সৌদি আরবে শিশু সাহিত্য পরিষদ এর আত্মপ্রকাশ

বাহার উদ্দিন,বকুল জেদ্দা সৌদি আরব : জীবিকার তাগিদে অচলায়তন ভেঙ্গে বিশ্বব্যাপি ছড়িয়ে পড়া বাংলাদেশিদের একটি বিশাল অংশ সৌদি আরবে, প্রায় দুই মিলিয়ন, যেন এক চিলতে বাংলাদেশ। রোদ্দুর, রাইটার্স, মরুপলাশ এমনি বেশ কিছু সাহিত্য-সাময়িকী প্রবাস সাহিত্যাঙ্গনকে উজ্জ্বীবিত রেখে আসছে। তাছাড়া বিশেষ উপলক্ষ্যে বিভিন্ন সামাজিক-রাজনৈতিক সংগঠন প্রকাশ করে আসছে সাময়িকী। 

তবে প্রবাসে বেড়ে উঠা নতুন প্রজন্মের সাহিত্য-ভাবনা লালনের তেমন কোন আয়োজন নেই। মূলতঃ স্কুল বার্ষিকী ছাড়া প্রবাসী প্রজন্মের সাহিত্য চর্চার কোন মাধ্যম গড়ে উঠেনি দীর্ঘদিন। এই অভাব থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে শিশুসাহিত্যিক এবং সাহিত্যপ্রেমিদের এক সভা অনুষ্ঠিত হয় জেদ্দায়।

স্বনামধন্য শিশুসাহিত্যক সিকদার নাজমুল হক সৌদি আরব প্রবাসী দীর্ঘদিন। মূলতঃ তাঁর আহ্বানে সাড়া দিয়ে ১৪ অক্টোবর, শুক্রবার সন্ধ্যায়, জেদ্দায় স্থানীয় একটি রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত সাহিত্য সভায় সভাপতিত্ব করেন রোদ্দুর- সাহিত্য সাময়িকী সম্পাদক, আবুল বাশার বুলবুল। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন অলঙ্কৃত করেন সিকদার নাজমুল হক।

শিশুসাহিত্যিক ইসমাইল জসীমের প্রাণবন্ত সঞ্চালনায় স্বরচিত ছড়া-কবিতা আবৃত্তি ও আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন অতিথিগণ।

আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যত-নাগরিক। ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার আগ্রাসনের যুগে নতুন প্রজন্মকে সাহিত্য-সংস্কৃতির সাথে সম্পৃক্ত করা, তাদের সুপ্ত প্রতিভা জাগ্রত ও বিকশিত করা এবং সত্য-সুন্দর-আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার বিকল্প নেই। এ প্রয়াসের অংশ হিসেবে গঠিত হয়, শিশুসাহিত্য পরিষদ, সৌদি আরব। নবগঠিত সাহিত্য সংগঠনের আহ্বায়ক, সিকদার নাজমুল হক এবং সদস্য সচিব মনোনীত হন, ইসমাইল জসীম। কার্যকরী সদস্যগণ হলেন আবুল বাশার বুলবুল, ডা. গোলাম মোর্শেদ, মঈনুদ্দিন শামিম, সৈয়দ রাশেদ রেজা, বাহার উদ্দিন বকুল।

সৌদি প্রবাসী শিশুসাহিত্যিকগণকে সমন্বিত করে শীঘ্র পূর্ণাঙ্গ পরিষদ ঘোষণার আশাবাদ ব্যক্ত করেন নবগঠিত শিশুসাহিত্য পরিষদের আহ্বায়ক এবং অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সিকদার নাজমুল হক। তাছাড়া একটি ওয়েভপেজ এবং অনলাইন শিশুসাহিত্য প্রকাশনার উদ্যোগ গ্রহণের কথাও জানান তিনি।

শিশুসাহিত্য পরিষদ, সৌদি আরব এর শুভ সূচনায় অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী শিশুসাহিত্যিক এবং সাহিত্যপ্রেমিগণকে আন্তরিক ধন্যবাদ জনান অনুষ্ঠানের সভাপতি আবুল বাশার বুলবুল। নবীন এ সাহিত্য সংগঠনের আত্মপ্রকাশ, সৌদি আরব প্রবাসী নতুন প্রজন্মের সাহিত্য-সংস্কৃতি-মেধা-মননশীলতা বিকাশে ভূমিকা রাখবে এই আশাবাদও জানান তিনি। নৈশভোজে অংশগ্রহণের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শেষ হয়। তবে শেষ হয়েও হয়নি শেষ ছড়া-কবিতার আনন্দ রেশ।

Post a Comment

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget