ঢাকা ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
স্পেনে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস উদযাপন মহিলা সমিতি বার্সেলোনার পহেলা বৈশাখ উদযাপন বাংলাদেশ কোলতোরাল এসোসিয়েশন এন কাতালোনিয়ার ৯ সদস্য বিশিষ্ট সমন্বয় কমিটি গঠন টেনেরিফে ঈদুল ফিতর উদযাপন ও ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত শান্তাকলমায় শরীয়তপুর জেলা সমিতির ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত নোয়াখালী এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল সম্পন্ন বার্সেলোনায় গোলাপগঞ্জ অ্যাসোসিয়েশনের ইফতার সম্পন্ন বিয়ানীবাজার পৌরসভা ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্ট বার্সেলোনার ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত বার্সেলোনায় বিয়ানীবাজার ইয়াং স্টারের ইফতার সম্পন্ন বার্সেলোনা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে তাফসীরুল কুরআন ও ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত

বার্সেলোনায় এক যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:১২:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ অগাস্ট ২০২২ ৩৩৩ বার পড়া হয়েছে

স্পেনের বার্সেলোনায় মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন (৩১) নামে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার এক যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। তবে সড়ক দুর্ঘটনায় তার মুত্যু হয়েছে বলে পাকিস্তানি এক যুবকের মাধ্যমে জানতে পারে তাঁর পরিবার।

গিয়াস উদ্দিনের মরদেহ বর্তমানে বার্সেলোনার একটি হাসপাতালের মর্গে রয়েছে বলে জানান ওই পাকিস্তানি। মৃত যুবক গিয়াস উদ্দিন পটিয়ার কোলাগাঁও ইউনিয়নের নলান্ধা গ্রামের মোহাম্মদ নবীর বড় ছেলে। নিহতের ছোটভাই আশরাফ উদ্দিন আরমান  জানান, গত বুধবার সকালে আম্মুর সাথে বড় ভাইয়ের সর্বশেষ কথা হলেও সারাদিন তাঁকে আর ফোনে পাওয়া যায়নি। বুধবার ১২টার সময় তার বন্ধু পাকিস্তানের নাগরিক বিকিকে (ডাক নাম কাউছার) আম্মু ফোন দেন। প্রথমে তিনি সঠিক তথ্য দিতে অস্বীকার করেন। পরে একপর্যায়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে সড়ক দুর্ঘটনায় ভাইয়া নিহত হয়েছেন বলে রাত ১২ টার দিকে জানান তার পাকিস্তানি বন্ধু। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত ওই পাকিস্তানি যুবকের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি গিয়াসের পরিবারের কারোর সাথে।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গিয়াসউদ্দিন সপরিবারে ওমানে বসবাস করতেন। সেখান থেকে ২০০৭ সালে স্পেনে পাড়ি দেন শিক্ষা ভিসায়। এরপর ২০০৮ সালে তাঁদের পরিবারের অন্য সবাই দেশে ফিরে আসেন। গিয়াসউদ্দিন ওমানে একাদশ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করছেন। স্পেনের বার্সেলোনায় যাওয়ার পর পড়াশোনার পাশাপাশি গিয়াস একটি রেস্টুরেন্টে চাকরি করতেন। চাকরিরত অবস্থায় কাউছার (বিকি) নামের এক পাকিস্তানি নাগরিকের সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্ব হয়। তাঁর সঙ্গে যৌথভাবে রেস্টুরেন্ট ব্যবসার জন্য তার পরিবার দেশ থেকে জুলাই মাসে দুই দফায় পাঁচ লাখ টাকা করে মোট দশ লাখ টাকা পাঠায়। চলতি বছর ব্যবসা-বাণিজ্য গুটিয়ে তাঁর দেশে ফিরে আসার কথা ছিল।

অন্য দিকে নিহতের পরিবারের ধারণা, ব্যবসার নাম করে পাকিস্তানি নাগরিক বিকি গিয়াস উদ্দিনকে প্রলোভন দেখিয়ে দশ লাখ টাকা বাংলাদেশ থেকে নিয়ে যায়। এরপর বিকি পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে দাবি করেন তাঁরা। তিন ভাই এক বোনের মধ্যে গিয়াস উদ্দিন সবার বড়। সন্তানের মৃত্যুর খবরে তাদের পরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। যেকোনো কিছুর বিনিময়ে লাশটা যেন দেশে আনতে পারে, সে আকুতি জানায় তার পরিবার। এ জন্য তারা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেছেন। নিহতের বাবা-মা, ভাই-বোন সে অপেক্ষায় আছেন।

উল্লেখ্য, যে বিষয়টি সোসালমিডিয়াতে প্রকাশ হলে স্পেন বাংলাদেশ কমিউনিটির কিছু ব্যক্তিবর্গ বাংলাদেশ দুতাবাস মাদ্রিদে যোগাযোগ করলে দুতাবাস বিষয়টি আমলে নেয় নি ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

বার্সেলোনায় এক যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু

আপডেট সময় : ০৭:১২:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ৭ অগাস্ট ২০২২

স্পেনের বার্সেলোনায় মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন (৩১) নামে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার এক যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। তবে সড়ক দুর্ঘটনায় তার মুত্যু হয়েছে বলে পাকিস্তানি এক যুবকের মাধ্যমে জানতে পারে তাঁর পরিবার।

গিয়াস উদ্দিনের মরদেহ বর্তমানে বার্সেলোনার একটি হাসপাতালের মর্গে রয়েছে বলে জানান ওই পাকিস্তানি। মৃত যুবক গিয়াস উদ্দিন পটিয়ার কোলাগাঁও ইউনিয়নের নলান্ধা গ্রামের মোহাম্মদ নবীর বড় ছেলে। নিহতের ছোটভাই আশরাফ উদ্দিন আরমান  জানান, গত বুধবার সকালে আম্মুর সাথে বড় ভাইয়ের সর্বশেষ কথা হলেও সারাদিন তাঁকে আর ফোনে পাওয়া যায়নি। বুধবার ১২টার সময় তার বন্ধু পাকিস্তানের নাগরিক বিকিকে (ডাক নাম কাউছার) আম্মু ফোন দেন। প্রথমে তিনি সঠিক তথ্য দিতে অস্বীকার করেন। পরে একপর্যায়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে সড়ক দুর্ঘটনায় ভাইয়া নিহত হয়েছেন বলে রাত ১২ টার দিকে জানান তার পাকিস্তানি বন্ধু। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত ওই পাকিস্তানি যুবকের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি গিয়াসের পরিবারের কারোর সাথে।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গিয়াসউদ্দিন সপরিবারে ওমানে বসবাস করতেন। সেখান থেকে ২০০৭ সালে স্পেনে পাড়ি দেন শিক্ষা ভিসায়। এরপর ২০০৮ সালে তাঁদের পরিবারের অন্য সবাই দেশে ফিরে আসেন। গিয়াসউদ্দিন ওমানে একাদশ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করছেন। স্পেনের বার্সেলোনায় যাওয়ার পর পড়াশোনার পাশাপাশি গিয়াস একটি রেস্টুরেন্টে চাকরি করতেন। চাকরিরত অবস্থায় কাউছার (বিকি) নামের এক পাকিস্তানি নাগরিকের সঙ্গে তাঁর বন্ধুত্ব হয়। তাঁর সঙ্গে যৌথভাবে রেস্টুরেন্ট ব্যবসার জন্য তার পরিবার দেশ থেকে জুলাই মাসে দুই দফায় পাঁচ লাখ টাকা করে মোট দশ লাখ টাকা পাঠায়। চলতি বছর ব্যবসা-বাণিজ্য গুটিয়ে তাঁর দেশে ফিরে আসার কথা ছিল।

অন্য দিকে নিহতের পরিবারের ধারণা, ব্যবসার নাম করে পাকিস্তানি নাগরিক বিকি গিয়াস উদ্দিনকে প্রলোভন দেখিয়ে দশ লাখ টাকা বাংলাদেশ থেকে নিয়ে যায়। এরপর বিকি পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে দাবি করেন তাঁরা। তিন ভাই এক বোনের মধ্যে গিয়াস উদ্দিন সবার বড়। সন্তানের মৃত্যুর খবরে তাদের পরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। যেকোনো কিছুর বিনিময়ে লাশটা যেন দেশে আনতে পারে, সে আকুতি জানায় তার পরিবার। এ জন্য তারা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীর সহযোগিতা কামনা করেছেন। নিহতের বাবা-মা, ভাই-বোন সে অপেক্ষায় আছেন।

উল্লেখ্য, যে বিষয়টি সোসালমিডিয়াতে প্রকাশ হলে স্পেন বাংলাদেশ কমিউনিটির কিছু ব্যক্তিবর্গ বাংলাদেশ দুতাবাস মাদ্রিদে যোগাযোগ করলে দুতাবাস বিষয়টি আমলে নেয় নি ।