ইতালিয়ান সরকারের পক্ষ থেকে এই বিষয়টির ৯০% সম্ভাবনা রয়েছে যদি কোন প্রকার সমস্যা না হয়। কাজেই আমরা নির্দ্বিধায় বলতে পারি যে এবছরের শেষের দিকে আমারা ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বা ইতালিতে অবৈধ প্রবাসীদের একটি সুসংবাদ শুনাতে পারবো।

কেন ৯০% সম্ভাবনা রয়েছে আসুন জেনে নেই বিস্তারিত?
১- গত কয়েক মাসে লক্ষ্য লক্ষ্য অবৈধ অভিবাসী ইতালিতে প্রবেশ করেছে, এবং এদের মধ্যে সবাই এসাইলাম প্রার্থীর জন্য আবেদন করেছে। তবে এই ক্ষেত্রে সরকারের তেমন কোন লাভ হচ্ছে না। যেমন জাতিসংঘ সহ আরও বিভিন্ন সংগঠন থেকে যে সকল ফান্ড পাচ্ছে তার বেশির ভাগ এদের পিছনেই ব্যয় হয়ে যাচ্ছে।
২- গত ১৮ আগস্ট ২০১৪ ইতালিয়ান সবচাইতে জনপ্রিয় নিউজ পেপারে একটি নিউজ থেকে জানা যায়। যে ইতালিকে ইউরোপের ট্রানজিট ভিসা হিসেবে দেখা হচ্ছে। মানে অবৈধরা প্রথমে ইতালিতে আসে তার পর এখান থেকে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পারি জমায়। তবে এতদিন এই বিষয়টি আমরাও জানতাম। কিন্তু সেদিন সেই পত্রিকার নিউজটি দেখে আমরাও রীতিমতো হতভম্ভ। সেখানে ঠিক এভাবে বলা হয়েছে “La verità è che il nostro paese è diventato un porto franco, non solo per i migranti, ma anche per i paesi europei che non ci pensano due volte a rispedire i clandestini dentro i nostri confini.” দুঃখের হলেও সত্য যে আমাদের দেশ বর্তমানে অবৈধ অভিবাসীদের জন্য একটি নিরাপদ আশ্রয় স্থলে রুপান্তরিত হয়েছে। এবং শুধু অবৈধ অভিবাসীরাই নয় ইউরোপের দেশ গুলোও আমাদের দেশের সীমানায় অবৈধ অভিবাসীদের পাঠাতে দ্বিতীয় বার চিন্তা করে না!! এখানে একটু ভালো করে বুঝিয়ে দিচ্ছি, নিউজ টিতে বলা হয়েছে ১৮ আগস্ট ৪৮ জন অভিবাসিকে Austria বডারে ট্রেন কন্ট্রোল করে সেখান থেকে আটক করে পুলিশ এবং তাদের ইউরোপের দুকুমেন্তস না থাকায় পুলিশ সরাসদি ইতালিতে পাঠিয়ে দেয়, উল্লেখ্য এখানে এই অবৈধ অভিবাসিদের জার্মানের এসাইলাম পাওয়ার অধিকার থাকা সত্ত্বেও Austria পুলিশ তাদের ইতালিতেই ফিরত পাঠায়। ঠিক একি কাজ করেছিল ২০১৪ জানুয়ারি মাসে ফ্রান্স বডারে ট্রেনে সন্ধান করে প্রায় ৩৪১১ জন অবৈধ অভিবাসী কে ফ্রান্স পুলিশ ইতালি পাঠিয়ে দেয়। কাজেই এখান থেকে একটি স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যায় যে এতে করে ইতালি সরকার ইউরোপের অন্যান্য দেশের কর্মকাণ্ডের উপর ভিত্তি করেই অবৈধদের টাকার বিনিময়ে বৈধ করার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হচ্ছে।
৩- জন প্রতি ১০০০ ইউরো করে পরিশোধ করতে হবে ইতালিতে বৈধ হতে হলে, তার উপর রয়েছে আরও আনুসাঙ্গিক খরচ যেমন মালিক পক্ষ থেকেও এই সুবাদে বড় অংকের টাকা পাচ্ছে ট্যাক্স হিসেবে।কাজেই এই প্রক্রিয়ার সরকারের দপ্তরে বিশাল বড় আকারের অর্থ জমা হচ্ছে।
৪- বৈধ হওয়ার পর অনেকেই আর পথে ঘাটে অবৈধ ব্যবসা করছে না। এবং যারা আগে অবৈধ ব্যবসা করতো তাদের কাছ থেকে সরকার কোন ট্যাক্স পেতো না, কিন্তু এরা যখন বৈধ হয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কন্ট্রাক্টে কাজ করে সেই সুবাদে সরকারের খাতে তাদের নামে ট্যাক্স জমা হচ্ছে। এবং এখানে আর একটি বিষয় রয়েছে যে অনেকে যারা ইতালিতে অবৈধ রয়েছে তারা কিন্তু চাইলেও ইতালি বাইরে ইউরোপের অন্যান্য দেশে যেতে পারছে না। কিন্তু বৈধ তথা ইতালিয়ান ডকুমেন্ট পেয়ে এদের অনেকেই উন্নত জীবনের আশায় ইউরোপের অন্যান্য দেশে পারি জমাচ্ছে।
৫- এরকম আরও অনেক কারন রয়েছে যা আমরা সময় সম্পতার জন্য এখানে লিখতে পারলাম না। তবে আপনারা নিজেকে নিজে প্রশ্ন করলেই এই বিষয়টি সম্পর্কে পরিস্কার ভাবে বুঝতে পারবেন।


Axact

Jonoprio

জনপ্রিয়২৪ একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বিশ্বজুড়ে রেমিডেন্স যোদ্ধাদের প্রবাস জীবন নিয়ে আমাদের যাত্রা শুরু হয় ২০০৩ সালে। স্পেনে বাংলাভাষী প্রবাসীদের প্রথম অনলাইন নিউজ পোর্টাল।.

Post A Comment:

0 comments: