ঢাকা ০৮:৪৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
স্পেনে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস উদযাপন মহিলা সমিতি বার্সেলোনার পহেলা বৈশাখ উদযাপন বাংলাদেশ কোলতোরাল এসোসিয়েশন এন কাতালোনিয়ার ৯ সদস্য বিশিষ্ট সমন্বয় কমিটি গঠন টেনেরিফে ঈদুল ফিতর উদযাপন ও ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত শান্তাকলমায় শরীয়তপুর জেলা সমিতির ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত নোয়াখালী এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল সম্পন্ন বার্সেলোনায় গোলাপগঞ্জ অ্যাসোসিয়েশনের ইফতার সম্পন্ন বিয়ানীবাজার পৌরসভা ওয়েলফেয়ার ট্রাষ্ট বার্সেলোনার ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত বার্সেলোনায় বিয়ানীবাজার ইয়াং স্টারের ইফতার সম্পন্ন বার্সেলোনা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে তাফসীরুল কুরআন ও ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত

কুলাউড়ায় নিখোজের ২৬ বছর পর ও সন্ধান মিলেনি হান্নানের

জনপ্রিয় অনলাইন
  • আপডেট সময় : ০২:৩৫:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০২১ ৬৬৩ বার পড়া হয়েছে

দিন যায়, মাস যায়, বছর যায় এভাবেই অপেক্ষার প্রহর বাড়ছে। একে একে কেটে  গেছে ২৬টি বছর। তখন কুলাউড়ায় চলছিল বিজয়মেলা। মেলার সামনে থাকা গাড়ি স্ট্যান্ড থেকে লোকজন একটি মাইক্রোবাস ভাড়ায় নিলো। চালকের সঙ্গে ওই গাড়িতে মালিকও গেলেন। এরপর নিখোঁজ গাড়িসহ দু’জনই। থানায় মামলার পর তদন্ত এখান  থেকে ওখানে গড়ায়। আজ অবধি নিখোঁজ দু’জনই ফিরে আসেননি।

নিখোঁজ দু’জন হলেন- কুলাউড়া পৌর শহরের উছলাপাড়া এলাকার বাসিন্দা মাইক্রোবাসের মালিক আব্দুল হান্নান ও গাড়িচালক পার্শ্ববর্তী জুড়ী উপজেলার বাসিন্দা গিয়াস মিয়া।

জানা গেছে, আব্দুল হান্নানের একটি মাইক্রোবাস ছিল। সেটি চালাতেন গিয়াস মিয়া। ১৯৯৫ সালের ১৫ই ডিসেম্বর সন্ধ্যায় চালক গিয়াস গাড়িটি নিয়ে কুলাউড়া পৌর শহরের নির্ধারিত স্ট্যান্ডে ছিলেন। এ সময় অপরিচিত ৭জন যুবক সেখানে আসেন। গাড়িটি ভাড়ায় নিতে চান। অগ্রিম ভাড়া হিসেবে যুবকেরা ১ হাজার ২০০ টাকা  দেন। বাকি টাকা ঢাকায় পৌঁছে  দেওয়ার কথা। এরপর গিয়াস ও হান্নান ওই যুবকদের নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেন। এরপর আর তারা ফেরেননি।

এ ঘটনায় নিখোঁজ হান্নানের ভাই মতিউর রহমান বাদী হয়ে ওই বছরের ১৮ই ডিসেম্বর কুলাউড়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ২৫শে ডিসেম্বর সেটি মামলা আকারে রুজু হয়। পরবর্তীতে মামলাটি পুলিশের  গোয়েন্দা শাখায় (ডিবি) স্থানান্তরিত হয়। ১৯৯৬ সালের ১৫ এপ্রিল ডিবি থেকে মামলাটি সিআইডিতে স্থানান্তর করা হয়। ঘটনার ২৬ বছর অতিবাহিত হলেও নিখোঁজ দুই ব্যক্তি অথবা গাড়িটির কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। আব্দুল হান্নানের পরিবারে তার স্ত্রী রহিমা আক্তার ও তিন ছেলে রয়েছেন। ছেলে শফিউল আলম সৌরভ বলেন, বাবা নিখোঁজের সময় তার বয়স মাত্র চার বছর ছিল। তিনি এখন মাস্টার্স সম্পন্ন করেছেন।  সৌরভ বলেন, বাবার খোঁজ  পেতে পুলিশ, ডিবি, সিআইডি  শেষমেশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পর্যন্ত গিয়েছি। কেউ খোঁজ দিতে পারেনি। তদন্তে কি পাওয়া  গেল, সেটাও জানা সম্ভব হয়নি। বাবা বেঁচে আছেন কি না তাও জানি না। এখনো আমরা তার অপেক্ষায় আছি। ওদিকে জুড়ী উপজেলায় খোঁজ করেও চালক গিয়াসের কোনো স্বজনকে পাওয়া যায়নি।

এলাকাবাসী জানান, একসময় গিয়াসের পরিবার মনতৈল এলাকায় থাকতো। বেশ কয়েক বছর আগে পরিবারের সদস্যরা অন্যত্র চলে গেছেন। কোথায় গেছেন  সে ব্যাপারেও সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য দিতে পারেননি কেউ। মৌলভীবাজার ডিবি পুলিশের প্রাক্তন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (বর্তমানে কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ) বিনয় ভূষণ রায় বলেন, ‘যেহেতু এটা অনেক আগের ঘটনা। তাই এ সম্পর্কে কোনো তথ্য আমার জানা নেই। তবে নিখোঁজ ব্যক্তিদের পরিবারের পক্ষ থেকে   যোগাযোগ করলে বিষয়টি কি পর্যায়ে আছে, তা জানা সম্ভব’।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

কুলাউড়ায় নিখোজের ২৬ বছর পর ও সন্ধান মিলেনি হান্নানের

আপডেট সময় : ০২:৩৫:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০২১

দিন যায়, মাস যায়, বছর যায় এভাবেই অপেক্ষার প্রহর বাড়ছে। একে একে কেটে  গেছে ২৬টি বছর। তখন কুলাউড়ায় চলছিল বিজয়মেলা। মেলার সামনে থাকা গাড়ি স্ট্যান্ড থেকে লোকজন একটি মাইক্রোবাস ভাড়ায় নিলো। চালকের সঙ্গে ওই গাড়িতে মালিকও গেলেন। এরপর নিখোঁজ গাড়িসহ দু’জনই। থানায় মামলার পর তদন্ত এখান  থেকে ওখানে গড়ায়। আজ অবধি নিখোঁজ দু’জনই ফিরে আসেননি।

নিখোঁজ দু’জন হলেন- কুলাউড়া পৌর শহরের উছলাপাড়া এলাকার বাসিন্দা মাইক্রোবাসের মালিক আব্দুল হান্নান ও গাড়িচালক পার্শ্ববর্তী জুড়ী উপজেলার বাসিন্দা গিয়াস মিয়া।

জানা গেছে, আব্দুল হান্নানের একটি মাইক্রোবাস ছিল। সেটি চালাতেন গিয়াস মিয়া। ১৯৯৫ সালের ১৫ই ডিসেম্বর সন্ধ্যায় চালক গিয়াস গাড়িটি নিয়ে কুলাউড়া পৌর শহরের নির্ধারিত স্ট্যান্ডে ছিলেন। এ সময় অপরিচিত ৭জন যুবক সেখানে আসেন। গাড়িটি ভাড়ায় নিতে চান। অগ্রিম ভাড়া হিসেবে যুবকেরা ১ হাজার ২০০ টাকা  দেন। বাকি টাকা ঢাকায় পৌঁছে  দেওয়ার কথা। এরপর গিয়াস ও হান্নান ওই যুবকদের নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেন। এরপর আর তারা ফেরেননি।

এ ঘটনায় নিখোঁজ হান্নানের ভাই মতিউর রহমান বাদী হয়ে ওই বছরের ১৮ই ডিসেম্বর কুলাউড়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ২৫শে ডিসেম্বর সেটি মামলা আকারে রুজু হয়। পরবর্তীতে মামলাটি পুলিশের  গোয়েন্দা শাখায় (ডিবি) স্থানান্তরিত হয়। ১৯৯৬ সালের ১৫ এপ্রিল ডিবি থেকে মামলাটি সিআইডিতে স্থানান্তর করা হয়। ঘটনার ২৬ বছর অতিবাহিত হলেও নিখোঁজ দুই ব্যক্তি অথবা গাড়িটির কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। আব্দুল হান্নানের পরিবারে তার স্ত্রী রহিমা আক্তার ও তিন ছেলে রয়েছেন। ছেলে শফিউল আলম সৌরভ বলেন, বাবা নিখোঁজের সময় তার বয়স মাত্র চার বছর ছিল। তিনি এখন মাস্টার্স সম্পন্ন করেছেন।  সৌরভ বলেন, বাবার খোঁজ  পেতে পুলিশ, ডিবি, সিআইডি  শেষমেশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পর্যন্ত গিয়েছি। কেউ খোঁজ দিতে পারেনি। তদন্তে কি পাওয়া  গেল, সেটাও জানা সম্ভব হয়নি। বাবা বেঁচে আছেন কি না তাও জানি না। এখনো আমরা তার অপেক্ষায় আছি। ওদিকে জুড়ী উপজেলায় খোঁজ করেও চালক গিয়াসের কোনো স্বজনকে পাওয়া যায়নি।

এলাকাবাসী জানান, একসময় গিয়াসের পরিবার মনতৈল এলাকায় থাকতো। বেশ কয়েক বছর আগে পরিবারের সদস্যরা অন্যত্র চলে গেছেন। কোথায় গেছেন  সে ব্যাপারেও সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য দিতে পারেননি কেউ। মৌলভীবাজার ডিবি পুলিশের প্রাক্তন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (বর্তমানে কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ) বিনয় ভূষণ রায় বলেন, ‘যেহেতু এটা অনেক আগের ঘটনা। তাই এ সম্পর্কে কোনো তথ্য আমার জানা নেই। তবে নিখোঁজ ব্যক্তিদের পরিবারের পক্ষ থেকে   যোগাযোগ করলে বিষয়টি কি পর্যায়ে আছে, তা জানা সম্ভব’।