ঢাকা ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
স্পেনে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস উদযাপন মহিলা সমিতি বার্সেলোনার পহেলা বৈশাখ উদযাপন বাংলাদেশ কোলতোরাল এসোসিয়েশন এন কাতালোনিয়ার ৯ সদস্য বিশিষ্ট সমন্বয় কমিটি গঠন টেনেরিফে ঈদুল ফিতর উদযাপন ও ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত শান্তাকলমায় শরীয়তপুর জেলা সমিতির ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত নোয়াখালী এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল সম্পন্ন বার্সেলোনায় গোলাপগঞ্জ অ্যাসোসিয়েশনের ইফতার সম্পন্ন বিয়ানীবাজার পৌরসভা ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্ট বার্সেলোনার ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত বার্সেলোনায় বিয়ানীবাজার ইয়াং স্টারের ইফতার সম্পন্ন বার্সেলোনা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে তাফসীরুল কুরআন ও ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত

স্পেনে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালন

জনপ্রিয় অনলাইন
  • আপডেট সময় : ০৮:৫০:৫৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ অগাস্ট ২০২৩ ৩৬৭ বার পড়া হয়েছে

মাদ্রিদে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশে জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৮তম শাহাদত বার্ষিকী পালন করা হয়েছে। দূতাবাস থেকে প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মঙ্গলবার (১৫ আগষ্ট) দিবসটি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানমালায় স্পেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ, দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী, স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ও অনেক প্রবাসী বাংলাদেশি উপস্থিত ছিলেন।

দূতাবাসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করার মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। পরে দূতাবাস মিলনায়তনে দিবসটি উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের পর জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে  বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রেরিত বাণী পাঠ করে শোনানো হয়।

আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সদস্যদের, যারা পঁচাত্তরের ১৫ই আগস্টে বর্বরতম হত্যাকান্ডে শহিদ হয়েছিলেন।

রাষ্ট্রদূত বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচার প্রধানত: দু’টো পন্থায় করা সম্ভব। প্রথমত: খুনীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো, যেটি ইতিমধ্যেই করা হয়েছে। কয়েকজন খুনী দেশের বাইরে অবস্থান করছে। সরকার তাদের দেশে এনে বিচার করার চেষ্টা করছে। তিনি এ প্রক্রিয়ায় সকলের স্বতঃস্ফুর্ত সমর্থন কামনা করেন। দ্বিতীয়ত, খুনীদের অপকর্মের দাঁতভাঙা জবাব দেয়া সম্ভব হবে তখনই, যখন জাতি হিসেবে আমরা মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে সক্ষম হবো। সেই লক্ষ্যে বঙ্গন্ধু কন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ বিনির্মানে আজ বাংলাদেশ অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে চলেছে।  তিনি এ প্রচেষ্ঠায় সকলকে আরো ব্যাপকভাবে আত্মনিয়োগের জন্য আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের উপর একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শণ করা হয়। আলোচনা সভা শেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগস্টে শাহাদতবরণকারী ব্যক্তিবর্গ, জাতীয় চার নেতা  এবং বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদের রূহের মাগফিরাত এবং দেশ ও জাতির উন্নতি ও সমৃদ্ধি কামনায় মোনাজাত করা হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন রাষ্ট্রদূত ও দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

স্পেনে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালন

আপডেট সময় : ০৮:৫০:৫৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ অগাস্ট ২০২৩

মাদ্রিদে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশে জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৮তম শাহাদত বার্ষিকী পালন করা হয়েছে। দূতাবাস থেকে প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মঙ্গলবার (১৫ আগষ্ট) দিবসটি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানমালায় স্পেনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ, দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী, স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ও অনেক প্রবাসী বাংলাদেশি উপস্থিত ছিলেন।

দূতাবাসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করার মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। পরে দূতাবাস মিলনায়তনে দিবসটি উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের পর জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে  বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রেরিত বাণী পাঠ করে শোনানো হয়।

আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সারওয়ার মাহমুদ গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সদস্যদের, যারা পঁচাত্তরের ১৫ই আগস্টে বর্বরতম হত্যাকান্ডে শহিদ হয়েছিলেন।

রাষ্ট্রদূত বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচার প্রধানত: দু’টো পন্থায় করা সম্ভব। প্রথমত: খুনীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো, যেটি ইতিমধ্যেই করা হয়েছে। কয়েকজন খুনী দেশের বাইরে অবস্থান করছে। সরকার তাদের দেশে এনে বিচার করার চেষ্টা করছে। তিনি এ প্রক্রিয়ায় সকলের স্বতঃস্ফুর্ত সমর্থন কামনা করেন। দ্বিতীয়ত, খুনীদের অপকর্মের দাঁতভাঙা জবাব দেয়া সম্ভব হবে তখনই, যখন জাতি হিসেবে আমরা মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে সক্ষম হবো। সেই লক্ষ্যে বঙ্গন্ধু কন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ বিনির্মানে আজ বাংলাদেশ অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে চলেছে।  তিনি এ প্রচেষ্ঠায় সকলকে আরো ব্যাপকভাবে আত্মনিয়োগের জন্য আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের উপর একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শণ করা হয়। আলোচনা সভা শেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগস্টে শাহাদতবরণকারী ব্যক্তিবর্গ, জাতীয় চার নেতা  এবং বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদের রূহের মাগফিরাত এবং দেশ ও জাতির উন্নতি ও সমৃদ্ধি কামনায় মোনাজাত করা হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন রাষ্ট্রদূত ও দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।