়া সারপার গ্রামের হাফিজ শামছুল হক  (ডোগা হাফিজ)ও হালিমা খানমের কনিষ্ট পুত্র সিলেট এম.সি কলেজের অনার্স শেষ বর্ষের মেধাবী ছাএ মোঃ রোকনুজ্জামান ।  ডাক্তারের পরামর্শ মতে তার উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বিদেশে  নিয়ে ব্লাড সঞ্চালনের জন্য প্রায় ৫০ লক্ষ টাকার ব্যয়-বহুল  অপারেশন প্রয়োজন। সন্তান ও বিপদগ্রস্ত অসুহায় পরিবারের পাশে মানবতার কল্যাণে সমাজের সর্বস্তরের জনসাধারণের কাছে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য আহবান জানিয়েছেন সারপার যুব সংঘ।
বিদ্র: রোকনুজ্জামান কে সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা ১) যৌথ একাউন্ট,  হালিমা খানম- শাহিন আহমদ) সঞ্চয়ী হিসাব নং- ০০০৭০৩১০০৫৩৯০৫যমুনা ব্যাংক লিঃ বিয়ানীবাজার, সিলেট।
২) বিকাশ নং- ০১৭২৪ - ৯৬৮৩১৩ শাহরিয়ার হোসাইন নাজমুল । প্রয়োজনে,  (০১৭৬০-৯১০৯১৫ মারুফ) (০১৮৬২-৯৭৫৬৫৮শাহিন)(০১৭৮১-৬০৬৫৮৪ সাহেদ)

সেলিম আলম,মাদ্রিদ: স্পেনের মাদ্রিদে বসবাসরত বিক্রমপুর মুন্সীগঞ্জ বাসী মাহে রমজান উপলক্ষে এক আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত হয়েছে ।

গত ১৩ জুন মাদ্রিস্হ  বাংলাদেশ মসজিদ বায়তুল মোকাররামে এ অনুষ্টান অনুষ্টিত হয়। সংগঠনের এ কে জহিরুল ইসলাম,যুবরাজের তত্বাবদানে এবং মামুন হাওলাদার এর পরিচালনায় ইফতার পার্টিতে মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষাকরে মানুষের কাছে হেকমতের সহিত ইসলাম কে উপস্থাপনার গুরুত্ব আরোপ করা হয় ।


আলোচনা সভায় রাখেন সামসু মিয়া,মিন্টু ,পিয়ার হুসেন,আলমগীর ,হিরক প্রমুখ। বক্তরা বলেন প্রতি বারের ন্যায় এবছরও রোজাদার মুসল্লীদের ইফতার করানোর মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভের চেষ্টা করে যাচ্ছেন ।

একজন রওজাদারের সমান সোয়াব ইফতার করানোর মাধ্যমে পাওয়া যায় তাই আমাদের সকলের এই ফজিলত পূর্ন মাসে আল্লাহ ও রাসুলের বিধান মোতাবেক চলার তৌফিক আল্লাহ আমাদের দান করেন
ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন :

মোহা : আব্দুল মালেক হিমু, প্যারিস-ফ্রান্স : ফ্রান্সের বাংলাদেশী কমিউনিটি এসোসিয়েশন তুলুজের আয়োজনে তুলুজ প্রবাসী বাংলাদেশীদের সম্মানে এক ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে ।

গত ১২ই জুন তুলুজ শহরের তান্দুরী হাউজে অনুষ্ঠিত এই ইফতার মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ফকরুল আকম সেলিম এবং পরিচালনায় জাহাঙ্গীর হোসেন।

ইফতার মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন কমিউনিটি ব্যাক্তিত্ব তাজিম উদ্দিন খোকন, ফারুখ হোসেন, সাকির চৌধুরী, মেহেদী হাসান স্বপন, অনু রোজারীও, ফেরদৌস খান, ইফতেকার মাহমুদ রাজু, নাজির হোসেন লিটন, ফিরোজ আলম মামুন, আহসান মোল্লা সহ আরো অনেকে ।

বিপুল সংখ্যাক পুরুষদের পাশাপাশি মহিলারা ও শিশুরা আলাদা ভাবে ইফতার মাহফিলে অংশ গ্রহন করে । ইফতার পূর্বে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ফকরুল আকম সেলিম মাহফিলে অংশ গ্রহনকারী সকল ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, রোজা মানুষকে আত্মনিয়ন্ত্রণ ও পারস্পরিক ভালোবাসার শিক্ষা দেয়। রমজানের এই শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে হিংসা, হানাহানি, বিভেদ  ভুলে গিয়ে আমাদের কে কমিউনিটির কল্যাণে কাজ করে যেতে হবে । আমাদের মধ্যে যদি পারস্পরিক ভালোবাসা থাকে তাহলে আমরা ব্যক্তি, পরিবার ও সমাজ-জীবনে শান্তি ও সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠা করতে পারবো । পরে প্রবাসী বাংলাদেশীদের কল্যাণ, বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে দোয়া করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন মৌলানা আব্দুর রহমান ।
ভিডিও দেখতে দয়া করে এখানে ক্লিক করুন :




Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget