ঢাকা ০৮:১৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
স্পেনে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস উদযাপন মহিলা সমিতি বার্সেলোনার পহেলা বৈশাখ উদযাপন বাংলাদেশ কোলতোরাল এসোসিয়েশন এন কাতালোনিয়ার ৯ সদস্য বিশিষ্ট সমন্বয় কমিটি গঠন টেনেরিফে ঈদুল ফিতর উদযাপন ও ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত শান্তাকলমায় শরীয়তপুর জেলা সমিতির ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত নোয়াখালী এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল সম্পন্ন বার্সেলোনায় গোলাপগঞ্জ অ্যাসোসিয়েশনের ইফতার সম্পন্ন বিয়ানীবাজার পৌরসভা ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্ট বার্সেলোনার ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত বার্সেলোনায় বিয়ানীবাজার ইয়াং স্টারের ইফতার সম্পন্ন বার্সেলোনা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে তাফসীরুল কুরআন ও ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত

‘শোকাহত’ সাঈদীর মৃত্যুতে ছাত্রলীগের অর্ধশতাধিক নেতাকে অব্যাহতি

জনপ্রিয় অনলাইন
  • আপডেট সময় : ০৭:৩৭:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৭ অগাস্ট ২০২৩ ২৯৯ বার পড়া হয়েছে

মানবতাবিরোধী অপরাধে আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শোক প্রকাশ করায় জামালপুর, নরসিংদী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রামসহ পাঁচ জেলায় অর্ধশতাধিক নেতাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

বরখাস্ত হওয়া নেতাদের মধ্যে জামালপুরে ১৮, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৭, চট্টগ্রামে ১৬, পাবনায় ৭, নরসিংদীতে ছয়জন রয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে সংগঠনের নীতি ও আদর্শ পরিপন্থি কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ আনা হয়। সাময়িক বরখাস্তের পাশাপাশি কিছু কিছু জায়গায় দল থেকে তাদের স্থায়ী বরখাস্তের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করা হয়েছে।

জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া ছাত্রলীগের নেতাদের বিস্তারিত জানানো হলো

সাঈদীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করার অভিযোগে জামালপুরে ১৮ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে জেলা ছাত্রলীগ। বুধবার (১৬ আগস্ট) রাতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি খাবিরুল ইসলাম খান বাবু ও সাধারণ সম্পাদক নাফিউল করিম রাব্বি স্বাক্ষরিত আলাদা তিনটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

ওই বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী সাময়িক বহিষ্কৃতরা হলেন ইসলামপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মিজানুর রহমান, সহসম্পাদক মুসা আহমেদ, ইসলামপুর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সদস্য মুরসালিন উদ্দিন, কর্মী মো. আব্দুল কাইয়ুম, মো. জয় মামুন, গাইবান্ধা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মনির সরকার, চরপুটিমারী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি আমিনুল ইসলাম, নোয়ারপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি আশিকুর রহমান আশিক, মেলান্দহ উপজেলা ছাত্রলীগের সমাজসেবা সম্পাদক মো. ইউসুফ আলী, সদস্য আশরাফুল সালেহিন রিয়াদ, মেলান্দহ পৌর শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আসিফ আহমেদ, মেলান্দহ সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মেহেদী হাসান সেতু, নাংলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক মো. বরকতুল্লাহ ফারাজী, হাজরাবাড়ি পৌর শাখার অন্তর্গত ১ নম্বর ওয়ার্ড শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ফাহিম চৌধুরী, কুলিয়া ইউনিয়ন শাখার অন্তর্গত ২ নম্বর ওয়ার্ড শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমন ইসলাম সানি, জামালপুর সদর উপজেলার (পূর্ব) শরিফপুর ইউনিয়ন শাখার অন্তর্গত ৯ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সাইম কবির, বকশিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক শোয়েব আল হাসান এবং দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার সানন্দবাড়ি সাংগঠনিক থানা শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাজেদুল ইসলাম মুসা।

ওই বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, কেনো তাদের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, তার উপযুক্ত কারণসহ লিখিত জবাব আগামী সাত দিনের মধ্যে ছাত্রলীগের জামালপুর জেলা শাখার দপ্তর সেলে জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জামালপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি খাবিরুল ইসলাম খান বাবু বলেন, ‘একজন যুদ্ধাপরাধীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করায় তাদের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

সাঈদীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ায় ছাত্রলীগের ১৭ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগ। সেই সঙ্গে তাদের স্থায়ী বহিষ্কারের জন্য ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে সুপারিশ করা হয়েছে। বুধবার বিকেল ও রাতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল এ সংক্রান্ত আলাদা দুটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করেন। যেখানে সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন শোভনেরও স্বাক্ষর রয়েছে।

বহিষ্কৃত ১৭ নেতার মধ্যে জেলার কসবা উপজেলার সাতজন, আখাউড়া উপজেলার চারজন, সরাইল উপজেলার চারজন এবং আশুগঞ্জ ও নবীনগর উপজেলার একজন করে রয়েছেন। তারা হলেন- কসবা উপজেলার মেহারি ইউনিয়ন শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সোহরাফ ইসলাম, খাড়েরা ইউনিয়ন শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক দীপু মিয়া, একই কমিটির সদস্য আসিফুল আলম, কুটি ইউনিয়ন শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক সাব্বির আহমেদ, একই ইউনিয়নের সাত নম্বর ওয়ার্ড শাখার সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম হাছিব, গোপীনাথপুর ইউনিয়নের ছয় নম্বর ওয়ার্ড শাখার সদস্য নাজমুল সরকার, বিনাউটি ইউনিয়ন শাখার সদস্য সৈকত আলী, আখাউড়া উপজেলার মোগড়া ইউনিয়ন শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ফুরকান আহম্মেদ, একই শাখার কর্মী আমিন সুমন, আখাউড়া পৌর ছাত্রলীগের ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সভাপতি রবিন খান খাদেম ও আখাউড়া শহীদ স্মৃতি সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক বাইজিদ খান, সরাইল উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আমির খন্দকার, একই শাখার কর্মী রিয়াজ উদ্দিন খান মাইনুর, শাহবাজপুর ইউনিয়ন শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক সোহাগ নিয়ামুল ও একই কমিটির সদস্য আজহার উদ্দিন, আশুগঞ্জ উপজেলার তালশহর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিয়াজ সোহান ও নবীনগর উপজেলার বড়াইল ইউনিয়ন শাখা ছাত্রলীগের কর্মী মো. মমিন সরকার।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল বলেন, আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত একজন চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে যেসব ছাত্রলীগ নেতাকর্মী ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। তারা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নীতি ও আদর্শ পরিপন্থি কাজ করেছেন। এজন্য তাদের ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম

সাঈদীর মৃত্যুতে সমবেদনা জানিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ায় চট্টগ্রামের লোহাগাড়া, সন্দ্বীপ ও দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের ১৬ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

লোহাগাড়া উপজেলার বড়হাতিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ছয় নেতাকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে বড়হাতিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি হামেদ হুসাইন মেহেদী ও সাধারণ সম্পাদক রেমি হাসান ইমন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

অব্যাহতি পাওয়া নেতারা হলেন- বড়হাতিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি মো. ইরফান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. বাইজিদ, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক ইমন চৌধুরী, আইনবিষয়ক সম্পাদক শাহরিয়া আলম, উপক্রীড়া সম্পাদক মো. কায়েস ও উপদপ্তর সম্পাদক মো. ইরফান।

এর আগে মঙ্গলবার (১৫ আগস্ট) রাতে আধুনগর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাইমুন ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মো. জুনাইদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে চার নেতাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। অব্যাহতি পাওয়া নেতারা হলেন- আধুনগর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি মো. জিসান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইমাম হোসেন, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক রাকিবুল হোসেন এবং উপত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পাদক হেফাজ উদ্দিন।

লোহাগাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এরশাদুর রহমান রিয়াদ বলেন, সংগঠনের নীতি-আদর্শ ও সংগঠনবিরোধী কার্যক্রমে জড়িত ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ১০ নেতাকে স্থায়ী বহিষ্কারের জন্য লিখিত সুপারিশ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে সিদ্ধান্ত নেবে উপজেলা ছাত্রলীগ।

এ ছাড়াও সাঈদীর মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে সমবেদনা জানিয়ে পোস্ট করায় ছয় নেতাকে পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা, সাতকানিয়া উপজেলা ও সন্দ্বীপ উপজেলা ছাত্রলীগ। তিন সংগঠনের আলাদা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়। এদের মধ্যে সন্দ্বীপের তিনজন, সাতকানিয়ার একজন ও দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের দুই নেতা রয়েছেন।

অব্যাহতিপ্রাপ্ত নেতারা হলেন- সন্দ্বীপ উপজেলা ছাত্রলীগের সহসম্পাদক মো. রুস্তম, কার্যনির্বাহী সদস্য মো. আফসার ও পৌরসভা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান, সাতকানিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ তারেক এবং দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের কর্মসংস্থানবিষয়ক উপসম্পাদক সাজেদুল হক ও সহসম্পাদক শাহজাহান হাবীব।

সকালে সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ তারেকের অব্যাহতির কথা জানানো হয়।

গতকাল দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের প্রকাশিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সই করেন সভাপতি এস এম বোরহান উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক মো. আবু তাহের।

পাবনা

সাঈদীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ায় পাবনায় ছাত্রলীগের পাঁচজন নেতা ও দুই জন কর্মীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে জেলা ছাত্রলীগ। বৃহস্পতিবার সন্ধায় পাবনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান সবুজ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

সাময়িক বহিষ্কৃতরা হলেন- পাবনা সদরের ভাঁড়ারা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম শেখ রকি, গয়েশপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইমন খান, চাটমোহরের ফৈলজানা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সমাজসেবা সম্পাদক মামুন হোসেন, আতাইকুলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসম্পাদক আশিক খান, আতাইকুলা থানার ভুলবাড়িয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ৮ নম্বর ওয়ার্ড সভাপতি সাদ্দাম হোসেন, চাটমোহর উপজেলা ছাত্রলীগের কর্মী রাকিবুল হাসান, বেড়া উপজেলা ছাত্রলীগের কর্মী আবু বকর সিদ্দিক প্রিন্স।

পাবনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান সবুজ সাংবাদিকদের বলেন, এ জেলায় আরও কোনো নেতাকর্মী যদি পোস্ট দিয়ে থাকে, তাহলে আমাদের নলেজে আসলে এমন বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

নরসিংদী

সাঈদীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে স্ট্যাটাস দেওয়ায় নরসিংদী জেলার চার উপজেলার ছয় ছাত্রলীগ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৭ আগস্ট) বিকেলে নরসিংদী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আহসানুল হক রিমন ও সাধারণ সম্পাদক শাহজালাল আহমেদ শাওন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এর মধ্যে নরসিংদী সদর উপজেলার দুজন, পলাশ উপজেলার দুজন, বেলাব উপজেলার একজন এবং মনোহরদী উপজেলার একজন রয়েছেন। তাদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের জন্য কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে সুপারিশ করা হয় বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

সাময়িক বহিষ্কৃত ছাত্রলীগের নেতারা হলেন, মাধবদী থানা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সুজন-ভূঁইয়া, পাইকার চর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি শরিফুল ইসলাম শরীফ, পলাশ থানা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মো. নাদিম মিয়া, জিনাদরি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি হাফিজুর রহমান অপু, বেলাব উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক সাকিব আহাম্মেদ ও মনোহরদী উপজেলার কৃষ্ণপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক জে এস জুনায়েদ।

নরসিংদী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আহসানুল হক রিমন ছয় নেতার সাময়িক বহিষ্কারের তথ্য নিশ্চিত করে জানান, রাজাকারের পক্ষে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তিরা দায়িত্ব নিতে পারে না। দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী ছিলেন আদালতে রায়ে আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী। তার মৃত্যুর পর অভিযুক্ত নেতারা ফেসবুকে যেসব পোস্ট দিয়েছেন সেটা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নীতি ও আদর্শ পরিপন্থি।

সুত্র. দৈনিক কালবেলা ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

‘শোকাহত’ সাঈদীর মৃত্যুতে ছাত্রলীগের অর্ধশতাধিক নেতাকে অব্যাহতি

আপডেট সময় : ০৭:৩৭:০১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৭ অগাস্ট ২০২৩

মানবতাবিরোধী অপরাধে আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শোক প্রকাশ করায় জামালপুর, নরসিংদী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রামসহ পাঁচ জেলায় অর্ধশতাধিক নেতাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

বরখাস্ত হওয়া নেতাদের মধ্যে জামালপুরে ১৮, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৭, চট্টগ্রামে ১৬, পাবনায় ৭, নরসিংদীতে ছয়জন রয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে সংগঠনের নীতি ও আদর্শ পরিপন্থি কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ আনা হয়। সাময়িক বরখাস্তের পাশাপাশি কিছু কিছু জায়গায় দল থেকে তাদের স্থায়ী বরখাস্তের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করা হয়েছে।

জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া ছাত্রলীগের নেতাদের বিস্তারিত জানানো হলো

সাঈদীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করার অভিযোগে জামালপুরে ১৮ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে জেলা ছাত্রলীগ। বুধবার (১৬ আগস্ট) রাতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি খাবিরুল ইসলাম খান বাবু ও সাধারণ সম্পাদক নাফিউল করিম রাব্বি স্বাক্ষরিত আলাদা তিনটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

ওই বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী সাময়িক বহিষ্কৃতরা হলেন ইসলামপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মিজানুর রহমান, সহসম্পাদক মুসা আহমেদ, ইসলামপুর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সদস্য মুরসালিন উদ্দিন, কর্মী মো. আব্দুল কাইয়ুম, মো. জয় মামুন, গাইবান্ধা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মনির সরকার, চরপুটিমারী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি আমিনুল ইসলাম, নোয়ারপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি আশিকুর রহমান আশিক, মেলান্দহ উপজেলা ছাত্রলীগের সমাজসেবা সম্পাদক মো. ইউসুফ আলী, সদস্য আশরাফুল সালেহিন রিয়াদ, মেলান্দহ পৌর শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আসিফ আহমেদ, মেলান্দহ সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মেহেদী হাসান সেতু, নাংলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক মো. বরকতুল্লাহ ফারাজী, হাজরাবাড়ি পৌর শাখার অন্তর্গত ১ নম্বর ওয়ার্ড শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ফাহিম চৌধুরী, কুলিয়া ইউনিয়ন শাখার অন্তর্গত ২ নম্বর ওয়ার্ড শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমন ইসলাম সানি, জামালপুর সদর উপজেলার (পূর্ব) শরিফপুর ইউনিয়ন শাখার অন্তর্গত ৯ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সাইম কবির, বকশিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক শোয়েব আল হাসান এবং দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার সানন্দবাড়ি সাংগঠনিক থানা শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাজেদুল ইসলাম মুসা।

ওই বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, কেনো তাদের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, তার উপযুক্ত কারণসহ লিখিত জবাব আগামী সাত দিনের মধ্যে ছাত্রলীগের জামালপুর জেলা শাখার দপ্তর সেলে জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জামালপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি খাবিরুল ইসলাম খান বাবু বলেন, ‘একজন যুদ্ধাপরাধীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করায় তাদের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

সাঈদীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ায় ছাত্রলীগের ১৭ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগ। সেই সঙ্গে তাদের স্থায়ী বহিষ্কারের জন্য ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে সুপারিশ করা হয়েছে। বুধবার বিকেল ও রাতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল এ সংক্রান্ত আলাদা দুটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করেন। যেখানে সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন শোভনেরও স্বাক্ষর রয়েছে।

বহিষ্কৃত ১৭ নেতার মধ্যে জেলার কসবা উপজেলার সাতজন, আখাউড়া উপজেলার চারজন, সরাইল উপজেলার চারজন এবং আশুগঞ্জ ও নবীনগর উপজেলার একজন করে রয়েছেন। তারা হলেন- কসবা উপজেলার মেহারি ইউনিয়ন শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সোহরাফ ইসলাম, খাড়েরা ইউনিয়ন শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক দীপু মিয়া, একই কমিটির সদস্য আসিফুল আলম, কুটি ইউনিয়ন শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক সাব্বির আহমেদ, একই ইউনিয়নের সাত নম্বর ওয়ার্ড শাখার সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম হাছিব, গোপীনাথপুর ইউনিয়নের ছয় নম্বর ওয়ার্ড শাখার সদস্য নাজমুল সরকার, বিনাউটি ইউনিয়ন শাখার সদস্য সৈকত আলী, আখাউড়া উপজেলার মোগড়া ইউনিয়ন শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ফুরকান আহম্মেদ, একই শাখার কর্মী আমিন সুমন, আখাউড়া পৌর ছাত্রলীগের ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সভাপতি রবিন খান খাদেম ও আখাউড়া শহীদ স্মৃতি সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক বাইজিদ খান, সরাইল উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আমির খন্দকার, একই শাখার কর্মী রিয়াজ উদ্দিন খান মাইনুর, শাহবাজপুর ইউনিয়ন শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক সোহাগ নিয়ামুল ও একই কমিটির সদস্য আজহার উদ্দিন, আশুগঞ্জ উপজেলার তালশহর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিয়াজ সোহান ও নবীনগর উপজেলার বড়াইল ইউনিয়ন শাখা ছাত্রলীগের কর্মী মো. মমিন সরকার।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল বলেন, আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত একজন চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে যেসব ছাত্রলীগ নেতাকর্মী ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। তারা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নীতি ও আদর্শ পরিপন্থি কাজ করেছেন। এজন্য তাদের ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

চট্টগ্রাম

সাঈদীর মৃত্যুতে সমবেদনা জানিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ায় চট্টগ্রামের লোহাগাড়া, সন্দ্বীপ ও দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের ১৬ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

লোহাগাড়া উপজেলার বড়হাতিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ছয় নেতাকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে বড়হাতিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি হামেদ হুসাইন মেহেদী ও সাধারণ সম্পাদক রেমি হাসান ইমন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

অব্যাহতি পাওয়া নেতারা হলেন- বড়হাতিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি মো. ইরফান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. বাইজিদ, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক ইমন চৌধুরী, আইনবিষয়ক সম্পাদক শাহরিয়া আলম, উপক্রীড়া সম্পাদক মো. কায়েস ও উপদপ্তর সম্পাদক মো. ইরফান।

এর আগে মঙ্গলবার (১৫ আগস্ট) রাতে আধুনগর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাইমুন ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মো. জুনাইদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে চার নেতাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। অব্যাহতি পাওয়া নেতারা হলেন- আধুনগর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি মো. জিসান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইমাম হোসেন, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক রাকিবুল হোসেন এবং উপত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পাদক হেফাজ উদ্দিন।

লোহাগাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এরশাদুর রহমান রিয়াদ বলেন, সংগঠনের নীতি-আদর্শ ও সংগঠনবিরোধী কার্যক্রমে জড়িত ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ১০ নেতাকে স্থায়ী বহিষ্কারের জন্য লিখিত সুপারিশ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে সিদ্ধান্ত নেবে উপজেলা ছাত্রলীগ।

এ ছাড়াও সাঈদীর মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে সমবেদনা জানিয়ে পোস্ট করায় ছয় নেতাকে পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা, সাতকানিয়া উপজেলা ও সন্দ্বীপ উপজেলা ছাত্রলীগ। তিন সংগঠনের আলাদা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়। এদের মধ্যে সন্দ্বীপের তিনজন, সাতকানিয়ার একজন ও দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের দুই নেতা রয়েছেন।

অব্যাহতিপ্রাপ্ত নেতারা হলেন- সন্দ্বীপ উপজেলা ছাত্রলীগের সহসম্পাদক মো. রুস্তম, কার্যনির্বাহী সদস্য মো. আফসার ও পৌরসভা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান, সাতকানিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ তারেক এবং দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের কর্মসংস্থানবিষয়ক উপসম্পাদক সাজেদুল হক ও সহসম্পাদক শাহজাহান হাবীব।

সকালে সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ তারেকের অব্যাহতির কথা জানানো হয়।

গতকাল দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের প্রকাশিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে সই করেন সভাপতি এস এম বোরহান উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক মো. আবু তাহের।

পাবনা

সাঈদীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ায় পাবনায় ছাত্রলীগের পাঁচজন নেতা ও দুই জন কর্মীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে জেলা ছাত্রলীগ। বৃহস্পতিবার সন্ধায় পাবনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান সবুজ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

সাময়িক বহিষ্কৃতরা হলেন- পাবনা সদরের ভাঁড়ারা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম শেখ রকি, গয়েশপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইমন খান, চাটমোহরের ফৈলজানা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সমাজসেবা সম্পাদক মামুন হোসেন, আতাইকুলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসম্পাদক আশিক খান, আতাইকুলা থানার ভুলবাড়িয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ৮ নম্বর ওয়ার্ড সভাপতি সাদ্দাম হোসেন, চাটমোহর উপজেলা ছাত্রলীগের কর্মী রাকিবুল হাসান, বেড়া উপজেলা ছাত্রলীগের কর্মী আবু বকর সিদ্দিক প্রিন্স।

পাবনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান সবুজ সাংবাদিকদের বলেন, এ জেলায় আরও কোনো নেতাকর্মী যদি পোস্ট দিয়ে থাকে, তাহলে আমাদের নলেজে আসলে এমন বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

নরসিংদী

সাঈদীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে স্ট্যাটাস দেওয়ায় নরসিংদী জেলার চার উপজেলার ছয় ছাত্রলীগ নেতাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৭ আগস্ট) বিকেলে নরসিংদী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আহসানুল হক রিমন ও সাধারণ সম্পাদক শাহজালাল আহমেদ শাওন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এর মধ্যে নরসিংদী সদর উপজেলার দুজন, পলাশ উপজেলার দুজন, বেলাব উপজেলার একজন এবং মনোহরদী উপজেলার একজন রয়েছেন। তাদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের জন্য কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে সুপারিশ করা হয় বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

সাময়িক বহিষ্কৃত ছাত্রলীগের নেতারা হলেন, মাধবদী থানা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সুজন-ভূঁইয়া, পাইকার চর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি শরিফুল ইসলাম শরীফ, পলাশ থানা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মো. নাদিম মিয়া, জিনাদরি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি হাফিজুর রহমান অপু, বেলাব উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক সাকিব আহাম্মেদ ও মনোহরদী উপজেলার কৃষ্ণপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক জে এস জুনায়েদ।

নরসিংদী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আহসানুল হক রিমন ছয় নেতার সাময়িক বহিষ্কারের তথ্য নিশ্চিত করে জানান, রাজাকারের পক্ষে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তিরা দায়িত্ব নিতে পারে না। দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী ছিলেন আদালতে রায়ে আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী। তার মৃত্যুর পর অভিযুক্ত নেতারা ফেসবুকে যেসব পোস্ট দিয়েছেন সেটা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নীতি ও আদর্শ পরিপন্থি।

সুত্র. দৈনিক কালবেলা ।